ল্যাপটপ নাকি ডেস্কটপ- ২০২২ সালে কোনটি কিনবেন?



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সামনে স্কুল, কলেজ এবং ইউনিভার্সিটি খুলে যাচ্ছে তাই বর্তমান এবং ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে একটি পিসি কিনতে হবে - সেটি হোক ল্যাপটপ বা ডেক্সটপ। আর কেনার আগে নিজের প্রয়োজন, বাজেট এবং ২০২২ সালের প্রযুক্তির কথা চিন্তা করেই কিনতে হবে। তা না হলে আপনার পিসি খুব সহজেই ব্যাকডেটেড হয়ে যেতে পারে এবং ২০২২ সালের আধুনিক সফ্যটওয়ার চালাতে অনেক স্লো হতে পারে। আসুন জেনে নিই ৫টি পয়েন্ট যেগুলো আপনাকে সঠিক পিসিটি কিনতে সাহায্য করবে ।

১। বহনযোগ্যতা: যদি আপনি খুব বেশি ভ্রমণ করেন তাহলে ল্যাপটপের বিকল্প নেই। কারণ এগুলো সহজে বহন করা যায় আর ব্যাটারি ব্যাকআপ থাকায় ভ্রমণের সময়ও কাজ করা যায়। ডেক্সটপ পিসি একটি নির্দিষ্ট স্থানে রেখে কাজ করতে হয়। তাছাড়া কারেন্ট চলে গেলে হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায় বিধায় কাজের অনেক ক্ষতি হয়। এইজন্য অতিরক্ত ইউপিএস লাগে কিন্তু সেগুলো মাত্র ১৫-২০ মিনিট ব্যাকআপ দেয়। অপরদিকে ল্যাপটপের ব্যাকআপ  সাধারনত ২ ঘণ্টা বা তারও অধিক হয়ে থাকে। তাই ছাত্র, শিক্ষকদের জন্য ল্যাপটপ হতে পারে প্রথম পছন্দ। অন্যদিকে যে সব কাজ একটি  নির্দিষ্ট জায়গায় সবসময় করা যায় সে স্থানে ব্যবহার করার জন্য ডেক্সটপ পিসি কেনা যেতে পারে।

২। স্পেসিফিকেশন: এক সময় ডেক্সটপ পিসি ল্যাপটপের চেয়ে অনেক গুণ বেশি শক্তিশালী ছিল। কিন্তু এখন এই কথাটি আর প্রযোজ্য নয়। ল্যাপটপ এবং ডেক্সটপ প্রায় একই মানের পাওয়া যায় এবং যেকোন ধরনের কাজ করা যায়। তবে উল্লেখ্য যে সর্বশেষ প্রযুক্তি সাধারণত ডেস্কটপের জন্যই আগে প্রকাশিত হয় এবং ল্যাপটপের জন্য কিছুদিন অপেক্ষা করতে হয়। আর মনে রাখা দরকার যে ল্যাপটপের কিছু নির্দিষ্ট পার্টস যেমন হার্ডডিস্ক এবং রেম ব্যতীত অন্য কিছু পরিবর্তন করা যায় না। আর ডেস্কটপ পিসির যেকোন পার্টস সহজেই পরিবর্তন করা যায়।

৩। কাজের ধরন: আউটসোর্সিং, ক্লাস নেয়া, মিটিং, সাধারণ প্রোগ্রামিং, ছোট দোকানের জন্য সফটওয়্যার তৈরি ইত্যাদি চালানোর জন্য ল্যাপটপ কেনা অনেক সাশ্রয় হতে পারে। আর গেম খেলার জন্য ডেস্কটপ পিসির বিকল্প নেই। কারণ গেম খেলতে গেলে অনেক ভালো মানের হার্ডওয়্যার এর পাশাপাশি কুলিং সিস্টেম এবং পাওয়ার সাপ্লাই এর প্রয়োজন হয়। গ্রাফিক্সের বা ভিডিও এডিটিং কাজ করার জন্য ডেস্কটপ পিসি অপরিহার্য কারণ এগুলোর জন্য বড় আকারের এবং ভালো মানের মনিটর প্রয়োজন।

৪। বাজেট: বাজেট একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ডেস্কটপ পিসির দাম সাধারণত ল্যাপটপের চেয়ে অনেক কম হয়ে থাকে। তাই অল্প বাজেটের মধ্যে ভালো মানের পিসি কেনা যায়। যদি ল্যাপটপ এর দাম আপনার বাজেটের চেয়ে বেশি হয়ে যায় তবে সমমানের ডেস্কটপ কিনে আপনি প্রয়োজন মেটাতে পারবেন। আর যদি ল্যাপটপের প্রয়োজন হয় কিন্তু বাজেট অল্প তাহলে আপনার জন্য বেস্ট পরামর্শ হচ্ছে ইউজড ল্যাপটপ কেনা। এতে আপনি লাভবান হতে পারবেন। বাংলাদেশে ব্যবহৃত ল্যাপটপ খুব কম দামে পাওয়া যায় এবং এগুলোতে অনেক উন্নতমানের হার্ডওয়্যার থাকে।

৫। কোথা থেকে কিনবেন: আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী স্পেসিফিকেশন তৈরি করে আপনি বিভিন্ন কমপিউটার মার্কেটে গিয়ে যাচাই করে নিতে পারেন সেখান থেকে আপনি কিছুটা লাভবান হতে পারেন। আর সময় বাঁচানোর জন্য আপনি দাম তুলনা করার ওয়েবসাইট যেমন বিডিস্টল.কম থেকে ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ পিসির দাম জেনে নিতে পারেন। এছাড়াও বিডিস্টলের একটি ফ্রি পিসি-বিল্ডার টুলস আছে যেটি দিয়ে সহজেই নিজের পিসি নিজেই তৈরি করে নিতে পারেন।