মিরাজের প্রথম জয়, রিয়াদের টানা দ্বিতীয় হার



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন নাসুম আহমেদ

৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন নাসুম আহমেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্যটা ছিল প্রথম জয় ছিনিয়ে নেওয়ার। স্বপ্নটা সত্যি হওয়ার আভাসও মিলেছিল। তামিম ইকবাল হাঁকালেন দারুণ এক ফিফটি। কিন্তু বাকি ব্যাটসম্যানটা লিখলেন ব্যর্থতার গল্প। ফলে ফল যা হওয়ার তাই হলো। ম্যাচসেরা নাসুম আহমেদের কিপ্টেমি বোলিংয়ে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের কাছে ৩০ রানে হার মানল মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা। এনিয়ে টানা দুই ম্যাচে ধরাশায়ী হলো ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। আর অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজের দল পেল প্রথম জয়।

এবারের বিপিএলে এই প্রথম পরে ব্যাটিং করা দল হারের তেতো স্বাদ হজম করল। এর আগে টস জিতে বোলিং বেছে নেয়া তিন দলই জয়ের দেখা পেয়েছে। দ্বিতীয় দিনে এসে পেল না শুধু ঢাকা।

দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে টানা দুই ম্যাচে অর্ধ-শতকের দেখা পেলেন তামিম। দেশসেরা এ ওপেনার ৪৫ বলে ৬ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় পেলেন ৫২ রানের দারুণ এক ক্রিকেটীয় ইনিংস। কিন্তু বাকি ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ঢাকা ১৯.৫ ওভারেই গুটিয়ে ১৩১ রানে।

শেষ দিকে ইসুরু উদানা (১৬) ও শুভাগত হোম (১৩) চেষ্টা করেও দলকে লক্ষ্যে পৌঁছে দিতে পারেননি। আর আন্দ্রে রাসেল তো হতাশ করেন ১২ রান নিয়ে সাজঘরে ফিরে। চট্টগ্রামের জার্সি গায়ে কিপ্টেমি বোলিংয়ে ৯ রানে ৩ উইকেট নেন নাসুম আহমেদ। শরিফুল ইসলাম ৩৪ রান খরচায় নেন ৪ উইকেট।

একটি অলিখিত নিয়ম যেন হয়ে যাচ্ছে এবারের বিপিএলে। দিনের প্রথম ম্যাচে রান হবে না। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে ছুটবে রানের ফোয়ারা। আসরের আজ দ্বিতীয় দিনের প্রথম ম্যাচে সিলেট সিক্সার্স গুটিয়ে গেল ৯৬ রানে। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে এসেই ব্যাটিংয়ের চিত্রনাট্যটা পাল্টে যায়। জয়ের জন্য মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার সামনে ১৬২ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর ছুঁড়ে দেয় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স।

মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুরন্ত ব্যাটিং করলেন উইল জ্যাক। তবে ৯ রানের জন্য অর্ধ-শতক মিস করেন এ ইংলিশ ওপেনার। ২৪ বলে ৬ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় খেলেন ৪১ রানের দারুণ এক ইনিংস।

শেষ দিকে ৩৭ রান যোগ করেন বেনি হাওয়েল। সাব্বির রহমান ও মেহেদী হাসান মিরাজ এনে যথাক্রমে ২৯ ও ২৫ রান। এতেই নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স গড়ে ১৬১ রানের লড়াকু স্কোর। ঢাকার জার্সি গায়ে একাই তিন উইকেট শিকার করেন রুবেল হোসেন। একটি করে উইকেট নেন আরাফাত সানি, ইসুরু উদানা, শুভাগত হোম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

টেস্ট থেকে ছিটকে গেলেন নাঈম



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
নাঈম হাসান

নাঈম হাসান

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম টেস্টের চতুর্থ দিনে ফিল্ডিং করার সময় আঙুলে চোট পেয়েছেন নাঈম হাসান। সেই ইনজুরি নিয়েই বোলিং করেন তিনি। পরে এক্স-রে করে দেখা যায়, নাঈমের আঙুলে চিড় ধরেছে। 

এই চোটের জন্য মিরপুর টেস্ট থেকে ছিটকে গেছেন ২২ বছর বয়সী এ স্পিনার। তবে নাঈমের বদলি ক্রিকেটারের নাম এখনও ঘোষণা করেনি বিসিবি।

চোটের কারণে এর আগে বাদ পড়েছেন পেসার শরিফুল ইসলাম। এবার দল থেকে ছিটকে গেলেন নাঈম। 

১৫ মাস পর জাতীয় দলে ফিরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে ঘূর্ণি জাদু দেখান এ অফ স্পিনার। ক্যারিয়ারের প্রথম ইনিংসে দেশের হয়ে শিকার করেন ছয় উইকেট। এক ম্যাচ খেলেই ফের দল থেকে ছিটকে পড়লেন তিনি। 

আগামী ২৩ মে মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। 

দল: মুমিনুল হক (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, মাহমুদুল হাসান জয়, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, লিটন কুমার দাস, ইয়াসির আলী চৌধুরী, তাইজুল ইসলাম, এবাদত হোসেন চৌধুরী, খালেদ আহমেদ, নুরুল হাসান সোহান, রেজাউর রহমান রাজা, শহীদুল ইসলাম, নুরুল হাসান সোহান ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

;

জন্মভিটা ছেড়ে মধ্য কলকাতার কোটি কোটি টাকার বাংলোতে সৌরভ!



