Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

রমজানের শিক্ষাকে সারা বছর কাজে লাগাতে হবে

রমজানের শিক্ষাকে সারা বছর কাজে লাগাতে হবে
রমজানের শিক্ষাকে সারা বছর কাজে লাগাতে হবে, ছবি: সংগৃহীত
মুহাম্মদ ছফিউল্লাহ হাশেমী
অতিথি লেখক
ইসলাম
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

রহমত, মাগফিরাত ও জাহান্নাম থেকে মুক্তির সওগাত নিয়ে মুসলিম মিল্লাতের নিকট আগমন করেছিল সিয়াম সাধনার মাস মাহে রমজান। এ পবিত্র মাস সহমর্মিতা, সংযম, ধৈর্য ও প্রতিরোধের সুমহান বার্তা নিয়ে আগমন করেছিল। একে একে পরিপূর্ণতার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে মাহে রমজানের রূপালি চাঁদের স্নিগ্ধ কিরণ। পূণ্যাশ্রয়ী জীবন গঠন ও সত্যনিষ্ঠতার বাস্তব অনুশীলনের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করেছে মাহে রমজানের দিনগুলো।

সিয়াম সাধনা মুসলিম মিল্লাতকে পাপাচার, কামাচার ও মিথ্যাচার থেকে বিরত রাখার যে প্রশিক্ষণ দেয়, তা পরবর্তী জীবনের সবক্ষেত্রে বাস্তবায়িত হওয়াই এর প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। এই উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যকে বাস্তবায়িত করার প্রশিক্ষণ চলে দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার মাধ্যমে।

মাহে রমজানের এই বিদায়ক্ষণে চিন্তা করা উচিত- এ পবিত্র মাহে রমজান আমাদেরকে যে শিক্ষা দিয়ে গেল, তা আমরা বাস্তব জীবনের বাকি এগারো মাসে কীভাবে প্রয়োগ করতে পারি। রোজাদারদের মধ্যে কেউ হয়তো পূর্বে অবৈধ পথে অর্থোপার্জন করত, ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রতারণা করত, মদ্যপান, সুদ, ঘুষ, দুর্নীতি ইত্যাদিতে লিপ্ত ছিল, অন্যায়ভাবে অন্যের হক নষ্ট করত, গিবত চর্চা ছিল তার নিত্যদিনের অভ্যাস, নিজের শালীনতা ও পবিত্রতা বজায় না রেখে বেগানা নারী-পুরুষের সঙ্গে অবাঞ্চিত কথা-কাজের সম্পর্ক ছিল, দায়িত্বে অবহেলা করত, আমানতের খিয়ানত করত, অপরাধ প্রবণতা দূর না করে তা লালন করত- যদি এ মাসের প্রশিক্ষণকে কাজে লাগিয়ে বাকি জীবনে এ সব অবাঞ্চিত কাজ পরিহার করার শপথ না নিতে পারি তাহলে রমজান মাসের আগমন এবং রোজা রাখা আর না রাখা আমাদের জন্য সমান হয়ে দাঁড়ালো।

হজরত রাসূলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি রমজানের রোজা রাখল আর মিথ্যা কথা ও খারাপ কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখতে পারল না, তার না খেয়ে থাকার প্রয়োজন আল্লাহতায়ালার কাছে নাই। (অর্থাৎ তার রোজা আল্লাহতায়ালা কবুল করবেন না)। -সহিহ বোখারি

আমাদের সমাজ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ প্রবণতার কাছে জিম্মি হয়ে আছে। এ সব অপরাধ প্রবণতা নৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক তথা সকল ধরনের মূল্যবোধকে গ্রাস করে চলেছে। কিন্তু আমরা মাহে রমজানের রোজার উদ্দেশ্য ও তাৎপর্য অনুধাবন করতে ব্যর্থ হওয়ায় এ সব সমস্যার মধ্যে আরও অধিক জড়িয়ে পড়ছি। আমাদের সমাজে যত লোক রোজা রাখে সে তুলনায় বাস্তবজীবনে তার প্রতিফলন খুবই কম। তাই দিন দিন আমাদের সমাজ জীবন বসবাসের অযোগ্য হয়ে যাচ্ছে।

