হজযাত্রীদের জন্য হটলাইনসহ বিশেষ সেবা চালু রেখেছে ‘নগদ ইসলামিক’



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
নগদ

নগদ

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন পবিত্র হজ উপলক্ষে সম্মানিত হজযাত্রীদের জন্য নানা রকম সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করছে ‘নগদ ইসলামিক’। সম্পূর্ণ শরিয়া পর্যবেক্ষক কমিটির তত্ত্বাবধানে পরিচালিত এই প্ল্যাটফর্মে হজ যাত্রীরা পবিত্র হজ সম্পর্কিত সব ধরনের তথ্য বিবরণীসহ যেকোনো ধরনের প্রশ্ন ও হজ সম্পর্কিত সমস্যার সমাধান পাবেন হটলাইন নম্বরে।

একজন হজযাত্রী যেন ইসলামিক বিধিনিষেধ অনুযায়ী সম্পূর্ণ শুদ্ধভাবে হজ পালন করতে পারেন, সেদিক বিবেচনা করে যাবতীয় খুঁটিনাটি তথ্য এবং সুবিধা নিয়ে সাজানো হয়েছে ‘নগদ ইসলামিক’-এর এবারের আয়োজন।

এ উপলক্ষ্যে আশকোনার হজ ক্যাম্পে হজযাত্রীদের জন্য বিশেষ বুথ স্থাপন করেছে ‘নগদ ইসলামিক’। হজ সম্পর্কিত যেকোনো প্রয়োজনে নির্দেশিকায় দেওয়া দুইটি হটলাইন নম্বর, +৮৮০১৭৮৬০৮৩০৭৪ (ইমো) ও +৮৮০১৭৯৩৪০৭০৪৪ (হোয়াটসঅ্যাপ) যোগাযোগ করতে পারবেন। এই হটলাইন নম্বরের মাধ্যমে হজ সম্পর্কিত যেকোনো তথ্য জানার জন্য ‘নগদ ইসলামিক’-এর শরিয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এইচ এম শহীদুল ইসলাম বারাকাতির সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে পারবেন সম্মানিত হাজিরা।

হজযাত্রীদের যাত্রার সময়ে তাৎক্ষণিক শরিয়াহভিত্তিক লেনদেনের সুবিধা ছাড়াও প্রত্যেক হজযাত্রীকে পবিত্র হজ এবং ওমরাহর সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যা, ইহরাম, তাওয়াফ, হজের ফরজ ও ওয়াজিব সংবলিত বিশেষ একটি হ্যান্ডআউট বা নির্দেশিকা প্রদান করা হচ্ছে। নির্দেশিকাটি পড়লে পবিত্র হজ সম্পর্কিত সব ধরনের প্রাথমিক বিষয় সম্পর্তে জানতে পারবেন হজযাত্রীরা। এ ছাড়া হজের সময়ে তীব্র গরমে একটু স্বস্তি দিতে হাজীদের উপহার হিসেবে ‘নগদ ইসলামিক’-এর পক্ষ থেকে থাকছে বিশেষ গ্লিাসারিন।

পাশাপাশি হজ এবং ওমরাহ পালনকারীদের কথা মাথায় রেখে হজ সম্পর্কিত সব ধরনের কনটেন্ট নিয়ে সাজানো হয়েছে ‘নগদ ইসলামিক’ অ্যাপ এবং ওয়েবসাইট। ‘নগদ ইসলামিক’-এর ওয়েবসাইটে থাকছে হজ সম্পর্কিত বিস্তারিত আট পর্বের বিশেষ ভিডিও কনটেন্ট। ১০ মিনিটের প্রতিটি কন্টেন্টে রয়েছে হজ পালনের যাবতীয় সব গাইডলাইন। হজযাত্রীরা নিজেদের সুবিধা অনুযায়ী হজযাত্রার আগে কনটেন্টগুলো দেখে নিলে কোনো ধরনের সমস্যা অথবা দ্বিধায় পড়বেন না। ‘নগদ ইসলামিক’-এর সকল কনটেন্ট ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক অনুমোদিত।

