সবজির দাম কমেছে, বেড়েছে আলুর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সপ্তাহের ব‍্যবধানে বাজারে ব্রয়লার মুরগি, ডিম, পেঁয়াজের পাশাপাশি কিছু সবজির দাম কমেছে। তবে বেড়েছে আটা, ময়দা, আলু, হলুদসহ নিত‍্যপ্রয়োজনীয় বেশ কিছু পণ‍্যের দাম।

শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) রাজধানীর মালিবাগ বাজার, কারওরান বাজার, শ্যাম বাজার, মহাখালী কাঁচাবাজার, উত্তরা আজমপুর বাজার, খিলক্ষেত কাঁচাবাজার ও হাজীক‍্যাম্পের মুক্তিযোদ্ধা বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়।

বাজারে সপ্তাহের ব‍্যবধানে আলুর দাম ২ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২২ থেকে ২৫ টাকা করে। নতুন আলু বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা করে। কেজিতে পাঁচ টাকা কমেছে দেশি ও আমদানি করা পেঁয়াজের দাম। দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা ও আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। দেশি রসুনের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে তবে বেড়েছে আমদানি করা রসুনের দাম। কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে দেশি হলুদ বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২২০ টাকা।

ব্রয়লার মুরগি কেজিতে ১০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা। ফার্মের ডিম কিছুটা কমে বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৩৭ টাকা হালি। রুই, ইলিশ, শিং, পাবদাসহ সব ধরনের মাছের দাম প্রায় অপরিবর্তিত রয়েছে। গরুর মাংস প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৫৮০ টাকা এবং খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৮০০ থেকে ৮৫০ টাকা কেজি পযর্ন্ত।

কয়েকটি সবজির দাম কিছুটা কমেছে। বাজারে প্রতি কেজি শিম বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৫৫ টাকা, ফুল কপি আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, পটল বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, মূলা বিক্রি হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকা, বাঁধাকপি প্রতি পিস বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, বরবটি ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, এছাড়াও শসা ৪০ টাকা, বেগুন ৫০ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা, ঢেঁড়স ৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। তবে আগের মতো বেশি দামেই বিক্রি হচ্ছে টমেটো, গাঁজর।

আজমপুর কাঁচা বাজারে আসা ক্রেতা রফিকুল ইসলাম বলেন, শীতকালে সবজির দাম সব সময় কম দেখি। তবে এবার এখনো কমছে না। কয়েকটির দাম সামান্য কমলেও মৌসুম হিসেবে তা অনেক বেশি। এরমধ্যে আবার আলুর দামও বেড়েছে।

মহাখালি কাঁচা বাজারের ব‍্যবসায়ী জাহাঙ্গীর মিয়া বলেন, বাজারে সবজির সরবরাহ বাড়ায় দাম কমতে শুরু করেছে। তবে ডিজেলের দাম বাড়ায় পরিবহন ভাড়া বেশি পড়ছে তাই দাম একটু বেশি। তাই আমাদেরও বেশি দাম রাখতে হচ্ছে।

বর্তমানে সবজির যে দাম তা আরও একটু কম থাকতো। তবে ডিজেলের দাম বেশি হওয়ায় ট্রাক ভাড়া বেশি পড়ে যাচ্ছে। এর প্রভাব পড়েছে বাজারে। ট্রাক ভাড়া কম থাকলে এই সময় সবজি আরেকটু কমে পাওয়া যেতো।

বাজারে অপরিবর্তিত রয়েছে বড় ও মাঝারি দানার মশুর ডালের দাম। তবে ছোট দানার মসুর ডাল কেজিতে পাঁচ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১০৫ থেকে ১১০ টাকা। মানভেদে মুগ ডালের দাম কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১১০ থেকে ১২০ টাকা। অপরিবর্তিত রয়েছে ছোলা ও অ‍্যাংকর ডালের দাম।  

