‘শান্তিপূর্ণ’ ভোটের জন্য প্রস্তুত ইসি

ইসমাঈল হোসাইন রাসেল, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

রাত পোহালেই ভোট। অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সব প্রস্তুতি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। রোববার (৩০ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে শুরু হবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। ভোটকে কেন্দ্র করে রাজধানীসহ সারা দেশে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বিভাগীয় শহরগুলোতে চলে গেছে নির্বাচনি সামগ্রী। শনিবার (২৯ ডিসেম্বর) রাতের মধ্যেই কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে ব্যালট বাক্স ও ব্যালট পেপারসহ অন্যান্য সামগ্রী। ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারেন, সেজন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সারা দেশসহ রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে র‌্যাব-পুলিশ-বিজিবি ও সেনাবাহিনীর তল্লাশি ও টহল চলছে।

ভোটের মাঠে দীর্ঘ ১০ বছর পর নৌকা ও ধানের শীষ প্রতীকের মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে যাচ্ছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুতে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন বর্জন করে বিএনপিসহ বেশিরভাগ রাজনৈতিক দল। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগসহ ১২টি রাজনৈতিক দল অংশ নিয়েছিল। এবার প্রেক্ষাপট ভিন্ন। দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বিএনপি। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে বিএনপিসহ জোটের শরিকরা।

নির্বাচন কমিশন বলছে, শান্তিপূর্ণ ভোট নিয়ে কোন শঙ্কার কারণ নেই। কমিশন ইতোমধ্যে যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছে। ভোটাররা নির্বিঘ্ন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। নির্বাচনের শেষ মুহূর্তের পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার দুপুরে আগারগাঁওয়ে অবস্থিত নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে বলে জানা প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নূরুল হুদা।

তিনি বলেছেন, দেশে প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচনি পরিবেশ বজায় রয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী প্রার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।"

নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শাহাদাত হোসেন চৌধুরী (অবঃ) বার্তা২৪.কমকে বলেন, শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য কমিশন সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রায় ছয় লাখের বেশি সদস্য ভোটের মাঠে কাজ করছেন। ভোটররা যাতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিতে পারেন তার জন যতটা প্রস্তুতি দরকার, সেটি আমরা সম্পন্ন করতে পেরেছি। নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ দেখার জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং ইলেকটোরাল ইনকোয়ারি কমিটি কাজ করছে। কিছু অভিযোগের সত্যতা তাঁরা পেয়েছেন। সেসব ক্ষেত্রে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যে ছয়টি আসনে ইভিএমে ভোট গ্রহণ করা হবে, সেসব আসনে মক ভোটিং (আসল ভোট কীভাবে দেওয়া হবে তা জানার ব্যবস্থা) হয়েছে। জনগণের ভালো সাড়া পাওয়া গেছে। জরুরি প্রয়োজনে পরিবহন কাজের জন্য প্রস্তুত রয়েছে সশস্ত্রবাহিনীর দুটি হেলিকপ্টার।

নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব মোখলেসুর রহমান বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমরা ভোটারদের নিরাপত্তার সকল ব্যবস্থা নিয়েছি। ভোটারদের নিরাপত্তায় অন্যান্য বাহিনীর সঙ্গ সেনাবাহিনীর সদস্যরাও মাঠে রয়েছেন। ভোটের জন্য আমরা প্রস্তুত আছি। শান্তিপূর্ণভাবে ভোট সম্পন্ন হবে বলে আমরা আশা করছি।

জানা গেছে, ভোটে ৬৬ জন রিটার্নিং অফিসার ( দুইজন বিভাগীয় কমিশন ও ৬৪ জন জেলা প্রশাসক) দায়িত্ব পালন করছেন। নির্বাচনে মোট ভোটকেন্দ্র ৪০ হাজার ১৮৩। ভোকক্ষ ২ লাখ সাত হাজার ৩১২টি। ভোটার সংখ্যা ১০ কোটি ৪২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৭৭জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ কোটি ২৫ লাখ ৭২ হাজার ৩৬৫জন। আর মহিলা ভোটার ৫ কোটি ১৬  লাখ ৬৬ হাজার ৩১২ জন।

এবারের নির্বাচনে মোট ৩৯ দল অংশগ্রহণ করছে। ২৯৯টি আসনে প্রার্থী ১ হাজার ৮৬১ জন প্রার্থী। এর মধ্যে নিবন্ধত রাজনৈতিক দলের প্রার্থী ১ হাজার ৭৩৩ জন। আর স্বতন্ত্র প্রার্থীর সংখ্যা ১২৮ জন। একক দল হিসেবে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ (হাতপাখা) সব থেকে বেশি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।

ভোটকেন্দ্র এবং নির্বাচনী এলাকায় প্রায় ৬ লাখ আট হাজার সেনাবাহিনী ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স নিয়োজিত থাকবে। এরমধ্যে পুলিশ প্রায় এক লাখ ২১ হাজার, আনসার প্রায় ৪ লাখ ৪৬ হাজার, গ্রাম পুলিশ প্রায় ৪১ হাজার।

ভোটে ৩৮৯ উপজেলায় সেনাবাহিনীর ৪১৪ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন), ১৮ উপজেলায় নৌবাহিনীর ৪৮ প্লাটুন, ১২ উপজেলায় কোস্টগার্ডের ৪২ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন), বিজিবির ৯৮৩ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন), র‌্যাবের প্রায় ৬০০ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন), মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্সের প্রায় ২ হাজার প্লাটুন (প্রায় ৬৫ হাজার) দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়াও সারাদেশে জেলা ও মেট্রোপলিটন পুলিশের টহল দল নিয়োজিত আছেন।

ভোটের মাঠে ১ হাজার ৩২৮ জন অ্যাক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। এর মধ্যে আচরণবিধি প্রতিপালনের জন্য ৬৫২ জন অবশিষ্ট ৬৭৬ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মোবাইল/ স্ট্রাইকিং ফোর্সের সঙ্গে নিয়োজিত থাকবেন। এছাড়াও ৬৪০ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। নির্বাচনে ১২২টি ইলেক্টোরাল ইনকোয়ারি কমিটিতে ২৪৪জন দায়িত্ব পালন করছেন।

ভোটে ৪০ হাজার ১৮৩জন প্রিজাইডিং অফিসার, দুই লাখ সাত হাজার ৩১২ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও ৪ লাখ ১৪ হাজার ৬২৪ জন পোলিং অফিসার দায়িত্ব পালন করবেন।

নির্বাচনে ৮১টি প্রতিষ্ঠানের ২৫ হাজার ৯০০ জন দেশীয় পর্যবেক্ষক ভোট পর্যবেক্ষণ করবেন। এছাড়াও ফেমবোসা, এএইএ,দ ওআইসি ও কমনওয়েলথ হতে আমন্ত্রিত ও অন্যান্য বিদেশী পর্যবেক্ষক ৩৮ জন, কূটনৈতিক ও বিদেশী মিশনের ৬৪ জন কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশস্থ দূতাবাস, হাইকমিশন বিদেশী সংস্থায় কর্মরত বাংলাদেশি ৬১ জনসহ মোট ১৬৩ জন দায়িত্ব পালন করবেন।

ভোটে ৩০০ আসনের মধ্যে গাইবান্ধা- ৩ আসনে একজন প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে ভোট স্থগিত করে পুনঃতফসিল দেয়া হয়েছে। ফলে ভোট হবে ২৯৯ আসনে।

আপনার মতামত লিখুন :