চার সূচকে উন্নতি, অর্থনীতিতে সুবাতাস বইছে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের অর্থনীতিতে যে কালো মেঘ তৈরি হয়েছিল তা কাটতে শুরু করেছে বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা। তারা বলছেন, আগে থেকে সরকার বিলাসী পণ্য আমদানিতে লাগাম টানায় এর সুফল পেতে শুরু করেছে। অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে আমদানি কমেছে, নেতিবাচক ধারায় থাকা রেমিটেন্স প্রবৃদ্ধির মুখ দেখেছে, মূল্যস্ফীতিও কিছুটা কমেছে আর আগের মতই ইতিবাচক ধারা বজায় রেখেছে রফতানি আয়। অর্থনীতির এই চার সূচকে উন্নতিতে আশার আলো দেখছেন তারা।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, জুলাই মাসে সাধারণ মূল্যস্ফীতি কমেছে। জুনে ছিল ৭ দশমিক ৫৬ শতাংশ । জুলাইয়ে এটা কমে দাঁড়িয়ে ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ। খাদ্য মূল্যস্ফীতি জুনে ছিল ৮ দশমিক ৩৭ শতাংশ, জুলাইয়ে তা কমে ৮ দশমিক ১৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। খাদ্য বর্হিভূত মূল্যস্ফীতি জুলাইয়ে ৬ দশমিক ৩৯ শতাংশ।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, অর্থনীতির চার সূচকে উন্নতি ইতিবাচক। তবে এই ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। কারণ এক মাসের উন্নতিতে বলা যাবে না যে অর্থনীতির গতিধারা ঘুরে গেছে।

এজন্য সরকার আমদানি ও রফতানি তদারকির যে কার্যক্রম পরিচালনা করছে তা অব্যাহত রাখার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। একই সঙ্গে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বিশ্ববাজারে কমে আসা পণ্যের দামের প্রভাব যাতে দ্রুত দেশের বাজারে দেখা যায়- সেদিকে নজর দেওয়ার পরামর্শ দেন অর্থনীতিবিদ সেলিম রায়হান।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, চাল ও তেলের দাম কমায় খাদ্য মূল্যস্ফীতি কিছুটা কমেছে। তবে, নিম্ন আয়ের মানুষের বেশি ব্যবহৃত নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য নিয়ে আলাদা হিসাব করার পরিকল্পনা আছে বলেও জানান তিনি। তবে পল্লী অঞ্চলের তুলনায় শহরগুলোতে খাবারের দাম বেশি কমেছে। নগরে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ২৭ পয়েন্ট কমে ৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ হয়েছে।

করোনা মহামারি পরবর্তী বিশ্বজুড়েই অর্থনৈতিক কার্যক্রম ঘুরে দাঁড়াতে থাকে; আন্তর্জাতিক বাণিজ্যও গতিশীল হতে থাকে। ঠিক সেই সময়ে গত ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে তৈরি হওয়া বৈশ্বিক সংকটে বাংলাদেশও নানামুখী চাপে পড়ে।

আমদানি ব্যয় ও পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় বৈদেশিক মুদ্রার ওপর বিশেষ করে ডলারের উপর চাপ তৈরি হয়। মূল্যস্ফীতির পারদ বেড়ে ৯ বছরের সর্বোচ্চে পৌঁছায়। হঠাৎ করে কমে আসে রেমিটেন্স। তবে গত অর্থবছরজুড়ে স্বস্তি দিয়েছে রফতানি আয়।

এদিকে ঋণ চেয়ে বাংলাদেশ সরকারের পাঠানো প্রস্তাবে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। আইএমএফকে বাংলাদেশ চিঠি দেওয়ার এক সপ্তাহের মাথায় মঙ্গলবার (০২ আগস্ট) সংস্থাটির ‘রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেনেবল ট্রাস্ট (আরএসটি)’ এই সম্মতির কথা জানায়।

এক বিবৃতিতে সংস্থাটি জানায়, চলমান করোনা মহামারির মধ্যে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের জেরে বিশ্ব অর্থনীতিতে যে অস্থিরতা তৈরি হয়েছে, তা সামাল দিতে এরই মধ্যে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ। সরকার ইতিমধ্যে মুদ্রাপ্রবাহ নিয়ন্ত্রণের পদক্ষেপ নিয়েছে, মুদ্রা বিনিময় হার শিথিল করেছে, কম জরুরি পণ্য এবং জ্বালানি আমদানিতে সাময়িক কড়াকড়ি আরোপ করেছে। বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। পাশাপাশি কম জরুরি প্রকল্পে বরাদ্দ স্থগিত করে বেশি জরুরি খাতে ব্যবহারের নির্দেশনা জারি হয়েছে। তারপরও আরও অনেক দেশের মতো বাংলাদেশও সাম্প্রতিক বৈশ্বিক সংকটের কারণে বিভিন্ন অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছে।

আইএমএফ বলছে, বর্তমানে যে সংকট চলছে তা সাময়িকভাবে মোকাবিলা করতে পারলেও বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের মতো দীর্ঘমেয়াদি সমস্যাগুলো সঠিকভাবে সামাল দেওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছে, যেসব সমস্যা দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি তৈরি করতে পারে।’ বিবৃতিতে বলা হয়, এ ধরনের ক্ষেত্রে অর্থায়নে সহযোগিতা দিতেই তারা রেসিলিয়ান্স অ্যান্ড সাসটেইনেবলিটি ফান্ড গঠন করেছে এবং বাংলাদেশও এই তহবিল থেকে অর্থ পেতে পারে।

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সময় চাইলেন বাণিজ্য মন্ত্রী



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সময় চাইলেন বাণিজ্য মন্ত্রী

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সময় চাইলেন বাণিজ্য মন্ত্রী

  • Font increase
  • Font Decrease

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির সুযোগ নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। ফলে দ্রব্যমূল্য বেড়েছে যা রাতারাতি কমানো সম্ভব নয়, আমাদের একটু সময় দেন।

বুধবার (১৭ আগস্ট) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মলনে এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ট্রেডিং করপোরেশন ( টিসিবি) কর্তৃক এককোটি পরিবারের মধ্যে ভর্তুকিমূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম চলমান থাকবে।

মন্ত্রী বলেন, শুধুমাত্র ঢাকায় সাড়ে চার লাখ ফ্যামিলি কার্ড বিতরণ বাকি রয়েছে। বাকি কার্ড বিতরণ করা হয়েছে।

টিআইবির প্রতিবেদন সম্পর্কে তিনি বলেন, টিআইবি যে প্রতিবেদন করেছে তারা তাদের মতো করেছে। কিন্তু তারা প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরেনি।

কার্ড প্রস্তুত প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কনোনা কালে ৩৮ লাখ ৫০ হাজার পরিবারকে নগদ সহায়তা দেয়া হয়েছিল। তাদের মধ্যে কাজ বা চাকরি হারানো প্রায় ৮ লাখ ৫০ হাজার জন কাজে ফিরে এসেছে এদের বাদ দেয়া হয়েছে। এছাড়াও সারা দেশের ৭০ লাখ মানুষকে ফ্যামিলি কার্ড দেয়া হয়েছে।

টিপু মুনশি বলেন, ভোজ্য তেল ও চিনির দাম বাড়ানোর প্রস্তাব আমাদের কাছে আসলেও আমরা ভোজ্যতেলের দাম আন্তর্জাতিক বাজারে কমেছে। এ কারণে আমরা আর একটু অপেক্ষা করছি। যাতে করে ভোজ্য তেল ও ডলারের দাম কিছুটা কমুক। যাতে করে আমরা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে নেগুশিয়েশন করতে পারি। তবে চিনির দাম নিয়ে আমরা ভাবছি না।

তিনি আশা করেন অক্টোবর মাসের মধ্যেই দ্রব্যমূল্য কমে আসবে।

;

