এখন দেশজুড়ে গ্রামীণফোনের ২০০ জিপিসি



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: গ্রামীণফোন

ছবি: গ্রামীণফোন

  • Font increase
  • Font Decrease

গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করতে সারা দেশে ২০০টি ফ্ল্যাগশিপ স্টোর–‘গ্রামীণফোন সেন্টার’ (জিপিসি) এর কার্যক্রম শুরু করেছে গ্রামীণফোন। কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে জিপিসি চালুর মধ্য দিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশের কানেক্টিভিটি পার্টনার ২০০তম জিপিসি' স্থাপনের অসামান্য মাইলফলক অর্জন করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

এই উপলক্ষে বুধবার ভার্চুয়াল মাধ্যমে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে গ্রামীণফোন। বিটিআরসি’র মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ, এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি আনুষ্ঠানিকভাবে জিপিসি উদ্বোধন করেন। গ্রামীণফোনের হেড অব কমিউনিকেশনস খায়রুল বাশারের সঞ্চালনায় এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গ্রামীণফোনের চিফ মার্কেটিং অফিসার সাজ্জাদ হাসিব, চিফ কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) হোসেন সাদাত ও হেড অব কাস্টমার এক্সপেরিয়েন্স অ্যান্ড সার্ভিস মো. আওলাদ হোসেন।

অনুষ্ঠানে গ্রাহক ও জিপিসি কর্মকর্তাদের সাথে গ্রামীণফোনের হেড অব কাস্টমার এক্সপেরিয়েন্স অ্যান্ড সার্ভিস মো. আওলাদ হোসেন কুড়িগ্রামের প্রত্যন্ত এলাকা নাগেশ্বরী থেকে যুক্ত হন এবং জিপিসি’র কার্যক্রম তুলে ধরেন।

গ্রাহকদের উন্নত সেবা প্রদানের অনুপ্রেরণা থেকে, এখন দেশজুড়ে গ্রামীণফোনের প্রয়োজনীয় কাস্টমার সল্যুশন সেন্টার রয়েছে। এর মাধ্যমে গ্রাহকদের সাথে সর্বোচ্চ সম্পৃক্ততা এবং প্রতিশ্রুতি পূরণের আন্তরিক প্রচেষ্টা নিশ্চিত করছে প্রতিষ্ঠানটি। ২০০ জিপিসি’র পাশাপাশি, গ্রামীণফোন এর বিদ্যমান অন্যান্য ডিজিটাল সেবা চ্যানেল, - ১২১ হটলাইন ও মাইজিপি অ্যাপ্লিকেশনের কার্যক্রম অব্যহত থাকবে। জেলা সদরের বাইরে জিপিসি’র বিস্তৃতি ঘটেছে এবং দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এখন গ্রামীণফোন সেন্টার রয়েছে। অবস্থান অনুসারে ২শ’টির মধ্যে ঢাকায় সর্বোচ্চ ২৪টি, সিলেটেও ২৪টি, রাজশাহীতে ২১টি, বরিশালে ১৯টি, বগুড়ায় ১৮টি, খুলনায় ১৭টি, ময়মনসিংহে ১৭টি, কুমিল্লায় ১৬টি, চট্টগ্রামে ১২টি এবং রংপুরে ৭টি জিপিসি রয়েছে। এছাড়াও, গ্রাহকরা সারা দেশের ৪.২ লক্ষ রিটেইল পয়েন্ট থেকেও সেবা গ্রহণ করতে পারবেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিটিআরসি’র মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ, এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি, তার বক্তব্যে বলেন, ‘সত্যিকার অর্থেই গ্রামীণফোনের জন্য আজকে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ দিন, কারণ জনগণের কাছাকাছি আসার এক বিশাল মাইলফলক প্রতিষ্ঠানটি অর্জন করেছে। জনগণের সাথে কানেক্টেড হওয়ার জন্য গ্রামীণফোনের হটলাইন, মাইজিপির মতো সেবা থাকলেও প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের কাছে পেীছানোর জন্য গ্রামীণফোন সেন্টারের প্রয়োজনীয়তা সবসময়ই থাকবে বলে আমি বিশ্বাস করি। সাধারণ মানুষ যারা এখনও পুরোপুরি ডিজিটাল সেবায় অর্ন্তভূক্ত হয়নি , জিপি সেন্টার তাদের জন্য সেবার মানোন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। এজন্য সরকারের পক্ষ থেকে গ্রামীণফোনকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করি, গ্রাহকদের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের গ্রামীণফোনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে।’

