মে মাসে রেমিট্যান্স কমল ১০.২৭ শতাংশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চলতি বছরের মে মাসে দেশের রেমিট্যান্স প্রবাহ প্রায় ১০.২৭ শতাংশ কমে গেছে। প্রবাসী আয় কমে যাওয়ার জন্য ডলারের দুর্বল মূল্য এবং হুন্ডির মাধ্যমে লেনদেন বৃদ্ধিকে দায়ী করেছেন ব্যাংকাররা।

মে মাসে প্রবাসীরা ব্যাংকিং চ্যানেলে ১৬৯ কোটি ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন। যা আগের বছরের একই মাসের তুলনায় ১০ দশমিক ২৭ শতাংশ কম।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রবাসী বাংলাদেশিরা আনুষ্ঠানিক ব্যাংকিং চ্যানেলের চেয়ে হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠাতে বেশি পছন্দ করেন। খোলাবাজারের তুলনায় ব্যাংকিং চ্যানেলে ডলারের দাম কম দেওয়া হয়। পাশাপাশি ব্যাংকে যাওয়া ও লাইনে দাঁড়ানোর কোনো ঝামেলা নেই হুন্ডিতে। বাড়িতে এসে টাকা পৌঁছে দেয় তারা। তাই গ্রাহকদের কাছে ব্যাংকের চেয়ে হুন্ডিই বেশি জনপ্রিয়।

বৃহস্পতিবার (১ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

রেমিট্যান্স প্রবাহ কমে যাওয়ার এমন ধারা দেশের অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতা আরও গভীর করতে পারে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক কর্মকর্তা বলেন, হুন্ডি, অবৈধ লেনদেন রেমিট্যান্স প্রবাহ কমে যাওয়ার জন্য দায়ী। রেমিট্যান্স কমে যাওয়ায় ইতিমধ্যে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে বিরূপ প্রভাব পড়েছে।

প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, মে মাসে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ২৮ কোটি ৮৬ লাখ ডলার, বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে ৫ কোটি ৯৯ লাখ ডলার, বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ১৩৩ কোটি ৬২ লাখ ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৬৮ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স এসেছে।

মে মাসে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে বরাবরের মতো ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। আলোচিত সময় ব্যাংকটির মাধ্যমে এসেছে ২২ কোটি ডলার। এরপর অগ্রণী ব্যাংকে ১১ কোটি ৭০ লাখ, জনতা ব্যাংকে ৮ কোটি ৫ লাখ ডলার, ডাচ্–বাংলা ব্যাংকে ৭ কোটি ৫০ লাখ এবং আল-আরাফা ব্যাংকের মাধ্যমে ৬ কোটি ৯৬ লাখ ডলার প্রবাসী আয় এসেছে।

আলোচিত সময়ে সরকারি বিডিবিএল, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, পু‌লি‌শের কমিউনিটি ব্যাংক, সিটিজেন, বিদেশি হাবিব ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান ও স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার মাধ্যমে কোন রেমিটেন্স আসেনি।

বৃহস্পতিবার দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২৯ দশমিক ৯১ বিলিয়ন ডলার, যা আগের বছরের একই সময় ছিল ৪২ দশমিক ২০ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে রেমিট্যান্স প্রবাহ আগের বছরের তুলনায় ১ দশমিক ১৩ শতাংশ বেড়ে ১৯ দশমিক ১৯ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

   

‘নিরাপত্তা মানেই হচ্ছে ব্যবসা’



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
হোটেল রেস্তোরাঁয় এলপিজি সিলিন্ডারের নিরাপদ ব্যবহার” শীর্ষক সেমিনার

হোটেল রেস্তোরাঁয় এলপিজি সিলিন্ডারের নিরাপদ ব্যবহার” শীর্ষক সেমিনার

  • Font increase
  • Font Decrease

রাস্তায় কাঁদামাটিতে সিলিন্ডার রাখা দীর্ঘ মেয়াদের জন্য খুবই বিপদজ্জনক। দূর্ঘটনা রোধে এলপিজি সিলিন্ডারে প্রেসার রেগুলেটিং ভাল্ব স্থাপন জরুরি। অনেক দেশেই ব্যবহৃত হচ্ছে এই প্রযুক্তি।

রোববার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইপিবি অডিটরিয়ামে “হোটেল রেস্তোরাঁয় এলপিজি সিলিন্ডারের নিরাপদ ব্যবহার” শীর্ষক সেমিনার এমন সুপারিশ উঠে এসেছে। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) আয়োজিত ওই সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বিইআরসির চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল আমিন।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বুয়েটের যন্ত্রকৌশল বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. মাকসুদ হেলালী। তিনি বলেন, সিলিন্ডারের ক্ষেত্রে বিইআরসি নির্ধারিত নিরাপত্তা নির্দেশিকা সঠিকভাবে মানা হচ্ছে না। সিলিন্ডারের গায়ে ওয়ার্কিং ও টেস্টিং প্রেসার উল্লেখ বাধ্যতামুলক হলেও থাকছে না। সিলিন্ডারে ভাল্ব ও রেগুলেটর ব্যবহার হচ্ছে অনুমোদনহীন। কিছু প্রযুক্তি এসেছে বিএসটিআই এর অনুমোদন নেই, তবুও বাজারে চলছে। এগুলো মার্কেটে আনা উচিত হয় নি।

তিনি বলেন, আধুনিক মানেই নিরাপদ নয়। উন্নত বিশ্ব নতুন প্রযুক্তি এলে তার ভালো দিকগুলো বেশি বেশি প্রচার করে, খারাপ দিকগুলো বলে না। আমরা দেখেছি গ্যাস্টিকের ওষুধ খেয়ে মানুষকে ক্যান্সারের আক্রান্ত হতে।

বুয়েটের কেমিকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দা সুলতানা রাজিয়া বলেন, কোন কিছু করতে গেলে অনেক জায়গা থেকে লাইসেন্স নিতে হয়। কিন্তু দূর্ঘটনার পর দায়িত্ব নেওয়ার জন্য কাউকে পাওয়া যায় না। সেভাবে কোন অথরিটিকে দায়িত্ব দেওয়া হয় নি। ব্যবসা লাভজনক না হলে, নিরাপদ না হলে দীর্ঘমেয়াদে টিকতে পারবে না। যে কারণে নিরাপত্তা মানেই হচ্ছে ব্যবসা।

ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর উপ-পরিচালক (ঢাকা) সালেহ উদ্দিন বলেন, দিন শেষে সকল দায় ফায়ার সার্ভিসের উপর পড়ে। নিরাপত্তার ক্ষেত্রে খুবই অবহেলা করা হয়। গার্মেন্টে জিএম কমপ্ল্যায়েন্স বেতন পান ১ লাখ টাকা, আর প্রোডাকশনের জিএম পান ৩ লাখ টাকা।

সেমিনার রুমটির (রপ্তানি উন্নয়ন ব্যূরো) ত্রুটির দৃষ্টান্ত তুলে ধরে বলেন, বড় এই হল রুমে, দরজা মাত্র একটি। কোন কারণে ওই দরজা বন্ধ হয়ে গেলে লোকজন বের হবে কোন দিক দিয়ে তার কোন ব্যবস্থা নেই। ভবন তৈরির সময় এসব বিষয় বিবেচনায় রাখা উচিত।

ওমেরা পেট্রোলিয়ামের হেড অব হেলথ্ সেফটি এনভায়রনমেন্ট এন্ড কোয়ালিটি দাউদুর রহমান খান বলেন, হোটেল রেস্তোরাঁয় ব্যবহৃত এলপিজি সিলিন্ডার রাস্তার পাশে কাদামাটিতে রাখা হয়। এতে দীর্ঘ মেয়াদে সিলিন্ডারগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বহুতল ভবনের সিঁড়ির নিচে কিংবা স্টোররুমে সিলিন্ডার স্টোরেজ করা হচ্ছে। যেখানে পর‌্যন্ত বাতাস প্রবেশের কোন ব্যবস্থা নেই। এমনকি কোন দুর্ঘটনা ঘটলে আগুণ নিয়ন্ত্রণের কোন ব্যবস্থা নেই। এলপি গ্যাস বাতাসের চেয়ে ভারি তাই লিকেজ হলে নিচে জমা হয়। আর আগুণের স্পর্শে এলে বিস্ফোরিত হয়। এর থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে ক্রস ভেন্টিলেশন ব্যবস্থা থাকা উচিত। মেঝের লেভেলে হাওয়া বাতাস প্রবেশের ব্যবস্থা রাখা গেলে দুর্ঘটনা কমে আসবে।

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ তিনি বলেন, ২০০৯ সালে এলপি গ্যাসের চাহিদা ছিল ৪৭হাজার টন, এখন ১৪ লাখ টন ছাড়িয়ে গেছে। চাহিদা ২০ থেকে ২২ গুণ বেড়ে গেছে, ভবিষ্যতে এটা দ্বিগুণ হবে। এটার যুগপোযোগি নীতিমালা জরুরি। আরও আধুনিক নীতিমালা করা দরকার। সিলিন্ডার লিকের কারনে অধিকাংশ দুর্ঘটনা ঘটে। যানবাহনে কিভাবে, কোথায় ব্যবহৃত হবে তার একটি গাইডলাইন থাকা দরকার। যত্রতত্র যাতে না বসতে পারে, তার জন্য নীতিমালা থাকা উচিত। আমাদের দেশ উন্নয়ন হচ্ছে, এখন এসব বিষয়ে দেখা দরকার। ভবিষ্যতে কোথায় কিভাবে গ্যাস দিবো তার জন্য একটি মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করা হচ্ছে।