আত্মশুদ্ধি ও নৈতিকতার সুমহান বার্তা নিয়ে বছর পরিক্রমায় আমাদের মাঝে হাজির হয় মাহে রমজান। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, মাহে রমজান আমাদের জীবনে অনেকবার এসেছে অথচ আমাদের স্বভাব-চরিত্র ও আচার-আচরণের তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি। আমরা সিয়ামের যথার্থতা উপলব্ধি করতে পারিনি। আমরা রোজাও রাখি, তারাবিও পড়ি কিন্তু রোজার মাধ্যমে আমাদের মধ্যে যে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসার প্রয়োজন ছিল, সেই পরিবর্তন এখনো আমাদের মাঝে আসেনি। বছরের বাকি এগারো মাস তথা জীবনের বাকি অংশকে সুন্দর, পরিশুদ্ধ ও সংযমের অধিকারী করার জন্যই মাহে রমজানের সিয়াম সাধনা। এসব বিষয় আমাদেরকে গভীরভাবে ভাবতে হবে এবং রমজানের সুমহান শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে সমাজের অন্যায়, অসত্য, জুলুমবাজি ইত্যাদির সমূলে শক্ত আঘাত হানতে হবে।

মাহে রমজানের রোজা আমাদেরকে সাম্য, মৈত্রী, একতা, ভ্রাতৃত্ব, সহানুভূতি, শৃঙ্খলা, একনিষ্ঠতা, নিয়মানুবর্তিতা প্রভৃতি মানবীয় মূল্যবোধ শিক্ষা দিয়ে থাকে। ধনী-দরিদ্র, আমির-ফকির যে একই ভ্রাতৃত্বের অন্তর্গত এবং একের প্রতি অন্যের যে দায়িত্ব কতো বড় আমরা তা এই রমজান মাসেই অনুভব করতে পারি। রোজার ক্ষুধার মাধ্যমে দারিদ্র ক্লিষ্ট মানুষের নিত্যদিনের ক্ষুধার কষ্ট আমরা এই রমজান মাসেই বেশি উপলব্ধি করতে পারি। এই উপলব্ধি হতে দরিদ্র মানুষের প্রতি সহানুভূতি অতীব গুরুত্বপূর্ণ।

রমজান মাসে কোরআনে কারিম অবতীর্ণ হয়েছে। আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেছেন, ‘রমজান মাস। এ মাসেই নাজিল হয়েছে আল কোরআন। এটা মানবজাতির জন্য জীবনযাপনের বিধান এবং এমন সুস্পষ্ট উপদেশ, যা সঠিক ও সত্যপথ প্রদর্শন করে এবং হক ও বাতিলের পার্থক্য সুস্পষ্টরূপে তুলে ধরে।' -সূরা আল বাকারা: ১৮৫

তাই মাহে রমজানের মূল শিক্ষা হওয়া উচিত আমরা আমাদের বাকি জীবনে মহাগ্রন্থ আল কোরআন পঠন-পাঠন, তার মর্ম বুঝা, সে অনুযায়ী নিজের জীবন গঠনের মাধ্যমে পবিত্র কোরআনের কাছাকাছি অবস্থান করা। এজন্য পবিতত্র কোরআন আমাদেরকে বেশি বেশি তেলাওয়াত করতে হবে, অর্থ বুঝতে হবে, তাফসির পড়তে হবে, হাদিস গ্রন্থ অধ্যয়ন করতে হবে এবং আল্লাহতায়ালার প্রত্যেকটি বাণীর মর্ম বুঝার চেষ্টা করতে হবে। তবেই আমাদের নৈতিকতা বিবর্জিত সমাজে শান্তি ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে। কারণ পবিত্র কোরআন গোটা মানবসমাজকে ন্যায়-নীতির পথে চলার জন্য সমস্ত উপদেশ ও আদেশ-নিষেধে ভরপুর।

