‘নগদ’ এখন অফিসার্স ক্লাবে



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
‘নগদ’ এখন অফিসার্স ক্লাবে

‘নগদ’ এখন অফিসার্স ক্লাবে

  • Font increase
  • Font Decrease

অগ্রসরমান ডিজিটাল জীবনযাপনের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে অফিসার্স ক্লাব ঢাকার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সদস্য গত চারদিন ধরে ক্লাবে চলা ঈদ আনন্দ মেলায় ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস নগদ-এর অ্যাকাউন্ট খুলেছেন।

রোববার (১৭ এপ্রিল) আনুষ্ঠানিকভাবে অফিসার্স ক্লাব ঢাকা’র মহিলা কমিটির সভানেত্রী সাবেক তথ্যসচিব বেগম কামরুন নাহার ও সাধারণ সম্পাদক সরকারি বাঙলা কলেজের অধ্যক্ষ ড. ফেরদৌসি খানের নেতৃত্বে কমিটির সকল সদস্য একযোগে নগদ-এর অ্যাকাউন্ট খোলেন।

এ সময় নগদের নির্বাহী পরিচালক মো. সাফায়েত আলম মহিলা কমিটির সদস্যদের অ্যাকাউন্ট খুলতে সহায়তা করেন। যেকোনো মোবাইল ফোন থেকে *১৬৭# ডায়াল করে অ্যাকাউন্ট খোলার পদ্ধতি দেখে অফিসার্স ক্লাবের সদস্যরা চমৎকৃত হন এবং নগদের উদ্ভাবনের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

তবে তিন বছর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নগদের উদ্বোধন করার পর থেকেই অফিসার্স ক্লাব ঢাকা’র অনেক সদস্য নগদের আধুনিক সব সেবা গ্রহণ করে আসছিলেন। মেলায় তারা নগদ পেমেন্টের মাধ্যমে কেনাকাটা করেছেন এবং নগদের সেবার প্রতি সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

সরকারি ভাতা, উপবৃত্তিসহ নানান ধরনের অর্থ সহায়তা বিতরণ প্রক্রিয়াকে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে তুলে আনতে নগদ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। সে কারণেও ক্লাবের সদস্যরা নগদ-কে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান।

রোববার মেলার শেষ দিনে অফিসার্স ক্লাব মহিলা কমিটির সভানেত্রী বেগম কামরুন নাহার নগদের সেবায় সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, নগদ সরকারি সেবা হওয়ায় এর প্রতি আমাদের বাড়তি নজর আছে। ক্লাবের সদস্যরাও এটি সাদরে গ্রহণ করেছেন। আমি নিজেও এ কারণে নগদের অ্যাকাউন্ট খুলেছি।

যাদের নিজস্ব দোকান নেই, এমন সব উদ্যোক্তাদের পাশে দাঁড়াতেই অফিসার্স ক্লাব মেলা আয়োজন করে থাকে বলে জানান কমিটির সাধারণ সম্পাদক ড. ফেরদৌসি খান। তিনি বলেন, আমরা খেয়াল করেছি নগদের ডিজিটাল সেবার মাধ্যমে এসব উদ্যোক্তাদের লেনদেন ও কেনাবেচার প্রক্রিয়া সহজ করেছে।দেশে ডিজিটাল পদ্ধতির এই লেনদেন প্রচলনে এই প্রক্রিয়া গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলেও তিনি মনে করেন।

এ সময় নগদের নির্বাহী পরিচালক মো. সাফায়েত আলম বলেন, একেবারে দূরপ্রান্তের মানুষটিকেও ডিজিটাল সেবায় তুলে আনতেই কাজ করছে নগদ। আর এক্ষেত্রে সরকারি কর্মকর্তা এবং অফিসারদের সঠিক দিক নির্দেশনা ও পরামর্শ সরকারি এই সেবাটির প্রসারে গুরুত্বপূর্র্ণ ভূমিকা রাখছে।

