আজ অধিনায়কের জন্যই খেলুক জিম্বাবুয়ে!

স্পোর্টস এডিটর, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ক্যারিয়ারের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নামছেন মাসাকাদজা

ক্যারিয়ারের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নামছেন মাসাকাদজা

  • Font increase
  • Font Decrease

এমন ম্যাচের জন্য টিকিট কেটে টাকা খরচ করতে কে চাইবে?

ক্রিকেটীয় পরিভাষায় এমন ম্যাচকে বলে ‘ডেড রাবার’! জিতলেও লাভ নেই। হারলেও ক্ষতি নেই। চট্টগ্রামে তিনজাতি টি-টোয়েন্টিতে আফগানিস্তান-জিম্বাবুয়ের আজ সন্ধ্যায় শুরু হতে যাওয়া ম্যাচের স্ট্যাস্টাস এখন এমনই!

টানা দুই ম্যাচ জিতে আফগানিস্তান গ্রুপ লিডার হয়ে সিরিজের ফাইনালে পৌছে গেছে। আর জিম্বাবুয়ে আপাতত তাদের তিন ম্যাচে হেরে সিরিজ থেকে বিদায় নিয়েছে। সুচিতে ছিলো বিধায় একপ্রকার বাধ্য হয়েই আজকের শেষ ম্যাচটা খেলতে নামছে জিম্বাবুয়ে!

এই ম্যাচে জিতলেও তাদের ফিরে যাওয়ার সুচিতে কোন বদল আসছে না। জিতলেও কোন লাভ নেই-এমন ম্যাচে নামার আগে অনুপ্রেরণাই বা মিলে কই?

তবে জিম্বাবুয়ে তাদের এবারের বাংলাদেশ সফরে আজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের শেষ ম্যাচে খেলতে নামার আগে অন্তত দুটো বিষয় থেকে অনুপ্রেরণা খুঁজছে।

প্রথমত: টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এখন পর্যন্ত আফগানিস্তানকে হারাতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। আজ সেই সুযোগটা কাজে লাগাতে পারে তারা এই ম্যাচে। টেনশনহীন ম্যাচে নিজ শক্তিতে জ্বলে উঠার শেষ সুযোগ তাদের সামনে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আফগানিস্তানও অজেয়-এই রেকর্ডটা আজ ভেঙ্গে দেয়ার সুযোগ থাকছে জিম্বাবুয়ের।

পারবে তারা সুযোগটা কাজে লাগাতে?

দ্বিতীয়ত: জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজার এটাই শেষ আর্ন্তজাতিক ম্যাচ। অধিনায়ককে একটা ভাল বিদায় সংবর্ধনা দেয়ার উপায় হিসেবে বেছে নিতে পারে এই ম্যাচকে জিম্বাবুয়ে। শুধু টি-টোয়েন্টি নয়, টেস্ট এবং ওয়ানডে ফরম্যাটেও মাসাকাদজা জিম্বাবুয়ের অনেক পরীক্ষিত ক্রিকেটার।

 বিদায় বেলা একটা জয় নিশ্চয়ই দাবি করেন বিগম্যান মাসাকাদজা!

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পেছনের ৮ টি-টোয়েন্টিতে প্রায় সময় একই ফমূর্লা নিয়ে ম্যাচ জিতেছে আফগানিস্তান। মারকাটারি মার্কা ব্যাটিং এবং পরে স্পিন বিষে প্রতিপক্ষকে নীল! এই ছকে ক্রিকেট খেলেই আফগানিস্তান এবারের তিনজাতি সিরিজেও জিম্বাবুয়েকে প্রথম মোকাবেলায় উড়িয়ে দেয়।

তিনজাতি এই টি- টোয়েন্টিতে শুধুমাত্র বাংলাদেশের বিপক্ষে উদ্বোধনী ম্যাচে বড় একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা তৈরি করতে পেরেছিল জিম্বাবুয়ে। বাকি দুই ম্যাচে খুবই মানের ক্রিকেট খেলা জিম্বাবুয়ে প্রতিপক্ষের কাছে পাত্তাই পায়নি। বিশেষ করে তাদের টি-টোয়েন্টির বোলিংকে ভীষণতর ভোঁতা মনে হচ্ছে। আফগানিস্তান তাদের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে তুলেছিলো ১৯৭ রান। বাংলাদেশ তুলেছে ১৭৫ রান।

আজ চট্টগ্রামের টি- টোয়েন্টিতে ভিন্ন কোনো কাহিনী লিখতে হলে জিম্বাবুয়েকে অবশ্যই শক্তিমান হয়ে ফিরতে হবে। শুরুর দিনের সিনিয়র ব্যাটসম্যানদের ফর্মে ফিরতেই হবে। আফগানিস্তানের স্পিন সামাল দেয়ার দায়িত্বটা শুরুর এই সিনিয়রদেরও নিতে হবে।
 
 জিম্বাবুয়ের টি- টোয়েন্টির ব্যাটিংয়ের সব রেকর্ড হ্যামিল্টন মাসাকাদজার। এই ফরমেটে দলের ৬৯টি টি- টোয়েন্টি ম্যাচের মধ্যে সর্বোচ্চ ৬৫টি ম্যাচে খেলেছেন তিনি। রানও করেছেন দলের হয়ে সবচেয়ে বেশি। হাফসেঞ্চুরির সংখ্যায়ও দলের বাকিদের সবাইকে ছাড়িয়ে শীর্ষে তিনি। এমনকি টি-টোয়েন্টিতে জিম্বাবুয়ের বাউন্ডারি হাঁকানোর তালিকায়ও মাসাদকাদজাই নাম্বার ওয়ান।

আজকের এই ম্যাচটিতে জিম্বাবুয়ের বাকিদের উচিত হ্যামিল্টন মাসাকাজদার জন্যই খেলা।

আপনার মতামত লিখুন :