এ ব্যাপারে গ্রামীণফোনের চিফ মার্কেটিং অফিসার সাজ্জাদ হাসিব বলেন, ‘২০০তম জিপিসি’র এই দুর্দান্ত মাইলফলক অর্জন নিয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত ও গর্বিত। এই স্টোরগুলো গ্রাহকদের প্রয়োজনীয় সেবা প্রদানে আমাদের প্রতিশ্রুতি পূরণের প্রতিফলন। গত দুই দশক ধরে, গ্রাহকরা আমাদের কাছ থেকে তাদের পছন্দসই পণ্য, সেবা এবং সুবিধা পেতে সানন্দে আমাদের সেন্টারগুলোতে আসছেন। গ্রামীণফোন সেন্টারে আমরা প্রত্যেক গ্রাহকের চাহিদাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে থাকি এবং তাদের ডিজিটাল জীবনধারার মানোন্নয়নে যথোপযোগী সমাধান প্রদান করি।

আমাদের দেশজুড়ে সবচেয়ে বিস্তৃত উচ্চ গতিসম্পন্ন ফোরজি কাভারেজ রয়েছে এবং গ্রাহকদের সেবা প্রদানে এই সেন্টারগুলো দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও রয়েছে। আমাদের সন্মানিত গ্রাহকরা এসব সেন্টার থেকে তাদের ডিজিটালের সকল প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে পারবেন। আমরা বিশ্বাস করি, আমাদের নেটওয়ার্ক ও সেন্টারের এই দেশব্যাপী বিস্তৃতি ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের গতিকে ত্বরাণ্বিত করবে এবং আমাদের গ্রাহকদের জীবনে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি ঘটাবে। তাই, আপনারা আমাদের সেন্টারে আসুন এবং সেবা প্রদানের সুযোগ করে দিন।’

হেড অব গ্রামীণফোন কাস্টমার এক্সপেরিয়েন্স অ্যান্ড সার্ভিস মোহাম্মদ আওলাদ হোসেন বলেন, ‘আমরা ২০০ গ্রামীণফোন সেন্টারের এক বিশাল মাইলফলক অর্জন করেছি, যা একইসাথে অত্যন্ত আনন্দের এবং গর্বের বিষয়। সামনের দিনগুলোতে আরও স্টোর চালুর মাধ্যমে আমরা গ্রাহকদের কাছাকাছি পৌঁছানোর আমাদের প্রচেষ্টা অব্যহত রাখবো। গ্রামীণফোন সেন্টার গ্রামীণফোনের বিশেষ গ্রাহক সেবা স্টোর, যেখান থেকে গ্রাহকরা মানসম্পন্ন সেবা এবং পণ্য সম্পর্কিত যথার্থ তথ্য পেতে পারেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য খুব সহজ উপায়ে আমাদের গ্রাহকদের সেবা প্রদান করা এবং এই সেবা যাতে মাইজিপি অ্যাপে পাওয়া যায় সে ব্যাপারে কাজ করা। কিন্তু এরপরও যদি কারও ফিজিক্যাল স্টোরে যাওয়ার প্রয়োজন হয়, তারা আমাদের সার্ভিস টাচ পয়েন্ট এবং গ্রামীণফোন সেন্টার থেকে যেকোন সেবা নিতে পারেন।’

অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তব্যে গ্রামীণফোনের অ্যাক্টিং সিসিএও হোসেন সাদাত গ্রাহক সেবা দেশব্যাপী পৌঁছে দেয়ার দিকনির্দেশনার জন্য বিটিআরসি’ কে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘সর্বোচ্চ গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করতে গ্রামীণফোন এ ধরনের কার্যক্রম আরও সম্প্রসারিত করবে। পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমেই বেশি সংখ্যক গ্রাহকদের ডিজিটাল সেবায় অন্তর্ভুক্ত করার কাজ আরও গতিশীল করা সম্ভব হবে।’

