Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

অভিমানে জার্মানিকে বিদায়ই বলে দিলেন ওজিল

অভিমানে জার্মানিকে বিদায়ই বলে দিলেন ওজিল
  সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম  


  • Font increase
  • Font Decrease

গত কয়েকমাস ধরেই একটু একটু করে জমেছিল অভিমানের মেঘ। অবহেলায় মনটা বিষন্ন হয়ে উঠেছিল। এবার সেই অভিমানের মেঘ বৃষ্টি হয়ে ঝরে পড়ল। নিজেকে আর আটকে রাখতে পারলেন না মেসুত ওজিল। জার্মানিকে বিদায় বলে দিলেন ক্ষুদ্ধ এই বিশ্বকাপ জয়ী ফুটবলার। এখন আর্সেনালের হয়ে ক্লাব ফুটবলেই শুধু দেখা যাবে খেলা গড়ার এই কারিগরকে!

রোববার রাতে আচমকাই এই কঠিন সিদ্ধান্তটা নিয়েছেন ওজিল। এছাড়া অন্যকিছু যেন করারও ছিল না তুর্কি বংশোদ্ভুদ এই জার্মান ফুটবলারের। তার জাতিসত্বা প্রসঙ্গটা নিয়ে এতোই জলঘোলা হচ্ছিল যে যন্ত্রণায় কাবু হয়ে পড়েছিলেন তিনি। তাইতো বিদায় বেলায় আবেগী এক খোলা চিঠিতে ধর্মপ্রাণ এই মুসলিম ফুটবলার লিখে গেলেন, 'দেখুন আমি খুবই দুঃখের সঙ্গে জানাতে চাই গত কিছুদিনের ঘটনার কারণে আমি আর জার্মানির জার্সি গায়ে দিতে চাইছি না। আমার মনে হয়েছে আমি বর্ণবাদী আচরণের শিকার হয়েছি। অসম্মান করা হয়েছে আমাকে।'

অথচ বয়স তার মাত্র ২৯। ইচ্ছে করলেই বছর চারেক খেলে যেতে পারতেন দেশের হয়ে। কিন্তু আত্মসম্মানের ওপর তো আর কিছু নেই। এ কারণেই বিদায় বলেই ফেললেন ওজিল।

ঘটনার সুত্রপাত রাশিয়া বিশ্বকাপের আগে। লন্ডনে এক অনুষ্ঠানে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপে এরদোয়ানের সঙ্গে একটি ছবিতে একসঙ্গে দেখা যায় তাকে। তারপরই বিষয়টা রাজনৈতিক রঙ পায়।

তুর্কি রাস্ট্রনায়ক এরদোয়ানকে স্বৈরাচারী বলে মনে করে জার্মানি। ওজিলের ছবি প্রকাশিত হওয়ার পর জার্মান ফুটবল ফেডারেশনের (ডিএফবি) প্রধান রেইনহার্ড গ্রিনডেল বলেন, ‘সম্প্রতি সময়ে স্বৈরাচারী অবস্থানে যাওয়া এরদোয়ানের সঙ্গে ছবি তোলা ভালো কোনো ব্যাপার নয়।’

ব্যস, এরপর থেকেই শুরু হয় তার প্রতি অবহেলা। রাশিয়া বিশ্বকাপে একাদশে তার জায়গাটাও হাতছাড়া হয়ে যায়। অবস্থা এখন এমনই হচ্ছিল যে দল জায়গা পাওয়া নিয়ে অসহায়ের মতো তাঁকিয়ে থাকতে হচ্ছিল তাকে। যদিও সেই ছবি প্রসঙ্গে ওজিল নিজের অবস্থান পরিস্কার করেছিলেন এভাবে, ‘এটার পেছনে কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ছিল না। শুধুই আমার পূর্বপুরুষের দেশ তুরস্কের সর্বোচ্চ কর্মকর্তার সম্মানে ছবিটি তুলেছিলাম।’ বলা দরকার, ওজিলের বাবা-মা দুজনই তুরস্কের। তারা একসময় পাড়ি জমান জার্মানিতে। সেখানেই অভিবাসী নাগরিক হয়ে বেড়ে উঠেছেন তিনি। 

পারফরম্যান্সের কারণে নয়, রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণে দলে কোনাঠাসা হয়ে পড়েন ২০১৪ সালের বিশ্বকাপ জয়ী এই ফুটবলার। ২০০৯ সালে জার্মানির হয়ে অভিষেক। এরপর ৯৩ ম্যাচ খেলে ওজিল করেছেন ২৩ গোল। অনাকাংখিত এক পরিস্থিতির মধ্য দিয়েই শেষ হল এই মিডফিল্ডারের আর্ন্তজাতিক ক্যারিয়ার।

আপনার মতামত লিখুন :

হেরে উৎসব পেছাল বসুন্ধরার

হেরে উৎসব পেছাল বসুন্ধরার
২০ ম্যাচ জয়ের পর হার দেখল বসুন্ধরা কিংস

সামনে ছিল সহজ সমীকরণ-জিতলেই নিশ্চিত বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা! প্রতিপক্ষ শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। কিন্তু তাদের বিপক্ষে লক্ষ্য পূরণ হল না। প্রথমবারের মতো লিগ ট্রফি জয়ের উৎসব পিছিয়ে গেল বসুন্ধরা কিংসের। শনিবারের আরেক ম্যাচে সাইফ স্পোর্টিংকে হারিয়ে গাণিতিক হিসাবে টিকে থাকল আবাহনী লিমিটেড।

সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে বসুন্ধরাকে ১-০ গোলে হারিয়েছে শেখ রাসেল। লিগে টানা ২০ ম্যাচ অপরাজিত থাকার পর হার দেখল নবাগত এই দলটি। তবে ২১ ম্যাচে ৫৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই থাকল তারা। শেষ তিন ম্যাচ থেকে ৩ পয়েন্ট পেলেই চ্যাম্পিয়ন দলটি। ৪৫ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে শেখ রাসেল।

এদিকে দিনের আরেক খেলায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সাইফকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে ঢাকা আবাহনী। ২২ ম্যাচে ১৮ জয়ে ৫৪ পয়েন্ট নিয়ে বসুন্ধরার পরই আছে তারা। ২১ ম্যাচে ৪১ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে সাইফ স্পোর্টিং।

আগের ম্যাচেই মোহামেডানের কাছে আবাহনী হারে ০-৪ গোলে। সেই ধাক্কা সামলে উঠল তারা। তবে সাইফকে ৩৭ মিনিটে এগিয়ে দেন ড্যানিয়েল করদোপা। এরপরই আবাহনী পায় চার গোল। অবশ্য প্রথম দুটিই এসেছে পেনাল্টি থেকে। ৫১ মিনিটে সানডে ও ৫৯ মিনিটে নাবিব নেওয়াজ জীবন তুলে নেন গোল।

এরপর ৬৫ মিনিটে সানডে আরেকটি ও ৮০ মিনিটে মামুনুল ইসলাম গোল করলে হাসিমুখে মাঠ ছাড়ে আবাহনী।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শনিবার লিগের আরেক ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীকে ২-০ গোলে হারিয়েছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। আরেক খেলায় ময়মনসিংহের রফিক উদ্দিন ভূইয়া স্টেডিয়ামে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ ৬-৩ গোলে হারিয়েছে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস অ্যান্ড সোসাইটিকে।

কলম্বোতে পা রাখল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল

কলম্বোতে পা রাখল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল
নিরাপদেই শ্রীলঙ্কায় পৌঁছলেন তামিম-মোসাদ্দেক হোসেনরা

তামিম ইকবালের নেতৃত্বে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এখন শ্রীলঙ্কায়। শনিবার দুপুরেই দেশ ছেড়েছিলেন টাইগার ক্রিকেটাররা। এরপর স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টার দিকে কলম্বোতে পা রাখেন তামিম-মুশফিকুর রহিমরা। তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ খেলতে অবশ্য পুরো দল একসঙ্গে যেতে পারেনি।

গত ২১ এপ্রিল শ্রীলঙ্কার হোটেল ও চার্চে ভয়ংকর সন্ত্রাসী হামলায় প্রাণ হারিয়েছিল আড়াই শর বেশি মানুষ। এরপর থেকেই জরুরি অবস্থা জারি করে শ্রীলঙ্কা। সেই ঘটনার পর প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক দল হিসেবে বাংলাদেশ দল গেল শ্রীলঙ্কা সফরে। এ কারণেই বাংলাদেশ দলকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিচ্ছে শ্রীলঙ্কা। বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধিদের জন্য যে নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকে তাই পাবেন তামিম ইকবালরা।

চট্টগ্রামে আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে সিরিজ ও ভারতে মিনি রঞ্জি ট্রফিতে খেলার কারণে ১৪ জনের দলের মধ্যে ৭ জন যাচ্ছেন পরে। এরমধ্যে শনিবার কলম্বো গেলেন তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মুশফিকুর রহিম, সৌম্য সরকার, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও মুস্তাফিজুর রহমান। রোববার যাওয়ার কথা রুবেল হোসেনের। ইনজুরি সামলে নিয়েছেন এই পেস বোলার।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563635963858.jpg

আফগানিস্তানের ‘এ’ দলের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে খেলে দ্বীপ দেশটিতে যাবেন এনামুল হক বিজয়, মোহাম্মদ মিঠুন, সাব্বির রহমান ও ফরহাদ রেজা। ভারত থেকে শ্রীলঙ্কায় যাবেন- তাসকিন আহমেদ ও তাইজুল ইসলাম।

এর আগে শুক্রবার ইনজুরিতে এই সফর শেষ হয়ে যায় অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার। চোটের কারণে খেলতে পারছেন না পেসার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনও। তাদের বদলে দলে আছেন তাসকিন আহমেদ ও ফরহাদ রেজা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563635980900.jpg

আগামী ২৩ জুলাই একটি প্রস্তুতি ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে শ্রীলঙ্কা সফর। এরপর আগামী ২৬, ২৮ ও ৩১ জুলাই স্বাগতিকদের সঙ্গে তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ১ আগষ্ট দেশে ফেরার কথা টাইগার ক্রিকেটারদের।

শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশ দল-

তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), সৌম্য সরকার, এনামুল হক বিজয়, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন, সাব্বির রহমান, মোহাম্মদ মিঠুন, মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, ফরহাদ রেজা ও তাসকিন আহমেদ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র