Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বাজেটের প্রভাব পড়েনি কাঁচা বাজারে

বাজেটের প্রভাব পড়েনি কাঁচা বাজারে
কারওয়ান বাজারে কাঁচা পেঁপের পাইকারি বাজার, ছবি: বার্তা২৪.কম
রাকিবুল ইসলাম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশ পরিচালনার জন্য পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বিশাল বাজেট প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুন) জাতীয় সংসদে ‘সমৃদ্ধির সোপানে বাংলাদেশ, সময় এখন আমাদের’ শিরোনামে দেশের ৪৮তম এবং নিজের প্রথম বাজেট বক্তব্য দেন তিনি। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামে প্রস্তাবিত বাজেটের প্রভাব পড়েনি বলেই মনে করেন রাজধানীর কারওয়ান বাজারের ক্রেতা ও বিক্রেতারা।

শুক্রবার (১৪ জুন) সকালে কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজেট ঘোষণার ফলে সবজি, মাছ, মাংস, তেল, মসলাসহ অন্যান্য পণ্যের দাম বাড়েনি। কাঁচা বাজারে সরবরাহ বাড়ায় দাম বরং কিছুটা কমেছে। তবে বাজেট বাস্তবায়ন হলে কী হবে তা নিয়ে শঙ্কা ক্রেতাদের।

pumkin
কারওয়ান বাজারে কুমড়ার পাইকারি বাজার, ছবি: বার্তা২৪.কম

 

শুক্রবার পাইকারিতে প্রতি পাল্লা (পাঁচ কেজি) পটল ৬০ টাকা, বেগুন প্রতি পাল্লা ১০০ টাকা, ঢেঁড়স প্রতি পাল্লা ৮০ টাকা, আলু (সাদা বড়) পাল্লা প্রতি ৭৫ টাকা, শসার পাল্লা ১২০ টাকা, পেঁপের পাল্লা ১২০ টাকা, পাকা টমেটোর পাল্লা ১২০ টাকা, করলা পাল্লা প্রতি ১০০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া প্রতিটি (মাঝারি আকারের) ২৫ টাকা, ভালো কাঁচা মরিচের পাল্লা ১৫০ টাকা, ঝিঙা পাল্লা প্রতি ১০০ টাকা, শিমের পাল্লা ১২০ টাকা, কাঁকরোলের পাল্লা ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা, বরবটি পাল্লা প্রতি ১০০ টাকা, দে‌শি পেঁয়াজ পাল্লা প্রতি ১২০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ পাল্লা প্রতি ১৫০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

তবে পাইকারি বাজারের তুলনায় খুচরা বাজারে দামের পার্থক্য চোখে পড়ার মতো। ক্রেতাদের অভিযোগ, পাইকারি বাজারে সবজি কিংবা অন্যান্য তরিতরকারির দাম যাই থাকুক, খুচরা বাজারে কেজি প্রতি ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি।

কারওয়ান বাজারের কাঁচামালের পাইকারি বিক্রেতা কামরুল মোল্লা বলেন, বাজেটের সঙ্গে সবজি চাষি কিংবা আমাদের কোনো সম্পর্ক নেই। বাজার মূল্য নিজস্ব গতিতেই চলছে। আপাতত সবজির আমদানি ভালো থাকায় দামটা বাড়েনি। বরং কিছু কিছু সবজিতে কমেছে।

শুক্রবার প্রতি কেজি দেশি মসুর ডাল ১০০ টাকা, হাইব্রিড মাঝারি মসুর ডাল ৯০ টাকা, বড় মসুর ডাল ৭০ টাকা, খেসারি ডাল ৬৫ টাকা, কাঁচা মাষকলাই ডাল ৮৫ টাকা, মুগ ডাল ১০৫ টাকা, ছোলার ডাল ৭৫ টাকা, আস্ত বুট ৮০ টাকা, খোলা চিনি ৫১ টাকা ও প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেল ৮২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ঈদের আগেও একই রকম দাম ছিল।

Vegetable
কারওয়ান বাজারে বিক্রি হচ্ছে সবজি, ছবি: বার্তা২৪.কম

 

কারওয়ান বাজারের জব্বার স্টোরের মালিক আব্দুল জব্বার বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমরা ঈদের পরে যে দামে বিক্রি শুরু করেছি এখনও সেই দামেই বিক্রি করছি। আমার জানা মতে কোনো পণ্যের দাম বাড়েনি। দাম আগের মতই আছে।

তিনি বলেন, বাজারে বাজেটের প্রভাব বোঝা যাবে বাজেট বাস্তবায়ন শুরু হলে। তখন নতুন করে মোকাম থেকে পণ্য আনতে গেলে দামের পার্থক্য বলা যাবে।