গ্রামীণফোন ডিজিটাল এবং রিটেইল চ্যানেলে নানাবিধ কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে ‘২০০ জিপিসি মাইলস্টোন সেলিব্রেশন’ উদযাপন করছে।

ভারতী এয়ারটেলে গুগলের শত কোটি ডলার বিনিয়োগ



টেক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্টারনেট ও সফটওয়্যার সেবাদানকারী বহুজাতিক কোম্পানি গুগল ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম টেলিকম কোম্পানি এয়ারটেলে ১০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করতে যাচ্ছে।

ভারতের বিপুল জনসংখ্যার বিশাল বাজার ধরতেই এই উদ্দ্যেগ  অর্থ ঢালছে গুগল। এমনই তথ্য দিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

গুগল বিনিয়োগ করার খবর ছড়ানোর পরপরই ভারতী এয়ারটেলের শেয়ারের দর বেড়েছে অন্তত ৬ দশমিক ৬ শতাংশ। নয়া দিল্লিভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটির প্রতিটি শেয়ার ৭৩৪ রুপিতে কিনছে গুগল।

চুক্তি অনুসারে, গুগলের মূল কোম্পানি অ্যালফাবেট ৭০ কোটি ডলারে ভারতী এয়ারটেলের ১ দশমিক ২৮ শতাংশ শেয়ার কিনবে। যন্ত্রাংশসহ অন্যান্য খরচ বাবদ পরের কয়েক বছরে আরও ৩০ কোটি ডলার দেবে গুগল।

গুগল ও অ্যালফাবেটের প্রধান নির্বাহী সুন্দর পিচাই এক বিবৃতিতে বলেছেন, আমাদের ‘গুগল ফর ইন্ডিয়া ডিজিটাইজেশন ফান্ড’র অধীনে স্মার্টফোন সহজলভ্য করা, নতুন ব্যবসায়িক মডেলের সমর্থনে জনসংযোগ বাড়ানো ও কোম্পানিগুলোর ডিজিটালাইজেশন যাত্রায় সহযোগিতার ধারাবাহিকতায় এ বিনিয়োগ করা হচ্ছে।

গুগলের বিনিয়োগ সুনীল মেহতার নেতৃত্বাধীন ভারতী এয়ারটেলকে ৫জি পরিকল্পনা এগিয়ে নিয়ে রিলায়েন্স জিওর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা বাড়ানোর সুযোগ করে দেবে। টানা কয়েক বছর ধরে ভারতে এক নম্বর টেলিকম কোম্পানির মুকুট ধরে রেখেছে আম্বানির টেলিকম কোম্পানিটি।

;

অনলাইন আয়ের নির্ভরযোগ্য প্ল্যাটফর্ম ইউটিউব



টেক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের বেকারত্ব সমস্যা সমাধানে গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা রাখতে যাচ্ছে আউটসোর্সিং বা অনলাইন আয়। ঘরে বসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে কাজ করে টাকা উপার্জন করাই হচ্ছে আউটসোর্সিং। অনলাইনে আয় করতে তেমন কিছুই লাগেনা, লাগে শুধু ধৈর্য আর ইচ্ছা। বর্তমান সময়ে অনলাইন আয়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সহজ মাধ্যম হচ্ছে ইউটিউব। শুধু সহজ বা জনপ্রিয়ই নয়, ইউটিউব অনলাইন আয়ের একটি নির্ভরযোগ্য প্ল্যাটফর্ম।

ইউটিউব হচ্ছে বর্তমান সময়ের ইন্টারনেট জগতের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠান গুগলের মালিকানাধীন ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম। গুগলের মালিকানাধীন হলেও সাধারণ ইউজারই এখানে ভিডিও কন্টেন্ট আপলোড করে থাকে। বর্তমানে ইউটিউবে কি পরিমাণ ও কত ক্যাটাগরির ভিডিও রয়েছে তা বলা বেশ মুশকিল। যেখানে ২০১৯ সালের মে মাসের হিসাব অনুযায়ী প্রতি মিনিটে ৫০০ ঘণ্টারও বেশি ভিডিও কন্টেন আপলোড করা হয়ে থাকে তার পরিমাণ কিভাবে বলা যায়।