বিইআরসি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন বলেন, দুর্ঘটনার খবর দেখছি, যে কারণে এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে। যারা ব্যবসা করছেন সবকিছুর দিকে যেনো নজর দেন। অটোগ্যাস স্টেশন থেকে সিলিন্ডারে গ্যাস নিচ্ছে এটি কোনভাবেই কাম্য নয়।

এলপিজির দর প্রসঙ্গে ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনাদের সঙ্গে মিটিং করেই প্রতি মাসে দর ঘোষণা করা হচ্ছে। দর মেনে চলা উচিত। আপনাদের অনেক ইস্যু আমরা দেখেছি, একসঙ্গে সবকিছু করা সম্ভব না। ভোক্তাদের দিকটাও দেখতে হবে। বিইআরসি যেহেতু লাইসেন্স দিয়েছে, সে কারণে তাদের লাইসেন্স বাতিল করারও সুযোগ রয়েছে। আমরা সেভাবেই কাজ করছি।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব মোঃ নুরুল আলম বলেন, আবাসিকে আর নতুন করে গ্যাস সংযোগ দেওয়া সম্ভব না। পাইপলাইনের গ্যাস সংযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এলপিজি ব্যবহারের ক্ষেত্রে দুর্ঘটনার জন্য সচেতনতা বাড়াতে হবে। এজন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

বিইআরসির সদস্য ড. মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী বলেন, নিরাপত্তাই প্রথম বলা হয়, কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই ছাড় দেওয়া হয়। যা মোটেই কাম্য নয়। যারা বাজারজাত করছে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব তাদের। দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে অল্প বলে এড়িয়ে চলার ‍সুযোগ নেই। একটি দুর্ঘটনাও অবহেলা করার সুযোগ নেই।

বিইআরসি সদস্য ড. মোঃ হেলাল উদ্দিন, আবুল খায়ের মোঃ আমিনুর রহমান, মোঃ কামরুজ্জামান, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান জনেন্দ্র নাথ সরকার, বিইআরসির সচিব ব্যারিস্টার মোঃ খলিলুর রহমান খান, জেএমআই এলপিজির জিএম (টেকনিক্যাল অপরেশন) প্রকৌশলী লিয়াকত আলী, রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সভাপতি ওসমান গণি, এলপিজি পরিবেশক এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

;

আরও ৮ পোশাক কারখানার ৩৬ হাজার কর্মী বেতন পাবেন বিকাশে



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আরও ৮ পোশাক কারখানার ৩৬ হাজার কর্মী বেতন পাবেন বিকাশে

আরও ৮ পোশাক কারখানার ৩৬ হাজার কর্মী বেতন পাবেন বিকাশে

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের শীর্ষস্থানীয় আরো আটটি তৈরি পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মী ও শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বিতরণ করবে বিকাশ-এর পে-রোল সল্যুশন-এর মাধ্যমে। এ নিয়ে দেশের পোশাক শিল্পের ১,১০০-টিরও বেশী কারখানার ১০ লাখের বেশি কর্মী ও শ্রমিকের বেতন-ভাতা দেওয়া হচ্ছে বিকাশ-এর ডিজিটাল পে-রোল সল্যুশন ব্যবহার করে।

সম্প্রতি বিকাশ-এর প্রধান কার্যালয়ে এই প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে বিকাশ-এর চুক্তির বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মোয়াজুদ্দিন গ্রুপের গ্রুপ ডিরেক্টর আবদুল্লাহ আল নোমান, টার্গেট গ্রুপের গ্রুপ অ্যাডভাইসর আব্দুল হক, জামালউদ্দিন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ জামাল উদ্দিন মিয়া, শাহানা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডঃ মোঃ মিজানুর রহমান অপু এবং ব্রিটানিয়া গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জামিল আহমেদ, প্যাট্রিয়ট গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ ইকবাল হোসেন। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অনন্ত গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইনামুল হক খান এবং হ্যামস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ সফিকুর রহমান। এছাড়াও অনুষ্ঠানে কথা বলেছেন বিকাশ-এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কামাল কাদীর, চিফ কমার্শিয়াল অফিসার আলী আহম্মেদ এবং চিফ কমিউনিকেশন্স অফিসার মাহফুজ সাদিকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত পে-রোল সল্যুশন ব্যবহারকারী প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তারা তাদের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। তারা বলেন, কারখানা কর্তৃপক্ষকে এখন আর ক্যাশ টাকা বহনের খরচ ও নিরাপত্তা নিয়ে ভাবতে হয়না, নষ্ট হয়না মূল্যবান কর্মঘন্টা, এছাড়াও বেতন দেওয়ার সময় খুচরা ও নকল টাকার ঝামেলাও এড়ানো যাচ্ছে, বেতন বিতরণ ব্যবস্থাপনা হয়েছে আরো সহজ, স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতামূলক।

