বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট শ্রীরাম



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের টেকনিক্যাল কনসালটেেন্টর দায়িত্বে শ্রীরাম

বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের টেকনিক্যাল কনসালটেেন্টর দায়িত্বে শ্রীরাম

  • Font increase
  • Font Decrease

গুঞ্জন ছিল আসন্ন এশিয়া কাপকে সামনে রেখে শ্রীরাম শ্রীধরনকে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। যদিও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন এই ভারতীয়কে টেকনিক্যাল কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিসিবির সঙ্গে আলোচনার জন্য ২১ আগস্ট দুপুরে বাংলাদেশে আসার কথা রয়েছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর ব্যাটিং ও স্পিন কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করা শ্রীরামের। তার সঙ্গে আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত চুক্তি করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন বিসিবি সভাপতি।

এ প্রসঙ্গে পাপন বলেন, 'শ্রীরাম শ্রীধরনকে আমরা শর্টলিস্ট করেছিলাম। সে আমাদের ওই লিস্টে ছিল। সে আমাদের এখানে আসছে। ২১ তারিখ দুপুর বেলা তার আসার কথা। সে কোচ হিসেবে আসছে না, সে অবশ্যই প্রধান কোচের দায়িত্ব নেবে না। সে আসছে টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত কাজ করতে আসছে সে।'

শ্রীরামকে নেয়ার কারণ হিসেবে পাপন বলেছেন, 'সে যেহেতু আইপিএলে দলের সঙ্গে আছে। তার সঙ্গে যেহেতু সম্পৃক্ততা আছে তার এবং আমরা এমন একজনকে চাইছিলাম যে কিনা টি-টোয়েন্টির সঙ্গে অভিজ্ঞতা আছে। এটা একটা কারণ। আরেকটা হচ্ছে অস্ট্রেলিয়াতে আমাদের বিশ্বকাপ। অস্ট্রেলিয়াতে সে বহুদিন কাজ করেছে। এই দুটো কারণে তাকে আমরা টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট হিসেবে নিচ্ছি।'

বেশ কয়েক বছর ধরে কোচ হিসেবে কাজ করছেন শ্রীরাম। জাতীয় দল, বয়স ভিত্তিক কিংবা ফ্র্যাঞ্চাইজি সব জায়গাতেই কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে তার। অস্ট্রেলিয়া দলে স্পিন কোচ হিসেবে কাজ করেছেন বেশ কিছু দিন। ২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া 'এ' দলের ভারত সফরে কোচিং প্যানেলে ছিলেন তিনি।

২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া দলের বাংলাদেশ সফরেও ছিলেন তিনি। ২০১৯ সালে অ্যাশেজ সিরিজেও অস্ট্রেলিয়ার কোচিং প্যানেলের অন্যতম সদস্য করা হয়েছিল তাকে। ২০১৯ সালে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর ব্যাটিং ও স্পিন কোচ হিসেবেও কাজ করেছেন শ্রীরাম।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ক্রিকেট খেলারও অভিজ্ঞতা আছে শ্রীরামের। ২০০০ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ভারত জাতীয় দলে খেলেছেন তিনি। এই সময়ে ভারতের জার্সিতে ৮টি ওয়ানডে খেলেছেন। তামিলনাড়ূর এ ক্রিকেটারের ঘরোয়া রেকর্ডও খুবই সমৃদ্ধ। রঞ্জি ট্রফিতে এক মৌসুমে রেকর্ড ১০৭৫ রান করেছেন তিনি।

   

৮৬ রানে হার বাংলাদেশের, সোধির ৬ উইকেট



বার্তা২৪ স্পোর্টস
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইশ সোধি। নিঃসন্দেহে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড দ্বিতীয় ওয়ানডের সবচেয়ে আলোচিত নাম। ব্যাট হাতে ৩৫টি মূল্যবান রান করেছেন। হাসান মাহমুদের তাকে মানকাডিং করা এবং লিটন দাসের 'স্পিরিট অব ক্রিকেট'-এর দৃষ্টান্ত হয়ে ওঠার মাধ্যমে তাকে ক্রিজে ফিরিয়ে আনা ছিল নিউজিল্যান্ড ইনিংসের বড় হাইলাইট।

