ফেনীর প্রাচীন ঐতিহ্য বিজয়সিংহ দীঘি

হারুনুর রশিদ, জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ফেনীর বিজয়সিংহ দীঘি

ফেনীর বিজয়সিংহ দীঘি

  • Font increase
  • Font Decrease

ফেনী থেকে ফিরে: হাজার বছরের পুরনো ঐতিহাসিক জনপদগুলোর মধ্যে অন্যতম ফেনী। ঐতিহ্যের অজস্র নিদর্শন ছড়িয়ে আছে ফেনীর গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে। তেমনি এক ঐতিহ্য ফেনীর বিজয়সিংহ দীঘি। শত বছরের প্রাচীন রূপকথার ইতিহাস ও ঐতিহ্য বহন করে দীঘিটি। তবে এর ইতিহাস নিয়ে রয়েছে মতপার্থক্য।

অনেকে দীঘিটিকে প্রাচীন বাংলার বিখ্যাত সেন বংশের অমরকীর্তি হিসেবে দেখেন। তাদের মতে ৫-৭ শত বছর আগে সেন বংশের প্রতিষ্ঠাতা বিজয় সেন দীঘিটি খনন করেন। আবার অনেকে মনে করেন, দীঘিটি খনন করেন স্থানীয় রাজা বিজয় সেন। পরে রাজার নামানুসারে দীঘিটির নামকরণ করা হয় ‘বিজয়সিংহ দীঘি’।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/19/1566217003950.jpg

বর্তমানে ফেনী জেলা প্রশাসনের মালিকানাধীন দীঘিটির আয়তন ৩৭.৫৭ একর। ফেনী শহরের ২ কিলোমিটার পশ্চিমে সার্কিট হাউজের পাশে বিজয় সিংহ গ্রামে অবস্থিত নয়নাভিরাম দীঘিটি। এর তিন দিকে উঁচু টিলা, যা সবুজ বৃক্ষ ও লতাপাতায় ঘেরা। একপাশে সমতল, যেখানে রয়েছে গোসল ও ওজু করার ঘাট, মানুষের বসার জায়গা ও সরকারি সার্কিট হাউজ।

কথিত আছে, প্রায় ৬-৭ শত বছর আগে ত্রিপুরা রাজ্যের প্রভাবশালী একজন রাজা তার কন্যার অন্ধত্ব দূর করার বাসনা থেকে এ দীঘি খনন করেন। আবার কেউ মনে করেন, রাজা বিজয় সিংহ তার মাকে খুশি করতে এ দীঘি খনন করেন। দীঘিটিতে একসময় সোনা ও রুপার থালা ভেসে উঠত। একদিন এক ভিখারিনী একটা থালা চুরি করে। এরপর থেকে আর থালা ভেসে ওঠে না!
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/19/1566217023979.jpg

আরও কথিত আছে, এ দীঘিতে ৮০-১০০ কেজি ওজনের মাছ পাওয়া যেত। ফেনীর কৃতি সন্তান প্রখ্যাত ঔপন্যাসিক জহির রায়হান তার ‘হাজার বছর ধরে’ উপন্যাসে কমলা সুন্দরীকে জ্বিন দীঘিতে নামিয়ে ফেলার কথা উল্লেখ করেন। অনেকে মনে করেন জহির রায়হান এই দীঘির কথাই উল্লেখ করেছেন।

তবে সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হলো, এ পর্যন্ত কেউ দিঘিটি পুরোপুরিভাবে সেচ দিতে পারেননি। ফলে এখনও মানুষ দূর দূরান্ত থেকে এ দীঘিতে গোসল ও পানি নিতে আসেন।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/19/1566217044009.jpg

জানা গেছে, ১৯৯৫ সালে দীঘিটির চারপাশে বৃক্ষরোপণ করা হয়। এরপর ২০১৮ সালে দীঘিটির পাড়ে ওয়াকওয়ে, আরসিসি গ্যালারি, লাইটিং, সীমানা প্রাচীর ও শৌচাগার নির্মাণ করা হয়; যা দীঘিটির সৌন্দর্য আরও বাড়িয়ে দেয়। রাতে দীঘির পাড়ে লাইটের আলোতে এক নৈসর্গিক দৃশ্য ফুটে ওঠে। দীঘিটির পাড়ে বিভিন্ন দিবসে জনতার ঢল নামে। জমে ওঠে মেলা। কেউ পরিবার-পরিজন আবার কেউ বন্ধু-বান্ধব নিয়ে সময় কাটাতে যান দীঘির পাড়ে।

যেভাবে যাবেন:
ঢাকার সায়েদাবাদ বা টিটিপাড়া থেকে বাসে করে ফেনীর মহিপাল নামতে হবে। গাড়ি ভাড়া ২৫০-৩০০ টাকা। পরে মহিপাল থেকে রিকশা অথবা পায়ে হেঁটে সার্কিট হাউজ রোড দিয়ে সোজা বিজয়সিংহ দীঘি যাওয়া যায়। রিকশায় গেলে ১০-১৫ টাকা ভাড়া এবং হেঁটে গেলে ১০ মিনিট সময় লাগবে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/19/1566217071459.jpg

যেখানে খাবেন:

ফেনীর মহিপালে অনেক ভালো মানের খাবার হোটেল রয়েছে, যেখানে স্বল্পমূল্যে খাবার পাওয়া যায়। হোটেলগুলোর মধ্যে খ্যাতি আছে—শাহিন হোটেল, ফুড পার্ক রেস্তোরাঁ, ইত্যাদি হোটেল ও আলমাস হোটেলের।

যেখানে থাকবেন:
বিজয়সিংহ দীঘির অত্যন্ত কাছে ফেনী সার্কিট হাউস গড়ে তোলা হয়েছে। আর দীঘি থেকে মাত্র তিন কিলোমিটার দূরে মিজান রোডে ফেনী জেলা পরিষদ ডাক বাংলোর অবস্থান। এছাড়া চাইলে এলজিইডি রেস্ট হাউজ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের রেস্ট হাউস এবং পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির রেস্ট হাউজে আছে থাকার ব্যবস্থা।

ফেনী শহরে রাত্রিযাপনের জন্য আবাসিক হোটেলের মধ্যে আছে—হোটেল মিড নাইট বা হোটেল গাজী ইন্টরন্যাশনাল।

আপনার মতামত লিখুন :