Alexa

নববর্ষের নতুন আলোয় জাগে প্রাণ

নববর্ষের নতুন আলোয় জাগে প্রাণ

বাংলাদেশের পতাকা শোভিত নববর্ষ, ছবি: মোস্তাফা কামাল

কিশোরগঞ্জ থেকে: বাংলা নববর্ষের প্রথম সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে গেল চারপাশে। শোনা গেলো কল-কাকলীতে মুখরিত মাঙ্গলিক সঙ্গীত, 'এসো হে বৈশাখ, এসো হে'।

ছোট্ট শহর কিশোরগঞ্জের নরসুন্দা নদী তীরের পুরাতন স্টেডিয়ামে বর্ণময় পোষাকে সজ্জিত বিভিন্ন বয়সী মানুষ সমবেত হয়েছেন। চিরায়ত বাঙালির সর্বজনীন উৎসবের আমেজে আলোকিত নগরে জাগে প্রাণের প্রবাহ।

বাঙালির যে একটি মহৎ ঐতিহ্য উৎসারিত জাতীয় উৎসব রয়েছে, বৈশাখ তার প্রমাণ। মুখরিত আনন্দে ঘর ছেড়ে বের হয়েছে নারী, পুরুষ। শিশু-কিশোররা এসেছে দলে দলে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/14/1555237914654.jpg
নববর্ষে জাগে প্রাণ, ছবি: মোস্তফা কামাল

গানে ও আবৃতিতে পুরো শহর প্রদক্ষিণ করে মঙ্গল শোভাযাত্রা। অঙ্গের ঋপদী সঙ্গীত হয়ে বিচ্চুরিত হয়েছে নৃত্যের নানা ভঙ্গিমা। উৎসবের হিল্লোলে নেচে ওঠে নাগরিক মানব হৃদয়।

জেলা প্রশাসনের আয়োজনের পাশাপাশি বহু সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের অনুষ্ঠানে নববর্ষের প্রথম প্রহর রঙে আর গানে জেগে ওঠে পুরো জনপদ। শহরের নানা প্রান্তে, পাড়া, মহল্লায় চলে বাহারি আয়োজন। 'সামাজিক আন্দোলন'-এর পক্ষে শোভাযাত্রা শেষে দৈ আর চিড়া দিয়ে সবাইকে আপ্যায়িত করা হয় লোকজ প্রাতঃরাশে।

'আমাদের কিশোরগঞ্জ' আয়োজন করে লোক সংস্কৃতির মেলা। গ্রামীণ মৃৎশিল্প, কুটির শিল্প, মুখোশ, পুতুল, খেলনার সমাহারে ফিরে আসে সুপ্রাচীন ইতিহাস ও ঐতিহ্য। ঢোল, বাদ্য, বাজনার সুর ও ধ্বনি লহরী দোলা দেয় বৈশাখী ভোরের অরুণালোকিত বাতাসে।

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের যাবতীয় প্রতীক ও পতাকায় শোভিত মানুষ নববর্ষের নতুন আলোয় জেগেছে নতুন শপথে। জরা, ক্ষয়, অন্ধকার, গ্লানি মুছে নবপ্রাণে জেগে উঠার প্রত্যয়ে দীপ্ত হয়েছে সবাই। মানবিক ও শুভবোধের বাংলাদেশে গড়ার প্রতীতিতে পাশবিকতার বিরুদ্ধে মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করেছে বাংলা নববর্ষের শাশ্বত চেতনা প্রবাহ।

আপনার মতামত লিখুন :