Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

‘ঘরে ঘরে ইন্টারনেট পৌঁছে দিতে কাজ করছি’

‘ঘরে ঘরে ইন্টারনেট পৌঁছে দিতে কাজ করছি’
সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রত্যেক ঘরে ঘরে তৃণমূল পর্যায়ে ইন্টারনেট পৌঁছে দিতে কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

বুধবার (১৭ জুলাই) বিকেলে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সম্মেলন কক্ষে ডিসি সম্মেলনের চতুর্থ দিনের ষষ্ঠ অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, আমরা মনে করি যে রূপান্তরটা আমরা করতে চাচ্ছি—বাংলাদেশের প্রত্যেক বাড়িতে দ্রুত গতির কানেক্টিভিটি যাতে পৌঁছাতে পারি, সেই কারণে তারা (ডিসি) তৃণমূলে কাজ করেন। বস্তুত পক্ষে আমরা ওই যে গ্রামের কথা বলছি, সেই গ্রাম পর্যন্ত যে নিয়ন্ত্রণের জায়গা, সহযোগিতার জায়গা—পুরোটাই কিন্তু জেলা প্রশাসক ও বিভাগীয় কমিশনারদের ওপর নির্ভর করে।

তিনি বলেন, আমাদের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে কানেক্টিভিটি তৈরি করা। এটা আমাদের কমিটমেন্ট। আমি যদি রেলপথ, নৌপথ, সড়ক পথের মতো আমার ইন্টারনেটের পথ তৈরি করতে না পারি তাহলে যে বাংলাদেশের কথাই বলি, ডিজিটাল বলি আর যাই বলি, কিছুই হবে না।
মন্ত্রী বলেন, আমরা এইবার গ্রামগুলোকে শহর বানাতে চাইছি। গ্রামগুলোকে শহর বানানোর মানে কেবল গ্রামগুলোতে বিল্ডিং বানানো কিংবা রাস্তাঘাট পাকা করা কিংবা মানুষের যে অবস্থান আছে সেটা পরিবর্তন করা নয়। ডিজিটাল রূপান্তর সারা পৃথিবীতে হচ্ছে। আমাকে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করেই রূপান্তরটা করতে হবে। সামনের দিনে আপনি কৃষি থেকে শুরু করে হেন কিছু পাবেন না যেখানে আমরা ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করব না।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, যদি স্বাস্থ্যসেবা দিতে হয় তাহলেও ডাক্তার পৌঁছে স্পেশালিস্ট দিয়ে সেবা দেওয়ার চাইতে সহজ হয়ে যাবে টেলি মেডিসিন ব্যবহার করা। আইটি ব্যবহার করা সহজ হয়ে যাবে প্রচলিত কৃষি উন্নয়নের জন্য।

তিনি আরও বলেন, আমি যদি কোথাও একটা ফাইবার বসাতে চাই তাহলে সেখানে আমার ফাইবার বসানোর লোকটার নিরাপত্তা দেওয়ার ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকের সহযোগিতা লাগে। রাস্তা কাটার জন্য তার অনুমতি দরকার হয়। আমি আশাবাদী, জেলা প্রশাসকরা নতুন পরিবর্তনের সঙ্গে নিজেকে খাপ খাওয়াবেন। প্রশাসনে পরিবর্তন আসছে। প্রশাসন কাজের দিক থেকে ডিজিটাল হচ্ছে। ডিজিটাল প্রশাসন রূপান্তর করাও আসলে তৃণমূল থেকে করতে হবে। তাদের বলেছি, আপনারা ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল‌ রেভল্যুশনের জন্য প্রস্তুত হোন।

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য আমাদের টাইমলাইন একুশ সাল। এই সময়ের জন্য যা যা করণীয় আছে তার জন্য তৈরি হোন। আমি মনে করি আমাদের জনগণ কোন অবস্থাতেই পেছনে পড়ে থাকে না। তারাও তাদের সাথে সহযোগিতা করবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের দিক থেকে কমিটমেন্টটা এই রকম যে, আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ বলতে বোঝাই বাংলাদেশের প্রত্যেকটি ঘরে ঘরে, প্রত্যেক মানুষের কাছে কানেক্টিভিটি যেন থাকে। জেলা প্রশাসকরা এই বিষয়ে উৎসাহী, তারা সহযোগিতা করবেন।

আপনার মতামত লিখুন :

শিক্ষার পর তথ্যপ্রযুক্তিকে গুরুত্ব দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু

শিক্ষার পর তথ্যপ্রযুক্তিকে গুরুত্ব দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু
আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

শিক্ষার পর তথ্যপ্রযুক্তি নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দূরদর্শীতা ছিল বলে দেশ আজ উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

রোববার (২৫ আগস্ট) রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারের মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এ সভার আয়োজন করে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দূরদর্শী সিদ্ধান্তে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়নে যুক্ত হয়। তাঁরই সিদ্ধান্তে বেতবুনিয়ায় স্থাপন করা হয় ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র।’