মায়াবতী মৃন্ময়ী, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বারতা২৪.কম
কলকাতায় নতুন বাড়ি কিনেছেন সৌরভ

কলকাতায় নতুন বাড়ি কিনেছেন সৌরভ

  • Font increase
  • Font Decrease

 

ক্রিকেট ছাড়লেও স্পোর্টস ম্যানেজমেন্ট থেকে মিডিয়া অ্যানকরিং পেরিয়ে রাজনীতিতে ঝলক দেয় সৌরভ গাঙ্গুলির নাম। একদিকে বিজেপির শীর্ষনাম ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে বাড়িতে নৈশভোজে আপ্যায়নের পরদিনই আরেক অনুষ্ঠানে কলকাতার মেয়র ও তৃণমূলের শীর্ষনেতা ফিরহাদ হাকিম ববির সঙ্গে নজরকাড়া উপস্থিতিতে দেখা যায় তাকে। সেই সৌরভ দক্ষিণ কলকাতার বেহালার জন্মভিটা ছেড়ে আবাস গড়ছেন মধ্য কলকাতার কোটি কোটি টাকার বাংলোয়।

খেলা, রাজনীতি, আলোচনার মধ্যমণি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি সৌরভ কলকাতায় নতুন বাড়ি কেনার খবরের পেছনে ছড়াচ্ছে এন্তার কৌতূহল। ৪৮ বছর পরে বেহালার পৈতৃক বাড়ি ছেড়ে সৌরভ পরিবারের সঙ্গে থাকবেন মধ্য কলকাতার লোয়ার রডন স্ট্রিটে। ২৩.৬ কাটা প্লটের ওপর দু-তলা বাড়ি কিনলেন তিনি ভারতীয় ৪০ কোটি টাকায়।

মধ্য কলকাতার ব্যস্ত এলাকায় বাড়ি হলেও প্রাসাদপম বাড়িতে যথেষ্ট প্রাইভেসি থাকছে। রিয়েল এস্টেট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মধ্য কলকাতার এই বাংলোর রাজকীয়তা অতুলনীয়, সৌরভের স্ত্রী ডোনা, কন্যা সানা এবং মা নিরূপা দেবী যে সম্পত্তির যুগ্ম অংশীদার।

অবসরের একদশক পরেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মহলে যথেষ্ট সমাদৃত তিনি। ক্রিকেট প্রশাসক হিসাবেও সফল তিনি। বর্তমানে বেহালার বীরেন রায় রোডে পরিবারের সঙ্গে থাকেন তিনি। জন্ম, বেড়ে ওঠা সবই বেহালায়।

দ্যা টেলিগ্রাফ-এ সৌরভ জানিয়েছেন, “নিজের বাড়ির জন্য দারুণ লাগছে। মধ্য কলকাতায় থাকাও বেশ সুবিধাজনক। তবে যে স্থানে ৪৮ বছর কাটিয়েছি, তা ছেড়ে যাওয়া বেশ কঠিন।”

জানা যাচ্ছে, সৌরভের স্ত্রী ডোনা, মা নিরুপা দেবী এবং কন্যা সানা প্রত্যেকেই এই সম্পত্তির যুগ্ম অংশীদার। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্যবসায়ী অনুপমা বাগড়ি, তাঁর কাকা কেশব দাস বিনানি এবং তাঁর পুত্র নিকুঞ্জের কাছ থেকে গোটা প্লট কিনেছিলেন সৌরভ।

কলকাতার পাওনিয়ার প্রপার্টি ম্যানেজমেন্টের চেয়ারম্যান এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর জিতেন্দ্র খৈতান জানিয়েছেন, কলকাতার রিয়েল এস্টেট ক্ষেত্রে উচ্চবিত্তদের যে যথেষ্ট আকর্ষণ রয়েছে, তা এই বিষয়েই স্পষ্ট। তিনি বলেছেন, “কলকাতার রিয়েল এস্টেট মার্কেট যে অক্ষুণ্ন, তা কোভিড পরবর্তী সময়ে ভালো লক্ষণ। এইচএনআর (বিশাল সম্পত্তির মালিকানা ব্যক্তিবর্গ)-এর কাছেও এই শহর বেশ জনপ্রিয়। এই ঘটনাতেই তা বোঝা যাচ্ছে।”

;

মিরপুর টেস্টেও দর্শক মিরাজ



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মেহেদী হাসান মিরাজ

মেহেদী হাসান মিরাজ

  • Font increase
  • Font Decrease

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে খেলতে পারেননি মেহেদী হাসান মিরাজ। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে পাওয়া চোট নিয়ে এবার মিরপুর টেস্ট থেকেও ছিটকে গেলেন এ অফ স্পিনার।

