জাতীয় ফ্রন্ট থেকে এরশাদের জাপা

সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ

  • Font increase
  • Font Decrease

১৯৮৫ সালের ১৬ আগস্ট তৎকালীন রাষ্ট্রপতি এরশাদের নীতি ও আদর্শ বাস্তবায়নের অঙ্গীকারে নিয়ে জাতীয় ফ্রন্ট গঠিত হয়েছিল। জোটের শরীকদল হিসেবে ছিল জনদল, ইউপিপি, গণতান্ত্রিক পার্টি, বিএনপি (শাহ) মুসলিম লীগ (সা)।

রাজনৈতিক দলের বাইরেও বিভিন্ন শ্রেণির পেশার মানুষ ও রাজনৈতিক নেতা ফ্রন্টে যোগ দিয়েছিলেন। ক্ষেত্র বিশেষ চাপ প্রয়োগ করে যোগদানেও বাধ্য করা হয়। জাতীয় ফ্রন্ট গঠনের ৪ মাস ১৪ দিনের মাথায় ১৯৮৬ সালের ১ জানুয়ারি ফ্রন্ট বিলুপ্ত করে জাতীয় পার্টি গঠন করা হয়।

আরও পড়ুন:  এরশাদ মারা গেছেন

জাতীয় ফ্রন্টের ধানমণ্ডিস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে জাতীয় পার্টি গঠনের ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে শরিক দলের নেতারা তাদের নিজেদের দল বিলুপ্ত করে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন।

নবগঠিত পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান নিযুক্ত হন রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এবং মহাসচিব নিযুক্ত হন অধ্যাপক এমএ মতিন। পার্টির কাউন্সিল না হওয়া পর্যন্ত-জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন আনোয়ার জাহিদ। ২১ সদস্যের প্রেসিডিয়াম, ৫৭ সদস্যের জাতীয় নির্বাহী কমিটিসহ ৬০১ সদস্যের জাতীয় নির্বাহী কমিটি গঠনের ঘোষণা দেওয়া হয়।

পার্টি গঠনের ঘোষণায় বলা হয় দেশের সকল গণতন্ত্রকামী জাতীয়তাবাদী দেশপ্রেমিক শক্তিগুলোর বিভক্তির প্রবণতা কাটিয়ে একটি একক রাজনৈতিক দলে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রয়োজনীয়তা থেকে জাতীয় পার্টি গঠন করা হয়েছে।

সামরিক শাসকের ‍হাত ধরে প্রতিষ্ঠা পাওয়া জাতীয় পার্টি শুরু থেকেই এরশাদকে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয়ে আসছে। দু-একবার যারাই এরশাদের সিদ্ধান্তে দ্বিমত করতে গেছেন তাদের দল থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। আবার অনেক নেতা একাধিক দফায় শোকজ নোটিশ পেয়েছেন বা সাময়িক বহিষ্কারের শিকার হয়েছেন। শোকজের ক্ষেত্রে এরশাদ ছাড় দেননি আপন ভাই জিএম কাদের ও সহধর্মিনী রওশন এরশাদকেও।

আরও পড়ুন:  রংপুরই হোক এরশাদের শেষ ঠিকানা

নানা কারণে জাতীয় পার্টির মতো আর কোনো রাজনৈতিক দল সম্ভবত এতো বেশি দফায় ভাঙনের শিকার হয়নি। প্রথম দল জাতীয় পার্টি থেকে বের হয়ে গিয়ে পৃথক জাতীয় পার্টি (মিম) গঠন করেন মিজানুর রহমান ও আনোয়ার হোসেন মঞ্জু। এরপর আরেক দফায় ভাঙনের শিকার হয় নাজিউর রহমান মঞ্জু ও কাজী ফিরোজ রশীদের নেতৃত্বে।

সর্বশেষ এরশাদকে বহিষ্কার করে নিজে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হন প্রয়াত কাজী জাফর আহমেদ। বর্তমানে জাতীয় পার্টি, জাপা, জেপি, বিজেপি ও জাপা (জাফর) নামে চারটি ধারা বিদ্যমান।

চারটি খণ্ডিত অংশের মধ্যে জাতীয় পার্টি জাপা, জাতীয় পার্টি (জেপি) আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটের সঙ্গে সম্পৃক্ত। অপর দুই অংশ বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি) ও জাতীয় পার্টি (জাফর) বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটের সঙ্গে যুক্ত।

