Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে হাঁটুপানি

চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে হাঁটুপানি
হাঁটুপানিতেই চলছে চিকিৎসা কার্যক্রম/ ছবি: বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
চট্টগ্রাম


  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ এলাকায় অবস্থিত নগরীর মা ও শিশু হাসপাতাল। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও প্রবল বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতার হাসপাতালটির নিচতলায় কার্যক্রম বন্ধ হয়ে পড়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন কাঙিক্ষত সেবা নিতে দূর-দূরান্ত থেকে আসা রোগী ও স্বজনরা।

এদিকে নিম্নাঞ্চল হওয়ায় এ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে বলে দাবি করছে হাসপাতালটির কর্তৃপক্ষ। তাদের দাবি, সাময়িক ব্যাঘাত ঘটলেও কেউ সেবা না নিয়ে ফিরছেন না।

স্থানীয়া জানায়, জোয়ারের পানির কারণে বেশ কয়েকদিন ধরে পানি জমে আছে হাসপাতালটিতে। যা হাসপাতালের নিচতলায় কার্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে। সেই সাথে গত দুই দিনের টানা বর্ষণের কারণে হাঁটু পরিমাণ পানি বেড়ে গিয়ে জলাবদ্ধতায় রূপ নেয়। এতে বহিঃবিভাগসহ প্রশাসনিক কার্যালয় বন্ধ হয়ে যায়। সেবা নিতে আসা রোগীদের প্রবেশমুখের পানি মাড়িয়ে হাসপাতালে যেতে হচ্ছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/09/1562676296694.jpg

মঙ্গলবার (৯ জুলাই) সকালে থেকে দুপুর পর্যন্ত থেমে থেমে আবার কখনো মুষলধারে বৃষ্টি হয়। এতে জলাবদ্ধতা আরও বেড়ে যায়।

আগ্রাবাদ এলাকার এক বাসিন্দা বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘স্ত্রীকে চিকিৎসা জন্য হাসপাতালে আনার পর শুনলাম জলাবদ্ধতার কারণে জরুরি বিভাগে সেবা দিতে পারছেন না চিকিৎসকরা।’

বৃষ্টির পানির সাথে সাপের উপদ্রব আর বিভিন্ন রোগ সংক্রমের আশঙ্কা বিরাজ করছে এলাকাবাসীর মাঝে।

হাসপাতাল ঘুরে দেখা যায়, নিচতলায় থইথই করছে পানি। এক প্রকার বাধ্য হয়ে দ্বিতীয় তলায় সেবা চলছে সীমিত আকারে। সেখানে সেবা পেতে বেগ পেতে হচ্ছে অনেককে। নিচতলায় হাঁটুপানিতেই চলছে কার্যক্রম।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/09/1562676314070.jpg

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে হাসপাতালের সহকারী পরিচালক আশরাফুল করিম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘রোগীদের ভোগান্তি হচ্ছে এটা কিন্তু বলা যাবে না। এটা প্রকৃতিগত বিষয়, সেই সাথে জোয়ারের পানিতো আছে। এরপরও নিচতলায় সীমিত আকারে আউটডোরসহ অন্যান্য ওয়ার্ডে কাজ চলছে। আপদকালীন হিসেবে নিচের রোগীদের কার্যক্রম দ্বিতীয় তলায় শিফট করেছি। কোনো রোগী এসে ফেরত যাচ্ছেন না।’

এক প্রশ্নের জবাবে আশরাফুল বলেন, ‘এমন আবহাওয়ায় শিশুদের ডায়রিয়াসহ অন্যান্য পানিবাহিত রোগের প্রকোপ বেড়ে যাবে। এসব পানি সংস্পর্শে এলে শরীরে বিভিন্ন রোগ দেখা দিতে পারে।’

আপনার মতামত লিখুন :

বৃষ্টি কমেছে, বেড়েছে তাপমাত্রা

বৃষ্টি কমেছে, বেড়েছে তাপমাত্রা
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বাংলাদেশের উপর মৌসুমী বায়ুর প্রভাব অনেকটাই কমেছে। এটি এখন উত্তর বঙ্গোপসাগরে দুর্বল অবস্থায় রয়েছে। ফলে সারাদেশে আবহাওয়ার পরিস্থিতিতে উন্নতি ঘটছে।

