Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

সাগরে মাছ আহরণে নিষেধাজ্ঞা: কঠোর আন্দোলনের প্রস্তুতি

সাগরে মাছ আহরণে নিষেধাজ্ঞা: কঠোর আন্দোলনের প্রস্তুতি
ছবি: বার্তা২৪
আবদুসসাত্তার
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
চট্টগ্রাম


  • Font increase
  • Font Decrease

বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন দেশের প্রায় ৮০ লাখ জেলে। কিন্তু বঙ্গোপসাগরে সামুদ্রিক মাছ আহরণে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার। ফলে মৎস্যজীবীরা বেকার হয়ে পড়েছেন। তবে সরকারের এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে কঠোর আন্দোলন ও হাইকোর্টে রিট করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা।

মৎস্যজীবী নেতাদের মতে, ৬৫ দিন বঙ্গোপসাগরে মাছ আহরণ বন্ধ থাকলে তাদের না খেয়ে থাকতে হবে। ওই সময় তাদের ভিক্ষা করা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না। এছাড়া সামনে ঈদ, এ সময় মাছ ধরতে না পারলে বোট মালিকরা ক্ষতির মুখে পড়বে।

বাংলাদেশ সামুদ্রিক মৎস্য আহরণকারী ও বোট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাবুল সরকার বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আগে ইলিশ না ধরতে ৬৫ দিন মাছ ধরা বন্ধ ছিল। এবার সব ধরনের মাছ ধরার ওপর ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের বেঁচে থাকার অবলম্বন ধ্বংস হবে। সরকার দ্রুত এ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার না করলে আমরা কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি দেব।’

 https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/21/1558387022130.JPG

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা হাইকোর্টে উকিলের সঙ্গে পরামর্শ করতে গিয়েছিলাম। দেশে ৬৫ হাজার মাছ ধরার বোট রয়েছে। প্রতি বোটে ২০ জন করে কাজ করে। মাছ ধরতে না পারলে তাদের খরচ আসবে কোথা থেকে?’

উল্লেখ্য, ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত (৬৫ দিন) বঙ্গোপসাগরে বাণিজ্যিক ট্রলার ও সকল প্রকার যান্ত্রিক এবং অযান্ত্রিক নৌযান দ্বারা মাছ আহরণ বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। কিন্তু জেলেরা এ নিষেধাজ্ঞা কমিয়ে ৩০ দিন করার দাবি জানিয়েছেন। পাশাপাশি মে থেকে জুলাই মাসের পরিবর্তে এ নিষেধাজ্ঞা চৈত্র থেকে বৈশাখ করার দাবি জানিয়েছেন তারা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/21/1558387117824.JPG

নাম না প্রকাশ শর্তে চট্টগ্রাম জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘মৎস্যজীবীরা আন্দোলন করলেও আমাদের কিছুই করার নেই। তাদের ভালোমন্দ সরকার দেখবে। কিন্তু আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারত, মালয়েশিয়া, মিয়ানমার, শ্রীলংকাসহ সব দেশে বছরে ৬৫ দিন সমুদ্রে মাছ ধরা বন্ধ থাকে। কারণ এই সময়ে মা মাছ পোনা ছাড়ে ও অন্যান্য মাছও বড় হয়। তাই এই সময়ে মাছ ধরা বন্ধ থাকলে পরবর্তীতে জেলেরাই লাভবান হবেন। তাছাড়া সমুদ্রে মৎস্য সম্পদ বিলুপ্তের কথা বিবেচনা করেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।’

আপনার মতামত লিখুন :

গান্ধী আশ্রমের ঝর্ণা ধারা চৌধুরী আর নেই

গান্ধী আশ্রমের ঝর্ণা ধারা চৌধুরী আর নেই
ঝর্ণা ধারা চৌধুরী, ছবি: সংগৃহীত

একুশে পদক, রোকেয়া পদক ও ভারতের পদ্মশ্রী পুরস্কারপ্রাপ্ত গান্ধী আশ্রম ট্রাস্টের সচিব ঝর্ণা ধারা চৌধুরী না ফেরার দেশে চলে গেছেন। মুত্যৃকালে তাঁর বয়স ছিল ৮০ বছর।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকাল সাড়ে ৬টায় স্কয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