প্রকৃতপক্ষে পবিত্র মাহে রমজান মুসলমানদের ব্যক্তি জীবন থেকে পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবন পর্যন্ত সর্বস্তরে মহান আল্লাহতায়ালার নির্দেশ পালনের দীক্ষা দিয়ে যায়। সুতরাং মাহে রমজানের শিক্ষা আমাদের জীবনের সকল পর্যায়ে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।

লেখক: প্রাবন্ধিক ও কলেজ শিক্ষক।

আপনার মতামত লিখুন :

হজযাত্রীদের ধর্মীয় পরামর্শক দলে আরও ৩ আলেম

হজযাত্রীদের ধর্মীয় পরামর্শক দলে আরও ৩ আলেম
হজযাত্রীদের ধর্মীয় পরামর্শক দলে আরও ৩ আলেমকে অন্তর্ভুক্ত করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়

সৌদি আরবে বাংলাদেশি হজযাত্রীদের হজপালন বিষয়ে ধর্মীয় পরামর্শ ও দিক-নির্দেশনা দেওয়ার জন্য গঠিত ওলামা-মাশায়েখদের দলে যোগ হয়েছেন আরও তিন আলেম। এখন ওই দলের সদস্য সংখ্যা ৫৭। এর আগে ৯ জুলাই ৫৫ জন আলেমের একটি দল গঠন করে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

তালিকায় যোগ হওয়া ওই তিনজন হলেন- হাইয়াতুল উলইয়ার কো-চেয়ারম্যান মাওলানা আশরাফ আলীর ছেলে হাফেজ মাওলানা মুফতি শামীম আহমদ (মুহাদ্দিস, মাদরাসাতুল আবরার, মাতুয়াইল, ঢাকা), বেফাক মহাসচিব মাওলানা আবদুল কুদ্দসের ছেলে মাওলানা মোহাম্মদ মঞ্জুরুল হাসান যোবায়ের (শিক্ষক, ফরিদাবাদ মাদরাসা, ঢাকা) ও মাওলানা সাজিদুর রহমান (মুহতামিম, দারুল আরকাম মাদরাসা, বি.বাড়িয়া)। তন্মধ্যে মাওলানা আশরাফ আলী ও মাওলানা আবদুল কুদ্দুস ওলামা-মাশায়েখদের দলে আগেই ছিলেন। এবার তালিকায় তাদের সঙ্গে সন্তানরাও যোগ হলেন। 

তালিকা দেখতে ক্লিক করুন 

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব শিব্বির আহমদ উছমানি স্বাক্ষরিত এক চিঠির বরাতে ওলামা-মাশায়েখদের হজ পালনের বিষয়টি জানানো হয়। রাষ্ট্রীয় খরচে হজযাত্রীদের প্যাকেজে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা প্রদান সাপেক্ষে ওলামা-মাশায়েখদের হজপালনে এবারই প্রথম অন্তর্ভুক্ত করা হলো।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, আগামী ৪ ও ৫ আগস্ট ফ্লাইট প্রাপ্তি সাপেক্ষে ওলামা-মাশায়েখদের দলটি সৌদি আরবে যাবেন। ২৩ আগস্ট তারা দেশে ফিরে আসবেন। রাষ্ট্রীয় খরচে হজ সফর হিসেবে গণ্য হবে। মনোনীত আলেমদের কোরবানি নিজ খরচে করতে হবে। মক্কা-মদিনায় তাদের ভ্রমনসূচি হজ কাউন্সিলর কর্তৃক নির্ধারিত হবে, তারা নিজ অর্থায়নে হলেও স্ত্রী-সন্তানসহ গমন করতে পারবেন না।