তাই সোমবার থেকে শুরু হওয়া মিরপুর টেস্টের ১৬ সদস্যের দলে নেই মিরাজের নাম। চোট নিয়ে পেসার শরিফুল ইসলাম ছিটকে গেলেও দলে কাউকে নেয়া হয়নি। ফলে চট্টগ্রাম টেস্টের স্কোয়াডে পরিবর্তন মানে শুধু শরিফুলের বাদ পড়াটা।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন বলেন, ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে মিরাজকে না পাওয়ার কোনো শঙ্কা নেই, 'চট্টগ্রাম টেস্ট শেষে ঢাকায় ফিরে আবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের দল নিয়ে বসব। মিরাজকে আশা করি পাওয়া যাবে ওখানে। ওর রিহ্যাব শুরু হয়ে যাচ্ছে। শরিফুলকে টেস্ট সিরিজে আমরা হয়তো পাব না।'

বাংলাদেশ টেস্ট দল: মুমিনুল হক (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, মাহমুদুল হাসান জয়, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, লিটন কুমার দাস, ইয়াসির আলী চৌধুরী, তাইজুল ইসলাম, মেহেদী হাসান মিরাজ, এবাদত হোসেন চৌধুর, শহীদুল ইসলাম, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, নুরুল হাসান সোহান, রেজাউর রহমান রাজা ও মোসাদ্দেক হোসেন।

;

অমীমাংসিত থেকে গেল চট্টগ্রাম টেস্ট



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
তাইজুলের উইকেট উদযাপন

তাইজুলের উইকেট উদযাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাটিং বলে দিচ্ছিল। ম্যাচ গড়াচ্ছে ড্রয়ের দিকে। বাস্তবে সেটাই হলো।  দুদল ড্র মেনে নিয়েছে। দিমুথ করুনারত্নে ও নিরোশান ডিকভেলার ফিফটিতে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৬০ করতেই খেলা হয়ে যায় ড্র।

চতুর্থ দিন শেষে দুই উইকেট নিয়ে জয়ের আশাই জাগিয়েছিলেন তাইজুল ইসলাম। কিন্তু পঞ্চম ও শেষ দিনের শুরুতে বল হাতে দাপট দেখাতে পারেনি টাইগাররা। সুযোগটাই নেয় লঙ্কানরা। ক্যাপ্টেন করুনারত্নে অর্ধ-শতক হাঁকিয়ে বসেন। ১৩৮ বলে ২ বাউন্ডারিতে খেলেন তিনি ৫২ রানের দাপুটে এক ইনিংস। একটু একটু করে ম্যাচ ঝুঁকে পড়ে ড্রয়ের দিকে। দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে জয় ছিনিয়ে নেয়ার সাহস দেখায়নি সফরকারীরা।

ফিফটির আভাস দিয়েছিলেন কুসল মেন্ডিসও। তবে দুই রানের জন্য হাফ-সেঞ্চুরি মিস করেন তিনি। মারমুখী কুসল টি-টোয়েন্টি স্টাইলে ৪৩ বলে ৮ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় খেলেন ৪৮ রানের বিস্ফোরক এক ইনিংস। ধনাঞ্জয়া ৩৩ রান করে সাজঘরে ফিরে গেলেও ৩৯* রানে অপরাজিত থেকে যান দিনেশ চান্দিমাল। তবে ৯৬ বলে ৬ বাউন্ডারিতে ৬১* রানের অসাধারণ এক ইনিংস খেলে অজেয় থেকে যান নিরোশান ডিকভেলা।

চতুর্থ দিনে বল হাতে জাদু দেখানো তাইজুল আরও দুটি উইকেট নেয় শেষ দিনে। ৩৪ ওভারে ৮২ রান খরচ করে তারকা এ স্পিনার শিকার করেন চার উইকেট। বাকি উইকেটটি যায় সাকিব আল হাসানের পকেটে।

দুই উইকেটের বিনিময়ে ৩৯ রান নিয়ে পঞ্চম দিনের খেলা শুরু করে অতিথি শ্রীলঙ্কা। দিন শেষে ১৮ রানে অপরাজিত ছিলেন করুনারত্নে। শেষ দিনে ব্যক্তিগত স্কোরে যোগ করেন তিনি ৩৪ রান।

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে এখন ০-০ তে সমতা বিরাজ করছে। বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা দুদলই সমান ৪ পয়েন্ট করে পেয়েছে। ঢাকায় দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টটি যারা জিতবে সিরিজ ট্রফি পাবে তারাই।

তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের সেঞ্চুরি আর মাহমুদুল হাসান জয় ও লিটন দাসের ফিফটিতে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ পুঁজি গড়ে ৪৬৫ রান।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এক রানের জন্য ডাবল সেঞ্চুরি মিস করেন ম্যাচসেরা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। তার ব্যাটিং নৈপুণ্যে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কা সবকটি উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করে ৩৯৭ রান।

;