মোবাইল-ইন্টারনেটের ভিড়ে হারিয়ে গেছে রেডিও-টেপ রেকর্ডার

কাজল সরকার, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, হবিগঞ্জ
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

হবিগঞ্জের গ্রামাঞ্চলে প্রচলন আছে, একটি রেডিও বা টেপ রেকর্ডার যৌতুক না দেয়ার কারণে একাধিক বিয়ে ভেঙে গেছে! আবার কোনো ব্যাক্তি বিয়েতে রেডিও বা টেপ রেকর্ডার উপহার পেলে আশ পাশের গ্রাম থেকে সেটি দেখতে অনেকে ছুটে আসতেন। আবার পড়ন্ত বিকেল কিংবা রাতে বাড়ির উঠোনে টেপ রেকর্ডার বাজিয়ে সকলে একত্রিতভাবে গান, অনুষ্ঠান কিংবা খবর শুনতেন।

প্রতি রাতেই গ্রামে যেন টেপ রেকর্ডারের মাধ্যমে গানের আসর বসত। বসবে নাই-বা কেন? তখনকার সময়ে গ্রামের মানুষের তথ্য প্রবাহ ও বিনোদনের একমাত্র মাধ্যম ছিল এই রেডিও এবং টেপ রেকর্ডার। এমনকি মুক্তিযোদ্ধেও বিশাল অবদান রেখেছে এটি। কিন্তু আজ আর সেই রেডিও বা টেপ রেকর্ডার দেখা যায় না।

তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর কম্পিউটার, মোবাইল ও ইন্টারনেটের ভিড়ে হারিয়ে গেছে এসব যন্ত্র। মোবাইল, ইন্টারনেট কম্পিউটারে দক্ষ বর্তমান প্রজন্মের অনেকই হয়তো রেডিও-টেপ রেকর্ডার দু’চোখে দেখেওনি। ডিজিটাল যুগের ছোঁয়া পড়তে না পড়তে দ্রুত এগুলো হারিয়ে গেছে। জনগণের চাহিদা নেই বলে বাজারেও পাওয়া যায় না মান্ধাতার আমলের যন্ত্রগুলো।

মূলত, বাংলাদেশে অতিথ বিনোদনের ডিজিটাল মাধ্যম বলতে ছিল- রেডিও-টেপ রেকর্ডার, টেলিভিশন ও সিনেমা। কিন্তু অসচ্ছল গ্রামীণ সমাজে সকলেরই টেলিভিশন কেনা সাধ্যের বাইরে ছিল। তাই সামান্য সচ্ছল পরিবারগুলো রেডিও-টেপ রেকর্ডার কিনতো বিনোদন উপভোগ ও খবর শোনার জন্য।

মো. ওয়াহিদ মুরাদ নামে ডাচ বাংলা ব্যাংকের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা যখন ছোট ছিলাম তখন আমাদের একটি টেপ রেকর্ডার ছিল। আব্বা বাজার থেকে ‘অরুণ-বরুণ কিরণমালা’, ‘রূপবান’, ‘ঝিনুকমালা’, ‘শঙ্খমালা’, আপন-দুলালের কিচ্ছা’সহ বিভিন্ন যাত্রাপালার অডিও রেকর্ড নিয়ে আসতেন। আমরা সবাই মিলে শুনতাম। কিন্তু এখন আর সেই টেপ রেকর্ডার এখন আর নেই।’

বানিয়াচং উপজেলা সদরের নতুন বাজার এলাকার বাসিন্দা মো. সাহেব মিয়া বলেন, ‘একটা সময় ছিল, যখন দল বেঁধে সন্ধ্যার পর রেডিও-টেপ রেকর্ডারে অনুষ্ঠান উপভোগ করতাম। কিন্তু এখন আর দল বেঁধে গান, নাটক বা খবর শোনার জন্য কেউ অপেক্ষা করে না। এসব জায়গায় এখন দখল করে নিয়েছে ডিশ সংযোগে টিভি, কম্পিউটার, ইন্টারনেট ও মোবাইল ফোন।’

তিনি আরও বলেন, ‘শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক সবার হাতে এখন ভালো মানের মোবাইল ফোন আছে। যেখান থেকে তারা নিজেদের ইচ্ছেমতো অনুষ্ঠান শুনতে পারে এবং দেখতেও পারে।’

একই উপজেলার ইকরাম বাজারের ব্যবসায়ী খলিলুর রহমান বলেন, ‘বেশি দিন আগের কথা না, কয়েক বছর আগেও ইকরাম বাজারে যে দোকানে রেডিও, টেপ বা টিভি ছিল সে দোকানগুলোতে বেশি বেচা-বিক্রি হতো। কিন্তু এখন আর কেউ দোকানে (বিশেষ করে চা স্টল বা খাবার হোটেল) রেডিও-টিভি দেখার জন্য কেউ আসে না। প্রত্যেক ঘরে ঘরে টিভি আছে। এছাড়া মোবাইলতো সবার হাতে আছেই।’

একই এলাকার বৃদ্ধ ফজলুল হক বলেন, ‘আমরা যখন ছোট ছিলাম, তখন আমাদের গ্রামের এক বাড়িতে টেপ ছিল। সেখানে সন্ধ্যার পরই আমরা বসে মধ্যরাত পর্যন্ত বিভিন্ন গান, নাটক, পালা ও খবর শুনতাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘গেল কয়েক বছর ধরে রেডিও-টেপ শুনা দূরের কথা, চোখেও দেখিনি।’

মুক্তিযোদ্ধা জুয়েল চৌধুরী বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধে রেডিওর অবদান বলে শেষ করা যাবে না। রেডিও শুনে শুনেই মূলত আমরা যুদ্ধ করতাম। কোথায় কি হচ্ছে তা জানার একমাত্র মাধ্যম ছিল রেডিও।’

তিনি আরও বলেন, ‘শুধু তথ্য জানার বিষয়ই না। তখন রেডিওতে দেশাত্মবোধক যে গানগুলো দেওয়া হতো সেগুলো শুনতে কেমন যেন দেশের জন্য ভালোবাসা আরও বেড়ে যেত। গান থেকে আমরা যুদ্ধের অনুপ্রেরণা পেতাম।’

আপনার মতামত লিখুন :