৬ ডিসেম্বর লাল সবুজ পতাকা ওড়ে আখাউড়ায়

৬ ডিসেম্বর লাল সবুজ পতাকা ওড়ে আখাউড়ায়। ছবি: বার্তা২৪.কম

আজ ৬ ডিসেম্বর। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলা মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে পূর্বাঞ্চলের প্রবেশদ্বার ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম রণাঙ্গন আখাউড়া উপজেলা পাক হানাদার মুক্ত হয়।

এই এলাকায় মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনে সাহসের সঙ্গে যুদ্ধ করে শহীদ হয়েছিলেন সিপাহি বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামালসহ অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা। এছাড়া যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনী ও রাজাকারদের হাতে প্রাণ দিতে হয় নারী শিশুসহ শত শত মুক্তিকামী সাধারণ মানুষকে।

মুক্তিযুদ্ধে শহীদের স্মৃতি স্বরূপ আখাউড়ার দুরুইন গ্রামে রয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামালের সমাধি। এছাড়াও গঙ্গাসাগর টান মান্দাইলে রয়েছে ৩৩ জন মুক্তিযোদ্ধার গণকবর।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/06/1544072986277.gif

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ১৯৭১ সালের ৩০ নভেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বর আখাউড়ার উত্তর সীমান্তবর্তী আজমপুর ও রাজাপুর এলাকায় পাকবাহিনীর সঙ্গে মুক্তিবাহিনীর যুদ্ধ হয়। ৩ ডিসেম্বর রাতে মুক্তিবাহিনী আজমপুরে শক্ত অবস্থান নিলে সেখানেও অবিরাম যুদ্ধ হয়। ওই যুদ্ধে পাকহানাদার বাহিনীর ১১ সৈন্য নিহত ও মুক্তিবাহিনীর দু’জন সিপাহি ও একজন নায়েক সুবেদার শহীদ হন।

৪ ডিসেম্বর আজমপুরে পাক বাহিনীর মর্টার শেলের আঘাতে শহীদ হন লে. ইবনে ফজল বদিউজ্জামান। ৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনী সম্মিলিতভাবে আখাউড়া আক্রমণ করে। ৫ ডিসেম্বর দিন-রাত তুমুল যুদ্ধের পর ৬ ডিসেম্বর সকালেই আখাউড়া সম্পূর্ণভাবে শত্রু মুক্ত হয়। পরে আখাউড়া ডাকঘরের সামনে লাল সবুজ পতাকা উত্তোলন করেন পূর্বাঞ্চলীয় রণাঙ্গনের প্রধান জহুর আহাম্মদ চৌধুরী।

এদিকে, আখাউড়া মুক্ত দিবস উপলক্ষে যথাযোগ্য মর্যাদায় নানা কর্মসূচির আয়োজন করেছে বিভিন্ন সংগঠন।

জাতীয় এর আরও খবর

//election count down