সোধি সেখানে থামেননি। বল হাতেও আলোচনার কেন্দ্রে এনেছেন নিজেকে। ক্যারিয়ারসেরা বোলিংয়ে অনেকটা যেন একা হাতেই গুঁড়িয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। তাতে মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৮৬ রানের বড় হার জুটেছে বাংলাদেশের ভাগ্যে। প্রথম ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় আগামী মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে এখন বাংলাদেশের জন্য সিরিজ বাঁচানোর লড়াই।

শনিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন কিউই অধিনায়ক লকি ফার্গুসন। ৩৬ রানের মাঝেই ৩ উইকেট খুইয়ে কিছুটা বিপদেই পড়েছিল নিউজিল্যান্ড। তবে চতুর্থ উইকেটে দায়িত্বশীল ব্যাটিং করে শুরুর ধাক্কা সামাল দেন হেনরি নিকোলস (৪৯) এবং টম ব্লানডেল (৬৮)। এরপরও ঠিক বিপদমুক্ত হয়নি সফরকারীরা। ১৮৭ রানে যখন একাদশের শেষ স্বীকৃত ব্যাটার কোল ম্যাককঞ্চি ফিরে যান, তখনও লড়াইয়ের পুঁজি জোগাড় হয়নি নিউজিল্যান্ড।

তবে শেষ দিকে লেজের সারির ব্যাটারদের দৃঢ়তায় সে ২৫৪ রানের লড়াকু পুঁজি পায় নিউজিল্যান্ড। ব্যাট হাতে টেল-এন্ডারদের সে প্রতিরোধের নেতৃত্ব দেন ইশ সোধি। ৩৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ এক ইনিংস খেলেন তিনি।

অথচ ব্যক্তিগত ১৭ রানেই শেষ হতে পারত সোধির ইনিংস, যদি বাংলাদেশ অধিনায়ক লিটন দাস 'স্পিরিট অব ক্রিকেট'-এর প্রতিমূর্তি না হয়ে উঠতেন!

ব্যাট হাতে আলো ছড়ানো তার মূল কাজ বোলিংয়েই বা পিছিয়ে থাকবেন কেন! আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার পথচলা যে দেশের বিপক্ষে শুরু হয়েছিল, দশ বছর পর সে দেশেই ওয়ানডের ক্যারিয়ারসেরা বোলিং করলেন সোধি। ১০ ওভার বোলিং করে ৩৯ রানে ঝুলিতে পুরলেন ৬ উইকেট।

সোধির বোলিং উৎকর্ষের দিনে আরও একবার হাড়গোড় বেরিয়ে পড়েছে বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের। দীর্ঘ সময় পর দলে ফেরা দুই সিনিয়র তামিম ইকবাল (৪৪) এবং মাহমুদউল্লাহ (৪৯) বাদে ২০-এর কোটা ছুঁতে পেরেছেন শুধু লেজের সারির নাসুম আহমেদ (২১)। আড়াই বছর পর দলে ফেরা সৌম্য সরকার ফিরেছেন রানের খাতা খোলার আগেই।

ব্যাটিং ব্যর্থতায় মাত্র ৪১.১ ওভারে ১৬৮ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। সিরিজ বাঁচাতে এখন শেষ ম্যাচে জিততেই হবে বাংলাদেশকে।

;

সোধির ঘূর্ণিতে কাটা পড়লেন তামিম-হৃদয়ও



বার্তা২৪ স্পোর্টস
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তানজিদ হাসান তামিম এবং সৌম্য সরকারকে এক ওভারেই ধরাশায়ী করেছিলেন ইশ সোধি। এরপর তাওহিদ হৃদয় এবং তামিম ইকবালকেও নিজের ঘূর্ণিজালে বন্দি করে সাজঘরে ফিরিয়েছেন এই কিউই লেগ স্পিনার।

সোধির গুগলি বুঝতে পারেননি হৃদয়। এলোপাতাড়ি ব্যাট চালিয়ে বল টেনে এনেছিলেন স্টাম্পে। তাতে ৭ বল খেলে ৪ রান যোগ করেই থামতে হয় তাকে।

