Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ডিজিটাল সর্তকতা: পিন নম্বর গোপন রাখুন

ডিজিটাল সর্তকতা: পিন নম্বর গোপন রাখুন
ছবি: বার্তা২৪
সেন্ট্রাল ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সময়ের প্রয়োজনে এখন বাংলাদেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় ডিজিটাল সেবাগুলোর মধ্যে অন্যতম মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস বা এমএফএস সেবা। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুসারে সারাদেশে এমএফএস এর গ্রাহক সংখ্যা প্রায় ৬ কোটি ৬৮ লক্ষ এবং প্রতিদিন এ মাধ্যমে প্রায় ৬৫ লক্ষ বার লেনদেন হয়। টাকার পরিমাণে যা এক হাজার কোটি টাকার বেশি। যেকোন সময় যেকোন স্থান থেকে খুব সহজে গ্রাহক নিজেই লেনদেন করতে পারেন বিধায় এ সেবা গ্রহণের হার বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য। একস্থান থেকে অন্য স্থানে মুহূর্তেই টাকা পাঠানো, অনলাইনে বা কোন দোকান থেকে পণ্য কিনে দাম পরিশোধ করা, স্কুল-কলেজের ফি সহ যে কোন ধরনের ফি দেয়া, ইউটিলিটি বিল দেয়া, মোবাইল রিচার্জ করা, রাইড শেয়ারিং এর ভাড়া দেয়া, বাস ট্রেনের টিকেট কেনা সহ নিত্যদিনের অসংখ্য কাজে এখন মোবাইল ওয়ালেট ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলে মোবাইল ওয়ালেট হয়ে উঠেছে জীবনের-ই অংশ।

গ্রাহককে নানান রকম সুবিধা এনে দিয়ে জনপ্রিয়তা পাওয়া এই মোবাইল ওয়ালেট থেকে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিতে গুটি কয়েক অসাধু চক্র সক্রিয় আছে। নানান ছলে গ্রাহককে বোকা বানিয়ে টাকা সরিয়ে নেয়ার যেসব অপচেষ্টা এরা করছে গ্রাহক কিছুটা সচেতন হলেই তা বন্ধ করা সম্ভব।

পিন নম্বর গোপন রাখুন

ডিজিটাল জগতে যত ধরনের একাউন্ট তা সবই পিন বা পাসওয়ার্ড দিয়ে সুরক্ষিত করা হয়েছে। ডিজিটাল ওয়ালেট এর ক্ষেত্রেও তাই। ডিজিটাল ওয়ালেট নিরাপদ রাখতে পিন নির্ভর করা হয়েছে। পিন নম্বরই আসলে ডিজিটাল ওয়ালেটের এর চাবী। ফলে চাবী অন্যের হাতে তুলে দিলে যেমন সিন্দুকও নিরাপদ নয় তেমন পিন অন্য কাউকে জানিয়ে দিলে মোবাইল ওয়ালেটও নিরাপদ থাকবে না।

একটি মাত্র পদক্ষেপ নিয়েই অনেকাংশে মোবাইল একাউন্ট নিরাপদ রাখা সম্ভব। আর তা হলো পিন বা গোপন নম্বর কাউকে না জানানো। মোবাইল ওয়ালেট লেনদেন যন্ত্র নির্ভর লেনদেন। পিন নম্বর ছাড়া কোনভাবেই এ লেনদেন সম্ভব নয়। তাই যেকোন ব্যক্তির সাথে মোবাইল ওয়ালেট এর পিন নম্বর শেয়ার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। এমনকি খুব কাছের আপনজন বা পরিবারের সদস্যদের সাথে পিন নম্বর শেয়ার না করা ভালো।

অনেক প্রতারক বা অসাধু ব্যক্তি নিজেকে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের হিসেবে পরিচয় দিয়ে পিন নম্বর জানতে চাই। গ্রাহক অসাধু ব্যক্তিকে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ভেবে তার সাথে পিন নম্বর শেয়ার করেন। জেনে রাখুন পিন নম্বর জানেন কেবল গ্রাহক। যে প্রতিষ্ঠানের মোবাইল ওয়ালেট ব্যবহার করছেন তারাও আপনার পিন জানেন না বা কখনই জানতে চাইবেন না।

ফলে যখন ই কেউ পিন নম্বর জানতে চাইবে বুঝতে হবে প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। ফলে পরিস্থিতি যা ই হোক পিন নম্বর গোপন রাখুন।