প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা, বোতলজাত বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা, পাম অয়েল খোলা বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা এবং পাম অয়েল সুপার বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকা লিটার।

বাজারে মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৪ থেকে ৪৮ টাকা, সরু চাল বিক্রি হচ্ছে ৫৬ থেকে ৬৮ টাকা এবং মাঝারি আকারের চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫৫ টাকা কেজি। চিনি বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকা কেজি।

   

আসন্ন ঈদকে ঘিরে প্রস্তুতি নিচ্ছে পোশাকের ব্র্যান্ড শপগুলো



স্টাফ করেস্পন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ঈদুল আজহা’র প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে পোশাকের ব্র্যান্ড শপগুলো। ক্রেতারাও ইতোমধ্যে কেনাকাটা করতে শুরু করে দিয়েছেন। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত, বাহারি সাজসজ্জার শোরুমগুলোতে ক্রেতা দেখলে কাচের দরজা খুলে অভ্যর্থনা জানিয়ে ভেতরে ডাকছেন দোকানের কর্মীরা। ক্রেতারাও পছন্দের পোশাক কিনতে আসছেন শোরুমগুলোতে। তবে ঈদুল ফিতরের মতো ঈদুল আজহাকে ঘিরে সাধারণ মানুষের কেনাকাটার তেমন একটা আগ্রহ এখনো দেখা যায়নি।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ক্রেতা সমাগম না থাকলেও প্রস্তুতি শুরু করেছেন তারা। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে শুরু হতে পারে ঈদুল আজহার বেচাকেনা।

শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি কমপ্লেক্সে পোশাকের ব্র্যান্ড শোরুমগুলো ঘুরে দেখা যায়, কিছু কিছু শোরুমে ঈদের কাপড় কিনতে এসেছেন ক্রেতারা। ছেলেরা কিনছেন শার্ট, টিশার্ট ,পাঞ্জাবি, পায়জামা। মেয়েরা টপস, থ্রি-পিস, টু-পিস, শাড়িসহ নানা ড্রেস কিনছেন।

প্রথমতলায় বিশাল খালি জায়গায় মানুষের সমাগম লক্ষ করা গেলেও বেশির ভাগ শোরুমে চলছে নীরবতা। এদিকে, নিচতলায় ‘জেন্টেল পার্ক’ শোরুমসহ বেশ কয়েকটি শোরুমে কেনাকাটা করতে দেখা গেছে ক্রেতাদের।

জান্নাতুল মাওয়া নামে এক ক্রেতা বার্তা২৪.কমকে জানান, রোজার ঈদের সব কেনাকাটা হয়ে গেছে। সামনে ঈদ, তাই নতুন কালেকশন আসছে কি না, দেখতে এসেছি। যদিও একটা ড্রেস কিনেছি। তবে খুব একটা ইচ্ছা নেই এবার। ভালো কিছু পেলে তবেই কিনবো। না-পেলে কিনবো না আর।

মোরশেদ খন্দকার নামে আরেক ক্রেতা বলেন, আসলে কোরবানির ঈদে তেমন কেনাকাটা হয় না। এবার যেহেতু গরম বেশি, সেদিক বিবেচনায় কিছু গরম উপযোগী কাপড় কিনবো পরিবারের সদস্যদের জন্য।

এদিকে, ক্রেতাদের টানতে বেশ কয়েকটি শোরুমে দেওয়া হয়েছে, নির্দিষ্ট পণ্যে মূল্য ছাড়। ৩০ থেকে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত মূল্য ছাড় চলছে ব্র্যান্ডের শোরুমগুলোতে।

‘জেন্টাল পার্ক-এর বিক্রয়কর্মী দিহান বলেন, ঈদ কালেকশন শুরু হয়ে গেছে। কোরবানির ঈদে তুলনামূলকভাবে বেচাকেনা কম হয়। তবে মূল্য ছাড় দেওয়ায় ক্রেতা সমাগম হচ্ছে।

