জিপিএস ছাড়াই জানা যাবে অবস্থান।

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
কোয়ান্টম কম্পাসের প্রোটোটাইপ

কোয়ান্টম কম্পাসের প্রোটোটাইপ

  • Font increase
  • Font Decrease

অবস্থান জানার জন্য আগে  শুধুমাত্র গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম বা জিপিএসের উপরই আর নির্ভর করতে হলেও এখন আর সেটি  দরকার হবেনা।  কারণ ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা তৈরি করেছেন বিশ্বের প্রথম কোয়ান্টাম কম্পাস।

স্বয়ংসম্পূর্ণ ডিভাইসটি এমনকি সঠিক অবস্থানও বলে দিতে সক্ষম। তাপনিরোধক ডিভাইসটি কাজ করে জিপিএস ছাড়াই ।

জিপিএস এক ধরনের একমুখী ব্যবস্থা। কারণ এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা শুধু উপগ্রহের পাঠানো সিগন্যাল গ্রহণ করতে পারে। তাই তা অবরুদ্ধ করা বা আটকানো সম্ভব।কিন্তু কোয়ান্টম কম্পাস স্বয়ংসম্পূর্ন হওয়ায় এর ফলাফলে কোনোকিছু প্রভাবিত করতে পারে না।

যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয় কোয়ান্টাম কম্পাসকে পারমাণবিক সাবমেরিনে ব্যবহারের জন্য এই প্রকল্পে ইতিমধ্যে কয়েক লাখ ডলার বিনিয়োগ করেছে ।

ইমপেরিয়াল কলেজের সেন্টার ফর কোল্ড ম্যাটারের গবেষক জোসেফ কটার দ্যা ভার্জ’কে জানান, কোয়ান্টাম অ্যাক্সিলেরোমিটার নামের নতুন সিস্টেমটি সম্পূর্ণরুপে স্বয়ংসম্পূর্ণ। যখন কেউ একটি বড় জাহাজ সঠিকভাবে পরিচালনা করবে তখন এটি বিশেষভাবে ভূমিকা রাখবে। চালকবিহীন কোনো গাড়ি দীর্ঘসময় চলাচল করার ক্ষেত্রেও ডিভাইসটি কাজে দিবে। অবস্থান জানতে অন্য কোনো সিগন্যাল পাঠানো কিংবা গ্রহণ করার প্রয়োজন হবে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

মহাকাশের খারাপ অবস্থায় উপগ্রহগুলো অনেক সময় সিগন্যাল পাঠাতে সমস্যায় পড়তে পারে বা সিগন্যাল হারিয়ে ফেলারও আশঙ্কা থাকে। আবার পৃথিবীর সব স্থানে জিপিএস সিগন্যাল পাওয়া ও সম্ভব নয়।তবে নতুন ডিভাইসটি সময়ের সঙ্গে কোনো বস্তুর গতি পরিমাপ করে অবস্থান নির্নয় করে। তাই কোনো কিছুই বাধা হয়ে দাঁড়ায় না।

জিপিএস মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ের উদ্ভাবিত প্রযুক্তি। প্রথমদিকে এর প্রয়োগ সামরিক হলেও  কৃত্রিম উপগ্রহভিত্তিক এই যোগাযোগ ব্যবস্থা পরে সবার জন্য উন্মক্ত করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :