গ্রাহকের মৃত্যুতে কিস্তি মওকুফসহ আর্থিক সহায়তা দিয়েছে ওয়ালটন প্লাজা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি-১: ওয়ালটন প্লাজার ‘কিস্তি ক্রেতা ও পরিবার সুরক্ষা নীতি’র আওতায় মৃত মুকুল মিয়ার স্ত্রী রাবেয়া খাতুনের হাতে ৫০ হাজার টাকার চেক তুলে দেয়া হচ্ছে।

ছবি-১: ওয়ালটন প্লাজার ‘কিস্তি ক্রেতা ও পরিবার সুরক্ষা নীতি’র আওতায় মৃত মুকুল মিয়ার স্ত্রী রাবেয়া খাতুনের হাতে ৫০ হাজার টাকার চেক তুলে দেয়া হচ্ছে।

  • Font increase
  • Font Decrease

কিস্তিতে পণ্য কেনা গ্রাহকের মৃত্যুতে অবশিষ্ট কিস্তি মওকুফ করেছে ওয়ালটন প্লাজা। একই সঙ্গে দিয়েছে আর্থিক সহায়তা। প্রতিষ্ঠানটির ‘কিস্তি ক্রেতা ও পরিবার সুরক্ষা নীতি’র আওতায় এই সুবিধা পেয়েছেন কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার কৃষক মুকুল মিয়া এবং সদর উপজেলার সবজি বিক্রেতা সুলতান মিয়ার পরিবার। এই দুই গ্রাহকের মৃত্যুতে ৫০ হাজার টাকা করে মোট ১ লাখ টাকা আর্থিক সহায়তা দিয়েছে ওয়ালটন প্লাজা। ইতোমধ্যেই ওয়ালটন প্লাজা থেকে কিস্তিতে পণ্য কিনে একই ধরনের সুরক্ষা সহায়তা পেয়েছেন অসংখ্য ক্রেতা এবং তাদের পরিবার।

সোমবার (২৩ জানুয়ারি, ২০২৩) জেলার পুলেরঘাট বাজার ওয়ালটন প্লাজায় মৃত দুই ক্রেতার পরিবারের সদস্যদের হাতে ৫০ হাজার টাকার দুটি চেক তুলে দেন কিশোরগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ। প্রয়াত মুকুল মিয়ার পক্ষে চেক গ্রহণ করেন তার স্ত্রী রাবেয়া এবং সুলতান মিয়ার পক্ষে তার স্ত্রী সাজেদা খাতুন।

সে সময় উপস্থিত ছিলেন পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এমদাদুল হক জুটন, পাকুন্দিয়া থানার ওসি সুমন মিয়া, পুলেরঘাট বাজার বণিক সমিতির সভাপতি সাইফুল ইসলাম জাফরুল ভুঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন, ওয়ালটনের ডিভিশনাল ক্রেডিট ম্যানেজার সালেহ আহমেদ, কিশোরগঞ্জ জোনের রিজিওনাল সেলস ম্যানেজার মেহেদী হাসান, রিজিওনাল ক্রেডিট ম্যানাজার আতিকুর রহমান, ওয়ালটন প্লাজা পুলেরঘাট শাখার ম্যানেজার রাসেল আহমেদ প্রমুখ।