‘জেন্টাল পার্ক’-এর বিপরীতে রয়েছে ‘ইয়োলো’ শোরুম। সেখানে ঢুকে দেখা যায়, ভিন্নচিত্র। সেখানে মূল্য ছাড় না থাকায় ক্রেতাদের আনাগোনা কম। এখানে পাঞ্জাবি ৩ হাজার থেকে শুরু করে ৬ হাজার ৫শ টাকা পর্যন্ত রয়েছে। ঈদে বেশকিছু নতুন কালেকশন আনা হয়েছে বলে জানান তারা।

কোরবানি ঈদ উপলক্ষে তেমন একটা কেনাকাটা হয় না বলে জানান বিক্রেতারা। তবে গরম বেশ পড়ায় বিক্রির আশা করছেন তারা, ছবি- বার্তা২৪.কম
 

‘লুক অ্যন্ড লাইক’ শপের মাহফুজ বলেন, মাসের শেষ; তাই বিক্রি কম। তবে আগামী ১ তারিখ থেকে বিক্রি বাড়বে বলে আমরা আশাবাদী। সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছি আমরা।

বসুন্ধরা সিটি কমপ্লেক্সের দ্বিতীয়তলার ব্র্যান্ডশপ ‘লুবনান’। পাঞ্জাবির জন্য ব্যাপকভাবে পরিচিত এই শোরুমে ঈদকে ঘিরে বাহারি কালেকশন রাখা হয়েছে।

শোরুমটির ম্যানেজার রিয়াজ হোসেন জানান, সেখানে ২ হাজার ১শ থেকে শুরু করে ১৬ হাজার টাকা পর্যন্ত নানা ধরনের দেশি-বিদেশি কাপড়ের পাঞ্জাবি রয়েছে। ক্রেতারাও বেশ পছন্দ করছেন তাদের ডিসপ্লেতে থাকা পাঞ্জাবিগুলো। আরো কয়েকদিন পর ঈদের বিক্রির চাপ বাড়বে বলে প্রত্যাশা করেন তিনি।

‘লুবনান’-এ ছেলের সঙ্গে পাঞ্জাবি কিনতে আসা ফারহানা আফরোজ বলেন, ঈদের জন্য আগেভাগে এসেছি। পরে ভিড় হয়ে যায়; সাইজ, কালার পাওয়া যায় না ঠিকমতো।

সব মিলে পুরোদমে ব্র্যান্ডের শপগুলোতে কেনাকাটা শুরু না হলেও ব্যবসায়ীরা ভালো বিক্রির আশাবাদী।

;

ছুটির দিনে বেচাকেনায় জমজমাট এসএমই মেলা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ছুটির দিনে জমে উঠেছে ১১তম জাতীয় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প পণ্য মেলা ২০২৪।

শুক্রবার (২৪ মে) মেলা ঘুরে দেখা যায়, পোষাক থেকে শুরু করে ঐতিহ্যবাহী রুচিশীল হস্ত ও কুটির শিল্পের বিভিন্ন ধরনের পণ্য সংগ্রহ করতে মেলায় ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়।

মেলায় ক্রেতাদের জন্য দেশের ভিবিন্ন প্রান্ত থেকে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা তাদের তৈরি বিভিন্ন নকশা করা পোশাক, পাটজাতপণ্য, জুতা, চামড়া পণ্য, প্লাস্টিক, হস্তশিল্প, খাবারসহ বিভিন্ন পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেছেন। ক্রেতাদের আকর্ষণ করতে তারা তাদের পণ্যে দিচ্ছেন বিভিন্ন অংকের নগদ মূল্যছাড়।

সকাল থেকে ক্রেতাদের উপস্থিতি কম থাকলেও ছুটির দিন হওয়ায় দুপুর থেকে মেলায় বাড়তে থাকে ভিড়। পছন্দ অনুযায়ী ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের তৈরি বিভিন্ন ধরণের শতভাগ দেশীয় পণ্য সংগ্রহ করতে পরিবার পরিজন ও আত্মীয়-স্বজনদের সাথে নিয়ে মেলায় উপস্থিত হয়েছেন ক্রেতারা।


