শিক্ষকের গায়ে কেরোসিন দেওয়ার ঘটনায় তদন্ত কমিটি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ক্যাম্পাসের সামনের রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করা হয়, ছবি: বার্তা২৪

ক্যাম্পাসের সামনের রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করা হয়, ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামে ইউনিভার্সিটি সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে অফিস থেকে রাস্তায় টেনে নিয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২ জুলাই) বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর নুরে আলম সিদ্দিকী বিষয়টি বার্তা২৪.কমকে নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘ইংরেজি বিভাগের এক প্রফেসর ও কিছু শিক্ষার্থীদের মধ্যে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে। সবগুলো বিষয় এখনও পর্যালোচনা করা সম্ভব হয়নি। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যের নাম এখনও অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। আগামীকাল (বুধবার) উপাচার্য স্যার চূড়ান্তভাবে কমিটির নির্দেশনা প্রদান করবেন।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কোনো মামলা করা হয়েছে কিনা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানাতে না পারলেও বর্তমানে ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/02/1562071431651.jpg

এর আগে ইউনিভার্সিটি সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (ইউএসটিসি) ইংরেজি বিভাগের উপদেষ্টা শিক্ষক মাসুদ মাহমুদকে গায়ে কেরোসিন ঢেলে দেওয়ার চেষ্টা করেন শিক্ষার্থীরা। এমনকি ওই শিক্ষার্থীরা দুপুর সোয়া ১২টায় ক্যাম্পাসের সামনের রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করে। এতে নগরীল খুলশী থানাধীন ফয়েজ লেক এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

জানা যায়, মাস্টার্সের ইংরেজি সাহিত্যে কোর্সের অংশ হিসাবে শিক্ষক মাসুদ মাহমুদ 'নারী ও জৈবিক সম্পর্ক' বিভিন্ন শারীরিক বিষয় নিয়ে পড়ান। তবে শিক্ষার্থীরা বিষয়টি যৌন হয়রানি বিষয় দাবি করে এর আগেও আন্দোলন করে। শিক্ষক মাসুদ মাহমুদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসরের পরে বেসরকারি এ বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন। বিষয়টি ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থীরা গত ১ মে নগরীতে কর্মসূচি পালন করেছিল।