ঢাকার দুই সিটিতে ভোটের প্রচার শেষ হচ্ছে রাতে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) নির্বাচন বিধিমালা অনুযায়ী, ভোট শুরুর ৩২ ঘণ্টা আগে প্রচার কাজ বন্ধ করতে হবে। সে হিসেবে আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সব ধরনের প্রচার শেষ হচ্ছে বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) রাত ১২টায়।

তাই শেষ মুহূর্তে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল সমর্থিত প্রার্থীরা প্রচারে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এতে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে নগরজুড়ে।

গত ১০ জানুয়ারি থেকে প্রার্থীরা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা শুরু করেন। এরপর থেকে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা ভোটারদের দোরগোড়ায় ছুটছেন। কনকনে শীত বা বৃষ্টিতেও থেমে নেই প্রার্থীদের প্রচার। দলীয়ভাবে শুধু মেয়র পদে নির্বাচন হলেও প্রধান দুই রাজনৈতিক দল কাউন্সিলর পদেও দলীয় মনোনয়ন দিয়ে রাজনৈতিক মাঠ উত্তপ্ত করে তুলেছে।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) যুগ্ম সচিব (নির্বাচন পরিচালনা-২) মো. ফরহাদ আহাম্মদ খান জানান, সিটি করপোরেশন নির্বাচন আইন অনুযায়ী, ভোটগ্রহণ শুরুর ৩২ ঘণ্টা আগে প্রচার বন্ধ করার বিধান আছে। ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন ভোট শুরু হবে ১ ফ্রেবুয়ারি সকাল ৮টায়। সে অনুযায়ী, প্রচারণার সময় শেষ হবে ৩০ জানুয়ারি রাত ১২টায়।

বিধি অনুযায়ী, কোনো নির্বাচনী এলাকার ভোটগ্রহণ শুরুর পূর্ববর্তী ৩২ ঘণ্টা, ভোটগ্রহণের দিন সকাল ৮টা থেকে রাত ১২টা এবং ভোটের দিন রাত ১২টা থেকে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কেউ কোনো জনসভা আহ্বান, অনুষ্ঠান বা তাতে যোগদান এবং কোনো মিছিল বা শোভাযাত্রা করতে বা তাতে অংশ নিতে পারবেন না। ওই সময়ে কোনো আক্রমণাত্মক কাজ বা বিশৃঙ্খলামূলক আচরণ করতে পারবেন না। ভোটার বা নির্বাচনী কাজে নিয়োজিত বা দায়িত্বরত কোনো ব্যক্তিকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করা যাবে না। কোনো অস্ত্র বা শক্তিও প্রদর্শন বা ব্যবহার করতে পারবেন না কেউ। কেউ এ আইন ভঙ্গ করলে ন্যূনতম ছয় মাস ও অনধিক সাত বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

ফলে প্রচার বন্ধ থাকবে বৃহস্পতিবার রাত থেকে নির্বাচনী ফলাফল গেজেট আকারে প্রকাশ করা পর্যন্ত। এমনকি জয়ের মিছিল, মশাল মিছিল, মোটরসাইকেল শোভাযাত্রাও করা যাবে না। আচরণবিধি ভঙ্গকারী নির্বাচিত হলেও প্রার্থিতা বাতিল করার ক্ষমতা রয়েছে ইসির।

দুই সিটি নির্বাচনে ১৩ মেয়র প্রার্থীসহ কাউন্সিলর পদে প্রায় সাড়ে সাতশ’ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৫৪টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ১৮টি সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড নিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) গঠিত। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) রয়েছে ৭৫টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ২৫টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড। দুই সিটিতে ৫৪ লাখ ৬৩ হাজার ৪৬৭ জন ভোটার রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটিতে মোট ভোটার রয়েছেন ৩০ লাখ ১০ হাজার ২৭৩ জন। আর ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে ভোটার রয়েছেন ২৪ লাখ ৫৩ হাজার ১৯৪ জন।

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট হবে।

ঢাকা-১৮ আসনে উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দেবেন বিএনপি প্রার্থী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিএনপি প্রার্থী এস.এম. জাহাঙ্গীর।

বিএনপি প্রার্থী এস.এম. জাহাঙ্গীর।

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা-১৮ আসনের উপ-নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দেবেন বিএনপি প্রার্থী এস.এম. জাহাঙ্গীর।

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) দুপুর ১টায় তিনি আগারগাঁও প্রধান নির্বাচন কমিশন অফিসে মনোনয়নপত্র জমা দেবেন বলে জানা গেছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান।

মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় এস.এম. জাহাঙ্গীরের সঙ্গে উপস্থিত থাকবেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ও উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান সমন্বয়ক আমানউল্লাহ আমান।

উল্লেখ্য, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে চলতি বছরের ৯ জুলাই ঢাকা-১৮ আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়। নির্বাচন কমিশন আগামী ১২ নভেম্বর এই আসনে উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করেছে।

;

বাধা উপেক্ষা করে নির্বাচনী প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন বিএনপি প্রার্থী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
নির্বাচনী প্রচারণায় বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ।

নির্বাচনী প্রচারণায় বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ।

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রতিপক্ষের নানা বাধা উপেক্ষা করে নির্বাচনী প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন ঢাকা-৫ উপনির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ। প্রতিদিনই বিশাল কর্মী বাহিনী নিয়ে ভোটারদের দ্বারে ঘুরছেন তিনি।

বাণিজ্যিক এলাকার দোকানপাট-ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে আবাসিক এলাকা ও নিম্ন আয়ের মানুষের আবাসস্থল বস্তিবাসীর কাছেও যাচ্ছেন বিএনপি প্রার্থী। তিনি যেখানেই যাচ্ছেন বিপুলসংখ্যক মানুষ নেমে আসছে তার নির্বাচনী প্রচারণায়।

এ সময় গৃহবধূ, শিক্ষার্থী ও শিশুরা হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানায় বিএনপি প্রার্থীকে। প্রতিউত্তরে সালাহউদ্দিন আহমেদও হাত নেড়ে জবাব দেন।

শনিবার (১০ অক্টোবর) বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ যাত্রাবাড়ী এলাকার ৪৮ নম্বর ওয়ার্ডের আর কে চৌধুরী কলেজ গলি, ৪৯ নম্বর ওয়ার্ডের সুতি খালপাড় ও ৫০ নম্বর ওয়ার্ডের ১২ নম্বর গলিতে গণসংযোগকালে এসব কথা জানান।

এ সময় কয়েক কিলোমিটার পায়ে হেঁটে ভোটারদের কাছে যান বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ।

সরকার দলীয় প্রার্থীর এক বক্তব্যের জবাবে সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, মনু সব সময় এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী ও টেন্ডারবাজদের দ্বারা পরিবেষ্টিত থাকেন। এমনকি নির্বাচনকে সামনে রেখে কারাগারে আটক কয়েকজন সন্ত্রাসীকে মুক্ত করে আনা হয়েছে ভোটারদের ভয়ভীতি দেখানোর জন্য। সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী প্রার্থী এলাকার শিল্পপতিসহ নানাজনের কাছে চাঁদা দাবি করেছে বলে অনেকেই আমাকে জানিয়েছেন।’

এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি প্রার্থী বলেন, নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করছে না। আমাদের অভিযোগগুলো আমলে নিচ্ছে না। নির্বাচনী দায়িত্বে থাকা কিছু ম্যাজিস্ট্রেট বিনা কারণে আমাদের কার্যক্রমে বাধা সৃষ্টি করছে।

তাদের উদ্দেশে সালাহউদ্দিন বলেন, আপনারা জনগণের ট্যাক্সে লালিত-পালিত। তাই জনগণের পক্ষে থাকুন। তা থাকতে ব্যর্থ হলে ও ঢাকা-৫ উপনির্বাচন সুষ্ঠু না হলে সরকার পতনের আন্দোলন শুরু হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন সালাহউদ্দিন আহমেদ।

নির্বাচনী প্রচারণা ও গণসংযোগকালে অন্যান্যের মাঝে আরও উপস্থিত ছিলেন- মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর আহমেদ রবিন, যাত্রাবাড়ী বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান ভাণ্ডারী, সহসভাপতি আনোয়ার হোসেন সরদার, যুগ্ম সম্পাদক মাসুম দেওয়ান, যাত্রাবাড়ী যুবদলের সিনিয়র সহসভাপতি মজিবুর রহমান মধু, যাত্রাবাড়ী থানা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক শান্ত ইসলাম, জুম্মন, যাত্রাবাড়ী থানা জাসাসের আহ্বায়ক ইব্রাহিম খলিল, স্বেচ্ছাসেবকদলের থানা আহ্বায়ক আলাউদ্দিন মানিক ও নারীদের থানা সভানেত্রী মাসুদা খান লতাসহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।