রয়েল জেনারেল স্টোরের ম্যানাজার সোলায়মান বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমাদের কাছে দাম বাড়ানোর কোনো নির্দেশনা নেই। আমরা আগেও যে দামে বিক্রি করেছি, এখনও একই দামে পণ্য বিক্রি করছি।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, মাছের দাম বরাবরের মতই চড়া। মাংসের দামেও কোনো পরিবর্তন নেই। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫০-১৫৫ টাকায়, লাল লেয়ার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২০০-২২০ টাকা কেজিতে, গরুর মাংস প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০০-৫৫০ টাকায় আর খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০-৮৫০ টাকা কেজি।

খাসির মাংস বিক্রেতা আসাদুল বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমাদের দাম বাড়ানোর সুযোগ নেই। এখানে সব ধরনের ক্রেতারা আসেন। পাইকারি, খুচরা সব ধরনের ক্রেতাই রয়েছেন।

s
কারওয়ান বাজারের একটি দোকানে পণ্য সাজিয়ে রাখা হয়েছে, ছবি: বার্তা২৪.কম

 

নতুন বাজেটের কারণে মাংসের দামে পরিবর্তন আসার কোনো সম্ভাবনা দেখছেন না তিনি।

ছুটির দিনে ঈদের পর প্রথম সাপ্তাহিক বাজার করতে এসে সরকারি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল কাদের বার্তা২৪.কমকে বলেন, ঈদের পরে প্রথম বাজারে এসেছি। আমার কাছে মনে হয়, কোনো পণ্যের দাম বাড়েনি। বাজারে সবজির সরবরাহ ভালোই মনে হলো। তবে মাছের বাজারটা একটু চড়া।

নতুন বাজেট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাজেটের কারণে বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামে কোনো পার্থক্য চোখে পড়েনি। দেখা যাক, সামনের দিনে কেমন থাকে।

আপনার মতামত লিখুন :

বিনিয়োগের নতুন প্রস্তাব আসছে: প্রতিমন্ত্রী

বিনিয়োগের নতুন প্রস্তাব আসছে: প্রতিমন্ত্রী
ব্যবসা সম্মেলনে বক্তব্য দেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

প্রতিদিন বিনিয়োগের নতুন নতুন প্রস্তাব আসছে বলে জানিয়েছেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার।

তিনি বলেছেন, ‘দেশের বিনিয়োগে অনুকূল রাজনৈতিক পরিবেশ বজায় থাকায় প্রতিদিন বিনিয়োগের নতুন নতুন প্রস্তাব আসছে। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ হার উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে।’

শনিবার (২০ জুলাই) রাজধানীর আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় অনুষ্ঠিত জেএইচএম গ্রুপের ব্যবসা সম্মেলনে তিনি এসব একথা বলেন।

সংসদ সদস্য খাদিজাতুল আনোয়ার সনির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘শিল্পখাতের বিকাশে বেসরকারি উদ্যোগে নতুন নতুন শিল্প স্থাপনকে সরকার সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদান করেছে। নতুন শিল্পকারখানা স্থাপনে শিল্প মন্ত্রণালয় সব ধরনের সহায়তা প্রদান করছে। দেশে দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনশক্তি তৈরির লক্ষ্যে ঢাকায় একটি শিল্প বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ভারতের জেএইচএম গ্রুপ বাংলাদেশে বিনিয়োগ করায় শিল্প প্রতিমন্ত্রী তাদের ধন্যবাদ জানিয়ে নতুন নতুন ভারী ও মাঝারি শিল্প স্থাপনে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

জেএইচএম গ্রুপের চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, পরিচালক ও প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির ও উপব্যবস্থাপনা পরিচালক মেহেদী হাসান বিপ্লব এ সময় উপস্থিত ছিলেন। পরে শিল্প প্রতিমন্ত্রী জেএইচএম গ্রুপের শ্রেষ্ঠ ডিলারদের পুরস্কার প্রদান করেন।

সাড়ে চার লাখ নতুন পলিসির টাকা বিমা কোম্পানির পকেটে

সাড়ে চার লাখ নতুন পলিসির টাকা বিমা কোম্পানির পকেটে
ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা তাহেরা বেগম একজন গৃহকর্মী। স্বামী সাজিম উদ্দিন রিকশা চালক। তিনি পপুলার লা্ইফ ইন্স্যুরেন্সে ২০১৩ সালে ‘একক বিমা’ করেন। টানা তিনটি কিস্তিও দিয়েছেন। কিন্তু এরপর এজেন্ট আর খোঁজ খবর নেয়নি। একবছর পর সংশ্লিষ্ট শাখায় যোগাযোগ করলে তারা জানান, নতুন করে পলিসি করতে হবে। আগের পিলিসির মেয়াদ শেষ।

একই কথা বলেছেন, ফারইস্ট ইসলামী লাইফের পলিসি হোল্ডার রূপা সাহা। তিনি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘২০০৯ সালে আমি চট্টগ্রাম শাখায় বিমা করেছিলাম। আড়াই বছর পলিসির টাকা কিস্তি পরিশোধও করি। কিন্তু এরপর এজেন্ট কিস্তি নিতে না আসায় আর খোঁজ নেওয়া হয়নি। কিন্তু ২০১৫ সালে বকেয়া কিস্তি পরিশোধ করতে গেলে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন নিয়ম কানুন দেখিয়ে নতুন করে পলিসি করতে বলে।’