বর্তমান সময়ে ইউটিউবে দুই ধরনের ইউজার রয়েছে। প্রথমটা হচ্ছে সাধারণ ইউজার, দ্বিতীয়টা প্রিমিয়ার বা টাকা দিয়ে ভিডিও দেখা। সাধারণ ইউজাররা ভিডিও দেখার সময় এ্যাড বা বিজ্ঞাপন দেখানো হয় কিন্তু প্রিমিয়ার ইউজারের ক্ষেত্রে কোনো এ্যাড বা বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হয় না। যে ধরনের ইউজারই হোক না কেন এই প্ল্যাটফর্মে ভিডিও দেখলে কন্টেন্ট তৈরির জন্য একটা অর্থ পেয়ে থাকেন। তবে তার জন্য কন্টেন্ট ক্রেটারকে কিছু নির্দিষ্ট যোগ্যতা অর্জন করতে হবে, যা খুবই সহজ।

শুধু বিজ্ঞাপন বা প্রিমিয়ার ইউজার দিয়েই নয়, ইউটিউব থেকে ইনকাম করার আরও অনেক গুলো উপায় রয়েছে। উপায় যেটাই হোক, ইউটিউব থেকে যে বিশাল অংকের টাকা ইনকাম করা যায় বা অনেকেই করছে এটা কিন্তু প্রমানিত। চলুন জেনে আসি বাংলাদেশী কিছু জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেলের ইনকাম সম্পর্কে।

জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া ট্র্যাকার আমেরিকান ওয়েবসাইট ‘সোশাল ব্লেড’ এর তথ্য অনুযায়ী শুধু ভিডিও মনিটাইজ থেকে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় শিক্ষামূলক ইউটিউব চ্যানেল ‘১০ মিনিট স্কুল’ এর আনুমানিক মাসিক উপার্জন ৯০০ থেকে ১৫ হাজার ডলার। যা বাংলাদেশী টাকায় বর্তমান সময়ে দাড়ায় ৮০ হাজার থেকে ১২ লাখ ৯০ হাজার টাকা। বাংলাদেশের শীর্ষ স্থানে থাকা ইউটিউবার তৌহিদ আফ্রিদির আনুমানিক মাসিক উপার্জন ৯০০ থেকে ১৪ হাজার ডলার। যা বাংলাদেশী টাকায় ৮০ হাজার থেকে ১২ লাখ টাকা। এছাড়ও যাকে বাংলাদেশের প্রথম ইউটিউবার বলা হয়। সেই সালমান মুক্তাদিরের ‘সালমান দ্য ব্রাউন ফিশ’, ফ্রিল্যান্সার নাসিম, সোহাগ ৩৬০ সহ অন্যান্য জনপ্রিয় চ্যানেলের কথা নাই বললাম।

আপনি যদি চান ইউটিউব থেকে ইনকাম করতে চান তাহলে আগে আপনাকে জানতে হবে ইউটিউব থেকে কি কি উপয়ে ইনকাম করা যায়। ইউটিউব থেকে ইনকাম করা খুব বেশি কঠিন কাজ নয় আবার খুব সহজও নয়। ইচ্ছামত ভিডিও আপলোড দিলেই যে ইনকাম হবে বিষয়টা এমন নয় তবে ধৈর্য আর ইচ্ছা থাকলে আপনি পারবেন।

;

মাইক্রোসফটের এক ঘোষণায় সনির রেকর্ড দরপতন



টেক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নতুন বছরের শুরুতেই বিশাল ক্ষতির মুখ দেখলো জাপানের প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান সনি। বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফটের এক ঘোষণায় সনির শেয়ারের দাম কমেছে ১৩ শতাংশ।

সনির প্লেস্টেশন প্রতিদ্বন্দ্বী মাইক্রোসফটের গেম কোম্পানি অ্যাকশন ব্লিজার্ড কেনার জন্য ছয় হাজার ৮৭০ কোটি ডলারের চুক্তি ঘোষণা করে। এর পরপরই সনির শেয়ারের দাম টোকিও ট্রেডে হু হু করে কমতে শুরু করেছে। ২০০৮ সালে অক্টোবরের পর এটাই তাদের সবচেয়ে বড় পতন বলে ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়।

