ফেসবুকে ব্র্যান্ড ইমেজকে নিরাপদ করবেন যেভাবে



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রোহান নোরোনহা, ফেসবুক পার্টনার ডিরেক্টর, এইচটিটিপুল বাংলাদেশ (এইচটিটিপুল- ফেসবুক অনুমোদিত সেলস পার্টনার)

ফেসবুক ডিজিটাল মার্কেটিং প্ল্যাটফর্মের অন্যতম মাধ্যম হয়ে উঠেছে। বিজ্ঞাপনদাতাদের জন্য মার্কেটিংকে আগের চেয়ে আরও সহজলভ্য করেছে ফেসবুক এবং একটি প্ল্যাটফর্ম হিসেবে যেন ফেসবুকের ব্যবহার আরও সহজ ও নিরাপদ হয়, সেজন্য তারা নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

ডিজিটাল বিশ্বে বিজ্ঞাপনদাতাদের ব্র্যান্ডের নিরাপত্তা সম্পর্কে সচেতন হওয়া জরুরি। আর এজন্য  ক্ষতিকর বা অনুপযুক্ত কন্টেন্ট বর্জন করার পাশাপাশি গ্রাহকদের আস্থা অর্জন করতে হবে।

ব্র্যান্ড নিরাপত্তা ক্ষেত্রে বিভিন্ন ঝুঁকি মোকাবেলা করতে এবং ব্র্যান্ডগুলোর জন্য একটি নিরাপদ পরিবেশ তৈরি করতে, ফেসবুক ক্রমাগত তাদের বিজনেস ম্যানেজারের নিরাপত্তা বাড়ানোর কাজ করে যাচ্ছে। কিছু নির্দিষ্ট কন্টেন্ট, যা বিজ্ঞাপনদাতা ও ব্র্যান্ডগুলোর ক্ষতির কারণ হতে পারে, এমন কন্টেন্টের সাথে বিজ্ঞাপনগুলো যাতে না দেখানো হয় সেজন্য বর্তমানে তিনটি ব্র্যান্ড সেফটি কন্ট্রোল রয়েছে।

ব্লক লিস্ট: ব্র্যান্ডের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো যেকোন প্রচারণা যেন কোনো ক্ষতিকর বা বিতর্কিত ওয়েবসাইট বা অ্যাপে না যায়। ফেসবুক বিজনেস ম্যানেজার -এর ব্লক লিস্ট ব্যবহার করে খুব সহজেই ব্র্যান্ডের বিজ্ঞাপনগুলো বা প্রচারণাগুলো বিতর্কিত সাইট বা অ্যাপে যাওয়া বন্ধ করা যায়। এই প্রক্রিয়াটিকে আরও সহজ করার জন্য, বিজ্ঞাপনদাতারা নিজেরা কোনো সাইট ব্লক না করে ফেসবুকের পাবলিশার লিস্ট ব্যবহার করে ব্লকলিস্ট তৈরি করতে পারেন।

ইনভেন্টরি ফিল্টার: ইনভেন্টরি ফিল্টার-এর মাধ্যমে বিজ্ঞাপনদাতা তাদের বিজ্ঞাপন কোন ধরণের কন্টেন্টের সাথে প্রদর্শিত হবে তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন এবং এর ফলে ইউআরএল-ও ব্লক হয় না। বিজ্ঞাপনদাতারা অডিয়েন্স নেটওয়ার্ক, ফেসবুক ইন-স্ট্রিম এবং ফেসবুক ইন্সট্যান্ট আর্টিকেলগুলোর জন্য ফুল ইনভেন্টরি, স্ট্যান্ডার্ড ইনভেন্টরি বা লিমিটেড ইনভেন্টরি নির্বাচন করতে পারেন। তবে কিছু অ্যাপ, ওয়েবসাইট এবং ফেসবুক পেইজ যা ফেসবুকের নীতিমালা মেনে চলে সেগুলোর ক্ষেত্রে এই অপশনের কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে।

লাইভ স্ট্রিম অপ্ট-আউট: ফেসবুকের ইন-স্ট্রিম ভিডিও প্লেসমেন্ট কিছু সিলেক্টেড গেমিং পার্টনারদের জন্য করা যেতে পারে। তবে বিজ্ঞাপনদাতারা চাইলে গেমিং পার্টনার লাইভ স্ট্রিমগুলোকে বাদ দিতে অথবা গত ৯০ দিনে লাইভ গেমিং স্ট্রিম প্রকাশকারীদের ফেসবুক পেইজগুলোতে ব্লকলিস্টে যুক্ত করতে পারেন।