মাঝে মাঝে অবশ্য আকাশ মেঘলা থাকতে পারে। তবে দেশের দু-এক জায়গা ছাড়া তেমন কোথাও ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। ফলে ধীরে ধীরে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে।

গরমে জনজীবন কিছুটা অতিষ্ঠ হলেও বন্যায় কবলিত পানিবন্দীদের মাঝে স্বস্তি ফিরবে। তারা নিজ ভিটায় ফিরে যেতে পারবেন। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তরা নিজেকে আবারও গুছিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করবেন। তবে নদী ভাঙ্গনে ভিটেমাটি হারানো মানুষদের আর্তনাদ থেকেই যাবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563389450967.jpg

আবহাওয়া অফিস বলছে, 'মৌসুমী বায়ু অনেকটাই দুর্বল হয়ে গেছে। এতে মাঝারি থেকে ভারী বর্ষণের আশঙ্কা কমে গেছে। ক্রমান্বয়ে বাড়বে তাপমাত্রা। গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ৩২ থেকে ৩৩ ডিগ্রি ছিল তবে এখন তা ৩৫ থেকে ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বিরাজ করতে পারে।'

বুধবার ১৭ জুলাই সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় মংলায় ৩৬.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় কুমারখালীতে ২২.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৫.৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৬.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বুধবার সকালে রাজধানীতে আকাশ মেঘলা থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রোদের প্রখরতাও বাড়তে থাকে। এতে গরমের তীব্রতাও বাড়ে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563389436185.jpg

রোদ থেকে বাঁচতে অনেকেই ছাতা ব্যবহার করেছেন। আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, 'গতকাল থেকেই বৃষ্টির প্রভাব কমেছে। তাপমাত্রা বেড়েছে তিন থেকে চার ডিগ্রি সেলসিয়াস। এখন বর্ষা মৌসুম হওয়ায় তিন থেকে চারদিন পর আবারও বৃষ্টির প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে। আরও এক থেকে দেড় মাস এভাবেই চলবে।'

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাজশাহী চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া বাকি বিভাগগুলোতে দু-এক জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

অন্যদিকে, রাজশাহী সাতক্ষীরা চুয়াডাঙ্গা ও যশোরের উপর দিয়ে বেড়ে যাওয়া মৃদু তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে।

জালিয়াতি চক্রকে নিয়ে সতর্ক করলেন বিপ্লব বড়ুয়া

জালিয়াতি চক্রকে নিয়ে সতর্ক করলেন বিপ্লব বড়ুয়া
ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ও তার নামে ভুয়া চিঠিপত্র।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার ভুয়া সিল-প্যাড ব্যবহার করে জা‌লিয়া‌তি কর‌েছে এক‌টি প্রতারক চক্র।

এ ভুয়া চক্র থেকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে বুধবার (১৭ জুলাই) রাজধানীর শের-ই-বাংলা নগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন তিনি। জিডি নং: ৯৮১।

জিডিতে তিনি জানান, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত আমার সিল-প্যাড ব্যবহার করে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বরাবর কোন ধরনের পত্র, সুপারিশ বা নির্দেশনা প্রদান করি নাই। অথচ একটি জালিয়াতচক্র আমার নামে ভুয়া চিঠিপত্র বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানে প্রেরণ করেছে মর্মে অভিযোগ পেয়েছি। রাষ্ট্রীয় ও রাজনৈতিক কার্যক্রমে বিভ্রান্তি সৃষ্টি এবং আমার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য  জালিয়াতচক্র কর্তৃক এ ধরনের মারাত্মক অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563387562162.jpg

আওয়ামী লীগ উপ-দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘ইতোমধ্যে বিষয়টি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করা হয়েছে। এই জালিয়াতচক্র সম্পর্কে সকলকে সতর্ক থাকতে অনুরোধ জানাচ্ছি।’

উল্লেখ্য, গত ১০ জুলাই প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের প্যাডে ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার স্বাক্ষর নকল করে গফরগাঁও পৌরসভার মেয়র বরাবর একটি পত্র প্রেরণ করা হয়। যেটি একটি জাল চিঠি ছিল।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র