লম্বা সময় পর একাদশে ফিরে শুরুতে নড়বড়ে হলেও ক্রমেই আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠছিলেন তামিম ইকবাল। ফিফটি যখন হাতের নাগালে প্রায়, তখন সোধির বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিলেন। আম্পায়ার আঙুল উঁচিয়ে সিদ্ধান্ত দেয়ার আগেই সাজঘরের দিকে হাঁটা ধরেন তামিম। একাদশে প্রত্যাবর্তনের ম্যাচে তার ব্যাট থেকে এলো ৪৪ রান।

চার উইকেট নিয়ে বাংলাদেশকে ব্যাকফুটে ঠেলে দিয়েছেন সোধি। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৫ উইকেটে ১০২ রান তুলেছে বাংলাদেশ। ২৩* রানে ব্যাট করছেন অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ, তাকে সঙ্গ দিচ্ছেন শেখ মেহেদী হাসান (২*)।

;

এক ওভারেই তানজিদ-সৌম্যর বিদায়, বিপাকে বাংলাদেশ



বার্তা২৪ স্পোর্টস
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইশ সোধির এক ওভারেই দুই উইকেট হারালো বাংলাদেশ। উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে এলেন তরুণ ব্যাটার তানজিদ হাসান তামিম এবং দীর্ঘ সময় পর দলে ফেরা সৌম্য সরকার।

সোধির করা ইনিংসের ১১তম ওভারের দ্বিতীয় বলটিকে শুন্য ভাসিয়ে খেলেও অল্পের জন্য বেঁচে গিয়েছিলেন তানজিদ। মিড অফে থাকা ফিল্ডারের নাগালের বাইরে থাকায় সে বল চলে যায় সীমানার ওপারে। এর এক বল পর আবারও একই কায়দায় খেলার চেষ্টা করলেন, এবার আর মিড অফে থাকা কিউই অধিনায়ক লকি ফার্গুসনকে বোকা বানানো সম্ভব হলো না। হালকা ঝাঁপ দিয়ে সহজেই বল তালুবন্দি করেন তিনি।

তিন চারে ১২ রান করা তানজিদের ইনিংস সেখানেই থামে। চারে নেমে দুই বল খেলতেই সোধিকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন ফর্ম হাতড়ে বেড়ানো সৌম্য সরকার। আউট অব ফর্ম হওয়ার পরও তাকে দলে সুযোগ দিয়েছিলেন নির্বাচকরা। হয়ত ভেবেছিলেন, ঘরের মাঠে কিউইদের বিপক্ষে যদি ব্যাটে হাসি ফেরে তার। তবে সে আশায় আপাতত গুঁড়ে বালি!

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের রান ১২ ওভারে ৩ উইকেটে ৬৫। ৩৯* রানে ব্যাট করছেন ওপেনার তামিম ইকবাল।

;

শুরুতেই ফিরলেন লিটন



বার্তা২৪ স্পোর্টস
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শুরু থেকেই স্বচ্ছন্দ ছিলেন না বাংলাদেশের দুই ওপেনার লিটন দাস এবং তামিম ইকবাল। তামিম ক্যাচ তুলে দিয়েও অল্পের জন্য বেঁচে গিয়েছিলেন, তবে লিটন পারলেন না। কাইল জেমিসনের বলে ডিপ থার্ডম্যানে তালুবন্দি হয়ে ফিরলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

সাজঘরের পথে হাঁটা শুরুর আগে লিটনের ব্যাট থেকে এসেছে ১৬ বলে ৬ রান। ১৯ রানে প্রথম উইকেট হারাল বাংলাদেশ।

এর আগে মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে শুরুতে কোণঠাসা হয়ে পড়লেও শেষ অব্দি চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে নিউজিল্যান্ড। বাংলাদেশকে ছুঁড়ে দেয় ২৫৫ রানের চ্যালেঞ্জ।

কিউইদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৮ রান করেন টম ব্লান্ডেল। বাংলাদেশের হয়ে ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন অভিষিক্ত পেসার খালেদ আহমেদ ও অফ স্পিনার শেখ মেহেদী হাসান।

;