অবশেষে ঘড়ির টাকা ফেরত পেল সেই যুবক

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, লক্ষ্মীপুর, বার্তা২৪.কম
ছবিঃ বার্ত২৪.কম

ছবিঃ বার্ত২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

অনলাইন শপে অর্ডার দিয়ে প্রতারিত হওয়া লক্ষ্মীপুরের সেই যুবক পিয়াস সরকার ঘড়ির জন্য দেওয়া ১ হাজার ৮০০ টাকা ফেরত পেয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) রাত ৯ টার দিকে টাকা বুঝে পাওয়ার বিষয়টি বার্তা২৪.কমকে নিশ্চিত করেছেন পিয়াস। এসএ পরিবহণ লক্ষ্মীপুর শাখা থেকে তাকে ওই টাকা বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর এসএ পরিবহণ কার্যালয় থেকে জানা গেছে, ঘড়ির বদলে পেঁয়াজ পেয়ে যুবক প্রতারণার শিকার হওয়া নিয়ে সংবাদ প্রকাশ ও থানায় সাধারণ ডায়েরি করায় বিক্রেতারা টাকাটি নেয়নি। ঘটনার পর তাদের নাম্বারও বন্ধ ছিল। পরে বিক্রেতারা এসএ পরিবহণের মূল শাখায় ফোন দিয়ে ওই ক্রেতাকে টাকাটি ফেরত দেওয়ার জন্য বলে। সন্ধ্যায় ভূক্তভোগী ক্রেতা পিয়াসকে ১ হাজার ৮০০ টাকা বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। পিয়াস সরকার বলেন, সংবাদ প্রকাশ হওয়াতেই আমি টাকা বুঝে পেয়েছি। এজন্য বার্তা২৪.কমসহ গণমাধ্যম কর্মীদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে এসএ পরিবহণের লক্ষ্মীপুর শাখা ব্যবস্থাপক নুরুল আলম বলেন, অনলাইন শপের আরিফা আক্তার নামে এক কর্মচারী আমাদের মূল শাখায় ফোন করে বলেছিল টাকাটি পিয়াসকে ফেরত দেওয়ার জন্য। আমরা তাকে টাকাটি ফেরত দিয়েছি।

পিয়াস লক্ষ্মীপুর পোরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড বাঞ্চানগর এলাকার জয়দেব সরকারের ছেলে ও স্কাই ইন্টারনেটের লক্ষ্মীপুর শাখার ব্যবসায়ী।

সোমবার (১ এপ্রিল) ‘স্মার্ট সপ ঢাকা’ নামক একটি অনলাইন পেজ থেকে পিয়াস একটি স্মার্ট ঘড়ি অর্ডার করেন। ঘড়িটির দাম ১ হাজার ৮০০ টাকা। এটি পেতে ৬০ টাকা এসএ পরিবহণকে বাড়তি বিল দিতে হবে বলে ওই অনলাইনে থেকে জানানো হয়েছে। পরে মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় এসএ পরিবহণ লক্ষ্মীপুর শাখা থেকে ১ হাজার ৮৬০ টাকা দিয়ে তার নামে আসা ঘড়ির প্যাকেটটি গ্রহণ করেন। কিন্তু প্যাকেটে থাকা বক্সটি খুলে দেখতে পান ‘সেখানে ঘড়ি নেই, আছে দুইটি পেঁয়াজ’।

আপনার মতামত লিখুন :