গণ অভ্যত্থানের মধ্য দিয়ে ক্ষমতাচ্যুত এই দলটিকে নানা চড়াই উৎরাই পাড়ি দিতে হয়েছে। কয়েক দফায় ভাঙন আর নেতাদের দল ছেড়ে যাওয়া কারণে ক্ষয়িষ্ণু হয়ে পড়েছে দলটি। ভোটের সমীকরণেও দিন দিন পিছিয়ে পড়ছে। আসনের সংখ্যায় কিছুটা হেরফের হলেও ভোটের সূচক দিনকে দিন কেবলই নিম্নগামী।

গণ আন্দোলনের মুখে বিদায়ের পর ১৯৯১ সালে নির্বাচনে যতো ভোট পড়েছিল তার ১১.৯২ শতাংশ পেয়েছিল জাতীয় পার্টি। এরপর ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে ১০.৬৭ শতাংশ, আর ২০০১ সালের ইসলামী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচনে অংশ নিয়ে তারা ভোট পেয়েছে ৭.২৫ শতাংশ। সর্বশেষ ২০০৮ সালের নির্বাচনে পেয়েছে মাত্র ৭.৪ শতাংশ।

২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন অংশ নেয়। কিন্তু যে আসনেই জোট ছাড়া নির্বাচন করেছে সেখানেই ধরাশায়ী হয়েছেন দলটির প্রার্থীরা।

জাতীয় পার্টির দুর্গ বলে খ্যাত রংপুর ও গাইবান্ধার তিনটি আসনেও বিপুল ভোটে পরাজিত হয়েছেন দলটির হেভিওয়েট প্রার্থীরা। রংপুর-৪ (পীরগাছা-কাউনিয়া) আসনে আওয়ামী লীগ নেতা টিপু মুনশির কাছে পরাজিত হন টানা কয়েকবারের সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির ডোনার বলে খ্যাত আরকে গ্রুপের কর্ণধার প্রেসিডিয়াম সদস্য করিম উদ্দিন ভরসা।

অন্যদিকে রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসনে আওয়ামী লীগ নেতা এইচএন আশিকুর রহমানের কাছে পরাজিত হন  আরডি গ্রুপের কর্ণধার আখম জাহাঙ্গীর হোসেন। রংপুরের পর গাইবান্ধাকে ধরা হয় জাতীয় পার্টির দ্বিতীয় দুর্গ বলে। সেখানেও জাতীয় পার্টির সাবেক নেতা অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়ার কাছে পরাজিত হন জাপার সেকেন্ড ইন কমান্ড বলে খ্যাত সাবেক ফার্স্ট লেডি রওশন এরশাদ। সর্বশেষ নির্বাচনে রংপুর ও গাইবান্ধায় জাতীয় পার্টির মাত্র তিনজন এমপি নির্বাচিত হয়েছেন।

বিগত নির্বাচনে জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটগতভাবে নির্বাচনে অংশ নেয়। জোট থেকে ২৬টি আসন দেওয়া হয়। আর ১৪৬টি আসন রাখা হয় উন্মুক্ত। জোটগত আসনে ২১টি, উন্মুক্ত একটি নিয়ে মোট ২২টি আসনে বিজয়ী হয় এরশাদের প্রার্থীরা। সংসদে মহিলা এমপির সংখ্যা তাদের চারজন। ২৬ আসন নিয়ে বিরোধীদলের চেয়ার অলংকৃত করে আসছেন।

নানা টানা পোড়েনের মধ্য দিয়ে যাওয়া পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা নিয়েও অনেক জটিলতার মধ্য দিয়ে যেতে হয় এরশাদকে। একবার ঘোষণা দিয়েও প্রত্যাহার করেছিলেন। পরে রংপুরের নেতাদের আন্দোলনের মুখে ছোটো ভাই জিএম কাদেরকে দ্বিতীয় দফায় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা করেছেন। বিষয়টিতে ভালো ভাবে দেখছেন না রওশন পন্থীরা। যে কারণে এরশাদের অবর্তমানে পার্টির মধ্যে আরেকটি জটিলতা দেখা দিতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন নেতারা।

আরও পড়ুন: 

 এরশাদের দাফন ঢাকায়!

৪ স্থানে এরশাদের জানাজা

এরশাদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

আপনার মতামত লিখুন :