Barta24

বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

কুমিল্লায় পানিতে ডুবে ২ ভাইয়ের মৃত্যু

কুমিল্লায় পানিতে ডুবে ২ ভাইয়ের মৃত্যু
দুই শিশুর মরদেহ, ছবি: বার্তা২৪
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
কুমিল্লা


  • Font increase
  • Font Decrease

কুমিল্লার লাকসামে ডোবার পানিতে ডুবে আবদুল্লাহ বোরহান (৬) ও আবদুল্লাহ রায়হান (৪) নামে দুই সহোদরের মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) দুপুরে শহরের পশ্চিমগাঁও সোয়াছয়আনী পাড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ওই দুই সহদোর লাকসাম এসিল্যান্ড অফিস সংলগ্ন পশ্চিমগাঁও সোয়াছয়আনি জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা মাজহারুল ইসলামের ছেলে। নিহত আবদুল্লাহ বোরহান লাকসাম আল-আমিন ইন্সটিটিউটের প্রথম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

নিহতদের পিতা মুফতি মাওলানা মাজহারুল ইসলাম বার্তা২৪.কমকে জানান, তিনি জোহরের নামাজ পড়াতে মসজিদে যাওয়ার পর তার স্ত্রী নাছরিন আক্তার ঘরে নামাজ পড়ছিলেন। এ সময় বোরহান ও রায়হান খেলার ছলে ঘরের পাশে ডোবার পাড়ে যায়। নামাজ শেষে নাছরিন আক্তার তাদের না দেখে বিভিন্ন দিকে খোঁজাখুজি করতে থাকে। এক পর্যায়ে স্থানীয়রা ডোবার পাড়ে তাদের জুতা দেখে পানিতে নেমে খুঁজতে থাকে। পরে দু’জনকে উদ্ধার করে লাকসাম সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

এরআগে গত দেড়মাস পূর্বে মাওলানা মাজহারুল ইসলামের বড় ছেলে মো. ফারহান উদ্দিন (১২) মাদরাসায় যাওয়ার পথে নিখোঁজ হয়। পরপর তিন সন্তানকে হারিয়ে শোকে কাতর পিতা-মাতা ও আত্মীয়-স্বজনরা।

আপনার মতামত লিখুন :

দেশে ফিরেছেন ওবায়দুল কাদের

দেশে ফিরেছেন ওবায়দুল কাদের
ওবায়দুল কাদের, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরেছেন।
 
বুধবার (১৭ জুলাই) রাতে সেতুমন্ত্রীকে বহনকারী বিমানটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। বিষয়টি সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উপপ্রধান তথ্য অফিসার মো. আবু নাছের নিশ্চিত করেছেন।
 
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/17/1563384878481.jpg
 
অপারেশন পরবর্তী চেক আপের জন্য রোবাবর দুপুরে সিঙ্গাপুরে যান কাদের। সেখানে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। অপারেশন পরবর্তী স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন প্রধান ডা. ফিলিপ কোহ।
 
উল্লেখ্য, গত ২ মার্চ শ্বাসকষ্ট শুরু হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন ওবায়দুল কাদের। সেখানে দ্রুত এনজিওগ্রাম করার পর তার হৃৎপিণ্ডের রক্তনালিতে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে।
 
৪ মার্চ এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ওবায়দুল কাদেরকে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে নেওয়া হয়। ২০ মার্চ ওই হাসপাতালে তার বাইপাস সার্জারি হয়। দুই মাস ১১ দিন সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে গত ১৫ মে দেশে ফেরেন ওবায়দুল কাদের।

মিন্নিকে অভিযুক্ত করে কাকে আড়াল করা হচ্ছে!

মিন্নিকে অভিযুক্ত করে কাকে আড়াল করা হচ্ছে!
আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি | ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার রহস্যের কূল-কিনারা পাচ্ছে না পুলিশ। গত ২ জুলাই মামলার প্রধান আসামি সাব্বির আহমেদ ওরফে নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। এর একদিন পর গ্রেফতার হন মামলার দ্বিতীয় আসামি রিফাত ফরাজী। তার ১৫ দিন পর গত মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) মামলার প্রধান সাক্ষী রিফাতের স্ত্রী মিন্নিকে গ্রেফতার করেছে বরগুনা জেলা ও সদর থানা পুলিশ।

গ্রেফতার আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। পুলিশ বলছে, রিফাত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মিন্নির সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। এ জন্যই রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে।

এদিকে মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর বলছেন, মিন্নিকে গ্রেফতার করে হত্যাকাণ্ডের মূল ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা হচ্ছে। বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে তিনি বলেন, মিন্নিকে আলোচনায় এনে এই হত্যাকাণ্ডের পিছনে যারা আছেন তাদের আড়াল করা হচ্ছে।