;

বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিনের গাড়িতে হামলা, ভাঙচুর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সালাহউদ্দিন আহমেদকে বহনকারী গাড়িতে ফের হামলা হয়েছে।

সালাহউদ্দিন আহমেদকে বহনকারী গাড়িতে ফের হামলা হয়েছে।

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদকে বহনকারী গাড়িতে ফের হামলা হয়েছে। এতে সালাহউদ্দিন অক্ষত থাকলেও হামলায় গাড়ির বিভিন্ন অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী মনিরুল ইসলাম মনুর সমর্থকরা এই হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সালাহউদ্দিন আহমেদ।

বুধবার (৭ অক্টোবর) দুপুরে নির্বাচনী গণসংযোগ শেষে যাত্রাবাড়ীতে প্রধান নির্বাচনী অফিসে ফেরার পথে ডেমরা বামৈল ব্রিজের উপর এ হামলার ঘটনা ঘটে।

সালাহউদ্দিন আহমেদ জানান, ছাত্রলীগ-যুবলীগের ১৫-২০ জন নেতাকর্মী মিছিলসহ হঠাৎ দৌড়ে এসে অতর্কিত হামলা চালিয়ে তার গাড়ির গ্লাস ভেঙে ফেলে।

নির্বাচনী প্রচারণায় এ হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী মনিরুল ইসলাম মনুর এক বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপি প্রার্থী বলেন, ‘আওয়ামী লীগের প্রার্থী নাবালক ও অর্বাচীন। রাজনীতি ও এ নির্বাচনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সম্পর্কে কোনো ধারণা নাই। তিনি একদিকে আমাকে বহিরাগত বলে সম্পূর্ণ ফালতু অপপ্রচার চালান, আবার আমার গণসংযোগে হামলাও করেন।’

তিনি বলেন, ‘আমি সালাহউদ্দিন আহমেদ এই এলাকার তিন বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। এ এলাকার ৯০ ভাগ উন্নয়ন আমার হাত ধরে হয়েছে। আমার প্রচারণায় অতর্কিত হামলা করে এ এলাকার জনগণের মনে আঘাত করেছেন তিনি। একই সঙ্গে রাজনীতিতে তার নাবালকতার পরিচয় দিয়েছেন।’

এর আগে ডেমরার বামৈল ব্রিজ থেকে শুরু করে বামৈল বাজার, ডগাইর নতুনপাড়াসহ কয়েকটি এলাকায় নেতাকর্মীদের নিয়ে গণসংযোগ করেন তিনি।

;

ঢাকা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন মনিরুল



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি সংগৃহীত।

ছবি সংগৃহীত।

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনে মনিরুল ইসলাম মনু ও নওগাঁ-৬ আসনে মো. আনোয়ার হোসেন হেলালকে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) সকালে নিজের সরকারি বাসভবন থেকে এক ভিডিও কনফারেন্সে এ ঘোষণা দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

মনিরুল ইসলাম মনু হলেন যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি। এছাড়া আনোয়ার হোসেন হেলাল হলেন রাণীনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গত ৩০ আগস্ট গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হয়। বোর্ড চেয়ারপারসন ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঢাকা-৫ আসনে মনিরুল ইসলাম মনু এবং নওগাঁ-৬ আসনে মো. আনোয়ার হোসেন হেলালকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দলীয় প্রার্থীর বিজয়ে কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছি।’

অপরদিকে ঢাকা-১৮ আসনে উপনির্বাচনে তফসিল ঘোষণা করার পর নৌকার প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

প্রসঙ্গত, গত ৬ মে ঢাকা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুতে এ নির্বাচনী আসনটি খালি হয়। এছাড়া সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলমের মৃত্যুতে শূন্য হয় নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনটি। এ কারণে এখন ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনে চলছে উপনির্বাচনের প্রস্তুতি। 

;