জানা গেছে, গত ১৩ ডিসেম্বর লক্ষিয়া গ্রামের কৃষক মুকুল মিয়া পুলেরঘাট ওয়ালটন প্লাজা থেকে কিস্তিতে প্রিমোআরটেন মডেলের একটি স্মার্টফোন কেনেন। তিনি ২৪ ডিসেম্বর স্ট্রোকে মারা যান। আর গত বছরের ২৬ অক্টোবর দরবারপুর গ্রামের সবজি বিক্রেতা সুলতান মিয়া একই প্লাজা থেকে ওয়ালটনের প্রিমোএনফাইভ স্মার্টফোন কেনেন। ৩০ ডিসেম্বর তিনিও স্ট্রোকে মারা যান। পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারীর এমন আকস্মিক মৃত্যুতে অকূল সাগরে পড়ে এই দুই পরিবার। এর প্রেক্ষিতে প্রতিষ্ঠানের ‘কিস্তি ক্রেতা ও পরিবার সুরক্ষা নীতি’ অনুযায়ী মৃত গ্রাহকের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে ওয়ালটন প্লাজা। ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ পরিবারের সদস্যদের হাতে তুলে দিয়েছে ৫০ হাজার টাকা করে মোট এক লাখ টাকা। যেখান থেকে কিস্তির পাওনা টাকা সম্পূর্ণ মওকুফ হয়েছে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ক্রেতাদের বাড়তি সুবিধা প্রদানের জন্য কিস্তি ক্রেতা ও পরিবার সুরক্ষা নীতি চালু করেছে শীর্ষ ইলেকট্রনিক্স ও প্রযুক্তিপণ্যের ব্র্যান্ড ওয়ালটন। কিস্তি ক্রেতা ও পরিবার সুরক্ষা নীতির আওতায় যেকোনো ওয়ালটন প্লাজা থেকে কিস্তিতে পণ্য ক্রয়কারীদের কিস্তি সুরক্ষা কার্ড দেওয়া হচ্ছে। এই নীতির আওতায় পণ্যমূল্যের ভিত্তিতে কিস্তি চলমান থাকা অবস্থায় ক্রেতার মৃত্যু হলে ৫০ হাজার থেকে ৩ লাখ এবং তার পরিবারের কোনো সদস্য মৃত্যুবরণ করলে ২৫ হাজার থেকে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত সহায়তা দিচ্ছে ওয়ালটন প্লাজা। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট পণ্যের অনাদায়ী কিস্তির টাকা সমন্বয়ের পর অবশিষ্ট টাকা ক্রেতা বা তার পরিবারকে দেওয়া হচ্ছে।
কিশোরগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ ওয়ালটনের কিস্তি ক্রেতা সুরক্ষা সহায়তা নীতির প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, এই সহায়তা কার্যক্রম ওয়ালটনের অনেকগুলো চমৎকার উদ্যেগের মধ্যে অন্যতম। ক্রেতার পরিবারের জন্য এমন সুবিধা কেবল ওয়ালটনই দিতে পারে। এরফলে ওয়ালটনের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা আরো বাড়বে।

ওয়ালটন ক্রেতাদের দেয়া এই সুবিধার বিষয়ে জানতেন না মুকুল মিয়ার স্ত্রী রাবেয়া খাতুন। ৩ ছেলে ও ৫ মেয়েসহ ১০ সদস্যের পরিবারের বোঝা এখন তার ওপর। অসহায় অবস্থায় তাদের পাশে দাঁড়ানোয় ওয়ালটনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

এদিকে কিস্তির টাকা আর পরিশোধ করা লাগছে না জেনে স্বস্তির নিঃশ্বাস ছাড়েন সুলতান মিয়ার স্ত্রী সাজেদা খাতুন। পাশাপাশি আর্থিক সহায়তা পাওয়ায় ওয়ালটন কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি। এই সহায়তার টাকা সংসারের কাজে ব্যয় করবেন বলে জানান।

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুফল পেতে বিজ্ঞান চর্চা বাড়াতে হবে: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুফল পেতে বিজ্ঞান চর্চা বাড়াতে হবে: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুফল পেতে বিজ্ঞান চর্চা বাড়াতে হবে: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

  • Font increase
  • Font Decrease

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুফল পেতে হলে বিজ্ঞান চর্চা বাড়াতে হবে। আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্সের ব্যবহার যতই বাড়াতে পারবো তত দ্রুত টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করা হবে।

শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি ) ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের ‘১৪তম ডিআরএমসি-সামিট ন্যাশনাল সায়েন্স কার্নিভাল-২০২৩’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন ।