বাংলাদেশে সংকট নেই: আইএমএফ



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের ব্যালেন্স অব পেমেন্টের (চলতি হিসাবে ভারসাম্য) ওপর চলমান চাপ আরও কয়েক বছর অব্যাহত থাকতে পারে বলে সতর্ক করেছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)।

মঙ্গলবার আইএমএফের মুখপাত্র রাহুল আনন্দ এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের ব্যালেন্স অব পেমেন্ট নিয়ে এমন পূর্বাভাস দেন।

‘আইএমএফ’-এর রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি ট্রাস্টে (আরএসটি) বাংলাদেশের আগ্রহের বিষয়ে সাংবাদিকদের অবহিত করেছেন তিনি। ওই তহবিল থেকেই বাংলাদেশ ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ চেয়েছে, যা দিয়ে দ্রুত হ্রাস পাওয়া বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়াতে পারবে।

রাহুল বলেন, বাংলাদেশ বেলআউট চাওয়ার মতো সংকটে নেই। তবে বৈদেশিক মুদ্রার আগাম মজুদের ব্যবস্থা হিসেবে আরএসটি থেকে ঋণ চাওয়ার উদ্যোগকে একটি ভালো পদক্ষেপ বলে মনে করেন তিনি।

আইএমএফের ঋণ পাওয়ার শর্তের অংশ হিসেবে বাংলাদেশ সম্প্রতি জ্বালানি তেল ও সারের দাম বাড়িয়েছেএমন গুজবের বিষয়ে ওই কর্মকর্তা বলেন, প্রস্তাবিত ঋণের বিষয়ে আইএমএফ এখনো আলোচনা শুরু করতে পারেনি, তাই কোনো সংস্কারেরও পদক্ষেপ নেয়নি। তিনি বলেন, অক্টোবরে আইএমএফের বার্ষিক সভার পর ঋণ আলোচনার জন্য প্রথম প্রতিনিধিদলকে বাংলাদেশে পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলেছেন, গত মাসে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রধান রাহুল আনন্দের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল নিয়মিত সফরের অংশ হিসেবে বাংলাদেশে আসে। এ সময় তারা বাংলাদেশের সামষ্টিক-অর্থনৈতিক অবস্থা পর্যালোচনা করে কিছু পর্যবেক্ষণ দেয়। ওই সময় আইএমএফের কর্মকর্তারা জ্বালানি তেলের মূল্য নির্ধারণের পদ্ধতি বাস্তবায়ন, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ গণনার পদ্ধতি পরিবর্তন এবং ব্যাংকিং খাতের সুশাসন জোরদার করার পরামর্শ দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও দপ্তরগুলোকে।

আমদানির তুলনায় রপ্তানি কমে যাওয়া এবং প্রবাসী আয় না বাড়ায় কয়েক মাস ধরে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমতে থাকায় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছে ৪৫০ কোটি ডলারের বাজেট সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ। এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল একটি বিদেশি গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘১৫০ কোটি ডলার করে তিন কিস্তিতে আইএমএফ থেকে বাজেট সহায়তার অর্থ পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।’

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধসহ বৈশি^ক পরিস্থিতির কারণে শিল্পের কাঁচামাল, খাদ্যপণ্য, জ্বালানিসহ প্রায় সব পণ্যের দাম আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যায়। এক বছরে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে ১৩০ ডলার ছাড়িয়ে যায়। এ সময় প্রাকৃতিক গ্যাসের দাম প্রায় দ্বিগুণ হারে বাড়ে। আর এলএনজির দাম বেড়েছে চার গুণেরও বেশি। সারের দামও একই হারে বেড়েছে। সব ধরনের খাদ্যপণ্যের দামও উল্লেখযোগ্য হারে বাড়তে থাকায় দেশে দেশে উচ্চ মূল্যস্ফীতি দেখা দেয়। উন্নত দেশে মন্দার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে আমদানিজনিত কারণে বাংলাদেশেও উচ্চ মূল্যস্ফীতি দেখা দিয়েছে। উচ্চ মূল্যের কারণে আমদানি ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় ব্যালেন্স অব পেমেন্টে রেকর্ড ঘাটতি হয়েছে। আমদানির তুলনায় রপ্তানি একই সমান্তরালে না বাড়ায় চাপ পড়েছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের ওপর। দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নিরাপদ অবস্থানে রাখতেই আইএমএফসহ বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ঋণ চেয়েছে বাংলাদেশ। আর এসব ঋণের শর্ত হিসেবে কিছু ক্ষেত্রে বড় ধরনের সংস্কার করতে হচ্ছে সরকারকে। 

বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বর্তমানে ৩৯ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪৫ বিলিয়ন ডলার। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমে যাওয়ায় সরকারের উচ্চপদস্থ ব্যক্তি, অর্থনীতিবিদ এবং বিশেষজ্ঞদের মধ্যে উদ্বেগ বাড়িয়েছে। তারা বৈদেশিক মুদ্রার অপ্রয়োজনীয় ব্যয় নিয়ন্ত্রণে অবিলম্বে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

;

মজুরি ১২০ থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকার দাবিতে চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

  • Font increase
  • Font Decrease

দৈনিক মজুরি ১২০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকা করার দাবিতে সারা দেশের চা বাগানগুলোতে চলছে শ্রমিকদের কর্মবিরতি। এর ফলে মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে চা শিল্প।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে সারা দেশের চা বাগানগুলোতে গত মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) অনুষ্ঠিত এই কর্মবিরতি শুরুতে দৈনিক সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ২ ঘণ্টা করে ছিল। শনিবার (১৩ আগস্ট) থেকে তা পূর্ণদিবস করা হয়েছে। কিন্তু তাতেও চা বাগানের মালিক পক্ষের কার্যকর পদক্ষেপ না নেওয়ায় শনিবার (১৩ আগস্ট) থেকে সারা দেশের ২৩২টি চা বাগানের শ্রমিকরা দিনব্যাপী পালন করেন।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) দেশের প্রতিটি চা বাগানে এই কর্মবিরতি চলে। এসব কর্মসূচির মধ্যে ছিল মানববন্ধন, বিক্ষোভ সমাবেশ, মিছিল, অনতিদূরে স্লোগান সহকারে মিছিল, নিজ হাতে লিখিত নানান আকৃতির ফেস্টুনে দাবি তুলে ধরে প্রদর্শন ইত্যাদি।

গত বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) গভীর রাত পর্যন্ত শ্রীমঙ্গলে অবস্থিত বিভাগীয় শ্রম অধিদফতরে চা শ্রমিক ১০ নেতার সঙ্গে শ্রম দফতরের আলোচনা ব্যর্থ হলে শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল এ কর্মবিরতির ঘোষণা দেন।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ এবং শ্রমিকনেতা পরেশ কালেন্দি বলেন, মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) কর্মবিরতির ৫ম দিন। রোববার এবং সোমবার দুদিন এই কর্মবিরতি বন্ধ থাকার পর আজ থেকে তা সিলেট-চট্টগ্রামসহ দেশের ২৩২টি চা বাগানে একযোগে পালিত হয়েছে। কোথাও কোথাও মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ করাসহ বিভিন্ন জায়গায় রাস্তাঘাটে অবস্থান নেন চা শ্রমিকরা। আমাদের কিছুই করার নেই, আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। আমাদের এক দাবি – দৈনিক মজুরি ১২০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকায় উন্নিত করতে হবে।

আমরা বিভিন্ন চা বাগানে গিয়ে শ্রমিকদের সাথে কথা বলেছি। প্রতিটি চা বাগানের শ্রমিকরা তাদের নায্য অধিকার আদায়ে ফুঁসে উঠেছে। এই দাসত্ব জীবনে তাদের অনেক কষ্ট মালিক পক্ষের থেকে আমরা মজুরি বৃদ্ধির ব্যাপারে কোন আশ্বাস পাইনি বলে তিনি জানান।