তাদের মধ্যে একজন রোমানা আক্তার। রাজধানীর বনানী থেকে মেলায় এসেছেন টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী তাঁতের শাড়ি কিনতে। তিনি বার্তা২৪.কমকে বলেন, প্রশংসা এসএমই একমাত্র মেলা যেখানে শতভাগ দেশীয় পণ্য পাওয়া যায় এবং তুলনামূলক কম দামে। ছুটির দিন হওয়ায় তাই ননদকে সাথে নিয়ে চলে আসলাম শাড়ি কিনতে। পছন্দ হলে অন্যান্য জিনিসপত্রও কিনব।

রাজধানীর কলাবাগান থেকে এসেছেন শায়লা আক্তার জেরিন মেলায় এসেছেন তার পুরো পরিবার নিয়ে। কথা হয় তার সাথে। তিনি বলেন, এসএমই মেলার মত এত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন মেলা আর কোথাও হয় না। ঐতিহ্যবাহী অসাধারণ সব দেশীয় পণ্য এখানে খুব সহজে পাওয়া যায়। এখানে আসা ক্রেতারাও খুব রুচিশীল হয়। এখানকার পরিবেশটা খুব চমৎকার। যে কারণে পরিবার নিয়ে এখানে স্বাচ্ছন্দে কেনাকাটা করা যায়।

মেলায় প্রতিটি স্টলেই দেখা গেছে উপচে পড়া ভিড়। তবে সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে এই ভিড় আরও বাড়তে থাকে। বিভিন্ন স্টলের মধ্যভাগের রাস্তা দিয়ে হাঁটাও যেন ভিড়ের মধ্যে কষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা উদ্যোক্তারাও খুশি ক্রেতাদের উপস্থিতিতে। অনেকেই বলছিলেন তাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী বেচাকেনা হচ্ছে।

মেলায় অংশগ্রহণ করা ঐতিহ্যবাহী নকশী কাঁথা নিয়ে কাজ করা রাজশাহী নকশী ঘর'র কর্ণধার পারভিন আক্তার বার্তা২৪.কমকে বলেন, কেনাবেচা ভালো হচ্ছে কিন্তু অন্যান্য বছরের তুলনায় একটু কম। তবে গত বুধবার বুদ্ধ পূর্ণিমার ছুটির দিনে কেনাবেচা খুব ভালো হয়েছে।


সূচি শিল্প নিয়ে কাজ করা রংপুর ক্রাফট'র ইলোরা পারভিন বলেন, এসএমই মেলা মানেই বিশেষ কিছু। সুন্দর ও মনোরম পরিবেশের কারণে রুচিশীল ক্রেতারা প্রতিবছরই এ মেলার জন্য অপেক্ষা করে থাকেন। আজকে ছুটির দিন হওয়ায় ক্রেতার উপস্থিতিও ভালো এবং কেনা বেচাও হচ্ছে ভালো।

পাট জাত পণ্য নিয়ে কাজ করা তুলিকা'র কর্ণধার আঞ্জুমান কাকলি বলেন, ক্রেতাদের উপস্থিতি খুব ভালো আলহামদুলিল্লাহ খুব ভালো সেল হচ্ছে। ছুটির দিন নিয়ে আমাদের যে প্রত্যাশা ছিল সে প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে গেছে।

বেশিরভাগ উদ্যোক্তারা ছুটির দিনের বেচাকেনা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকলেও কিছু কিছু উদ্যোক্তারা বলছেন, তাদের বেচাকেনা একদমই ভালো হয়নি। তারা আশা করেছিলেন মেলার শেষ দিনের আগে ছুটির দিনে খুব ভালো একটা বেচাকেনা করবেন।

