ধনকুবের জেফ বেজোসের সাফল্যের মূলমন্ত্র

টেক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
জেফ বেজোস, ছবি: সংগৃহীত

জেফ বেজোস, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বের সেরা ব্র্যান্ড তালিকায় এবার শীর্ষ স্থান অর্জন করেছে ই-কমার্স ভিত্তিক অনলাইন প্লাটফর্ম আমাজন। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জেফ বেজোস বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকায়ও প্রথম স্থান অর্জন করেছেন।

তার সাফল্যের চাবিকাঠি কী, কীভাবে ব্যবসায় জীবনের সফল হয়েছেন এসব নিয়ে জনমনে আগ্রহের অন্ত নেই। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের লস ভেগাসে ‘মার্স কনফারেন্সে’ ধনকুবের জেফ বেজোসকে ব্যবসায় সাফল্যের মূলমন্ত্র কী প্রশ্ন করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বেজোসের দেওয়া মূলমন্ত্রগুলো ফাস্ট কোম্পানি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক ব্যবসায় সাফল্যের মূলমন্ত্র কী-

ব্যবসায়ের তীব্র আকাঙ্ক্ষা

বেজোস বলেন, ‘ব্যবসায় করতে হলে আপনাকে তাদের সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবে যাদের ব্যবসায় করার অদম্য ইচ্ছা। তাই এক্ষেত্রে প্রথমেই মুনাফা অর্জনের চিন্তা বাদ দিতে হবে, আপনাকে গুণগত সেবা নিশ্চিত করতে হবে। কারণ দিনশেষে আপনার সুনামই বয়ে আনবে অধিক মুনাফা।’

সর্বদা ঝুঁকি গ্রহণ করতে হবে

ঝুঁকি গ্রহণ করার বিষয়ে ধনকুবের বলেন, ‘যদি আপনার কাছে ব্যবসায়ের নতুন কোনো আইডিয়া থাকে এবং সেখানে যদি কোন ঝুঁকি না থাকে, তাহলে ভাবতে হবে ইতোমধ্যে তা হয়ে গেছে। কিন্তু আপনাকে এমন কিছু চিন্তা করতে হবে যা হয়ত বাস্তবায়ন না হতে পারে, ঝুঁকি আছে। আর এটিই হতে পারে একটি নতুন উদ্ভাবনী কিছু। আমরা সবসময় ঝুঁকি গ্রহণ করি, কারণ আমরা আমদের ব্যর্থতাগুলো নিয়েই কথা বলি। যা থেকে নতুন কিছুর আবিষ্কার হয়।’

অনেকবার ব্যর্থ হবেন

ব্যর্থতা নিয়ে আমাজান প্রধান বলেন, ‘নতুন কিছু শুরু করতে গেলে অনেক ব্যর্থতা আসবে। যদি না আসে তাহলে আরও অনেক বেশি কষ্ট করতে হবে। খুব বেশি কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। এতে যদি ব্যর্থতা আসে আসুক। কিন্তু তবুও পুরো উদ্যম নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। কখন বুঝবেন আপনাকে এখন থামতে হবে? যখন একজন কিংবদন্তী ঘরে ফিরবেন এবং সেই সর্বশেষ কিংবদন্তী আমি।’

সঠিক নির্দেশনায় থাকা

যখন কোন ব্যক্তি সর্বদা পজেটিভ কিছু শুনতে থাকেন, তখন সে প্রায়ই তার চিন্তাধারায় অনেক পরিবর্তন আনেন। তবে যেসব মানুষ সর্বদা পজেটিভ থাকেন তারা নতুন কোন তথ্য ছাড়াই তাদের চিন্তাধারা পরিবর্তন করেন। তাই একসময় তারা হঠাৎ যখন তাদের আশে-পাশের পরিবর্তন অনুধাবন করতে পারবে তখন তারা আবার তাদের চিন্তাধারা পরিবর্তন করবে। তাই সময়ের সঙ্গে আপনি যদি আপনার চিন্তাধারায় পরিবর্তন না আনেন তাহলে আপনার সবকিছু ভুলই হতে থাকবে। তাই সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আপনাকে চিন্তাধারায় পরিবর্তন আনতে হবে যা সঠিক পথ নির্দেশ করবে।

সূত্র: গ্যাজেটস নাও।

আপনার মতামত লিখুন :