১ লাখ কর্মীর মধ্যে যেভাবে গুগলের প্রিন্সিপাল ইঞ্জিনিয়ার হলেন জাহিদ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪ ডটকম
জুরিখে নিজের কম্পিউটারে কাজ করছেন জাহিদ সবুর

জুরিখে নিজের কম্পিউটারে কাজ করছেন জাহিদ সবুর

  • Font increase
  • Font Decrease

গুগলের প্রিন্সিপাল ইঞ্জিনিয়ার (পরিচালক) পদে পদোন্নতি পেয়েছেন বাংলাদেশি তরুণ জাহিদ সবুর। ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় তিনি এ তথ্য জানিয়েছেন।

সম্প্রতি এক ভিডিও বার্তায় এই খবর জানান জাহিদ। বর্তমানে সুইজারল্যান্ডের জুরিখে অবস্থান করা এই বাংলাদেশি ইঞ্জিনিয়ারের পথ এতটা মসৃণ ছিলোনা বলেও জানান তিনি।

সার্কিট বানাতে গিয়ে ইলেকট্রিক শক খাওয়া জাহিদের রোল নম্বর থাকতো ক্লাসে কিন্তু নিচের দিকে । মুখস্থবিদ্যায় ছিলেন দুর্বল বলেও জানান তিনি।  আর  ও লেভেলে ভালো রেজাল্ট করলেও এ লেভেলে খুব খারাপ অবস্থা হয়েছিল।

তিনি জানান  এক বছরের মাথায় মাত্র দুটি বিষয়ে পরীক্ষা দিতে পেরেছিলাম। ওই রেজাল্ট নিয়ে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়াও সম্ভব ছিল না। ওদিকে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার খরচ জোগানো আমার জন্য কঠিন ছিল। তাই কম্পিউটার বিষয়ে কোর্স করতে গেলাম। ইন্টারনেট আর নেটওয়ার্কিংয়ে আমার দক্ষতা গড়ে উঠল দ্রুতই। তারপর টেক উদ্যোক্তাদের মতো একটি বিজনেস প্ল্যান দাঁড় করিয়ে ফেলি। লোন নিতে ব্যাংকেও গিয়েছিলাম।

এরপর বাবা মায়ের অনুপ্রেরণায় ভর্তি হন আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে। আর শুরু সেখান থেকেই।

তিনি জানান, তৃতীয় সেমিস্টারে প্রগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের ক্লাস পেয়েছিলাম। ওই সময় থেকেই প্রগ্রামিংয়ে আমার নেশা ধরে গেল। অনলাইনে প্রগ্রামিং প্রবলেম সমাধান করা শুরু করলাম। পরের দুই বছরে এক হাজার ২০০ বা এক হাজার ৩০০ প্রবলেম সলভ করলাম। সে সময় স্পেনের ভ্যালাডলিড বিশ্ববিদ্যালয় ছিল প্রগ্রামিংয়ের সেরা প্ল্যাটফর্ম। তাদের র‌্যাংকিংয়ে আমি ১৫ নম্বরে উঠে গিয়েছিলাম। ২০০৪ সালে বুয়েটের সিএসই ডেতে আমার প্রগ্রামিং টিম চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। তখনকার বিশ্বে দলগত প্রগ্রামিং প্রতিযোগিতার সেরা আসরের নাম এসিএম ইন্টারন্যাশনাল কলেজিয়েট প্রগ্রামিং কনটেস্ট। ওয়ার্ল্ড ফাইনালিস্ট দলগুলোর সাক্ষাৎকার নিত বড় বড় সব টেক কম্পানি। আমার টিম দু-দুবার খুব কাছে চলে গিয়েছিল। আর একক প্রতিযোগিতায় জনপ্রিয় ছিল টপ কোডার। একসময় গুগল এখানে কোড জ্যাম নাম দিয়ে একটি গ্রগ্রামিং কনটেস্ট চালু করে। ফাইনাল ছাড়া অন্য পর্বগুলো হতো অনলাইনে। শেষ পর্বটা যখন চলছিল তখন হঠাৎ বিদ্যুৎ চলে যায়। আমার ইউপিএস বা জেনারেটর কিছুই ছিল না। কম্পিউটার বন্ধ হয়ে গেল। অন্ধকারে বোকার মতো বসে রইলাম। কিন্তু জেদ চেপে গেল। বিদ্যুৎ আসামাত্রই কম্পিউটার অন করে ফটাফট কোড শেষ করে আর কিছু না ভেবে জমা দিয়ে দিলাম। কয়েক সেকেন্ড মাত্র বাকি ছিল। আমি ফাইনালের জন্য সিলেক্ট হলাম। ফাইনালিস্টদের গুগল নিয়ে গেল তাদের অফিসে। প্রতিযোগিতা শেষে পুরস্কার দেওয়া হলো আর ঘোষণা করা হলো, আগামী দিন হবে ইন্টারভিউ। আমি বিরাট এক ঘুম দিয়ে সকালে ইন্টারভিউর জন্য হাজির হয়ে গেলাম। কিন্তু ইন্টারভিউটা মোটামুটি হলো। প্রথম প্রথম ভালোই হচ্ছিল, শেষ দিকটায় গোলমাল বেঁধে গিয়েছিল। দেশে ফিরে এলাম। তারপর কয়েক দিন পর ই-মেইল পেলাম। আরেকটি ইন্টারভিউ দিতে হবে, ফোনে। দিলাম। তারপর আবার অনেক দিন পর পর সিভি চাইল, সার্টিফিকেট চাইল, রেফারেন্স চাইল। শেষে মেইলটা এসেই গেল। গুগল আমাকে জব অফার দিল। একপর্যায়ে ভিসার ঝামেলা মিটিয়ে আমি উড়াল দিলাম। ক্যালিফোর্নিয়ায় গুগলের হেডকোয়ার্টার।

বর্তমানে জনপ্রিয় এই সার্চ ইঞ্জিনে এখন কাজ করছেন প্রায় এক লাখ পূর্ণকালীন কর্মী। এদের মধ্যে আড়াইশ’ জন প্রিন্সিপাল ইঞ্জিনিয়ার আছেন।

আপনার মতামত লিখুন :