এদিকে ১৪ জুলাই বাংলাদেশিদের হজ ব্যবস্থাপনার কাজে সার্বিক তত্ত্বাবধান ও দিক-নির্দেশনা প্রদানের জন্য ১০ সদস্য বিশিষ্ট হজ প্রতিনিধি দল গঠন করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। ওই দলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদাসহ তিনজন প্রতিমন্ত্রী, তিনজন সংসদ সদস্য, দু্’জন সচিব ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একজন মহাপরিচালক (মহাপরিচালক-৩) রয়েছেন।

এই দুই দল ছাড়াও বাংলাদেশি হজযাত্রীদের জেদ্দা, মক্কা ও মদিনায় সহায়তা করতে সরকার বেশ কয়েকটি টিম গঠন করে সৌদি আরব প্রেরণ করেছে। দলগুলো হলো- হজ চিকিৎসক দল, হজ প্রশাসনিক দল, হজ কারিগরি দল ও হজ চিকিৎসক দলের সহায়ক দল।

আরও পড়ুন:

হজযাত্রীদের পরামর্শ দিতে ৫৫ আলেমকে সৌদি পাঠাচ্ছে সরকার

সিইসিসহ হজ প্রতিনিধি দলে ৩ মন্ত্রী, ৩ এমপি

উল্লেখ্য, এ বছর বাংলাদেশ থেকে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২৬ হাজার ৯২৩ জন হজযাত্রী হজপালনের জন্য সৌদি আরব যাবেন।

নবীর রওজার গিলাফ উপহার পেলেন ব্রিটিশ বক্সার

নবীর রওজার গিলাফ উপহার পেলেন ব্রিটিশ বক্সার
নবীর রওজার গিলাফের টুকরা দেখাচ্ছেন আমির খান, ছবি: সংগৃহীত

পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত জনপ্রিয় ব্রিটিশ বক্সার আমির ইকবাল খান এক বক্সিং প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে সৌদি আরব সফরে রয়েছেন। তিনি জেদ্দায় অস্ট্রেলিয়ান বক্সার বিলি ডিবের বিপক্ষে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবেন। সৌদি আরব যেয়ে তিনি বিশেষ ব্যবস্থায় ওমরা পালন করেছেন। সেই সঙ্গে নবী করিম (সা.)-এর রওজা শরিফের অভ্যন্তরে ব্যবহৃত গিলাফের একটি টুকরা পেয়েছেন উপহার হিসেবে।

মাত্র ১৭ বছর বয়সে ব্রিটেনের হয়ে অলিম্পিক পদকজয়ী এই বক্সিং চ্যাম্পিয়ন স্ত্রী ফারিয়াল মাকদুমকে নিয়ে কাবা চত্ত্বরে দাঁড়িয়ে ইহরাম পরিহিত ও রওজার গিলাফের একটি ছবি ইন্সটাগ্রামে পোস্ট করেছেন। গিলাফের ওই টুকরাটি সবুজ কাপড়ের। সেখানে সাদা রংয়ের ক্যালিগ্রাফিতে কালেমা লেখা রয়েছে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563289158690.jpg

আমির খান সম্মাননা পাওয়া রওজার গিলাফের ছবি ইন্সটাগ্রামে পোস্ট করে লিখেছেন, ‘আমি বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পবিত্র রওজা শরিফের এক টুকরো কাপড় পেয়ে সম্মানিত ও খুব সৌভাগ্যবান। এটা আমার পুরো জীবনের জন্য উপভোগের বিষয়।’

প্রতি বছরই নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের রওজা শরিফের গিলাফ এবং কাবা শরিফের গিলাফ পরিবর্তন করা হয়। পরে গিলাফের অংশ বিশ্বের খ্যাতনামা আলেম ও রাষ্ট্রপ্রধানসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদেরকে সম্মাননা হিসেবে উপঢৌকন দেওয়া হয়। এরই অংশ হিসেবে কিংবদন্তি বক্সার মোহাম্মাদ আলীর পর মুসলিম বক্সার হিসেবে পরিচিত ও জনপ্রিয় মুষ্টিযোদ্ধা আমির ইকবাল খান এ উপহার পেলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র