হজযাত্রীদের জন্য বিশেষ এই সেবার বিষয়ে ‘নগদ’-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও শরিয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য রাহেল আহমেদ বলেন, সম্মানিত হজযাত্রীদের জন্য আমরা বিশেষ এই সেবা চালু রেখেছি, কারণ আমরা গত তিন বছর ধরে এ দেশে শরিয়াহভিত্তিক লেনদেন সেবা পরিচালনা করছি।

আমাদের এই উদ্যোগের ফলে সম্মানিত হাজীরা কিছুটা হলেও উপকৃত হবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।

মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ডিজিটাল ইসলামিক আর্থিক সেবার মধ্যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে ‘নগদ ইসলামিক’। গত তিন বছর ধরে দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের আস্থা অর্জন করেছে এই সেবাটি।

   

মাহেন্দ্রক্ষণের অপেক্ষায় রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র



সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রূপপুর (পাবনা) থেকে
রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র

রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র

  • Font increase
  • Font Decrease

 

৫ অক্টোবর সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। যেদিন রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জ্বালানি ইউরেনিয়াম হস্তান্তর করা হবে। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ভার্চুয়ালি যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

এর মধ্যদিয়ে নিউক্লিয়ার ক্লাবের ৩৩তম গর্বিত সদস্য হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। পাবনার রূপপুরে চলছে সাজসাজ রব। ইতোমধ্যেই রূপপুরে পৌঁছে গেছে আংশিক ইউরেনিয়াম রড। প্রথম ইউনিট (১২০০ মেগাওয়াট) চালু করার জন্য ৭৫ টন ইউরেনিয়াম প্রয়োজন হবে। একবার জ্বালানি দেওয়ার পর ১৮ মাস নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে। এরপর এক-তৃতীয়াংশ ইউরেনিয়াম অর্থাৎ ২৫ টন তুলে সেখানে নতুন রড দিতে হবে। এরপর আবার ১৮ মাস চলবে। এভাবে ১৮ মাস পরপর আংশিক জ্বালানি পরিবর্তন করতে হবে।

এক কেজি ইউরেনিয়াম প্রায় ১০০ টন কয়লার সমান তাপ উৎপাদনে সক্ষম। আর একই পরিমাণ তাপ তেলে উৎপাদন করতে হলে ৬০ টন ডিজেল প্রয়োজন হবে। যে কারণে এ সহজে পরিবহনযোগ্য বিবেচনা করা হয়। এই জ্বালানি একবার লোড করে নিরবিচ্ছিন্নভাবে ১৮ মাস বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে। একই পরিমাণ বিদ্যুৎ অন্য জ্বালানিতে পেতে হলে অনবরত সরবরাহ অব্যাহত রাখতে হয়।

গত ২৯ সেপ্টেম্বর কঠোর নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে রূপপুরে নেওয়া হয় বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির জ্বালানি ইউরেনিয়াম রড। এর আগে রাশিয়ার একটি কারখানা থেকে একটি বিশেষ বিমানে করে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পারমাণবিক জ্বালানির এই চালান আনা হয়। রাশিয়ার নভোসিবিরস্ক কেমিক্যাল কনসেনট্রেটস প্ল্যান্টে (এনসিসিপি) এই জ্বালানি উৎপাদিত হয়। রূপপুরের জ্বালানি সরবরাহ এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনার চুক্তিবদ্ধ রয়েছে রোসাটম।

পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্পের বিশাল কর্মযজ্ঞ পদ্মার পশ্চিমতীর ভেড়ামারা থেকেও দৃশ্যমান। আকাশে উঁকি দেওয়া কুলিং টাওয়ারগুলো কয়েক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ঈশ্বরদী ইপিজেড থেকেও স্পষ্ট। প্রত্যেকটি টাওয়ারের উচ্চতা হবে ১৭৫ মিটার। পুরো এলাকাজুড়ে চলছে রাজ্যের ব্যস্ততা, কারো যেনো দম ফেলাবার ফুসরত নেই। রাতদিন বিরামহীনভাবে চলছে ভিশনারি প্রকল্পটির নির্মাণ যজ্ঞ।

রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র বাংলাদেশকে অনন্য উচ্চতায় নিতে সক্ষম হবে বলে মনে করেন অনেকেই। শুধু পরমাণু ক্লাবে প্রবেশ নয়, রূপপুর যেমন কার্বন নিঃসরণ কমানোর লক্ষ্যমাত্রা পুরণে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে। একইসঙ্গে এক ঝটকায় বিদ্যুতের উৎপাদন খরচও কমিয়ে আনবে। বাংলাদেশের এই প্রকল্পে করোনাসহ বৈশ্বিক নানা সংকটে শঙ্কার আভা দেখা গেলেও শেষ পর্যন্ত সব কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হয়েছে। অভিষ্ট লক্ষ্যে এগিয়ে চলছে স্বপ্নের প্রকল্পটি। বাংলাদেশের বেশিরভাগ প্রকল্পে ব্যয় বৃদ্ধির খারাপ নজির থাকলেও মূল প্রকল্পের ব্যয় বৃদ্ধি না করে অনন্য নজির স্থাপন করতে যাচ্ছে পরিবেশবান্ধব বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি।

রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্পের পরিচালক ড. শৌকত আকবর বলেছেন, নিউক্লিয়ার এনার্জি ক্লিন এনার্জি হিসেবে প্রমাণিত টেনকোলজি। আমরা যে অঞ্চলে বাস করি অনেক আগেই একে ক্লিন এনার্জি হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। স্থায়ীত্বশীল উন্নয়নের জন্য নিউক্লিয়ার এনার্জিকে বিবেচনা করা হচ্ছে। সারাবিশ্বে যে কার্বন নিঃসরণ হয় তার এনার্জি খাত থেকেই দুই-তৃতীয়াংশ।

বাংলাদেশের জিরো কার্বন নীতি বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ২০২১ সালে কার্বন নিঃসরণ হয়েছে ১০৬-১১০ মিলিয়ন টন। আমাদের একটি টার্গেট রয়েছে জিরোর দিকে যাবো। ২০৩০ সালের মধ্যে ২৬ মিলিয়ন টনের মতো কমিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। কয়লা দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন না করে রূপপুরে ২৪’শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করলে বছরে ২০ মিলিয়ন টনকার্বন নিঃসরণ কমে আসবে। অর্থাৎ ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ কার্বন নিঃসরন কমে আসবে শুধু রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মাধ্যমে। আরও দুইটি পরমাণু বিদ্যুৎ করার কথা, যদি করা যায়, তাহলে সরকার শর্তহীন ভাবেই কার্বন ইমিশন নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হবে।

বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির নিরাপত্তা প্রসঙ্গে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান বলেছেন, ফুকুশিমার পর কোরক্যাচার টেকনোলজি যুক্ত করা হয়। এটি না করলে অনেক খরচ কম হতো, কোরক্যাচার বসিয়েছি শুধু জনগণের নিরাপত্তার কথা ভেবে। নিরাপত্তার প্রশ্নে কোন ছাড় দেওয়া হয়নি। জনগণের উদ্বিগ্ন হওয়ার কোন কারণ নেই। তিনটি প্রথম শ্রেণি না থাকলে এখানে কোন প্রকৌশলী নিয়োগ করা হয়নি। আমাদের ছেলেগুলো শূন্য থেকে দেখছে, দক্ষ হয়ে উঠছে। আমার একটি ভয় হচ্ছে তেলে ভাসমান মধ্যপ্রাচ্যে যখন পরমাণু বিদ্যুতে ঝুঁকে যাচ্ছে। আমরা ছেলেদের ধরে রাখতে পারি কিনা! বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে আমাদের শ্রমিকদের মর্যাদা বাড়িয়ে দেবে।

১ লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকারও বেশি খরচের এই প্রকল্পে নব্বই ভাগ টাকা ঋণ দিয়েছে রাশিয়া। একই সঙ্গে আন্তঃরাষ্ট্রীয় কয়েকটি চুক্তির মাধ্যমে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি নির্মাণ করছে রূশ ঠিকাদার এটমস্ট্রয় এক্সপোর্ট। পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০২৩ এ প্রথম ইউনিট থেকে ১২০০ মেগাওয়াট এবং একই পরিমাণ বিদ্যুৎ দ্বিতীয় ইউনিট থেকে ২০২৪ সালে উৎপাদন হওয়ার কথা। তবে রাশিয়ার উপর পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞার কারণে জার্মান প্রতিষ্ঠান সিমেন্স কাজকে জটিল করে তুলেছে। সিমেন্স ২৩৩/৪০০ কেভি জিআইএস সাবস্টেশন সরবরাহ করার কথা ছিল। তারা সাব স্টেশন সরবরাহ করতে অস্বীকৃতি জানালে নতুন ঠিকাদার নিযুক্ত করা হয়েছে চীনা কোম্পানিকে। তারা ২০২৩ সালের নভেম্বরে সরবরাহ করবে। অন্যদিকে সঞ্চালন লাইন নির্মাণ প্রতিষ্ঠান পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করতে পারছেন না। যে কারণে ১ বছরের মতো পিছিয়ে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রথম ইউনিট ২০২৪ সালের ডিসেম্বরে, দ্বিতীয় ইউনিট ২০২৫ সালে উৎপাদনে আসতে পারে।