উল্লেখ্য, গত রোববার (১৯ মে) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেলার উদ্বোধন ঘোষণা করেন। ১৯ মে থেকে শুরু হওয়া জাতীয় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প পণ্য মেলা ২০২৪ শেষ হবে আগামিকাল ২৫ মে (শনিবার)।

;

ই-কমার্স ব্যবসার চ্যালেঞ্জ দূরীকরণে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের তাগিদ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ব্যবসা পরিচালনা, লজিস্টিকস ও পেমেন্টের জটিলতা দূর করা এবং ক্রেতাদের আস্থা ফিরিয়ে আনাসহ অন্যান্য চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় এই খাতের অংশীজনদের সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন শীর্ষ বাণিজ্য সংগঠন এফবিসিসিআই’র সভাপতি মাহবুবুল আলম।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে এফবিসিসিআই’র মতিঝিল কার্যালয়ে আয়োজিত গ্লোবাল ই-কমার্স বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির দ্বিতীয় মিটিংয়ে তিনি এই আহ্বান জানান।

উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল। কমিটির ডিরেক্টর ইন-চার্জ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এফবিসিসিআই’র পরিচালক সৈয়দ মোঃ বখতিয়ার।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ক্রেতাদের আস্থা ফেরাতের ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মে নকল পণ্য বিক্রি ও প্রতারণা রোধে এই খাতের উদ্যোক্তাদের আরও সতর্ক এবং কঠোর হতে হবে। ক্রসবর্ডার ট্রেডের মূল্য পরিশোধের ক্ষেত্রে যেসব জটিলতা রয়েছে সেগুলো সুনির্দিষ্টভাবে চিহ্নিতকরণ এবং সমাধানের উপায় বেড় করতে হবে। লজিস্টিকস সহ অন্যান্য চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কাজ করতে হবে।

অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ব্যবসা-বাণিজ্যর সম্ভাবনা, প্রতিবন্ধকতা এবং সমাধানের জন্য করণীয় নির্ধারণে উদ্যোক্তা, নীতি নির্ধারক, ই-কমার্স খাতের এক্সপার্ট সহ অংশীজনের উপস্থিতিতে সেমিনার বা সম্মেলন আয়োজনের পরামর্শ দেন এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ আমিন হেলালী।

স্ট্যান্ডিং কমিটির সকল সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে- ই-কমার্স খাত নিয়ে শীঘ্রই একটি পলিসি কনফারেন্স আয়োজন করা হবে বলেন জানানা কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল।

এ বিষয়ে কমিটির সদস্যবৃন্দের কাছে সুচিন্তিত মতামত আহ্বান করেন কমিটির ডিরেক্টর ইন-চার্জ সৈয়দ মোঃ বখতিয়ার।

ই-কমার্স খাতের ওপর একটি কৌশলপত্র তৈরি এবং পলিসি কনফারেন্স আয়োজনের লক্ষ্যে টেকনিক্যাল কমিটি, গবেষণা সেল তৈরি, ই-কর্মাস বিষয়ক ডেস্ক চালুসহ বেশকিছু প্রস্তাব উঠে আসে মুক্ত আলোচনায়।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, এফবিসিসিআই’র সহ-সভাপতি মিস শমী কায়সার, মোঃ আনোয়ার সাদাত সরকার, পরিচালক হাফেজ হাজী হারুন-অর-রশীদ, মোঃ আবুল হাশেম, এফবিসিসিআই’র সাবেক পরিচালক আবু হোসেন ভূঁইয়া (রানু), কমিটির কো-চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দ প্রমুখ।

;

বৃহৎ শিল্পে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেল ‘স্নোটেক্স’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বৃহৎ শিল্পে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেল ‘স্নোটেক্স’

বৃহৎ শিল্পে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেল ‘স্নোটেক্স’