গত এক বছরে এভাবেই নতুন সাড়ে চার লাখ পলিসির টাকা দেশের ৩২টি জীবন বিমা কোম্পানির পকেটে যাচ্ছে। গ্রাহকদের টাকা কোম্পানি কর্তৃপক্ষ বাড়ি-গাড়ি ভাড়াসহ বিভিন্ন খাতে ব্যয় দেখিয়ে লুটে নিচ্ছে। বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপকক্ষের (আইডিআরএ) সর্বশেষ তথ্য বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

আইডিআরএ’র তথ্য মতে, ২০১৭ সালে সরকারি-বেসরকারি ৩২ বিমা কোম্পানির পলিসির সংখ্যা ছিল ১০ লাখ ৭৪ হাজার ৭৭টি। ২০১৮ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৩৯ হাজার ৪২টিতে। ফলে এক বছরে নতুন পলিসির সংখ্যা বেড়েছে ৪ লাখ ৬৫ হাজার ৫টি। টাকার অংকে প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা।

অবাক করার বিষয় হলো, গত এক বছরে বিমা কোম্পানিগুলোতে নতুন পলিসি ইস্যু বেড়েছে মাত্র ৭ হাজার। ২০১৭ সালে পলিসির সংখ্য ছিল ১৮ লাখ ২৫ হাজার ৬০৯টি। ২০১৮ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ লাখ ৩২ হাজার ৫৩৭টিতে। অর্থাৎ বিমা কোম্পানিরগুলো নতুন করে পলিসি করতে আগ্রহী নয় বরং গ্রাহকদের অর্থ লুপাটের নেশায় নিমজ্জিত।

এদিকে বিমা কোম্পানির এই অবস্থানকে ‘অত্যন্ত হতাশাব্যাঞ্জক’ বলে মনে করে আইডিআরএ কর্তৃপক্ষ। নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির এক প্রতিবেদেনে উল্লেখ করা হয়েছে, বেশিরভাগ পলিসিরই প্রথম বর্ষ প্রিমিয়াম দেওয়ার পর দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষে তামাদি হয়ে যাচ্ছে। প্রথম পলিসি নেওয়ার পর এজেন্টরা আর গ্রাহকদের কাছে যাচ্ছেন না। তারা প্রথম বর্ষের কমিশন নিয়েই নতুন পলিসি খুঁজছেন।

আরও উল্লেখ করা হয়েছে, পলিসি হারিয়ে গেলেও কোম্পানির পক্ষ থেকে এজেন্টদের তদারকি করা হচ্ছে না। ফলে নির্দিষ্ট সময় পর পলিসিগুলো তামাদি হয়ে যাচ্ছে। তাতে বিমা কোম্পানির পকেটে যাচ্ছে হাজার হাজার কোটি টাকা। এ অবস্থা থেকে উত্তোরণে গ্রাহকদের সচেতনতা বৃদ্ধি প্রয়োজন বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

আইডিআরএ’র প্রতিবেদন অনুযায়ী বিদায়ী বছরের তামাদি বিমার শীর্ষে রয়েছে প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডে। দ্বিতীয় স্থানে প্রাইম ইসলামী লাইফ, তৃতীয় স্থানে মেটলাইফ ও চতুর্থ স্থানে রয়েছে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড। এরপর যথাক্রমে- হোমল্যান্ড লাইফ, রুপালী লাইফ, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ, পপুলার লাইফ, সন্ধানী লাইফ, পদ্মা ইসলামী লাইফ, সানফ্লাওয়ার, ডেল্টা লাইফ, প্রগতি লাইফ, মেঘনা লাইফ, সানলাইফ, জেনিথ ইসলামী লাইফ, ডায়মন্ড লাইফ, প্রটেক্টিভ ইসলামী লাইফ, বায়রা লাইফ, গোল্ডেন লাইফ, ট্রাস্ট ইসলামী লাইফ, এনআরবি গ্লোবাল, মার্কেন্টাইল ইসলামী লাইফ, যমুনা লাইফ, আলফা ইসলামী লাইফ, বেস্ট লাইফ, সোনালী লাইফ, স্বদেশ লাইফ, গার্ডিয়ান লাইফ এবং চ্যাটার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড।

সার্বিক বিষয়ে আইডিআরএ নির্বাহী পরিচালক খলিল আহেমেদ বার্তাটোয়েন্টফোর.কম-কে বলেন, ‘বিমার ওপর সাধারণ মানুষের অস্থা নেই। তাই কোম্পানির তামাদি পলিসি সংখ্যা বাড়ছে। বিমা সেক্টরকে আস্থায় ফেরাতে তামাদি পলিসির সংখ্যা কমিয়ে আনতে হবে। এটি নিয়ে কাজ করছি।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র