বর্তমানে পৃথিবীর ৩০টি দেশে ৪৪৯টি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র রয়েছে। সেগুলো থেকে উৎপন্ন বিদ্যুতের পরিমাণ মোট উৎপন্ন বিদ্যুতের প্রায় ১২ শতাংশ। ১৪টি দেশে আরও ৬৫টি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণাধীন রয়েছে। ২০২৫ সাল নাগাদ ২৭টি দেশে ১৭৩টি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের প্রক্রিয়া চলছে।

;

হাই-টেক ক্যাটাগরিতে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার’ পেল ওয়ালটন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
স্বর্ণখচিত ক্রেস্ট গ্রহণ করছেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ পিএলসি’র ভাইস-চেয়ারম্যান এস এম শামসুল আলম।

স্বর্ণখচিত ক্রেস্ট গ্রহণ করছেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ পিএলসি’র ভাইস-চেয়ারম্যান এস এম শামসুল আলম।

  • Font increase
  • Font Decrease

হাই-টেক শিল্প ক্যাটাগরিতে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার ২০২২’ এর প্রথম পুরস্কার পেল দেশের গ্লোবাল ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন। বার্ষিক টার্ণওভার, আমদানি বিকল্প পণ্য উৎপাদন, স্থানীয় কাঁচামাল ব্যবহার, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, সামাজিক দায়িত্ব পালন, নিষ্কন্টক ভূমি ও ভূমির পরিকল্পিত এবং দক্ষ ব্যবহার, পরিবেশ সংরক্ষণ প্রভৃতি ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ওয়ালটনকে এই পুরস্কার প্রদান করে শিল্প মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার (৩ অক্টোবর, ২০২৩) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়নে শিল্প মন্ত্রণালয় কর্তৃক আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ৬টি ক্যাটাগরিতে ওয়ালটনসহ মোট ১২টি প্রতিষ্ঠানকে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার ২০২২’ প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিনের কাছ থেকে হাই-টেক ক্যাটাগরিতে প্রথম পুরস্কার স্বর্ণখচিত ক্রেস্ট ও সম্মাননাপত্র গ্রহণ করেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ পিএলসি’র ভাইস-চেয়ারম্যান এস এম শামসুল আলম।
এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক, শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এবং এফবিসিসিআই সভাপতি মো.মাহবুবুল আলম।
শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানা।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে এবং শিল্পখাতে উদ্যোক্তাদের অবদানের স্বীকৃতি, প্রণোদনা তৈরি ও সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে দ্বিতীয়বারের মত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এই পুরস্কার প্রদানের অন্যতম লক্ষ্য হলো বঙ্গবন্ধুর শিল্প পরিকল্পনার মাধ্যমে দেশে শিল্পায়নের যে সূচনা হয়েছিল সে অবদানকে স্মরণীয় করা এবং বাংলাদেশের শিল্পায়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি প্রদানের মাধ্যমে শিল্পায়নের ক্রমবিকাশকে টেকসই করা। পাশাপাশি বেসরকারি খাতে পরিবেশবান্ধব শিল্প স্থাপন, কর্মসংস্থান তৈরি এবং বিনিয়োগ উৎসাহিত করা। এছাড়া পণ্য বহুমুখীকরণ, আমদানি বিকল্প পণ্য উৎপাদন ও সৃজনশীলতাকে উৎসাহিতকরণের মাধ্যমে দেশীয় ও বৈশ্বিক পর্যায়ে মানসম্মত পণ্য উৎপাদন করা।

