বিটিআরআইয়ে ‘টি টেস্টিং’ অনুষ্ঠিত



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
বিটিআরআইয়ে ‘টি টেস্টিং’

বিটিআরআইয়ে ‘টি টেস্টিং’

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ চা গবেষণা ইন্সটিটিউট (বিটিআরআই) টি টেস্টিং রুমে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয় ‘Open Day Tea Tasting Session-2022’ শীর্ষক অনুষ্ঠানটি।

গত শনিবার (৩০ জুলাই) বিটিআরআই উক্ত অধিবেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চা বোর্ড (বিটিবি) এর চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. আশরাফুল ইসলাম।

অধিবেশনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিটিআরআই'র পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ড. মো. ইসমাইল হোসেন, প্রকল্প উন্নয়ন ইউনিটের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ড. একেএম রফিকুল হক, বাংলাদেশীয় চা সংসদ (বিটিএ) এর সিলেট ব্রাঞ্চ চেয়ারম্যান জিএম শিবলি।

এছাড়াও ভ্যালি চেয়ারম্যানবৃন্দ, সিনিয়র প্লান্টার্স, বাগানসমূহের ব্যবস্থাপক, সহকারী ব্যবস্থাপকসহ বিটিআরআই'র সকল চা বিজ্ঞানী এবং পিডিইউ'র কর্মকর্তাবৃন্দ।

অনুষ্ঠানটির উদ্ভোদনকালীন বক্তব্যে বাংলাদেশ চা বোর্ডের চেয়ারম্যান সকল বাগানকে উন্নত মানের চা তৈরির আহ্বান করেন। তিনি বিশ্বাস করেন, উন্নত চা তৈরি এবং চা কে পুনরায় রফতানিমুখী করার মাধ্যমে চা শিল্পের ব্যাপক উন্নয়ন সাধন সম্ভব।

অনুষ্ঠানের টি টেস্টিং সেশন পরিচালনা করেন বিটিআরআই'র পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ড. মো. ইসমাইল হোসেন, প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. আব্দুল আজিজ এবং বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. রিয়াদ আরেফিন।

উক্ত অধিবেশনে বিভিন্ন ভ্যালির ৭৪টি চা বাগান অংশগ্রহণ করে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছরে অধিকাংশ বাগানের চা ছিল অত্যন্ত সন্তোষজনক এবং উন্নতমানের।

জাতির জনকের প্রতি ইউনিয়ন ব্যাংকের শ্রদ্ধা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
জাতির জনকের প্রতি ইউনিয়ন ব্যাংকের শ্রদ্ধা

জাতির জনকের প্রতি ইউনিয়ন ব্যাংকের শ্রদ্ধা

  • Font increase
  • Font Decrease

১৫ আগস্ট স্বাধীনতার মহান স্থপতিজাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২২ উপলক্ষে ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেড এরপ্রধান কার্যালয়, ৭২, বাহেলা টাওয়ার, গুলশান-১, ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ব্যাংকেরব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইওএ. বি. এম. মোকাম্মেল হক চৌধুরী।

এ উপলক্ষে বিভিন্ন এতিমখানা ও মাদ্রাসায় খাদ্য বিতরণ এবং বিভিন্ন স্থানে বৃক্ষ রোপণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ হাবিবুর রহমান এবংউপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ নজরুল ইসলামসহ প্রধান কার্যালয়ের বিভাগীয় প্রধানগণ ও নির্বাহীবৃন্দ। এ উপলক্ষে এক দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

;

চা-শ্রমিকদের গ্রহণযোগ্য যৌক্তিক মজুরি নির্ধারণের আহ্বান টিআইবির



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
চা-শ্রমিকদের গ্রহণযোগ্য যৌক্তিক মজুরি নির্ধারণের আহ্বান টিআইবির

চা-শ্রমিকদের গ্রহণযোগ্য যৌক্তিক মজুরি নির্ধারণের আহ্বান টিআইবির

  • Font increase
  • Font Decrease

চা-শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে চলমান শান্তিপূর্ণ ও আইনসম্মত আন্দোলন ঠেকাতে হুমকির বদলে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে যৌক্তিক মজুরি নির্ধারণের আহবান জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