তিনি বলেন, এ ধরণের আয়োজন থেকেই বেরিয়ে আসবে দেশের শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানীরা যারা দেশের সীমা অতিক্রম করে বিশ্বের বুকে বাংলাদেশকে তুলে ধরবে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট ধারণ করে নির্মাণ করবে টেকসই বিদ্যুৎ ও জ্বালানি ব্যবস্থা।

‘যায়েদ সাসটেইন্যাবিলিটি প্রাইজ ২০২৩’ অর্জন করায় ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ দলকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, একাগ্রতা থাকলে বাংলাদেশের তরুণরা আগামীতে আরও ভাল করবে। সরকার নানাভাবে সহযোগিতা করছে। বাংলাদেশ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ গবেষণা কাউন্সিল হতেও, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের দক্ষতা বৃদ্ধি, আর্থিকভাবে সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব টেকসই জ্বালানি শক্তি উন্নয়নে নতুন উদ্ভাবনী প্রযুক্তি ও পদ্ধতিসমূহ খুঁজে বের করে উদ্ভাবনী সমাধানে গবেষণার জন্য প্রয়োজনীয় আর্থিক ও অন্যান্য সহযোগিতা করা হচ্ছে।


তিন দিনব্যাপী বিজ্ঞান উৎসবের আয়োজনে প্রজেক্ট ডিসপ্লে, দেয়াল পত্রিকা, স্ক্র্যাপ বুক ডিসপ্লে, ফটোগ্রাফি প্রদর্শনী, অলিম্পিয়াডস, আইকিউ টেস্ট, সাইন্সফিকশন লিখন, ইলাসট্রেইশন এক্সজিবিশন, পোস্টার ডিজাইনিং এক্সজিবিশন, গেইমিং কনটেস্ট, লাইন ফলোইং, প্রভৃতি কুইজ, সুডোকু প্রতিযোগিতা, বিজ্ঞান ভিত্তিক উপস্থিত বক্তৃতা ও রোবোটিক ওয়ার্কশপ প্রতিযোগিতা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ৪৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নিয়েছেন।

ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের অধ্যক্ষ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কাজী শামীম ফরহাদের সভাপতিত্বে অনুঠানে অন্যান্যের মধ্যে টাইটেল স্পন্সর সামিট গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান লতিফ খান, বিজিএমই সভাপতি ফারুক হাসান ও কনফিডেন্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক মো. শহিদুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন।

;

বিকাশ-বিজ্ঞানচিন্তা বিজ্ঞান উৎসবে অংশ নিলো ৩ হাজার শিক্ষার্থী



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিকাশ-বিজ্ঞানচিন্তা বিজ্ঞান উৎসবে অংশ নিলো ৩ হাজার শিক্ষার্থী

বিকাশ-বিজ্ঞানচিন্তা বিজ্ঞান উৎসবে অংশ নিলো ৩ হাজার শিক্ষার্থী

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী ও রংপুরের পর খুলনা ও বরিশালে ৪০টি স্কুলের ৭ শতাধিক শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবনী ও গবেষণাধর্মী বিভিন্ন প্রকল্প প্রদর্শন, কুইজ, বিজ্ঞানবিষয়ক আলোচনা, রোবট প্রদর্শনী, প্রশ্নোত্তর পর্ব ও বিজ্ঞান ম্যাজিকসহ নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ‘বিকাশ-বিজ্ঞানচিন্তা বিজ্ঞান উৎসব ২০২২’-এর আঞ্চলিক পর্ব। প্রায় ৩ হাজার শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে আঞ্চলিক পর্বে বিজ্ঞান প্রকল্প ও কুইজের বিজয়ীরা এবার ফেব্রুয়ারিতে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া গ্র্যান্ড ফাইনালে অংশ নেবে।

বিকাশ ও বিজ্ঞান ভিত্তিক মাসিক পত্রিকা বিজ্ঞানচিন্তা-র যৌথ আয়োজনে খুলনা এবং বরিশালে আয়োজিত এই উৎসবে দু’টি বিভাগ থেকে প্রায় ৫৫টি প্রজেক্ট প্রদর্শন করে শিক্ষার্থীরা। উৎসবে খুদে বিজ্ঞানীদের নানান উদ্ভাবনী প্রকল্পের মধ্য থেকে প্রতিটি বিভাগে সেরা দশ প্রকল্পকে পুরস্কৃত করা হয়। পাশাপাশি, কুইজে অংশগ্রহণকারী মাধ্যমিকের ১০ জন ও নিম্ন মাধ্যমিকের ১০ জন বিজয়ীকেও পুরস্কার দেয়া হয়।

এবারের বিজ্ঞান উৎসবে দেশজুড়ে আড়াই’শ স্কুলের প্রায় ৩ হাজার শিক্ষার্থী মোট ২৫৪টি উদ্ভাবনী প্রজেক্ট প্রদর্শন করেছেন।

খুলনায় সেন্ট জোসেফস্ হাই স্কুলে জাতীয় পতাকা ও উৎসবের পতাকা উত্তোলন এবং জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য মোসাম্মাৎ হোসনে আরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন সেন্ট জোসেফস্ হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আলফ্রেড রণজিৎ মণ্ডল। বরিশালে এ,আর,এস মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান উৎসবের উদ্বোধন করেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন। এসময় উপস্থিত ছিলেন এ.আর.এস মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আনোয়ার হোসেন। দু’টি অনুষ্ঠানেই বরেণ্য অধ্যাপক, গবেষক ও শিক্ষাবিদ সহ উপস্থিত ছিলেন বিকাশের ইভিপি ও হেড অব রেগুলেটরি অ্যান্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির এবং বিজ্ঞানচিন্তার নির্বাহী সম্পাদক আবুল বাসার।

‘বিজ্ঞানে বিকাশ’ স্লোগান নিয়ে দেশব্যাপী শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান শিক্ষা ও চর্চায় আগ্রহী করতে বিজ্ঞান উৎসব শুরু হয় ২০১৯ সাল থেকে। তারই ধারাবাহিকতায় ২০২২ এর বিজ্ঞান উৎসব ঢাকায় শুরু হয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে সম্পন্ন হলো। এরপর আবারো ঢাকায় চূড়ান্ত পর্বের আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এই বিজ্ঞান উৎসব।

;

নগদ-এ কেনাকাটা করলে মিলবে বিপিএল টিকিট



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
নগদ-এ কেনাকাটা করলে মিলবে বিপিএল টিকিট

নগদ-এ কেনাকাটা করলে মিলবে বিপিএল টিকিট

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের ক্রিকেটে দেশি-বিদেশি ক্রিকেট খেলোয়াড়দের নিয়ে আয়োজন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) ক্রিকেট চলছে। ক্রীড়ামোদী মানুষের উৎসবকে আরো বাড়িয়ে দিতে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস নগদ দিচ্ছে বিপিএল টিকিট জেতার সুযোগ।

এই অফার উপভোগ করতে নগদ অ্যাপ বা *১৬৭# ডায়াল করে সরাসরি স্টোরে গিয়ে বা নগদ সংশ্লিষ্ট কোনো মার্চেন্ট থেকে অনলাইনে ন্যূনতম দুই হাজার টাকা বা এর বেশি কেনাকাটা করতে হবে। এর পর গ্রাহককে ticket.nagad.com.bd ওয়েবসাইট ভিজিট করতে হবে। সেখানে নিজের টিকিট পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে টিকিট নিশ্চিত করতে হবে।

যে গ্রাহক টিকিট নিশ্চিত করবেন, তিনি শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম সংলগ্ন নগদ বুথ থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। স্টেডিয়ামের এক নম্বর গেটের সামনে নগদ-এর এই বুথ থাকবে। একজন গ্রাহক এই পুরো ক্যাম্পেইন চলা অবস্থায় সর্বোচ্চ দুটি করে টিকিট জিততে পারবেন। আগামী ২৫ জানুয়ারি থেকে ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এই ক্যাম্পেইন চলবে।

