শালবন বিহারে বেহাল সড়ক, শিক্ষার্থী-পর্যটকদের ভোগান্তি

জাহিদ পাটোয়ারী, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুমিল্লা
রাস্তার কাদা পানি সেচ দিচ্ছেন একজন, ছবি: বার্তা২৪.কম

রাস্তার কাদা পানি সেচ দিচ্ছেন একজন, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

কুমিল্লা কোটবাড়ী শালবন বিহারের সড়কের বেহাল দশা। এতে এখানকার মানুষদের ভোগান্তি চরম আকার ধারণ করেছে। জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির প্রায় আড়াই কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বেহাল দশা দেখা গেছে। অনেক স্থানে তৈরি হয়েছে ছোট-বড় বহু গর্ত। দীর্ঘদিন ধরে খানাখন্দ আর পানি জমে জলাবদ্ধতার কারণে কাদা-মাটিতে একাকার হয়ে গেছে সড়কটি।

এতে করে এ সড়কে যাতায়াতকারী কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ও কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজের হাজার হাজার শিক্ষার্থী, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পর্যটকসহ এ সড়কে নিয়মিত যাতায়াতকারী স্থানীয় বাসিন্দারাসহ হাজার হাজার মানুষকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, বেহাল দশার সড়কটিতে কুমিল্লা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট মোড় থেকে শালবন বিহার পর্যন্ত নিম্নমানের ইট এবং বালু দিয়ে সংস্কার করা হয়েছে। যার ফলে হালকা বৃষ্টি হলেই সড়কে পানি জমে কাদা-মাটি একাকার হয়ে যায়। প্রতিদিন এ সড়ক দিয়ে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজ, শালবন বিহার, ময়নামতি জাদুঘর, টিচার্স ট্রেনিং কলেজসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-শিক্ষক এবং পর্যটকের যাতায়াত।

খালেদ মোর্শেদ নামে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী বার্তা২৪.কম-কে জানান, দীর্ঘদিন ধরে সড়কটির বেহাল দশা চলছে। শিক্ষার্থীদের বহনকারী বাসগুলো প্রায় মাঝপথে ছোট-বড় গর্তের কারণে আটকা পড়ে। এতে করে আমারে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়সহ স্থানীয় সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা দীর্ঘদিন ধরে মানববন্ধন কর্মসূচিসহ বিভিন্নভাবে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে। কর্তৃপক্ষ সড়টি সংস্কারে কোনভাবেই নজর দিচ্ছে না।

এ সড়কে চলাচলকারী আবু মুছা নামে সিএনজি চালিত আটোরিকশা চালক বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'সড়কটিতে চলতে গেলে প্রতিনিয়তই গাড়ি জাম্পিং করে এবং সড়কের উপর উল্টিয়ে পড়ে। চাকা ভেঙে যায়। এতে করে যাত্রীরা দুর্ঘটনায় শিকার হয়।'

প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতর, চট্টগ্রাম, সিলেট ও কুমিল্লা বিভাগের সহকারী পরিচালক ড. আহমেদ আবদুল্লাহ বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'এখানে শিক্ষার্থী, পর্যটক এবং দর্শনার্থীরা রীতিমত ভোগান্তির মধ্য দিয়ে চলতে হচ্ছে। আমরা এ বিষয়ে বারবার বিভিন্ন দফতরে তুলে ধরেছি। তবে এখনো সংস্কার করা হয়নি।'

কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীরকে এই বিষয়ে জানানো হলে তিনি আমাদের আশ্বস্ত করে বলেছেন, 'অচিরেই সড়কটি সংস্কার করা হবে।'

এ বিষয়ে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. মনিরুল হক সাক্কু বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'কুমিল্লা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে শালবন পর্যন্ত সড়টি টেন্ডার হয়ে গেছে।' জুন মাসের শেষের দিকে সড়কটির সংস্কার কাজ শুরু করা হবে বলে তিনি জানান।

আপনার মতামত লিখুন :