তিনি আরও বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের অব্যাহতির পরই একটি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনে যখন বঙ্গবন্ধু হাত দিয়েছিলেন, তখন থেকেই তার বিরুদ্ধে শুরু হয় ষড়যন্ত্র। এসব ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে তিনি দেশকে এগিয়ে নিতে বদ্ধপরিকর ছিলেন।’

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন- ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহ, বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের কিউরেটর নজরুল ইসলাম খান। প্রধান আলোচক হিসেবে ছিলেন- শহীদ কর্নেল জামিলের কন্যা বেগম আফরোজা জামিল কংকা।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের পরিচালক হোসনে আরা বেগম, বেসিস সভাপতি আলমাস কবির।

বিদেশে স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত ডিজিটাল কার্ডের উদ্বোধন

বিদেশে স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত ডিজিটাল কার্ডের উদ্বোধন
ইন্টারন্যাশনাল হেলথ কার্ডের উদ্বোধন করে মেডিএইডার, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনে উৎসাহ দেওয়া এবং সেবার আপডেট জানাবে ইন্টারন্যাশনাল হেলথ কার্ড। আগামী রোববার (২৫ আগস্ট) থেকে আগ্রহীরা এই কার্ডের সুবিধা পাবেন।

শনিবার (২৫ আগস্ট) রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বেসিস অডিটোরিয়ামে এ কার্ডের উদ্বোধন করে মেডিকেল ট্যুরিজম প্রতিষ্ঠান মেডিএইডার।

অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, ইন্টারন্যাশনাল হেলথ কার্ডের মাধ্যমে যে কেউ ভারত, থাইল্যান্ড, শ্রীলংকা, জার্মানি এবং তুরস্কের ১১ হাজার ২৫০টি হাসপাতালে সঠিক চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন। দেশের বাইরে চিকিৎসা সেবায় ভিসা প্রসেস থেকে শুরু করে যাতায়াত, আবাসন, চিকিৎসা এবং ওষুধ সবকিছুতেই মেডিএইডার টিম এক্ষেত্রে সহযোগিতা করবে। বাংলাদেশে মেডিএইডার এবং ভারতের ভিবি হেলথের উদ্যোগে কিউরমার্টের সঙ্গে যৌথভাবে এই সেবা দেওয়া হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অভিনেতা আফজাল হোসেন বলেন, ‘যাদের পরিবারে বা বন্ধুমহলে কেউ ডাক্তার আছেন, তারা সহজেই দেশে বা বিদেশে ভালো চিকিৎসা সেবা পেয়ে থাকেন। কিন্তু যাদের কোনো পরিচিত ডাক্তার নেই, তাদের সঙ্গে মেডিএইডার ডাক্তার বন্ধু হয়ে সঠিক চিকিৎসা সেবা পেতে সাহায্য করবে বলে আমি আশা রাখি।’

ভিবি হেলথের গ্লোবাল বিজনেস পরিচালক রাঘবেন্দ্র প্রসাদ বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবার ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি জানান, কিছু কিছু ক্ষেত্রে এখানকার চিকিৎসকদেরও দ্বিতীয় মতামত সম্পর্কে জানার প্রয়োজন হয়। তারা এমন একটি স্বাস্থ্যসেবার মডেল তৈরি করেছেন যার মাধ্যমে এদেশের চিকিৎসকরা চাইলেই প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে অন্যান্য দেশের চিকিৎসকের মতামত নিতে পারবেন। সারাবিশ্বের ৩ হাজার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এই সেবায় যুক্ত থাকবেন বলে জানান তিনি। এছাড়া ভিবি এইড প্রোগ্রামের আওতায় সুবিধাবঞ্চিত রোগীরা পেতে পারেন ১০০ স্বেচ্ছাসেবীর সাহায্য।

মেডিএইডার চেয়ারম্যান শায়ের হাসান বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবা সেক্টরের সমস্যা সমাধানে প্রচুর পরিমাণে লাভজনক ও অলাভজনক প্রাতিষ্ঠানিক উদোগের দরকার। মেডিএইডার রোগীদেরকে দেশে এবং বিদেশে সাশ্রয়ী মূল্যের চিকিৎসাসেবার সঙ্গে সংযুক্ত করার কাজ করে যাবে।’

অনুষ্ঠানে মেডিএইডারের প্রধান নির্বাহী শাব্বির আহমেদ এবং বিশিষ্ট প্রশিক্ষক ও লেখক রাজিব আহমেদ বক্তব্য দেন। বাংলাদেশের মানুষের দোরগোড়ায় বিশ্বমানের স্বাস্থ্যসেবা আনতে বিশ্বজুড়ে হাসপাতাল ও চিকিৎসকদের সঙ্গে কাজ করছে মেডিএইডার।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র