পরেশ আরও বলেন, চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ৩০০ টাকা দেওয়ার জন্য আমরা দুই বছর আগ থেকে দাবি জানিয়ে আসছি। কিন্তু ১৯ মাস গত হয়ে গেলেও দ্বিপাক্ষিক চুক্তি অনুযায়ী না গিয়ে মালিকপক্ষ মজুরি বৃদ্ধির ব্যাপারে গড়িমসি করছে। তারা মাত্র ১৪ টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। এই দ্রব্যমূল্যের ক্রমাগত ঊর্ধ্বগতি বাজারে মাত্র ১৪ টাকা দিয়ে চা শ্রমিকদের আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল বলেন, শ্রম অধিদফতর আলোচনার নামে সময়ক্ষেপণ করেছে। তারা আগামী ২৯ আগস্ট ত্রিপক্ষীয় আলোচনার সময় চেয়েছে। কিন্তু আমরা তাতে রাজি হইনি। প্রয়োজনে আমরা আরও কঠোর কর্মসূচিতে যেতে বাধ্য হবো। দাবিপূরণ না হওয়া পর্যন্ত সব বাগানে কাজ বন্ধ থাকবে। কাছাকাছি বাগানগুলো একত্রিত হয়ে আন্দোলনে নামবে। প্রয়োজনে সড়ক অবরোধ করা হবে। মালিক পক্ষের টালবাহানা আর আমরা মানবো না। এখন শ্রমিকদের আন্দোলন কেউ ঠেকাতে পারবেনা।

মালিকপক্ষের সংগঠন বাংলাদেশীয় চা সংসদের আহ্বায়ক তাহসিন আহমেদ বলেন, তাদের অযৌক্তিক আন্দোলনে এই চায়ের ভরা মৌসুমে চা উৎপাদন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। চা-শ্রমিকদের সঙ্গে বাগান কর্তৃপক্ষের কোন ধরনের ঝামেলা নেই, অথচ তারা অযৌক্তিকভাবে আন্দোলন করছেন। তাদের দাবি নিয়ে আলোচনা চলমান থাকাকালীন সময়ে তারা হঠাৎ করে এ কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছে, যা শ্রম আইনের পরিপন্থী বলে জানান তিনি।

;

ঝুঁকিতে দেশীয় চা শিল্পের প্রবৃদ্ধি: টি অ্যাসোসিয়েশন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ঝুঁকিতে দেশীয় চা শিল্পের প্রবৃদ্ধি

ঝুঁকিতে দেশীয় চা শিল্পের প্রবৃদ্ধি

  • Font increase
  • Font Decrease

শ্রমিক কল্যাণমুখী বাংলাদেশের চা শিল্প যখন বিশ্ববাজারে প্রভাব বিস্তার করছে তখন আন্দোলনের নামে ৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকার বাজারকে ঝুঁকিতে ফেলছে বলে আশঙ্কা করছেন উদ্যোক্তারা।

চা বাগানে শ্রমের দৈনিক ৩০০ টাকা মজুরির দাবি করা হলেও একজন শ্রমিক দৈনিক প্রায় ৪০০ টাকা সমপরিমাণ সুবিধা পেয়ে থাকেন বলে জানিয়ে বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশন।

প্রত্যক্ষ সুবিধার মধ্যে দৈনিক নগদ মজুরি ছাড়াও ওভারটাইম, বার্ষিক ছুটি ভাতা, উৎসব ছুটি ভাতা, অসুস্থজনিত ছুটি ভাতা, ভবিষ্যৎ তহবিল ভাতা, কাজে উপস্থিতি ভাতা, ভবিষ্যৎ তহবিলের ওপর প্রশাসনিক ভাতার মাধ্যমে সর্বমোট গড়ে দৈনিক মজুরির প্রায় দ্বিগুণ নগদ অর্থ প্রদান করা হয় বলে মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) এক বিবৃতি দেয় বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশন।

