রংপুর-৩ আসনে সাদ এরশাদই পাচ্ছেন লাঙ্গল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
রাহগীর আল মাহি সাদ

রাহগীর আল মাহি সাদ

  • Font increase
  • Font Decrease

অবশেষে রংপুর-৩ (সদর) আসনের উপ-নির্বাচনে রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাকেই জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত দলীয় মনোনয়নের চিঠি রেডি হচ্ছে, কিছুক্ষণের মধ্যেই মাহসচিবের স্বাক্ষর হয়ে চলে যাবে বলে পার্টি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

চিঠি প্রণয়ন প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত জাপার একাধিক শীর্ষ নেতা এ বিষয়ের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। এরশাদের মৃত্যূতে শূন্য ঘোষিত এই আসনে মনোনয়ন ও সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা মনোনয়ন নিয়ে কয়েকদিন ধরে উত্তাল সময় পার করছে জাতীয় পার্টি।

রওশন ও জিএম কাদেরের মধ্যে দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়ে দলটি। দু’জনেই নিজেকে পার্টির চেয়ারম্যান দাবী করেন। পৃথক পার্লামেন্টারি বোর্ডও গঠন করা হয়। জিএম কাদের গ্রুপ রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক এসএম ইয়াসিরকে মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়ে চূড়ান্ত করে।

আরও পড়ুন: রংপুরেই জিএম কাদেরের অগ্নিপরীক্ষা

এমন পরিস্থিতিতে ৭ সেপ্টেম্বর রাতে উচ্চ পর্যায়েরে একটি সমঝোতা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। দুই পক্ষের ১০ জন সিনিয়র নেতা বৈঠকে বসেন। ওই বৈঠকে ফয়সালা হয়, জিএম কাদের থাকবেন পার্টির চেয়ারম্যান, পার্লামেন্টারি পার্টির নেতা হবেন রওশন এরশাদ। আর রংপুরে প্রার্থী হবেন সাদ এরশাদ।

সেই সমঝোতার ভিত্তিতে রোববার সাদের নামে চিঠি চূড়ান্ত করা হচ্ছে। তবে এখানেই শেষ হচ্ছে না জাপার এই নাটকীয়তা। রংপুরের স্থানীয় নেতারা সাদকে বয়কট ও প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়ে বসে আছে। কয়েকদিন আগেই এক দফায় দু’গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়েছে।

৩ সেপ্টেম্বর জিএম কাদেরকে জাতীয় পার্টির পার্লামেন্টারি পার্টি তথা বিরোধী দলের নেতা করার চিঠিকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে জাপা। এতে রওশন এরশাদ ও তার অনুসারিরা তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখান। রওশনও স্পিকারকে চিঠি দিয়ে জিএম কাদেরের চিঠি ইগনোর করার অনুরোধ করেন। তিনিও নিজেকে বিরোধী দলের নেতা করার জন্য বলেন।

৫ সেপ্টেম্বর রওশন পন্থীরা সংবাদ সম্মেলন ডেকে রওশনকে পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা দেন। একইসঙ্গে ৬ মাসের মধ্যে কাউন্সিল ও জিএম কাদেরকে কো-চেয়ারম্যান দায়িত্ব পালনের আহ্বান করেন। সেইসঙ্গে রংপুর উপ-নির্বাচনে প্রার্থী চূড়ান্ত করার জন্য পৃথক পার্লামেন্টারি ঘোষণা করেন।

রওশনের এই প্রতিক্রিয়ার পাল্টা প্রতিক্রিয়ায় হিসেবে জিএম কাদের সাংবাদিক সম্মেলন করেন। ৬ সেপ্টেম্বর প্রেসিডিয়াম ও সংসদীয় দলের সভা করে কয়েকজনকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেন। একইসঙ্গে রংপুর-৩ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত করেন।

 

আপনার মতামত লিখুন :