কর্মীরা এখন বিকাশে পাওয়া বেতন ডিজিটাল পদ্ধতিতেই ব্যবহার করে তাদের আর্থিক ব্যবস্থাপনাকে আরো উন্নত করার সুযোগ পাচ্ছেন। শ্রমিকরা তাদের বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকেই নিতে পারছেন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ডিজিটাল ন্যানো লোন, সেভিংস, বীমা সহ আরো বহু আর্থিক সেবা।

শুধুমাত্র ডিজিটাল পদ্ধতিতে বেতনই নয়, এ খাতের কর্মীদের জন্য একটি টেকসই আর্থিক ইকোসিস্টেম তৈরির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে বিকাশ। এর অংশ হিসেবে বেশকিছু কারখানার ভেতরেই ন্যায্য মূল্যের দোকান ‘সুলভ বাজার’ ও ‘আপন বাজার’ স্থাপন করেছে বিকাশ, যেখানে শ্রমিকরা বাজার মূল্যের চেয়ে কম দামে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কেনার সুযোগ পাচ্ছেন। এছাড়া, নারী শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিভিন্ন কারখানায় অটোমেটিক স্যানিটারি ন্যাপকিন ভেন্ডিং মেশিন স্থাপন করেছে বিকাশ।

পাশাপাশি, আর্থিক ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে শ্রমিকদের আরো সচেতন করতে কারখানা প্রাঙ্গণে এমএফএস-এর নিরাপদ ব্যবহার বিষয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজন করে আসছে বিকাশ। শ্রমঘন এলাকায় আছে বিকাশের বিশেষ গ্রাহক সেবাকেন্দ্র, কারখানার ফটকের পাশে এবং শ্রমিকদের আবাসস্থলের কাছাকাছি স্থাপন করা হয়েছে এজেন্ট পয়েন্ট এবং গড়ে তোলা হচ্ছে মার্চেন্ট অবকাঠামো।

;

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পিএলসিকে রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ড প্রদান মুক্তধারার 



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স আহরণের জন্য ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পিএলসিকে রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ড প্রদান করেছে মুক্তধারা নিউ ইয়র্ক আইএনসি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের কাছ থেকে এ পুরস্কার গ্রহণ করেন ব্যাংকের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর এন্ড সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা এবং ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মোঃ আকিজ উদ্দীন।

শনিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) আমেরিকার নিউইয়র্কে ইউএসএ-বাংলাদেশ বিজনেস লিংক ও মুক্তধারা নিউ ইয়র্কের উদ্যোগে এবং এফবিসিসিআই ও গ্রেটার নিউ ইয়র্ক চেম্বার অব কমার্স এর সহযোগিতায় আয়োজিত ২ দিনব্যাপী বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস ও বাণিজ্য মেলা ২০২৩ এর সমাপনী অধিবেশনে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, বাংলাদেশ ইমিগ্র্যান্ট ডে অ্যান্ড ট্রেড ফেয়ার ২০২৩ এর আহ্বায়ক ড. জিয়াউদ্দিন আহমেদ এবং মুক্তধারা নিউ ইয়র্ক আইএনসি এর প্রতিষ্ঠাতা ও ইমিগ্র্যান্টস ডে ২০২৩ এর প্রধান সমন্বয়ক বিশ্বজিত সাহা উপস্থিত ছিলেন।

;

ইউনিয়ন ব্যাংকের গৃহসামগ্রী ও ত্রাণ বিতরণ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচির অংশ হিসেবে ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেড স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত চট্টগ্রাম বিভাগের অসহায়, দরিদ্র এবং গৃহহীন মানুষের মাঝে গৃহসামগ্রী ও ত্রাণ বিতরণ করেন।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বাঁশখালী (চাঁদপুর) শাখার মাধ্যমে হাজিগাঁও গ্রাম, চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ এবং সাধনপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে গৃহসামগ্রী ও ত্রাণ বিতরণ করেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এ. বি. এম. মোকাম্মেল হক চৌধুরী।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিউদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মোঃ খোরশেদ আলম, পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦
আসহাব উদ্দিন এবং সাধনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কে. এম. সালাহউদ্দিন কামাল।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন নির্বাহীবৃন্দ, চট্টগ্রাম অঞ্চলের শাখা ব্যবস্থাপক ও উপ-শাখা ইনচার্জবৃন্দ এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। এ উপলক্ষে এক দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

;