সামান্য কিছু সুযোগ-সুবিধাসহ দৈনিক মাত্র ১২০ টাকা মজুরিতে আট ঘণ্টা, কখনো-বা আরো বেশি সময় ধরে কাজের বিপরীতে এই সামান্য পারিশ্রমিক বৈষম্যমূলক ও সংবিধান পরিপন্থি। চলমান সমস্যার সমাধানে বাগান মালিকদের ঔপনিবেশিক মানসিকতা পরিহার করতে হবে ও সরকারকে চা-শ্রমিকদের দেশের নাগরিক হিসেবে গণ্য করে, ন্যায্য ও মানবিক উদ্যোগ নিতে হবে। একইসাথে, চা বাগান শ্রমিকদের ক্ষেত্রে শ্রম আইনের কার্যকর বাস্তবায়নের পাশাপাশি দেশের অন্যান্য সম-পর্যায়ের খাতের সর্বনিম্ন মজুরি বিবেচনায় নিয়ে জীবন ধারণের উপযুক্ত ও চা-শ্রমিকদের নিকট গ্রহণযোগ্য যৌক্তিক পারিশ্রমিক নির্ধারণে বাগান মালিক, চা সংসদ ও সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানাচ্ছে টিআইবি।

প্রতি দুই বছর পরপর চা-শ্রমিক ও বাগান কর্তৃপক্ষের মধ্যে মজুরি সংক্রান্ত চুক্তি নবায়নের রীতি রয়েছে, যদিও অধিকাংশ ক্ষেত্রে মজুরি নির্ধারণে বাস্তবে একতরফাভাবে বাগান কর্তৃপক্ষই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে, তথাপি গত ১৯ মাস ধরে চা-শ্রমিকরা মজুরি চুক্তির বাইরে রয়েছে। দ্রব্যমূল্যের চরম ঊর্ধ্বগতির এই সময় চলমান আন্দোলনের প্রেক্ষিতে মাত্র ১৪ টাকা মজুরি বৃদ্ধির প্রস্তাব চা-শ্রমিকদের ন্যায্য দাবির প্রতি অবজ্ঞা ও নিছক উপহাসমূলক অধিকার লঙ্ঘন ছাড়া আর কিছু নয় বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জমান।

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে তিনি বলছেন, ‘সম্পূর্ণ বস্তুনিষ্ঠ গবেষণাভিত্তিক বিশ্লেষণ অনুযায়ী চা-শ্রমিকদের প্রাপ্ত আবাসনসহ সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা বিবেচনায় নিয়েও একথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে, দেশের অন্য যে-কোনো খাতের তুলনায় চা শ্রমিকদের মজুরি সর্বনিম্ন ও বৈষম্যমূলক। অথচ সার্বিক বিবেচনায় এ খাতটি অর্থনৈতিকভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া, এখন পর্যন্ত কোনো পরিসংখ্যান বা তথ্য-উপাত্ত দিয়েও কেউ বলতে পারেননি যে, চা-বাগানের মালিক পক্ষ আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত বা এমন কোনো অবস্থায় আছেন যে, যাদের অবদানের ওপর নির্ভর করে চা-শিল্প বিকাশমান, সেই শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি প্রদানে তারা অক্ষম। বরং এটি একটি লাভজনক বাণিজ্যিক খাত। অন্যদিকে চা-শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরিসহ অন্যান্য মৌলিক অধিকার ও সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার দায়িত্ব শুধু মালিকপক্ষের মর্জির ওপর ছেড়ে দেয়া ঠিক নয়। চা-শ্রমিকদের দেশের নাগরিক হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে তাদের প্রাপ্য অধিকার নিশ্চিতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সমূহকে যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে চলমান আইনসম্মত আন্দোলনের যৌক্তিকতা অনুধাবনের পাশাপাশি সমতাভিত্তিক আলোচনার মাধ্যমে চা-শ্রমিকদের নিকট গ্রহণযোগ্য যৌক্তিক মজুরি নির্ধারণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।’

গত বেশ কিছুদিন ধরে শ্রমিকরা নির্দিষ্ট সময় শান্তিপূর্ণ কর্মবিরতি পালনের মাধ্যমে বাগান কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা সত্তে¡ও শ্রম বিভাগের মহাপরিচালক সম্প্রতি একটি চিঠির মাধ্যমে চলমান আন্দোলনকে “শ্রম আইনের পরিপন্থি” বলে হুঁশিয়ার করেছেন। যা মূলত চা-শিল্প মালিকদের ঔপনিবেশিক মানসিকতার প্রতি একাত্মতার বহিঃপ্রকাশ ছাড়া আর কিছু নয়, বলে মন্তব্য করেন ড. জামান। তিনি বলেন, ‘দেশের “ন্যূনতম মজুরি বোর্ড” অন্যান্য খাতের ন্যূনতম মজুরি যেখানে কয়েক গুণ বেশি নির্ধারণ করেছে, সেখানে কোন অদৃশ্য শক্তির প্রভাবে শ্রম মন্ত্রণালয়ের “গাইড লাইন” উপেক্ষা করে বারবার চা-বাগান মালিক পক্ষের নির্ধারণ করা ন্যূনতম মজুরির হার বহাল রেখে শ্রম মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করছে, তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।”

