দেশের সবখানে ফুটবলকে ছড়িয়ে দিতে চাইঃ ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুষ্টিয়া
ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের সবখানে ফুটবলকে ছড়িয়ে দিতে চান যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) বিকেলে কুষ্টিয়ায় শেখ কামাল স্টেডিয়াম নির্মাণকাজের উদ্বোধন শেষে তিনি একথা বলেন। 

তিনি বলেন, বিভিন্ন খেলাধুলায় জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব দিচ্ছে এই কুষ্টিয়া জেলার খেলোয়াড়রা। এ জেলায় একটা ভালো মানের স্টেডিয়াম করতে ইচ্ছেপোষণ করেছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কুষ্টিয়ার জননেতা মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি। তারই ধারাবাহিকতায় আমরা আজকে এই কুষ্টিয়ায় শেখ কামাল স্টেডিয়ামের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে পেরেছি। এই স্টেডিয়ামটি প্রায় ৪৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে। 

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল আরও বলেন, শেখ কামাল স্টেডিয়ামে বড় বড় আন্তর্জাতিক ও জাতীয় পর্যায়ের টুর্নামেন্ট আয়োজন করা যাবে। এ রকম স্টেডিয়াম প্রতিটি জেলায় নির্মাণ করা হচ্ছে। যেখানে ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবলসহ সব ধরনের খেলাধুলা করা যাবে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, কুষ্টিয়ার এই মাঠ থেকেই গড়ে উঠেছেন জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমন, মোহাম্মদ মিথুন, এনামুল হক বিজয়দের মতো সব তারকা খেলোয়াড়। ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবলেও আকরাম, আশরাফুলের মতো তারকা খেলোয়াড়দের জন্ম এই কুষ্টিয়া জেলায়। এছাড়াও সারাদেশের মধ্যে সেরা সাঁতারু উঠে এসেছে কুষ্টিয়া থেকে। এখানে সাঁতারুদের জন্য আধুনিক সুইমিং পুল নির্মাণ করেছি। এবার এই শেখ কামাল স্টেডিয়াম নির্মাণ সম্পন্ন হলে খুলনা বিভাগের মধ্যে সেরা স্টেডিয়াম হবে। আরও বেশি বেশি খেলোয়াড় তৈরি হবে বলেও যোগ করেন তিনি। 

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি মোহাম্মদ সাইদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া-১ আসনের (দৌলতপুর) সংসদ সদস্য আ ক ম সরওয়ার জাহান বাদশাহ, কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, পুলিশ সুপার মো. খাইরুল আলম, কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদর উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা, কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী, ফুটবল এসোসিয়েশনের মকবুল হোসেন লাভলুসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ কুষ্টিয়া জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য কুষ্টিয়ায় নির্মিত হচ্ছে খুলনা বিভাগের মধ্যে সবচেয়ে বড় ও আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসংবলিত আন্তর্জাতিক মানের শেখ কামাল স্টেডিয়াম। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের তত্ত্বাবধানে ১৩ একর জায়গা নিয়ে প্রায় ৪৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে স্টেডিয়ামটি। এটির নির্মাণ শেষ হলে কুষ্টিয়ার ক্রীড়াঙ্গনে সূচিত হবে এক নবদিগন্তের।

টাইগার যুবাদের জয়ের লক্ষ্য ১৪৯



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
জুনিয়র টাইগাররা

জুনিয়র টাইগাররা

  • Font increase
  • Font Decrease

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে নিজেদের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে ৪৮.১ ওভারে ১৪৮ রানের পুঁজি গড়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

ব্যাট হাতে দাপট দেখিয়েছেন পুনিয়া মেহরা। খেলেন ৪৩ রানের দুরন্ত এক ইনিংস। ধ্রুব পরাশরের ব্যাট থেকে আসে ৩৩ রান। ক্যাপ্টেন আলিশান শারাফু এনে দেন ২৩ রান।

বাংলাদেশের হয়ে তিন উইকেট শিকার করেন রিপন মন্ডল। দুটি করে উইকেট নেন আশিকুর জামান ও তানজিম হাসান সাকিব।

তার আগে সেন্ট কিটসের ওয়ার্নার পার্কে টস জিতে ফিল্ডিং বেছে নেয় জুনিয়র টাইগাররা।

;

মিরাজের প্রথম জয়, রিয়াদের টানা দ্বিতীয় হার



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন নাসুম আহমেদ

৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন নাসুম আহমেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্যটা ছিল প্রথম জয় ছিনিয়ে নেওয়ার। স্বপ্নটা সত্যি হওয়ার আভাসও মিলেছিল। তামিম ইকবাল হাঁকালেন দারুণ এক ফিফটি। কিন্তু বাকি ব্যাটসম্যানটা লিখলেন ব্যর্থতার গল্প। ফলে ফল যা হওয়ার তাই হলো। ম্যাচসেরা নাসুম আহমেদের কিপ্টেমি বোলিংয়ে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের কাছে ৩০ রানে হার মানল মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা। এনিয়ে টানা দুই ম্যাচে ধরাশায়ী হলো ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। আর অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজের দল পেল প্রথম জয়।

এবারের বিপিএলে এই প্রথম পরে ব্যাটিং করা দল হারের তেতো স্বাদ হজম করল। এর আগে টস জিতে বোলিং বেছে নেয়া তিন দলই জয়ের দেখা পেয়েছে। দ্বিতীয় দিনে এসে পেল না শুধু ঢাকা।

দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে টানা দুই ম্যাচে অর্ধ-শতকের দেখা পেলেন তামিম। দেশসেরা এ ওপেনার ৪৫ বলে ৬ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় পেলেন ৫২ রানের দারুণ এক ক্রিকেটীয় ইনিংস। কিন্তু বাকি ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ঢাকা ১৯.৫ ওভারেই গুটিয়ে ১৩১ রানে।

শেষ দিকে ইসুরু উদানা (১৬) ও শুভাগত হোম (১৩) চেষ্টা করেও দলকে লক্ষ্যে পৌঁছে দিতে পারেননি। আর আন্দ্রে রাসেল তো হতাশ করেন ১২ রান নিয়ে সাজঘরে ফিরে। চট্টগ্রামের জার্সি গায়ে কিপ্টেমি বোলিংয়ে ৯ রানে ৩ উইকেট নেন নাসুম আহমেদ। শরিফুল ইসলাম ৩৪ রান খরচায় নেন ৪ উইকেট।

একটি অলিখিত নিয়ম যেন হয়ে যাচ্ছে এবারের বিপিএলে। দিনের প্রথম ম্যাচে রান হবে না। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে ছুটবে রানের ফোয়ারা। আসরের আজ দ্বিতীয় দিনের প্রথম ম্যাচে সিলেট সিক্সার্স গুটিয়ে গেল ৯৬ রানে। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে এসেই ব্যাটিংয়ের চিত্রনাট্যটা পাল্টে যায়। জয়ের জন্য মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার সামনে ১৬২ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর ছুঁড়ে দেয় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স।

মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুরন্ত ব্যাটিং করলেন উইল জ্যাক। তবে ৯ রানের জন্য অর্ধ-শতক মিস করেন এ ইংলিশ ওপেনার। ২৪ বলে ৬ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় খেলেন ৪১ রানের দারুণ এক ইনিংস।

শেষ দিকে ৩৭ রান যোগ করেন বেনি হাওয়েল। সাব্বির রহমান ও মেহেদী হাসান মিরাজ এনে যথাক্রমে ২৯ ও ২৫ রান। এতেই নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স গড়ে ১৬১ রানের লড়াকু স্কোর। ঢাকার জার্সি গায়ে একাই তিন উইকেট শিকার করেন রুবেল হোসেন। একটি করে উইকেট নেন আরাফাত সানি, ইসুরু উদানা, শুভাগত হোম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

;

জয়ের জন্য ঢাকার দরকার ১৬২



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
উইল জ্যাকস

উইল জ্যাকস

  • Font increase
  • Font Decrease

একটি অলিখিত নিয়ম যেন হয়ে যাচ্ছে এবারের বিপিএলে। দিনের প্রথম ম্যাচে রান হবে না। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে ছুটবে রানের ফোয়ারা। আসরের আজ দ্বিতীয় দিনের প্রথম ম্যাচে সিলেট সিক্সার্স গুটিয়ে গেল ৯৬ রানে। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে এসেই ব্যাটিংয়ের চিত্রনাট্যটা পাল্টে গেল। জয়ের জন্য মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার সামনে ১৬২ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর ছুঁড়ে দিয়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স।

মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুরন্ত ব্যাটিং করলেন উইল জ্যাক। তবে ৯ রানের জন্য অর্ধ-শতক মিস করেন এ ইংলিশ ওপেনার। ২৪ বলে ৬ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় খেলেন ৪১ রানের দারুণ এক ইনিংস।

শেষ দিকে ৩৭ রান যোগ করেন বেনি হাওয়েল। সাব্বির রহমান ও মেহেদী হাসান মিরাজ এনে যথাক্রমে ২৯ ও ২৫ রান। এতেই নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স গড়ে ১৬১ রানের লড়াকু স্কোর।

ঢাকার জার্সি গায়ে একাই তিন উইকেট শিকার করেন রুবেল হোসেন। একটি করে উইকেট নেন আরাফাত সানি, ইসুরু উদানা, শুভাগত হোম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

;

টস হেরে ব্যাটিংয়ে চট্টগ্রাম, বোলিংয়ে ঢাকা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে টস জিতে বোলিং বেছে নিয়েছে মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা। টস হেরে শুরুতে ব্যাট হাতে মাঠে নেমেছে ক্যাপ্টেন মেহেদী হাসান মিরাজের দল।

মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথম জয়ের দেখা পেতে ঢাকা ও চট্টগ্রামে নেমেছে অপরিবর্তিত দল নিয়ে। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী দিনে কেননা দুদলই নিজেদের প্রথম ম্যাচে হার মেনেছে। প্রথম দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা পরাজিত হয়েছে খুলনা টাইগার্সের কাছে। আর প্রথম ম্যাচে চট্টগ্রাম ধরাশায়ী হয়েছে ফরচুন বরিশালের কাছে।

মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা একাদশ: মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (ক্যাপ্টেন), তামিম ইকবাল, নাঈম শেখ, জহুরুল ইসলাম, শুভাগত হোম চৌধুরী, আরাফাত সানি, রুবেল হোসেন, এবাদত হোসেন চৌধুরী, ইসুরু উদানা, মোহাম্মদ শাহজাদ ও আন্দ্রে রাসেল।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স একাদশকেনার লুইস, শামীম হোসেন, সাব্বির রহমান, আফিফ হোসেন, বেনি হাওয়েল, মেহেদী হাসান মিরাজ (অধিনায়ক), নাঈম ইসলাম, উইল জ্যাকসন, শরিফুল ইসলাম, মুকিদুল ইসলাম ও নাসুম আহমেদ।

;