বিশেষ করে কোন একজন ব্যক্তিকে বাঁচানোর চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলছেন মিন্নির বাবা। তার ধারণা, এ কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে খোদ রিফাতের বাবা দুলাল শরিফ ও নয়ন বন্ডের মা সাহিদা বেগমকে।

মোজাম্মেল হোসেন কিশোর আরও বলেন, রিফাতের বাবা কয়েকদিন আগে পর্যন্তও আমার মেয়ের নামে প্রসংশা করে বেড়িয়েছেন। মিন্নিই একমাত্র মানুষ যে শেষ পর্যন্ত তার ছেলেকে বাঁচাতে চেয়েছে। হঠাৎ কী এমন হলো যার কারণে প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে মিন্নিকে গ্রেফতারের দাবি জানান তিনি। তার পরই পুলিশ মিন্নিকে ডেকে নিয়ে গিয়ে গ্রেফতার করল।

মিন্নির বাবা আরও বলেন, মিন্নিকে গ্রেফতারের ৩ দিন আগে বন্দুকযুদ্ধের পর উধাও হয়ে যাওয়া নয়ন বন্ডের মা বাড়ি ফিরে আসেন। তিনি বাড়িতে ফিরলে সেই রাতে বরগুনা সদর থানা পুলিশ তাদের বাড়িতে অভিযান চালায়। সে সময় নয়ন বন্ডের মা মিন্নি সম্পর্কে পুলিশকে নানারকম মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সূত্রে জানা যায়, নয়নের মা পুলিশকে বলেছেন— তাদের বাড়িতে মিন্নির যাতায়াত ছিল। এমনকি মিন্নির ব্যবহারের অনেক কিছুই তার ঘরে রয়েছে।

এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রিফাতের বাবার প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের পরের দিন ১৪ জুলাই হঠাৎ মিন্নিকে গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন হয় বরগুনায়। সেখানে প্ল্যাকার্ড হাতে ‘মিন্নির ফাঁসি চাই’ দাবিতে রাজনৈতিক লোকের আনাগোনা দেখা যায়।

তবে সূত্র বলছে, নয়নের মায়ের হঠাৎ করে মিন্নি সম্পর্কে অভিযোগ দেওয়া, প্রেসক্লাবে রিফাতের বাবার সংবাদ সম্মেলন, মিন্নির ফাঁসির দাবিতে বরগুনায় মানবন্ধনের নেপথ্যে রয়েছেন স্থানীয় এমপিপুত্র সুনাম দেবনাথ। এমনকি তিনি নিজেই ওই মানববন্ধনে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

বিষয়টি অবশ্য অস্বীকার করেননি সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর পুত্র সুনাম দেবনাথ। বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে তিনি বলেন, এমন হত্যাকাণ্ড যেন আর না ঘটে। সে জন্য প্রকৃত দোষীদের শাস্তি হওয়া প্রয়োজন। কেউ যেন দোষী হওয়ার পরও আইনের হাত থেকে পালিয়ে বাঁচতে না পারে। তাই আমরা সঠিক বিচারের দাবিতে সোচ্চার।

সারাসরি হত্যায় অংশ না নেওয়ার পরও শুধু মিন্নির ফাঁসির দাবিতে তিনি সোচ্চার কেন? এমন প্রশ্নে কোন জবাব দেননি এমপিপুত্র সুনাম দেবনাথ।

অন্যদিকে মিন্নির গ্রেফতার ও রিমান্ডের অনুমতির পর নতুন করে মামলার মোড় নিয়েছে। তাতে প্রকাশ্যে যারা রিফাতকে কুপিয়ে হত্যা করেছে সেই সন্ত্রাসীদের গডফাদারের নাম আড়াল হয়ে পড়ছে। আর এই সুযোগটা নিচ্ছেন ক্ষমতাশালী গডফাদাররা, অভিযোগ তুলছেন মিন্নির বাবা।

মিন্নিকে গ্রেফতার করে নয়ন বন্ড-রিফাত ফরাজীর মত সন্ত্রাসীদের গডফাদার সম্পর্কে জানা যাবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে, বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, নয়ন বন্ড, রিফাত ফরাজীর গডফাদারদের তথ্য মিন্নির কাছে না পাওয়া গেলেও ঘটনার সঙ্গে মিন্নির সংশ্লিষ্টতা জানা যাবে। যেটা এই হত্যা মামলার তদন্ত্যের জন্য জরুরি।

মামলার এজাহারভুক্ত ছয় আসামিসহ ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের মধ্যে ১০ জন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। মামলার দুই নম্বর আসামি রিফাত ফরাজীসহ বাকি তিন আসামি এখনো রিমান্ডে আছেন। মামলার এজাহারভুক্ত ৫ আসামি এখনো গ্রেফতার হয়নি। পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন বলছেন, তাদের গ্রেফতারের চেষ্টাও চলছে।

তবে এখন পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের মূল কারণ খুঁজে বের করতে পারেনি পুলিশ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র