Alexa

উড়তে পারা হাতি আসছে বাংলাদেশে!

উড়তে পারা হাতি আসছে বাংলাদেশে!

‘ডাম্বো’ ছবির পোস্টার

ছোট্ট একটা হাতির ছানা। নাম ডাম্বো। কিন্তু ডাম্বো মানে যে বোকা! আসলে ডাম্বোর কান দুটো বিরাট বড়। আর সেই কান নিয়েই হাসাহাসি করে সবাই। মাকে হারিয়ে ডাম্বো চলে এসেছে সার্কাসে। সেই সার্কাসেই একদিন আবিষ্কার হলো ডাম্বোর অদ্ভুত ক্ষমতা। ডাম্বো উড়তে পারে! তার বিরাট দুটো কানই ডানার কাজ করে।

ডাম্বোর উড়তে পারার কথা ছড়িয়ে যায় চারদিকে। সে এখন সার্কাসের তারকা। ডাম্বোর এই খ্যাতির কথা জানতে পারে বিখ্যাত ব্যবসায়ী ভ্যানডিভিয়ার। ডাম্বোকে সে নিজের বিশাল বিনোদনের ব্যবসা ড্রিমল্যান্ডের জন্য নিয়ে যায়। সার্কাসের তারকা থেকে ড্রিমল্যান্ডের সুপারস্টার হতে দেরি হয় না ডাম্বোর। কিন্তু সে যে তার মায়ের কাছে ফিরে যেতে চায়!

এরই মধ্যে জানা যায় ড্রিমল্যান্ড মোটেও স্বপ্নের জায়গা নয়। বরং সেখানে লুকিয়ে আছে অন্ধকার অনেক রহস্য। ডাম্বো কি ড্রিমল্যান্ডে বিপদে পড়বে? সে কি ফিরে যেতে পারবে মায়ের কাছে? উত্তর মিলবে ‘ডাম্বো’ ছবিতে। আগামী ২৯ মার্চ আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশের স্টার সিনেপ্লেক্সেও মুক্তি পাবে এটি।

‘ডাম্বো’ ছবির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন কলিন ফেরেল, এভা গ্রিন, মাইকেল কিটন, ড্যানি ডেভিটো, অ্যালান আর্কিনসহ অনেকে।

উড়তে পারা ডাম্বোর গল্প কিন্তু বহু পুরনো। ১৯৪১ সালের অক্টোবরে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘ডাম্বো’ ছিল ডিজনির চতুর্থ অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্র। সেই ডাম্বোকেই নতুনভাবে ফিরিয়ে আনছেন হলিউডের খ্যাতিমান পরিচালক টিম বার্টন। ৬০ বছর বয়সী এই নির্মাতার ঝুলিতে আছে ‘বিটলজুস’ (১৯৮৮), ‘ব্যাটম্যান’ (১৯৮৯), ‘এডওয়ার্ড সিজারহ্যান্ডস’ (১৯৯০), ‘ব্যাটম্যান রিটার্নস’ (১৯৯২), ‘প্ল্যানেট অব দ্য এপস’ (২০০১), ‘চার্লি অ্যান্ড দ্য চকোলেট ফ্যাক্টরি’ (২০০৫), ‘অ্যালিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড’ (২০১০)। ‘ডাম্বো’র মাধ্যমে আবারও তিনি বড় পর্দা কাঁপাবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :