জাবিতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা না থাকায় বাড়ছে পরিবেশ দূষণ



জাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ( জাবিতে) কোন ধরনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা না থাকায় যেখানে-সেখানে ময়লা-আবর্জনা ফেলায় পরিবেশ দূষণের পাশাপাশি স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান খেলার মাঠ, মুক্তমঞ্চ, পুরাতন কলা ভবন, আল বেরুনী এক্সটেনশন, শেখ রাসেল হলের সামনের রাস্তা, সালাম বরকত হলের সামনে যত্রতত্র আবর্জনা ফেলায় যেন ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে।

সরেজমিনে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক দিয়ে ঢুকতেই চোখে পড়ে রাস্তায় দু'ধারে ময়লার স্তুপ। একটু সামনে হাঁটলে দেখা মিলে কেন্দ্রীয় খেলার মাঠের পাশে ময়লার আবর্জনার ভাগাড়। এছাড়াও হল গুলোতে যেখানে সেখানে ফেলা হচ্ছে ময়লা। বিপরীতে ময়লা-ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ।

এ ব্যাপারে ক্ষোভ প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিনান্স ও ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষার্থী মিজানুর রহমান বলেন, ‘গতকয়েক বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ে শুধু উন্নয়ন দেখে যাচ্ছি। এত কিছু করলেও প্রশাসন ময়লা আবর্জনা অপসারণের কোন ব্যবস্থা নেয়নি কখনো। পরিবেশ রক্ষায় প্রশাসনের এখনি সোচ্চার হওয়া দরকার।

বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান ডা. মো. শামছুর রহমান বলেন, ‘খোলা জায়গায় ময়লা আর্বজনা ফেলার কারণে নানা রকম জীবাণু বাতাসে ছড়িয়ে পড়তে পারে। এতে করে বায়ুবাহিত রোগগুলো ছড়ানোর সম্ভবাবনা থাকে। এছাড়াও শ্বাসকষ্ট, ডায়রিয়া এবং আমাশয়ের মতো রোগের জীবাণু ছড়াতে পারে সহজেই।’

পরিবেশে বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক বিউটি আকতার বলেন, ময়লা আবর্জনা যেখানে সেখানে ফেললে বাইরে যেমন দৃষ্টি কটু লাগে তেমনি পরিবেশের জন্য খুব মারাত্মক। মাটির নির্দিষ্ট একটি মান থাকে ময়লার কারণে মানটি দিন দিন হারিয়ে নিচের দিকে নেমে যাচ্ছে। মাটির সাথে মিশে এগুলো আমাদের খাদ্য, পানীয়তে মিশে যাচ্ছে। এতে করে আমাদের শরীরে প্রবেশ করছে রোগবাহী জীবাণু। এছাড়াও ময়লা আর্বজনা ফেলার জন্য নিদিষ্ট প্লাট থাকা দরকার। যাতে এগুলো রিসাইকেল করে পরে কাজে লাগানো যায়।'

   

ঢাবি অধ্যাপক নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে দুই কমিটি গঠন



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের আনা ভিন্ন ভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

রবিবার (৩ মার্চ) রাতে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামালের সভাপতিত্বে এক সিন্ডিকেট সভায় এই তদন্ত কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সিন্ডিকেট সদস্য সূত্রে জানা যায়, অধ্যাপক নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের স্নাতকোত্তর ২০২২ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের আনা ব্যক্তিগত আক্রোশের কারণে ফলাফলের ধ্বস নামিয়ে দেয়ার অভিযোগ খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট। এ কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ- উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডক্টর সীতেশ চন্দ্র বাছারের নেতৃত্বে অন্য দুজন সদস্য হলেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারপারসন ও সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. আবুল মনসুর আহাম্মদ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বাহালুল হক চৌধুরী। এই কমিটিকে দ্রুত সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

সিন্ডিকেট সূত্র হতে আরও জানা যায়, অধ্যাপক ড. নাদির জুনায়েদের বিরুদ্ধে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের একজন নারী শিক্ষার্থী এবং ঢাকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অপর এক নারী শিক্ষার্থীর আনা যৌন হয়রানি ও মানসিক নিপীড়নের অভিযোগ তদন্তে তিন সদস্যের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি বা তথ্য অনুসন্ধান কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটির প্রধান আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সীমা জামান। বাকি দুজন সদস্য হলেন সিন্ডিকেট সদস্য ও হাজী মোহাম্মদ মুহসীন হলে প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মাসুদুর রহমান ও সহকারি প্রক্টর সঞ্চিতা গুহ। সিন্ডিকেটকে প্রতিবেদন দিতে কমিটিকে দুই সপ্তাহের সময় নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। এ প্রতিবেদন পরবর্তী সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলে পাঠানো হবে ।

উল্লেখ্য, গত ৭ ফেব্রুয়ারি গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত আক্রোশে ফলাফলে ধ্বস নামিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করে একই বিভাগের ১২ তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। অভিযোগের পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে স্বতন্ত্র ও নিরপেক্ষ কমিটি গঠন করে মৌখিক পুনঃগ্রহণ ও সম্পূর্ণ ফলাফল পুনর্মূল্যায়ন এবং অধ্যাপক নাদির জুনাইদের কৃতকর্মের জন্য দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করারর দাবি জানায়। অভিযুক্ত এ অধ্যাপকের বিরুদ্ধে ১০ ফেব্রুয়ারি বিভাগের এক শিক্ষার্থী যৌন হয়রানি ও মানসিক নিপীড়নের অভিযোগ করেন। ১১ ফেব্রুয়ারি ড. নাদিরের বিরুদ্ধে মৌখিক যৌন হয়রানী ধামাচাপা দেওয়ার অন্য আরেকটি অভিযোগ দায়ের করেছেন একই বিভাগের আরেক নারী শিক্ষার্থী। অভিযোগের প্রতিবাদে সব ধরনের শ্রেণি কার্যক্রম বর্জন করে ক্যাম্পাসে অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে বিভাগটির শিক্ষার্থীরা। এরই মাঝে গত ২৮ ফেব্রুয়ারিতে এ অধ্যাপকের বিরুদ্ধে আরেকটি যৌন হয়রানি ও মানসিক নিপীড়নের অভিযোগ করেন অন্য একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সাবেক শিক্ষার্থী।

;

বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ গেল জবি শিক্ষার্থীর



জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ গেল জবি শিক্ষার্থীর

বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ গেল জবি শিক্ষার্থীর

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর বেইলি রোডের বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সাবেক এক শিক্ষার্থীর। ঢাকা মেডিকেল কলেজে ময়নাতদন্তের সময় তার পকেট থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) স্টুডেন্ট আইডি কার্ড পাওয়া যায়।

মো. নুরুল ইসলাম নামের ওই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের সান্ধ্যকালীন এমবিএ ১৩ ব্যাচের (২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ) শিক্ষার্থী ছিলেন। তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগ।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে বেইলি রোডের ওই বহুতল ভবনে আগুন লাগে। এরপর ঢাকা মেডিকেলে অ্যাম্বুলেন্সে করে আহত ও মরদেহগুলো নিয়ে যাওয়া হতে থাকে রাত ১২টার আগে থেকে। তবে তাদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিলেন মৃত। সেখানেই সারি সারি মরদেহের মধ্যে নুরুল ইসলামের বন্ধুরা খুঁজে পান তার লাশ। লাশ পাওয়ার পর তার বন্ধুরা লাশটি গ্রামের বাড়িতে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

এ বিষয়ে জবির ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. মহিউদ্দিন বলেন, নুরুল ইসলাম আমার সরাসরি ছাত্র ছিলেন। সে পাস করে বেরিয়ে গিয়েছিল। তার এমন মৃত্যুতে আমি মর্মাহত। মুহূর্তের মধ্যেই যেন তাজা প্রাণ ঝরে গেল। নুরুল ইসলামের অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুতে ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ পরিবার গভীরভাবে শোকাহত।

গভীর শোক প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম বলেন, বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডে অনেক তাজা প্রাণ হারিয়েছে দেশ। অপরিকল্পিত ব্যবস্থাপনার জন্যই এমন ভয়াবহ দুর্ঘটনা বারবার ঘটে। নুরুল ইসলাম আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ছিলেন। তার এই অকাল মৃত্যু আসলেই মেনে নেওয়া যায় না। দেশ একজন সুযোগ্য নাগরিককে হারাল। শোকার্ত পরিবারের প্রতি আমি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

উল্লেখ্য, বেইলি রোডের সেই বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬ জনে পৌঁছেছে। গুরুতর আহত হয়েছেন অন্তত ২২ জন। এ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

যে ভবনে আগুন লেগেছে, সেটি সাত তলা। ভবনের দ্বিতীয় তলায় ‘কাচ্চি ভাই’ নামের রেস্তোরাঁ রয়েছে। তৃতীয় তলায় একটি পোশাকের দোকান ছাড়া ওপরের তলাগুলোতেও রয়েছে খাবারের দোকান। প্রতিদিন সন্ধ্যার পর থেকে খাবারের দোকানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় জমতো।

;

বাকৃবির কেন্দ্রীয় খামারে আগুন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
বাকৃবির কেন্দ্রীয় খামারে আগুন

বাকৃবির কেন্দ্রীয় খামারে আগুন

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) খামার ব্যবস্থাপনা শাখার সামনে থাকা খড়ের গাদায় হঠাৎ আগুন লেগে কিছু অংশ পুড়ে গেছে।

রোববার (৩ মার্চ) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে বিকাল ৫টার দিকে আগুন সমস্ত গাদায় ছড়িয়ে পড়তে থাকে। পরে এক ঘণ্টার বেশি সময়ের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে বলে জানান ফায়ার সার্ভিস লিডার জাকারিয়া।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে- সিগারেটের আগুন থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। তবে প্রত্যক্ষদর্শী অনেকের ধারণা কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে খড়ে আগুন দিয়েছে। খড়ের নিচের অংশ অনেক সময় ধরে জ্বলার কারণে খড়ের উপরের অংশে যখন আগুন দেখা গেছে তখন খুব দ্রুত চারিদিকে ছড়িয়ে পড়েছিল।

ফায়ার সার্ভিস লিডার জাকারিয়া বলেন, আমরা বিকাল সোয়া ৫টার দিকে খবর পেয়েছি। খবর পাওয়া মাত্রই আমাদের টিম আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য এসেছি। আগুন নিয়ন্ত্রণে খামারের পাশের পুকুর থেকে পানি ব্যবহার করেছি। এক ঘণ্টার বেশি সময়ের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। এখনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পৌনে ৫টার দিকে খড়ের এক জায়গা থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। খড়ের সাথে সরিষা থাকার কারণে খুব দ্রুত আগুন চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। আগুন লাগার সময়ে নিরাপত্তাকর্মী ছিল না। নিরাপত্তাকর্মী থাকলে হয়তো অনেক আগেই আগুন নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হতো।

এবিষয়ে বাকৃবির খামার ব্যবস্থাপনা শাখার প্রধান তত্ত্বাবধারক অধ্যাপক ড. রসিদুল ইসলাম বলেন, আগুন লাগার সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি। ধানের তুষ ও সরিষার তুষ পঁচিয়ে কম্পোস্ট সার তৈরি করা হয়। পরবর্তীতে এই সার বিক্রি করা হয়। তাড়াতাড়ি ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেওয়ায় তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। আগুন লাগার কারণ জানতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

;

প্রকৌশলের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় রুয়েটে উপস্থিতি ৭৯.৩২ শতাংশ



রাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রুয়েট, কুয়েট ও চুয়েট এর ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষ বা লেভেল-১ সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (৩ মার্চ) সকাল ১০টায় 'ক' গ্রুপের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়ে শেষ হয় দুপুর সাড়ে বারোটায়। এছাড়া 'খ' গ্রুপের (কেবলমাত্র আর্কিটেকচার বিভাগে ভর্তির জন্য) প্রার্থীদের ভর্তি পরীক্ষা সকাল ১০টায় শুরু হয়ে শেষ হয় দুপুর পৌনে দুইটায়।

রুয়েটের জনসংযোগ দপ্তর সূত্রে জানা যায়, এবারের ভর্তি পরীক্ষায় রুয়েট কেন্দ্রে অংশগ্রহণের জন্য ৭ হাজার ৬২২ জন শিক্ষার্থী মনোনীত হয়েছিলেন। এদের মধ্যে পরীক্ষায় উপস্থিত ছিলেন ৭৯.৩২ শতাংশ শিক্ষার্থী। পরীক্ষা চলাকালে ক্যাম্পাসে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি আনসার, বিভিন্ন সেবা সংস্থা ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা নিয়োজিত ছিলো। ভর্তি পরীক্ষা চলাকালে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা সংঘটিত হয়নি।

পরীক্ষা চলাকালে রুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. জাহাঙ্গীর আলম ভর্তি হলগুলো পরিদর্শন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন রুয়েটের পুরকৌশল অনুষদের ডীন ও লোকাল এডমিশন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান রিপন, ছাত্রকল্যাণ দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. রবিউল আওয়াল। এছাড়া, পর্যবেক্ষক হিসেবে ছিলেন কুয়েটের গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. এ আর এম জালাল উদ্দিন জামালী, চুয়েটের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. রনজিৎ কুমার সূত্রধরসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

;