Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

এখনই দেশে আসছে না অ্যামাজন

এখনই দেশে আসছে না অ্যামাজন
তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগের সঙ্গে অ্যামাজনের প্রতিনিধি দলের বৈঠক
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

এখনই বাংলাদেশে অফিস খুলতে রাজি নয় অ্যামাজন। তবে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে নিজেদের ওয়্যার হাউজগুলোতে বাংলাদেশের পণ্য নিতে চায় বলে জানিয়েছেন তথ্য-প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বুধবার (১৭ জুলাই) রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগের সঙ্গে অ্যামাজনের প্রতিনিধি দলের বৈঠক শেষে এ তথ্য জানান প্রতিমন্ত্রী।

পলক বলেন, অ্যামাজনের বৈশ্বিক প্ল্যাটফর্মে দেশের পণ্য বিক্রি করা গেলে ২০৩০ সালের মধ্যে দেশের রফতানি আয় দ্বিগুণ করা সম্ভব হবে। অ্যামাজন কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশের উদ্যোক্তাদের পণ্য আমেরিকা-ইউরোপের ওয়্যার হাউজগুলোতে নিয়ে নিজেদের বৈশ্বিক প্ল্যাটফর্মে বিক্রি করতে চাচ্ছে। এ বিষয়ে আমাদের নীতি ও কৌশল কেমন হবে সে বিষয়টি দেখছি আমরা।

বাংলাদেশে অ্যামাজন অফিস খুলবে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, তারা বাংলাদেশে আসবে কি না তা নির্ভর করবে তাদের ইচ্ছা ও আমাদের নীতির ওপর। তবে এখন পর্যন্ত আলোচনায় অ্যামাজন বাংলাদেশে অফিস খুলছে না।

বৈঠকে তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগের পক্ষে নেতৃত্ব দেন তথ্য-প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং অ্যামাজনের কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিত্ব করেন ইন্টারন্যাশনাল এক্সপানশন বিভাগের ক্যাটাগরি ম্যানেজার গগন দিপ সাগর।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগের প্রজেক্ট ডিরেক্টর সৈয়দ মজিবুল হক। দেশীয় প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের পক্ষে ছিলেন এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর মো. লিয়াকত আলী।

আপনার মতামত লিখুন :

শিক্ষার পর তথ্যপ্রযুক্তিকে গুরুত্ব দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু

শিক্ষার পর তথ্যপ্রযুক্তিকে গুরুত্ব দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু
আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

শিক্ষার পর তথ্যপ্রযুক্তি নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দূরদর্শীতা ছিল বলে দেশ আজ উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

রোববার (২৫ আগস্ট) রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারের মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এ সভার আয়োজন করে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দূরদর্শী সিদ্ধান্তে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়নে যুক্ত হয়। তাঁরই সিদ্ধান্তে বেতবুনিয়ায় স্থাপন করা হয় ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র।’

তিনি আরও বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের অব্যাহতির পরই একটি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনে যখন বঙ্গবন্ধু হাত দিয়েছিলেন, তখন থেকেই তার বিরুদ্ধে শুরু হয় ষড়যন্ত্র। এসব ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে তিনি দেশকে এগিয়ে নিতে বদ্ধপরিকর ছিলেন।’

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন- ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহ, বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের কিউরেটর নজরুল ইসলাম খান। প্রধান আলোচক হিসেবে ছিলেন- শহীদ কর্নেল জামিলের কন্যা বেগম আফরোজা জামিল কংকা।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের পরিচালক হোসনে আরা বেগম, বেসিস সভাপতি আলমাস কবির।

বিদেশে স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত ডিজিটাল কার্ডের উদ্বোধন

বিদেশে স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত ডিজিটাল কার্ডের উদ্বোধন
ইন্টারন্যাশনাল হেলথ কার্ডের উদ্বোধন করে মেডিএইডার, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনে উৎসাহ দেওয়া এবং সেবার আপডেট জানাবে ইন্টারন্যাশনাল হেলথ কার্ড। আগামী রোববার (২৫ আগস্ট) থেকে আগ্রহীরা এই কার্ডের সুবিধা পাবেন।

শনিবার (২৫ আগস্ট) রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বেসিস অডিটোরিয়ামে এ কার্ডের উদ্বোধন করে মেডিকেল ট্যুরিজম প্রতিষ্ঠান মেডিএইডার।

অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, ইন্টারন্যাশনাল হেলথ কার্ডের মাধ্যমে যে কেউ ভারত, থাইল্যান্ড, শ্রীলংকা, জার্মানি এবং তুরস্কের ১১ হাজার ২৫০টি হাসপাতালে সঠিক চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন। দেশের বাইরে চিকিৎসা সেবায় ভিসা প্রসেস থেকে শুরু করে যাতায়াত, আবাসন, চিকিৎসা এবং ওষুধ সবকিছুতেই মেডিএইডার টিম এক্ষেত্রে সহযোগিতা করবে। বাংলাদেশে মেডিএইডার এবং ভারতের ভিবি হেলথের উদ্যোগে কিউরমার্টের সঙ্গে যৌথভাবে এই সেবা দেওয়া হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অভিনেতা আফজাল হোসেন বলেন, ‘যাদের পরিবারে বা বন্ধুমহলে কেউ ডাক্তার আছেন, তারা সহজেই দেশে বা বিদেশে ভালো চিকিৎসা সেবা পেয়ে থাকেন। কিন্তু যাদের কোনো পরিচিত ডাক্তার নেই, তাদের সঙ্গে মেডিএইডার ডাক্তার বন্ধু হয়ে সঠিক চিকিৎসা সেবা পেতে সাহায্য করবে বলে আমি আশা রাখি।’

ভিবি হেলথের গ্লোবাল বিজনেস পরিচালক রাঘবেন্দ্র প্রসাদ বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবার ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি জানান, কিছু কিছু ক্ষেত্রে এখানকার চিকিৎসকদেরও দ্বিতীয় মতামত সম্পর্কে জানার প্রয়োজন হয়। তারা এমন একটি স্বাস্থ্যসেবার মডেল তৈরি করেছেন যার মাধ্যমে এদেশের চিকিৎসকরা চাইলেই প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে অন্যান্য দেশের চিকিৎসকের মতামত নিতে পারবেন। সারাবিশ্বের ৩ হাজার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এই সেবায় যুক্ত থাকবেন বলে জানান তিনি। এছাড়া ভিবি এইড প্রোগ্রামের আওতায় সুবিধাবঞ্চিত রোগীরা পেতে পারেন ১০০ স্বেচ্ছাসেবীর সাহায্য।

মেডিএইডার চেয়ারম্যান শায়ের হাসান বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবা সেক্টরের সমস্যা সমাধানে প্রচুর পরিমাণে লাভজনক ও অলাভজনক প্রাতিষ্ঠানিক উদোগের দরকার। মেডিএইডার রোগীদেরকে দেশে এবং বিদেশে সাশ্রয়ী মূল্যের চিকিৎসাসেবার সঙ্গে সংযুক্ত করার কাজ করে যাবে।’

অনুষ্ঠানে মেডিএইডারের প্রধান নির্বাহী শাব্বির আহমেদ এবং বিশিষ্ট প্রশিক্ষক ও লেখক রাজিব আহমেদ বক্তব্য দেন। বাংলাদেশের মানুষের দোরগোড়ায় বিশ্বমানের স্বাস্থ্যসেবা আনতে বিশ্বজুড়ে হাসপাতাল ও চিকিৎসকদের সঙ্গে কাজ করছে মেডিএইডার।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র