পিন নম্বর গোপন রাখা ছাড়াও আরো কিছু বিষয়ে সর্তক থাকতে হবে ডিজিটাল ওয়ালেট ব্যবহারকারী গ্রাহকদের। আজকের ডিজিটাল যুগে যারা বসবাস করছেন এবং ডিজিটাল সেবা গ্রহণ করছেন তাদের নিজেদের স্বার্থে নিজেদের ওয়ালেট সুরক্ষিত রাখতে আরো যেসব বিষয়ে নজর দিতে হবে তা এখানে তালিকাবদ্ধ করা হল:

১. প্রায়শই শোনা যায় কেউ ফোন করে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের পরিচয় দিয়ে বা অন্য কোন প্রলোভন/হুমকি দিয়ে পিন নম্বর চেয়েছে। গ্রাহক নিশ্চিন্ত থাকুন যে পরিচয়, প্রলোভন বা হুমকি দিক না কেন পিন জানতে চাওয়া মানে আপনি প্রতারণার শিকার হতে চলেছেন। সুতরাং ফোন পরিচিত বা অপরিচিত নম্বর থেকে ফোন পেয়ে পিন নম্বর বা যে কোন তথ্য শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন। এমনকি প্রযুক্তি অপব্যবহার করে কল সেন্টার গুলোর মত দেখতে একই ধরনের নম্বর থেকে ফোন দিয়ে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা থাকে। যেমন বিকাশের কল সেন্টার নম্বর ১৬২৪৭ এর মত দেখতে +১৬২৪৭ থেকে ফোন দেয়া হতে পারে। যেখান থেকে ফোন আসুক ফোনদাতার পরিচয় নিশ্চিত না হয়ে যে কোন ধরনের তথ্য দেয়া থেকে বিরত থাকুন।

২. অনেক গ্রাহক হ্যান্ডসেটে মোবাইল একাউন্টের নম্বও ও পিন নম্বর সংরক্ষণ করে রাখেন। যা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। কোন কারণে মোবাইল হারিয়ে গেলে মোবাইল একাউন্ট ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে। সুতরাং পিন নম্বর, ইউজার আইডি মোবাইলে সংরক্ষন করে রাখবেন না। সবসময় লেনদেন শেষে একাউন্ট থেকে লগআউট করবেন।

৩. অনেক ক্ষেত্রে প্রতারক নিজেকে সঠিক প্রমাণ করতে গ্রাহককে বলেন মোবাইলে এসএমএস পাঠানো হয়েছে। এসএমএস কোন নম্বর থেকে এসেছে তা যাচাই করে নেয়া গ্রাহকের দায়িত্ব। এসএমএস আসলেও নিজে ব্যালেন্স চেক না করে ভুল করে দেয়া টাকা ফেরত পাঠাবেন না।

৪. যেসব গ্রাহকরা প্রতারণার শিকার হন তাদেরকে ফোনে  কথা বলতে বলতেই  নির্দেশনা দেয়া হয়। বলা হয় এখন ১ চাপুন, এখন এমাউন্ট দিন, পিন নম্বর দিন। কখনোই ফোনের নির্দেশনা অনুসারে বাটনে প্রেস করবেন না। ফোনের নির্দেশনা অনুসরণ করিয়ে আপনাকে দিয়েই আপনার একাউন্টের টাকা প্রতারকের একাউন্টে সরিয়ে নিতে পারেন। বিকাশ থেকে বলছি বা অন্য কোন পরিচয় দিলেও তার নির্দেশনা অনুসারে ফোনের বাটন প্রেস করবেন না।

৫. ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবার, ইমো বা অন্যকোন মাধ্যমে খুব কাছের পরিচিত কেউ টাকা ধার চাইলে বা বিকাশ করতে বললে সাথে সাথে তা করবেন না। টাকা পাঠানোর আগে আসলেই তিনি টাকা ধার চেয়েছেন কিনা নিশ্চিত হয়ে নিন।

৬. আর্থিক লেনদেনের সেবা হওয়ার কারণে ওয়ান টাইম পাসওর্য়াড (ওটিপি) নির্ভর অ্যাপ ইন্সটলমেন্ট এর ব্যবস্থা করে একাউন্ট সুরক্ষিত করা হয়েছে। কোন অবস্থাতেই কাউকেই ওটিপি নম্বর শেয়ার করবেন না বা ওটিপি’র ম্যাসেজ শেয়ার করবেন না।

আপনার মতামত লিখুন :