  • Font increase
  • Font Decrease

বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ অর্জন করেছে স্নোটেক্স গ্রুপের প্রতিষ্ঠান স্নোটেক্স আউটারওয়্যার লিমিটেড। স্নোটেক্স আউটারওয়্যার লিমিটেড এর পক্ষে এ সম্মাননা গ্রহণ করেন স্নোটেক্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব এস এম খালেদ।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’-এর ক্রেস্ট ও সম্মাননা সনদ প্রদান করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শিল্পমন্ত্রী জনাব নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুস শহীদ ও এফবিসিসিআই’র প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম। জাতীয় অর্থনীতির শিল্পখাতে অবদানের স্বীকৃতি, প্রণোদনা সৃষ্টি, সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করা এবং বেসরকারি খাতে শিল্প স্থাপন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রেণিবিন্যাস অনুযায়ী ৬ ক্যাটাগরির মোট ২০টি শিল্প প্রতিষ্ঠান/উদ্যোক্তাকে এই পুরস্কার দেয়া হয়।

যার মধ্যে বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে ৬টি, মাঝারি শিল্প ক্যাটাগরিতে ৩টি, ক্ষুদ্র শিল্প ক্যাটাগরিতে ৪টি, মাইক্রো শিল্প ক্যাটাগরিতে ৩টি, কুটির শিল্প ক্যাটাগরিতে ৩টি এবং হাইটেক শিল্প ক্যাটাগরিতে একটি প্রতিষ্ঠান এই সম্মাননা অর্জন করে।

বৃহৎ শিল্পে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেল ‘স্নোটেক্স’

শিল্প মন্ত্রণালয়ের ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার প্রদান সংক্রান্ত নির্দেশনাবলী ২০১৩’ অনুযায়ী ২০১৪ সালে প্রথম বারের মতো এ পুরস্কার দেয়া শুরু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় এ বছর সপ্তম বারের মতো ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার’ দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ‘স্নোটেক্স’ ২০০০ সালে বায়িং হাউজের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে। ২০০৫ সালে নিজেদের প্রথম কারখানা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে ‘স্নোটেক্স অ্যাপারেলস’। সেই সাফল্যের ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালে ‘কাট অ্যান্ড সিউ’ এবং ২০১৪ সালে ‘স্নোটেক্স আউটারওয়্যার লিমিটেড’ প্রতিষ্ঠা করা হয়। সর্বশেষ ২০২০ সালে ‘স্নোটেক্স স্পোর্টসওয়্যার লিমিটেড’ প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমানে ‘স্নোটেক্স’ চারটি বড় কারখানার একটি প্রতিষ্ঠান।

এরই মধ্যে স্নোটেক্স আউটারওয়্যার গ্রিন ফ্যাক্টরি হিসেবে অর্জন করেছে ইউএসজিবিসির লিড প্লাটিনাম সার্টিফিকেটে। পাশাপাশি রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১, গ্রিন ফ্যাক্টরি অ্যাওয়ার্ড, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীনে ‘হেলথ অ্যান্ড সেফটি’ অ্যাওয়ার্ডসহ প্রতিষ্ঠানটি জাতীয় ট্যাক্সকার্ড ও সেরা করদাতা সম্মাননা-২০২২, জাতীয় রপ্তানি ট্রফি ২০২০-২১, বাংলাদেশ বিজনেস অ্যাওয়ার্ড-২০১৯, জাতীয় রপ্তানি ট্রফি ২০১৯-২০, ন্যাশনাল প্রোডাক্টিভিটি অ্যান্ড কোয়ালিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড ২০২১, পেশাগত স্বাস্থ্য ও সেইফটি উত্তম চর্চা পুরস্কার-২০১৭, ফ্যাক্টরি অ্যাওয়ার্ড-২০২০, এসডিজি অ্যাওয়ার্ড, বেস্ট প্র্যাকটিস অ্যাওয়ার্ড-২০১৮ অর্জন করেছে ‘স্নোটেক্স’।

;