অফিসার্স ক্লাবের চেয়ারম্যান ও মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এবং ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব মেজবাহ উদ্দিন এই ঈদ আনন্দ মেলার পৃষ্ঠপোষক। মেলা আয়োজনে বিশেষ সহায়তা দিয়েছে দেশের অন্যতম শীর্ষ মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস নগদ।

মূলত দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করতে প্রতি বছর দুইবার এই মেলার আয়োজন করে অফিসার্স ক্লাব। দেশের ভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা ৩০টি প্রতিষ্ঠান এবারের মেলায় অংশ নেয়। স্টলগুলো মূলত তৈরি পোশাক, শাড়ি, চামড়াজাত পণ্য, গহনা এবং শোপিসসহ আরো নানা ধরনের পণ্যসম্ভার দিয়ে সাজানো ছিল।

নগদের গ্রাহক সংখ্যা এরই মধ্যে ছয় কোটি ছাড়িয়ে গেছে এবং প্রতিদিন গড়ে ৭৫০ কোটি টাকার লেনদেন হচ্ছে।

সিটি ব্যাংক ও ইফাদ গ্রুপের মধ্যে চুক্তি



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সিটি ব্যাংক ও ইফাদ গ্রুপের মধ্যে চুক্তি

সিটি ব্যাংক ও ইফাদ গ্রুপের মধ্যে চুক্তি

  • Font increase
  • Font Decrease

এমপ্লয়ি ব্যাংকিং সুবিধার পরিধি সুবিস্তৃত করতে সম্প্রতি সিটি ব্যাংক ও ইফাদ গ্রুপের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

তেজগাঁওয়ের ইফাদ টাওয়ারে এই চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এই চুক্তির আওতায় ইফাদ গ্রুপের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ সিটিজেম প্রায়োরিটি ব্যাংকিংয়ের সুবিধাগুলোও পাবেন।

সিটি ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ মোহাম্মদ মারুফ ও ইফাদ গ্রুপের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাসকিন আহমেদ নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন।

এ সময় সিটি ব্যাংকের হেড অব রিটেল ব্যাংকিং অরূপ হায়দার, হেড অব কমার্শিয়াল ব্যাংকিং মোহাম্মদ মাহমুদ গণি, হেড অব সিটিজেম ফারিয়া হক, হেড অব এমপ্লয়ি ব্যাংকিং হাসান উদ্দিন আহমেদসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

;

‘নগদ’ ডিস্ট্রিবিউটরদের অর্থ লেনদেনের নিরাপত্তা দেবে সিএমপি



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
‘নগদ’ ডিস্ট্রিবিউটরদের অর্থ লেনদেনের নিরাপত্তা দেবে সিএমপি

‘নগদ’ ডিস্ট্রিবিউটরদের অর্থ লেনদেনের নিরাপত্তা দেবে সিএমপি

  • Font increase
  • Font Decrease

মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেক্টরে গ্রাহকদের আর্থিক নিরাপত্তার বিষয়টিকে প্রাধান্য দিয়ে চট্রগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভা করেছে ‘নগদ’। প্রতিষ্ঠানটির এক্সটার্নাল অ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের উদ্যোগে আয়োজিত এই সভায় আলোচকরা এমএফএস খাতের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন।

সম্প্রতি সিএমপির মাল্টিপারপাস হলে আয়োজিত এই সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্রগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর এবং অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ শামসুল আলম। ‘নগদ’ লিমিটেডের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক নিয়াজ মোর্শেদ এলিট, ‘নগদ’-এর চিফ অব এক্সটার্নাল অ্যাফেয়ার্স লে. কর্নেল মো. কাওসার সওকত আলী (অব.), হেড অব স্টেকহোল্ডার ম্যানেজমেন্ট মো. মাহবুব আলম, চিফ করপোরেট গভারন্যান্স অফিসার এম নুরুল আলম, চিফ পাবলিক অ্যাফেয়ার্স অফিসার মোহাম্মদ সোলায়মান এবং অন্যরা।