উদ্যোক্তারা বলছেন, শ্রমিকদের সামাজিক উন্নয়ন ও নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য দৈনিক ১৭৫ টাকার বিভিন্ন রকম সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে।বাংলাদেশে বর্তমানে ১৬৮টি বাণিজ্যিক চা উৎপাদনের বাগান কাজ করছে, যেখানে ১.৫ লাখেরও বেশি লোকের কর্মসংস্থান রয়েছে। উপরন্তু, বাংলাদেশ বিশ্বের ৩ শতাংশ চা উৎপাদন করে। ২০২১ সালের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশি চায়ের বাজারের মূল্য প্রায় ৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা জিডিপিতে এই শিল্পের অবদান প্রায় ১ শতাংশ।

আন্দোলনের কারণে সিলেট ও চট্টগ্রামের ১৬৮ চা বাগানে থেকে দৈনিক ২০ কোটি টাকারও বেশি মূল্যমানের চা পাতা নষ্ট হচ্ছে বলে দাবি বাগান মালিকদের।খাদ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ভর্তুকির মাধ্যমে ২ টাকা কেজি দরে মাস প্রতি শ্রমিককে প্রতি মাসে প্রতি ৪২.৪৬ কেজি চাল অথবা গম রেশন প্রদান করা হয়। তাছাড়া শ্রমিকদের খাদ্য নিরাপত্তা আরও সুদৃঢ় করার লক্ষ্যে প্রায় ৯৪ হাজার ২০০ বিঘা জমি চাষাবাদের জন্য বন্টন করা হয়েছে।

১৯০ বছরের পুরোনো শিল্প হিসেবে বাংলাদেশের অন্যান্য যেকোনো শিল্পের তুলনায় অনেক আগে থেকেই শ্রমিক আইন অনুসরণ করা হচ্ছে প্রতিটি চা বাগানে। শ্রমিকদের মাতৃত্বকালীন স্বাস্থ্য নিশ্চিতে ১৬ সপ্তাহের মজুরিসহ মাতৃত্বকালীন ছুটির পাচ্ছে নারী শ্রমিকরা।

একজন শ্রমিকের বসত বাড়ির জন্য পরিবার প্রতি ১ হাজার ৫৫১ স্কয়ার ফিট করে বাড়িসহ সর্বমোট ৫,৮০০ বিঘা জায়গা প্রদান করা হয়েছে। শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ২টি বড় গ্রুপের ও ৮৪টি বাগানের হাসপাতালে ৭২১ শয্যার ব্যবস্থা, ১৫৫টি ডিসপেনসার সহ সর্বমোট ৮৯১ জন মেডিকেল স্টাফ নিয়োজিত আছেন।

শ্রমিকদের সন্তানদের সুশিক্ষা নিশ্চিতকরণে প্রাথমিক, জুনিয়র ও উচ্চ বিদ্যালয় মাইল সর্বমোট ৭৬৮টি বিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে যেখানে ১ হাজার ২৩২ শিক্ষক দ্বারা বর্তমানে ৪৪ হাজার ১৭১ জন শিক্ষার্থী বিনামূল্যে পড়ালেখার সুযোগ পাচ্ছে।

এছাড়াও অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকের ভাতা, বিভিন্ন রকম শ্রমিক কল্যাণ সূচি যেমন বিশুদ্ধ খাবার পানি, ম্যালেরিয়া প্রতিষেধক, স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট, পূজা, বিনোদন প্রভৃতি কর্মকাণ্ডে সামগ্রিক আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়ে থাকে। তাছাড়াও, চা শ্রমিকের অবসরের পর তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা চাকরিতে নিয়োগ পেয়ে থাকে, যা একজন চা শ্রমিকের চুক্তিপত্রে উল্লেখ থাকে।

উল্লেখ্য যে বিগত ২০১২ সাল থেকে ১০ বছরে চায়ের নিলাম মূল্যের প্রবৃদ্ধি যথাক্রমে শূন্য দশমিক ১৬ হারে বৃদ্ধি পেলেও চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি করা হয় ৯৪.২০ শতাংশ ।

;