টিআইবি ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে “চা বাগানের কর্মপরিবেশ ও শ্রমিকদের অধিকার : সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়” শিরোনামে একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করে। যেখানে চা-শ্রমিকদের জীবন-মানের কাক্সিক্ষত উন্নয়নে ন্যায্য ও অন্যখাতের সাথে সমতাভিত্তিক ন্যূনতম মজুরি নির্ধাারণসহ বেশ কিছু সুপারিশ সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট তুলে ধরে। যেমন- শ্রমিকদের সঙ্গে মানবিক আচরণ করা; বাগানগুলোতে শ্রমিকদের সুযোগ-সুবিধা ও কাজের পরিবেশ নিশ্চিতকরণে “কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের” পক্ষ থেকে কার্যকর পরিদর্শন বাড়ানো; সমঝোতা চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার এক মাস আগে, শ্রমিক ও বাগান কর্তৃপক্ষের আলোচনা শেষ করতে হবে এবং চুক্তি নবায়ন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে, যাতে মেয়াদ শেষ হওয়ার সাথে সাথে তা কার্যকর করা যায়। সংস্থাটি মনে করছে, চলমান আন্দোলনের মানবিক সমাধানে উল্লিখিত সুপারিশসহ টিআইবি কর্তৃক পরিচালিত গবেষণা প্রতিবেদনটি এখনও সমানভাবে প্রাসঙ্গিক ও বাস্তবমুখি।

;

গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংক ও চট্টগ্রাম ওয়াসার চুক্তি স্বাক্ষর



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংক ও চট্টগ্রাম ওয়াসার চুক্তি স্বাক্ষর

গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংক ও চট্টগ্রাম ওয়াসার চুক্তি স্বাক্ষর

  • Font increase
  • Font Decrease

গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংক ১৬ আগস্ট চট্টগ্রাম ওয়াসার সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে। চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল্লাহ-এর উপস্থিতিতে গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী মশিউর রহমান জেহাদ এবং চট্টগ্রাম ওয়াসার উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (অর্থ) মোঃ ছামছুল আলম নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

এ সময় চট্টগ্রাম ওয়াসার উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (প্রশাসন) বেগম তাহেরা ফেরদৌস, গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংকের হেড অব মার্কেটিং ইমতিয়াজ আহমেদ সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম অ লের জোনাল হেড ও আগ্রাবাদ শাখা ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন, জুবলী রোড শাখার ব্যবস্থাপক সৈয়দ আসাদ মাহমুদ এবং উভয় প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এই চুক্তির আওতায় চট্টগ্রাম ওয়াসার গ্রাহকগণ গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংকের সকল শাখা/উপশাখায় চট্টগ্রাম ওয়াসার পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন বিলসহ অন্যান্য বিল জমা দিতে পারবেন।

;

ইসলামী ব্যাংকের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ইসলামী ব্যাংকের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা

ইসলামী ব্যাংকের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

ব্যাংকের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. নাজমুল হাসান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন। ব্যাংকের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ও সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ব্যাংকের এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মো. সেলিম উদ্দিন, অডিট কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোলায়মান ও রিস্ক ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) ইঞ্জিনিয়ার আবদুল মতিন।

বক্তব্য দেন ডাইরেক্টর মো. জয়নাল আবেদীন ও প্রফেসর ড. কাজী শহীদুল আলম। দোয়া ও মুনাজাত পরিচালনা করেন ব্যাংকের শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন তালুকদার। ব্যাংকের ডাইরেক্টর প্রফেসর ড. মো. সিরাজুল করিম, প্রফেসর মো. কামাল উদ্দিন, সৈয়দ আবু আসাদ, মো. কামরুল হাসান, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ সালেহ জহুর, প্রফেসর ড. মো. ফসিউল আলম, খুরশীদ উল আলম এবং মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন এতে অংশগ্রহণ করেন।

আরও বক্তব্য দেন ব্যাংকের অ্যাডিশনাল ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মুহাম্মদ কায়সার আলী, মো. ওমর ফারুক খান ও জে. কিউ. এম. হাবিবুল্লাহ। ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন নির্বাহী, জোনপ্রধান ও শাখাসমূহের ব্যবস্থাপকসহ কর্মকর্তাবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ১৪ আগস্ট দেশব্যাপী ব্যাংকের ১৬টি জোন ও ৩৮৪টি শাখার উদ্যোগে পৃথক পৃথক আলোচনা ও দোয়ার আয়োজন করা হয়।

;