অনুষ্ঠানে ‘নগদ’-এর চিফ অব এক্সটার্নাল অ্যাফেয়ার্স লে. কর্নেল মো. কাওসার সওকত আলী (অব.) ধন্যবাদ বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ‘নগদ’-এর হেড অব পাবলিক কমিউনিকেশনস জাহিদুল ইসলাম সজল।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিএমপির পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, আজকের আয়োজনের মাধ্যমে ‘নগদ’ মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস সম্পর্কে আমাদের ধারণাই বদলে দিয়েছে। আমি আশা করছি, খুব শিগগির সিএমপির সকল সদস্য দেশীয় প্রতিষ্ঠান ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট খুলে এর সেবা গ্রহণ করবেন। পাশাপাশি তিনি ‘নগদ’-এর ডিস্ট্রিবিউটরদের অর্থ লেনদেনের নিরাপত্তা দেওয়ার আশ্বাস দেন এবং ভবিষ্যতে সিএমপি ও ‘নগদ’ একসঙ্গে মিলে দেশের সেবায় কাজ করবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।

‘নগদ’-এর নির্বাহী পরিচালক নিয়াজ মোর্শেদ এলিট বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে ‘নগদ’ আর্থিকখাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। এখন উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনেও ‘নগদ’ নেতৃত্ব দেবে।

অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিরা ‘নগদ’-এর প্রযুক্তিগত সক্ষমতার বিষয়ে প্রশংসা করেন। এত কম সময়ে এত বেশি গ্রাহকভিত্তি তৈরি করা এবং কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়া কয়েক সেকেন্ডে অ্যাকাউন্ট খোলার প্রযুক্তি নিয়ে আসার বিষয়গুলোর প্রশংসা করেন অতিথিরা।

সম্প্রতি গ্রাহকদের আর্থিক নিরাপত্তার বিষয় নিয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভা করেছে ‘নগদ’। এ ছাড়া ইতিপূর্বে বাংলাদেশ পুলিশের সার্বিক সহযোগিতায় দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সচেতনতামূলক কর্মশালার আয়োজন করেছে। তারমধ্যে মানি লন্ডারিং, সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ, উদ্যোক্তাদের সচেতনতা বৃদ্ধি, সন্দেহজনক লেনদেনসহ প্রতারণা সংক্রান্ত বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির কাজসমূহ উল্লেখযোগ্য।

এ ছাড়া মতবিনিময় সভা উপলক্ষ্যে নৈশভোজ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি ‘নগদ’-এর পক্ষ থেকে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিদের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। সিএমপিও ‘নগদ’-এর কর্মকর্তাদের বিশেষ উপহার দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে।

;

টেকসই ব্যাংক হিসেবে সনদ লাভ করেছে এসআইবিএল



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
টেকসই ব্যাংক হিসেবে সনদ লাভ করেছে এসআইবিএল

টেকসই ব্যাংক হিসেবে সনদ লাভ করেছে এসআইবিএল

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক আয়োজিত ‘সাসটেইনেবিলিটি রেটিং রিকগনিশন সেরিমনি’ অনুষ্ঠানে টেকসই ব্যাংক হিসেবে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড (এসআইবিএল) সনদ লাভ করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের কাছ থেকে এ সংক্রান্ত সনদ গ্রহণ করেন সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী জাফর আলম।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এ কে এম সাজেদুর রহমান খান ও আবু ফারাহ মো. নাছের, নির্বাহী পরিচালক নুরুন নাহার ও পরিচালক খোন্দকার মোরশেদ মিল্লাত উপস্থিত ছিলেন।

;

সাশ্রয়ী জ্বালানির ব্যবহার বাড়ানোর তাগিদ জ্বালানি উপদেষ্টার



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ জ্বালানির খনিজসম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী

প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ জ্বালানির খনিজসম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী

  • Font increase
  • Font Decrease

বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে জ্বালানির মূল্য ক্রমবর্ধমান হওয়ায় ইউরোপ এখন কয়লা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের দিকে যাচ্ছে। আমাদের কার্বন ইমিশন খুবই কম, আমাদের ফুয়েল মিক্সে সাশ্রয়ী মূল্যের জ্বালানির অংশ বাড়ানো যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ জ্বালানির খনিজসম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী।

রোববার (৩ জুলাই) ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে সমন্বিত জ্বালানি ও বিদ্যুৎ মহাপরিকল্পনার অন্তবর্তী প্রতিবেদনের উপর আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। মহাপরিকল্পনাটি জাইকার কারিগরি সহায়তায় প্রণয়ন করা হচ্ছে।

সাশ্রয়ী জ্বালানি বলতে গ্যাস ও কয়লাকে বিবেচনা করা হয় বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে। আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে কয়লাকে সাশ্রয়ী জ্বালানির উৎস বিবেচনা করা হয়। জ্বালানি উপদেষ্টা তবে কি কয়লার  ব্যবহার বাড়ানোর ইঙ্গিত দিলেন। যা এতোদিন ধরেই অনাদরে পড়ে রয়েছে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আরও বলেন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সরবরাহ চেইন পুনঃপরীক্ষা করা উচিত। কৃষিতে সার ও জ্বালানির ব্যবহারে কৃচ্ছতা,পরিবহন খাতে, শিল্প বা আবাসিকে জ্বালানি তেলের সাশ্রয়ীব্যবহার আমাদের জন্য কল্যাণকর ।

তিনি বলেন, ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র উদ্ভাবনের দিকে মনোনিবেশ করতে হবে। এই উদ্ভাবনই সাফল্যের চাবিকাঠি। আমাদের থ্রী হুইলার এক সময় হয়তো জ্বালানি সংরক্ষণ ও নিরাপত্তার ল্যান্ডমার্ক হিসেবে আবির্ভূত হতে পারে।

টেকসই উন্নয়নকে লক্ষ্য রেখে পূর্বের মহাপরিকল্পনাপর্যালোচনা, ২০৫০ পর্যন্ত জ্বালানি ও বিদ্যুৎ চাহিদা, প্রাথমিক জ্বালানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ, জ্বালানি সংগ্রহ ও ব্যবস্থাপনা, ২০৫০ পর্যন্ত জ্বালানির চাহিদা ও সরবরাহের উপর ভিত্তি করে Nationally Determined Contribution (NDC) হালনাগাদ, সর্বপরি অংশীজনদের সাথে আলোচনা করে সমন্বিত জ্বালানি ও বিদ্যুৎ মহাপরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হবে।। অর্থনীতি জ্বালানি এবং পরিবেশের সঙ্গে নিরাপত্তার বিষয়টি  সংযুক্ত করে সুষম উন্নয়ন করতেই এই মহাপরিকল্পনা। ২০৫০ সালের মধ্যে কার্বন ইমিশন নেট জিরো করার নির্দশনাও এখানে থাকবে।

জ্বালানির চাহিদা নিরুপণে জিডিপি প্রবৃদ্ধি, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, জ্বালানির মূল্য বিশ্লেষণ ও প্রযুক্তির উন্নয়ন নিয়ে পর্যালোচনা করা হয়েছে। প্রযুক্তির উন্নয়নের জন্য ২০৩০ সালের মধ্যে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সহজ্বালানি হিসেবে এমোনিয়া, ২০৩৫ সালের মধ্যে গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সহ জ্বালানি হিসেবে হাইড্রোজেন ব্যবহৃত হবে বা বিকল্প জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মো: মাহবুব হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বিদ্যুৎ সচিব মো: হাবিবুর রহমান, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাকি,

জাইকার বাংলাদেশ অফিসের প্রধান প্রতিনিধি হায়াকায়া ইউহ ও জাইকা ষ্টাডি টীমের প্রধান ইচিরোকুতানি বক্তব্য রাখেন।

;