এর আগে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাকে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে জানিয়েছে আশ্রম কতৃপক্ষ।

জাতিসংঘ সনদ স্বাক্ষর দিবস উদযাপন

জাতিসংঘ সনদ স্বাক্ষর দিবস উদযাপন
প্রতীকী স্বাক্ষর করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রানসিস্কোতে ১৯৪৫ সালের ২৬ জুন স্বাক্ষরিত হয় জাতিসংঘ সনদ। দিনটি স্মরণে এবং ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে জাতিসংঘের পঁচাত্তর বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত কর্মসূচিগুলোকে এগিয়ে নেওয়ার অংশ হিসেবে বুধবার (২৬ জুন) এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ।

সনদ স্বাক্ষরের দিনটির প্রতি সম্মান জানিয়ে অনুষ্ঠানে প্রতীকী স্বাক্ষর করেন সদস্য রাষ্ট্রগুলোর স্থায়ী প্রতিনিধিরা। বাংলাদেশের পক্ষে প্রতীকী স্বাক্ষর
করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন।

প্রতীকী স্বাক্ষর অনুষ্ঠানের আগে জাতিসংঘের ছয়টি দাফতরিক ভাষায় জাতিসংঘ সনদের মুখবন্ধ সম্বলিত একটি পোস্টার প্রদর্শন করা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানটিতে জাতিসংঘ সনদ ও আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত সনদ স্বাক্ষরের সেই ঐতিহাসিক দিনের (১৯৪৫ সালের ২৬ জুন) তথ্য সম্বলিত একটি ভিডিও চিত্রও প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানটিতে বক্তব্য দেন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ সভাপতি মিস মারিয়া ফার্নান্দে এসপিনোসা গার্সেজ এবং জাতিসংঘের পঁচাত্তর বছর পূর্তি অনুষ্ঠান উদযাপনের বিশেষ উপদেষ্টা ফ্যাবরিজিও হচ্চাইল্ড ড্রামমন্ড।

a
বক্তব্য রাখছেন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ সভাপতি মিস মারিয়া ফার্নান্দে এসপিনোসা গার্সেজ, ছবি: সংগৃহীত

 

জাতিসংঘ সনদ স্বাক্ষরের দিনটির তাৎপর্য তুলে ধরে সাধারণ পরিষদ সভাপতি বলেন, ‘‘আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, আজও আমরা সান ফ্রানসিস্কোর সেই দিনটির শক্তিকে অনুভব করতে পারি। আজ আমরা এখানে প্রতীকী স্বাক্ষর করলাম। এজেন্ডা ২০৩০ এবং প্যারিস চুক্তিসহ বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় করা অন্যান্য চুক্তি ও কনভেনশন যেমন অভিবাসন, সমুদ্র সম্পদ ও আইন, খাদ্য নিরাপত্তা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমন, স্বাস্থ্য অথবা নারীর ক্ষমতায়ন
ইত্যাদি বিষয়ে আমাদের প্রতিজ্ঞাগুলো অটুট রাখতে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের উচ্চ পর্যায়ের সপ্তাহেও আমরা দূরদর্শী ও বাস্তবভিত্তিক পদক্ষেপ নেব।”

বহুপক্ষবাদ এবং বৈশ্বিক সহযোগিতা বৃদ্ধির মাধ্যমে আগামী বছর জাতিসংঘের পঁচাত্তর বছর পূর্তি অনুষ্ঠান উদযাপনে এগিয়ে আসতে সদস্য দেশেগুলোর প্রতি আহ্বান জানান বক্তারা।

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র