অনুষ্ঠানে শিল্পোদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে বক্তব্য প্রদানকালে ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক এস এম মাহবুবুল আলম বলেন, বঙ্গবন্ধুর নামে আজকে আমরা পুরস্কার পাচ্ছি। এজন্য সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে আমাদের শিল্পোদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন হয়তো স্বপ্নই থেকে যেতো। শিল্পখাতে সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার প্রদান একটি মহতী উদ্যোগ।

আমাদের প্রত্যাশা, শিল্পখাতকে রাষ্ট্রকর্তৃক পুরস্কৃতকরণের এই ধারা অব্যাহত থাকবে। এতে শিল্পোদ্যোক্তারা অনুপ্রাণিত হবেন। তাদের মধ্যে সৃজনশীলতার উন্নয়ন ঘটবে। প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহারে সবাই সচেষ্ট হবেন। এর মাধ্যমে দেশ ও জাতি উপকৃত হবে।

তিনি আরো বলেন, হাই-টেক ক্যাটাগরিতে ওয়ালটনকে প্রথম পুরস্কার প্রদান করায় ওয়ালটন পরিবার অত্যন্ত আনন্দিত ও গর্বিত। এই মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কারের জন্য শিল্প মন্ত্রণালয় এবং সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে নিজেদের স্বনির্ভরতা ও দেশকে স্বনির্ভর করতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে ওয়ালটন। এরই ধারাবাহিকতায় দেশের চাহিদা মিটিয়ে আজ ৪০টিরও বেশি দেশে রপ্তানি হচ্ছে ওয়ালটন পণ্য। যে পণ্য একসময় দেশে আমদানি হতো আমরা তা এখন রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছি। নিঃসন্দেহে এটা জাতি হিসেবে গর্বের বিষয়। এতে দেশ ও মানুষের সম্মান সমুন্নত হচ্ছে। এসবই সম্ভব হচ্ছে বর্তমান সরকারের শিল্পবান্ধব নীতির কারণে। এই নীতি সহায়তার ধারা অব্যাহত থাকবে এবং প্রসারিত হবে বলে আমরা দৃঢ়ভাবে আশাবাদী।

শিল্প মন্ত্রণালয় নির্বাচিত ১২টি শিল্প প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে ৩টি, মাঝারি শিল্প ক্যাটাগরিতে ২টি, ক্ষুদ্র শিল্প ক্যাটাগরিতে ৩টি, মাইক্রো শিল্প ক্যাটাগরিতে ১টি, কুটির শিল্প ক্যাটাগরিতে ১টি এবং হাই-টেক শিল্প ক্যাটাগরিতে ২টি।

১ম পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেককে ৩ লাখ টাকা ও ২৫ গ্রাম স্বর্ণখচিত ক্রেস্ট, ২য় পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেককে ২ লাখ টাকা ও ২০ গ্রাম স্বর্ণখচিত ক্রেস্ট এবং ৩য় পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা ও ১৫ গ্রাম স্বর্ণখচিত ক্রেস্টসহ সকলকে সম্মাননাপত্র প্রদান করা হয়।

 

;

বি পি আর এ’র উদ্যোগে ‘ডিজিটাল পিআর’ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

৪র্থ শিল্পবিপ্লবের যুগে বাংলাদেশের জনসংযোগ কর্মকর্তাদের যেসব পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিৎ সে বিষয়ে “পিআর ইন ডিজিটাল এরা: হাউ পিআর প্রোফেশনালস ক্যান ট্রান্সফর্ম” শীর্ষক একটি কর্মশালার আয়োজন করে বাংলাদেশ জনসংযোগ সমিতি ও ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব)।

ইউল্যাব’র ধানমন্ডি ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের ৮০ জন জনসংযোগ পেশাজীবি উপস্থিত ছিলেন।

প্রশিক্ষণ কর্মশালায় কি-নোট স্পীকার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বনন্দিত জনসংযোগ ব্যক্তিত্ব এবং গ্লোবাল অ্যালায়েন্স-এর প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী জাস্টিন গ্রীন।