কিছু সহজ ধাপ অনুসরণ করে বিজ্ঞাপনদাতারা তাদের ব্র্যান্ডের নিরাপত্তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন:

১. বিজনেস ম্যানেজার ওপেন করতে হবে

২. তা সিলেক্ট করার পর ব্র্যান্ড সেফটি অপশনে ক্লিক করতে হবে। এরপর ওভারভিউ অপশন ওপেন হবে যেখানে ফেসবুকের ব্র্যান্ড সেফটি কন্ট্রোলস সম্পর্কে জানা যাবে।

৩. নিজের ইনভেন্টরি ফিল্টার সেটিংস দেখতে বাম দিকে থাকা ইনভেন্টরি ফিল্টার-এ ক্লিক করতে হবে।

উপরে থাকা একটি অ্যাড অ্যাকাউন্ট সিলেক্ট করতে হবে। সেখানে ইনভেন্টরি ফিল্টার সেটিংস দেয়া আছে কিনা তা দেখতে হবে। এখানে ফেসবুকে ইন-স্ট্রিম ভিডিও, ইন্সট্যান্ট আর্টিকেল এবং অডিয়েন্স নেটওয়ার্ক-এর জন্য সেটিংস পরিবর্তন করা যাবে।

৪. যদি কারো ব্লকলিস্ট থেকে থাকে তবে বাম দিকে থাকা ব্লকলিস্ট অপশনে ক্লিক করে তা দেখা যাবে।

ব্লকলিস্টে কিছু যোগ করতে চাইলে বা কোনো কিছু ব্লকলিস্ট থেকে বাদ দিতে চাইলে, কিংবা ব্লকলিস্ট ডাউনলোড বা ডিলিট করতে চাইলে সেই ব্লকলিস্টে থাকা তিনটি ডটের (…) উপর ক্লিক করে একটি ড্রপ-ডাউন মেনুতে বিভিন্ন অপশন পাওয়া যাবে।

৫. বিজ্ঞাপনগুলো কোন কোন জায়গায় দেখানো হবে তার তালিকা ডাউনলোড করতে বাম দিকে থাকা পাবলিশার লিস্টে ক্লিক করতে হবে যার মধ্যে অডিয়েন্স নেটওয়ার্ক অ্যাপস ও বিভিন্ন ওয়েবসাইট এবং ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এবং ইন-স্ট্রিম ভিডিওগুলোর জন্য ফেসবুক পেইজ রয়েছে।

৬. বিজ্ঞাপনগুলো ক্যাম্পেইনের সময় ও তার পরবর্তীতে কোথায় কোথায় দেখানো হয়েছে তা দেখতে বাম দিকে থাকা পাবলিশার ডেলিভারি রিপোর্ট-এ ক্লিক করতে হবে।

ফেসবুক ব্র্যান্ড এবং এর ব্যবহারকারীদের জন্য একটি নিরাপদ প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ, হোক সেটা বিভিন্ন ব্যবসার প্রচারণার ক্ষেত্রে বা শুধুমাত্র বন্ধু ও প্রিয়জনদের সাথে সংযুক্ত থাকার ক্ষেত্রে। উপরে তালিকাভুক্ত কাজগুলো ছাড়াও ফেসবুক অন্যান্য ব্র্যান্ড সেফটি ম্যানেজমেন্ট-এ থাকা শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান যেমন- ডাবল ভেরিফাই এবং ইন্টিগ্রাল অ্যাড সায়েন্সের পাশাপাশি অন্যান্য সহযোগী প্রতিষ্ঠান ফোরএ- এর আইএবি এবং জেআইসিডাব্লিউ -এর ডিজিটাল ট্রেডিং স্ট্যান্ডার্ডস গ্রুপের ব্র্যান্ড সেফটি অডিট, এবং  আইএবি ইউকে গোল্ড স্ট্যান্ডার্ড এবং ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অব অ্যাডভার্টাইজার’স গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর রেসপন্সিবল মিডিয়া (জিএআরএম)-এর সহযোগিতাও নিচ্ছে।

ব্র্যান্ড ইমেজ-এর খেয়াল রাখা সাফল্যের মূল চাবিকাঠি। অনলাইনে ব্র্যান্ড নিরাপত্তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচারণার ক্ষেত্রে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হওয়া উচিত।