জানা গেছে, অ্যাক্টিভিশন ব্লিজার্ডের ওয়ারক্রাফ্ট, ওভারওয়াচ, কল অব ডিউটির মতো জনপ্রিয় গেম থাকায় সনির প্লেস্টেশনের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছে মাইক্রোসফটের এক্সবক্স গেমিং। যার কারণেই সনির বাজার মূল্য একদিনে দুই হাজার কোটি ডলার কমেছে।

সনির ৩০ শতাংশ আয় আসে গেমস ও নেটওয়ার্ক পরিষেবা থেকে। বুধবার মাইক্রোসফট জানায়, আড়াই কোটির বেশি গেম পাস গ্রাহক রয়েছে তাদের। নতুন চুক্তির ফলে ব্লিজার্ডের জনপ্রিয় গেমগুলো তাদের গ্রাহকদের জন্য উন্মুক্ত করতে পারবে। বর্তমানে গেমের বাজারে সনির একচেটিয়া দখল রয়েছে। তবে এবার কোম্পানিটির প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠতে পারে মাইক্রোসফট।

;

‘যুক্তরাষ্ট্রের কথা অনুযায়ী হুয়াওয়েকে নিষিদ্ধ করে যুক্তরাজ্য’



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হুয়াওয়ের ফাইভজি সরঞ্জাম এবং সেবা নিষিদ্ধ করার ক্ষেত্রে যুক্তরাজ্য সরকারের সিদ্ধান্ত ‘জাতীয় সুরক্ষার সাথে সম্পর্কিত নয়,’ বরং এর পেছনে আমেরিকার চাপ দায়ী বলে জানিয়েছেন প্রাক্তন ব্যবসা ও শিল্পমন্ত্রী।

পাঁচ বছর ধরে ডেভিড ক্যামেরনের নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের ব্যবসা ও শিল্পমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ভিন্স কেবল সোমবার এক অনুষ্ঠানে তার বক্তৃতায় বলেন যে, চীনা প্রযুক্তি জায়ান্টের বিরুদ্ধে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ‘কারণ আমেরিকানরা আমাদের বলেছিলো আমাদের এটি করা উচিত।’

২০২০ সালের জুলাইয়ে বরিস জনসন সরকার ন্যাশনাল সাইবার সিকিউরিটি সেন্টার (এনসিএসসি) এর দেওয়া নতুন পরামর্শের উদ্ধৃতি দিয়ে ঘোষণা করেন যে, ২০২৭ সালের শেষ নাগাদ হুয়াওয়ের পণ্য যুক্তরাজ্যের ফাইভজি নেটওয়ার্ক থেকে সম্পূর্ণরূপে সরিয়ে দেওয়া হবে।

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা বা পররাষ্ট্র নীতির স্বার্থের পরিপন্থী হিসেবে কাজ করছে, এমন ভিত্তিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে এবং এর কয়েক মাস পরে এই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র হুয়াওয়েকে মাইক্রোচিপের মতো গুরুত্বপূর্ণ জিনিস ক্রয়ে বাঁধা দেয় এবং প্রতিষ্ঠানটিকে নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম তৈরিতে বাধ্য করে।

যুক্তরাজ্যের বেশিরভাগ কর্মকর্তার চেয়ে চীনের প্রতি অধিক সহানুভূতিশীল বলে পরিচিত কেবল আরও জানিয়েছেন যে, মন্ত্রী হিসেবে তার মেয়াদকালে গোয়েন্দা এবং নিরাপত্তা সেবাদাতারা বারবার আশ্বাস দিয়েছিলো যে হুয়াওয়ের সেবা ব্যবহার করে কোনোরূপ ঝুঁকি তৈরি হয়নি।

কেবল বলেন, “ব্রিটেন যদি ফাইভজি’র এ সুবিধা গ্রহণ করতো, তাহলে আমরা এখন সবচেয়ে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে এমন দেশগুলোর মধ্যে সবার আগে থাকতাম। কিন্তু এখন আমরা সে অবস্থানে নেই।”

;