এসময় তিনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনসংযোগ খাতের বর্তমান পরিস্থিতি, গুরুত্ব ও ভবিষ্যৎ নিয়ে পরিসংখ্যান তুলে ধরেন। পাশাপাশি জনসংযোগ খাতে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের গুরুত্ব নিয়ে তিনি বলেন, আগামীতে জনসংযোগের ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করবে ডিজিটাল পিআর। উদ্ভাবনী প্রযুক্তির কারণে এখন মুহূর্তের মধ্যেই একটি তথ্য সবার কাছে পৌঁছে যাচ্ছে। এর ফলে তথ্য পাওয়া যেমন সহজ হচ্ছে তেমনি তথ্যের সত্যতা ও নিরাপত্তা নিয়ন্ত্রণ করা চ্যালেঞ্জিং হয়ে যাচ্ছে। জনসংযোগ কর্মীদের এবিষয় নিয়ে আরও সচেতন হতে হবে।

আরও বক্তব্য রাখেন ইউল্যাব’র প্রো-ভিসি অধ্যাপক জুড ইউলিয়াম হেনিলো, বাংলাদেশ জনসংযোগ সমিতির সভাপতি বজলুল হক রানা ও মহাসচিব মনিরুজ্জামান টিপু। প্রশ্নোত্তর পর্বের মাধ্যমে কর্মশালাটি শেষ হয়। নিজের অভিজ্ঞতার ঝুলি থেকে কিছু উদাহরণ দিয়ে উপস্থিত জনসংযোগ কর্মকর্তাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন জাস্টিন গ্রীন।

;

আরও ৪ জেলায় সম্প্রসারিত বিকাশ-বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বই পড়া কর্মসূচি



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আরও ৪ জেলায় সম্প্রসারিত বিকাশ-বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বই পড়া কর্মসূচি

আরও ৪ জেলায় সম্প্রসারিত বিকাশ-বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বই পড়া কর্মসূচি

  • Font increase
  • Font Decrease

বিকাশের সহযোগিতায় এবার বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বইপড়া কর্মসূচির সম্প্রসারণ করা হয়েছে চট্টগ্রাম, চুয়াডাঙ্গা, নড়াইল ও দিনাজপুর জেলার ১৪টি স্কুলে।

শিক্ষার্থী ও স্কুল কর্তৃপক্ষের হাতে বই তুলে দিয়ে এবছর ৩৩,৬০০ বই বিতরণের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত এই কর্মসূচির আওতায় প্রায় ৪ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তিন লাখ বই বিতরণ করেছে বিকাশ, যার মাধ্যমে অন্তত ৩০ লাখ পাঠক উপকৃত হয়েছেন।

চট্টগ্রামের ৫টি এবং চুয়াডাঙ্গা, নড়াইল ও দিনাজপুরের ৩টি করে বিদ্যালয়ে এবার বই পড়া কর্মসূচি সম্প্রসারিত হলো। এই জেলাগুলোতে পৃথক চারটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শিক্ষার্থী এবং স্কুল কর্তৃপক্ষের হাতে বই তুলে দেন আমন্ত্রিত অতিথিরা। চট্টগ্রামের অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফকরুজ্জামান, চুয়াডাঙ্গাতে জেলা প্রশাসক ড. কিসিঞ্জার চাকমা, নড়াইলে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শাশ্বতী শীল এবং দিনাজপুর চিরিরবন্দরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ কে এম শরীফুল হক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ডা. আবদুন নূর তুষার ও বিকাশের চিফ এক্সটারনাল অ্যান্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার মেজর জেনারেল শেখ মো. মনিরুল ইসলাম (অব.) ইভিপি এবং রেগুলেটরি অ্যান্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স ডিপার্টমেন্টের প্রধান হুমায়ুন কবির। অনুষ্ঠানগুলোতে সভাপতিত্ব করেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের পরিচালক জনাব শামীম আল মামুন।

শিক্ষার্থীদের পাঠ্য-পুস্তকের বাইরেও বই পড়ার অভ্যাস তৈরির মাধ্যমে পরিপূর্ণ ও আলোকিত মানুষ গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র দেশজুড়ে বইপড়া কর্মসূচি পরিচালনা করে আসছে। এই উদ্দেশ্যকে আরও প্রসারিত ও কার্যকরী করতে গত নয় বছর ধরে এই কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত রয়েছে বিকাশ।

;