ই-কমার্স নিয়ে আবারো ভুল বুঝাবুঝি, সময় চাইলেন সংশ্লিষ্টরা

ই-কমার্স নিয়ে আবারো ভুল বুঝাবুঝি, সময় চাইলেন সংশ্লিষ্টরা
ছবিঃ বার্তা২৪.কম

বাজেটে ই কমার্স নিয়ে আবারো ভুল বুঝাবুঝি হয়েছে বলে জানালেন খাত সংশ্লিষ্টরা। বিষয়টি আমলে নিয়ে অনলাইনে পণ্য ও সেবা বিক্রয়কে জাতীয় ডিজিটাল কমার্স নীতিমালা ২০১৮ ও বাংলাদেশ গেজেটে প্রকাশিত সংজ্ঞা অনুযায়ী সংজ্ঞায়িত করে আলাদা সার্ভিস হিসাবে বিবেচনা করা এবং নতুন সেবা কোড বরাদ্দ দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে এই খাতের জাতীয় সংগঠন ই-কমার্স  অ্যাসোসিয়েশন   অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) 

মঙ্গলবার (২৫ জুন) রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এ বিষয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করে সংগঠনটি। 

সম্মেলনে জানানো হয়, ইতিমধ্যে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন প্রতিনিধি বৃন্দ এনবিআর, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় , আইসিটি বিভাগ , এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের সাথে একাধিকবার বৈঠক করে বাজেটে ই-কমার্স এর সংজ্ঞা পরিবর্তন, ভুল সংশোধন এবং অনলাইন মার্কেটপ্লেসের উপর আরোপিত ভ্যাট অব্যাহতি সহ বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা পেশ করেছেন। ই-ক্যাব এর প্রস্তাবনার উপর সম্মতি জানিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং আইসিটি বিভাগ থেকে দুটি অফিসিয়াল চিঠিও এনবিআর চেয়ারম্যানের কাছে পাঠানো হয়েছে। 

সংবাদ সম্মেলনে ভারতে ই-কমার্সের উপর কোন ভ্যাট নেই উল্লেখ করে  শমী কায়সার বলেন, পৃথিবীর অনেক দেশেই ই-কমার্সের উপর ভ্যাট নেই। বাংলাদেশেও এই খাতটি একদমই নতুন। যখন এই খাত টি মাত্র দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে তখন এমন ধরনের সিদ্ধান্ত ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নকে বাঁধা গ্রস্ত করবে। 

ই-কমার্স খাতে ভ্যাট সরকারের ডিজিটাল সেবা খাত বিকাশে বাধাগ্রস্ত করবে উল্লেখ করে ই-ক্যাব সেক্রেটারি মোহাম্মাদ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল বেলেন,  আমরা সরকারের রাজস্ব বাড়ানোর উদ্যোগের সঙ্গে এক মত। কিন্তু তাই বলে বৃহত্তর স্বার্থে স্বল্প মেয়াদী আয়ের বিনিময়ে নয়।
এ কারণেই আমরা ই-কমার্সের সংজ্ঞাকে পরিষ্কার করতে চাই। যাদের ফিজিক্যাল কোনও স্টোর নেই, কেবল অনলাইনেই পণ্য বিক্রি করেন শুধু সেসব প্রতিষ্ঠানকেই ভ্যাটের আওতামুক্ত রাখার দাবি জানাই। কেননা অনলাইন ব্যবসায় করেন তারা বাজার থেকে পণ্য কেনার সময়ই একদফা ভ্যাট দিয়ে থাকেন। এরপরও যদি পুনরায় তাদেরকে ভ্যাট দিতে হয় তবে তাদেরকে দুই দফা কর দিতে হবে। আর এই করভার কিন্তু শেষ পর্যন্ত ভোক্তার ওপর গড়াবে। অর্থাৎ অনলাইনে পণ্য মূল্য বেড়ে যাবে। তখন কেউ অনলাইনে কেনা-কাটা করার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন।
তিনি জানান, ই-ক্যাব আগামী তিন বছরে সারাদেশে আরও ১০ লক্ষ কর্মসংস্থান তৈরির লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমানে ই-কমার্সের সঙ্গে প্রায় ৫০ হাজার উদ্যোক্তা সরাসরিভাবে জড়িত। ই-কমার্সের উপর প্রস্তাবিত ভ্যাট তাদের সবার জন্যই একটা মারাত্মক ঝুঁকির ব্যাপার হয়ে দাঁড়াবে। শুধু উদ্যোক্তাদের এই খাতে আসলেই চলবে না, গ্রাহকদেরও নিয়ে আসতে হবে। নতুন করে এই খাতের উপর প্রস্তাবিত ভ্যাট উদ্যোক্তা-গ্রাহক উভয়কেই এ খাত থেকে দূরে সরিয়ে দিবে।  