উল্লেখ থাকে যে, টিকিট অবশিষ্ট থাকা সাপেক্ষে তা বিতরণ করা হবে ক্যাম্পেইন এর শর্তানুসারে। টিকিট শেষ হয়ে গেলে আর এই ক্যাম্পেইন কার্যকর থাকবে না। টিকিটের মজুদ থাকা সাপেক্ষে গ্রাহকেরা বিভিন্ন ক্যাটাগরির টিকিট পাবেন। যে টিকিট অবশিষ্ট থাকবে, তার ভেতর থেকেই বরাদ্দ করা হবে।

এ ছাড়া নগদ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে, টিকিট শেষ হয়ে গেলে যেকোনো মুহূর্তে এই কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হবে। এ ছাড়া কোনো ধরনের প্রতারণা বা অন্যায় কাজ হচ্ছে বলে সন্দেহ হলে সেই টিকিট বিতরণ বন্ধ করে দিতে পারবে নগদ কর্তৃপক্ষ। এই ক্যাম্পেইনে পাওয়া টিকিট কোনোভাবেই বিক্রয়যোগ্য নয়।

৩ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া ঢাকা পর্বের এবং দুটি কোয়ালিফায়ার, একটি এলিমিনেটর এবং ফাইনালের টিকিট পাওয়া যাবে এই ক্যাম্পেইনে।

এই ক্যাম্পেইন সম্পর্কে নগদ-এর চিফ সেলস অফিসার সিহাবউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘নগদ সবসময় তারুণ্যের পক্ষে কথা বলে। সেই সাথে নগদ কাজ করছে অর্থনৈতিক অন্তর্ভূক্তি নিয়ে। আমাদের এই উদ্যোগে অনেক তরুণ নতুন করে আনুষ্ঠানিক অন্তর্ভূক্তিতে আসবেন বলে আমরা আশা করি। নগদ খেলাধুলাকে উৎসাহ দেওয়ার পক্ষে। আমরা কিছুদিন আগে ফুটবল বিশ্বকাপ নিয়ে অনেক আয়োজন করেছি। এবার তরুণদের উৎসাহ বিপিএল নিয়েও আমরা কাজ করছি। আগ্রহী দর্শক নগদ-এর মাধ্যমে কেনাকাটা করে বিপিএল টিকিট পেয়ে খেলাধূলা ও ডিজিটাল মাধ্যমে কেনাকাটায় আরও উৎসাহী হবেন বলে আমরা মনে করি।’

;

চিনির দাম বাড়ল কেজিতে ৫ টাকা, খোলা ১০৭ প্যাকেট ১১২ টাকা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চিনির দাম প্রতি কেজিতে পাঁচ টাকা বাড়ানো হয়েছে। খোলা চিনি ১০৭ টাকা, প্যাকেটজাত ১১২ টাকা দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন এই দাম ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর হবে।

চিনির বাজারের চলমান অস্থিরতার মধ্যেই বৃহস্পতিবার নিত্যপণ্যটির দাম বাড়ানো এই ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ সুগার রিফাইনার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএসআরএ)।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিএসআরএ বলেছে, আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত চিনির ঊর্ধ্বমূখী দাম, ডলারের বাড়তি বিনিময় হার এবং স্থানীয় পরিশোধকারী মিলগুলোর উৎপাদন ব্যয় বিবেচনা করে দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশন ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে নতুন দামে চিনি বিক্রি হবে।

উল্লেখ্য, দেশের চিনির বাজারে সংকট চলমান। বাজারে প্যাকেটজাত চিনি উধাও বললেই চলে। আবার কোথাও পাওয়া গেলেও ভোক্তাদের তা কিনতে হচ্ছে নির্ধারিত দামের চেয়েও চড়া মূল্যে।

;