ই-ক্যাব সভাপতি শমী কায়সারের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ: আব্দুল ওয়াহেদ তমাল, অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল হক সহ ই-ক্যাব কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য ও পরিচালকবৃন্দ । 

 

অর্থ হাতিয়ে নিতে হ্যাকারদের টার্গেট গুগলের অ্যাপস

অর্থ হাতিয়ে নিতে হ্যাকারদের টার্গেট গুগলের অ্যাপস
গুগলের অ্যাপস, ছবি: সংগৃহীত

সাইবার হামলা সম্পর্কে যাদের টুকটাক ধারণা আছে তারা হয়ত প্রায়ই শুনে থাকেন ফিশিং মেইলের কথা। এর মাধ্যমে হ্যাকাররা লিংক পাঠিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করে তাদের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেয়। কিন্তু এবার গুগলের অ্যাপ ব্যবহার করে ভিন্ন কায়দায় মানুষকে বিপর্যস্ত করছে হ্যাকাররা।

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়্যার্ড ম্যাগাজিনে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমানে হ্যাকাররা গুগলের বিভিন্ন অ্যাপের ডিফল্ট সেটিংসের মাধ্যমে মানুষের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য চুরি করে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এরমধ্যে গুগলের ক্যালেন্ডার অ্যাপসহ অন্যান্য অ্যাপগুলো ব্যবহার করে হ্যাকাররা এসব অবৈধ কাজ করছে।

গুগলের ফটোস থেকে প্রাইজ মানি অফার, গুগল ম্যাপসে ভুয়া বিজনেস প্রোফাইল, সার্চ রেজাল্টে ভুয়া ইমেজ প্রকাশ এবং গুগল সার্ভে ব্যবহার করেও মানুষকে হয়রানির করছে হ্যাকাররা।

কীভাবে হ্যাক করে?

হ্যাকাররা ক্যালেন্ডার অ্যাপের মাধ্যমে বিনা অনুমতিতে ইউজারের কার্য তালিকার মধ্যে ‘ইনভাইটেশন’ পাঠানোর ফিচারের অপব্যবহার করে এই কাজ করছে।

ইভেন্টের আগে ‘রিমাইন্ডার’ ফিচারটিকে হ্যাকাররা কাজে লাগিয়ে ব্যাংকিং লেনদেন সংক্রান্ত ইনভাইটেশন দিয়ে ইউজারকে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্যাদি এবং গোপন নম্বর দিয়ে লেনদেন সম্পন্ন করতে বলা হয়। এতে করে হ্যাকাররা আপনার ব্যাংকের তথ্য এবং গোপন নম্বর পেয়ে আপনার অ্যাকাউন্ট ফাঁকা করে দিতে পারে।

এছাড়া পুরস্কার জেতা, বিজয়ী ঘোষণা এবং লটারি জেতার মত নোটিফকেশনে ইভেন্ট লিংক পাঠাবে। তাই গ্রাহক গুগল ক্যালেন্ডার থেকে ইভেন্ট মনে করে নিজেদের গোপন তথ্য দিয়ে বিপদে পড়তে পারেন।

অন্যদিকে ইউজাররা ইভেন্ট লিংকে প্রবেশ অথবা ইভেন্টটি ডিলিট না করা পর্যন্ত এ নোটিফিকেশন আসতেই থাকবে।

তাহলে কী করবেন?

অপ্রত্যাশিত এসব বিপদ থেকে বাঁচতে গুগলের ক্যালেন্ডার সেটিংসে গিয়ে ‘অটোম্যাটিক অ্যাড ইনভাইটেশন’ অপশনটি বন্ধ করে দিতে হবে। এরপরে নিচের দিকে স্ক্রোল করে ‘শো ডিক্লাইন্ড ইভেন্টসের’ টিক মার্ক তুলে দিতে হবে। ফলে ফেক ইনভাইটেশনের ঝামেলা থেকে আপনাকে মুক্ত রাখবে।

এছাড়াও অপ্রোয়জনীয় বিশ্বস্ত সাইট না হলে সেসব সাইটগুলো এড়িয়ে চলাই উত্তম।

সূত্র:গ্যাজেটস নাও

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র