মেডিকেল ইস্যুর জন্য প্রেগনেন্সির কথা বিয়ের আগে জানাতে পারিনি: দিয়া মির্জা



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মালদ্বীপে স্বামীর পাশে দিয়া মির্জা

মালদ্বীপে স্বামীর পাশে দিয়া মির্জা

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি স্বামী বৈভব রেখি ও সৎ মেয়ে সামায়রাকে নিয়ে মালদ্বীপ ভ্রমণে গিয়েছেন দিয়া মির্জা। সেখান থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে একটি ছবি শেয়ার করে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বলিউডের এই অভিনেত্রী। যেখানে দেখা গেছে তার বেবিবাম্প। এরপরই দিয়ার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি নিয়ে উঠতে শুরু করে নানা প্রশ্ন।

অনেকে প্রশ্ন করে গত ফেব্রুয়ারি বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে এক মাসের মধ্যে এতো বড় বেবিবাম্প কী করে হলো? আবার অনেকে বলেছে, অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার কারণেই নাকি জলদি জলদি বিয়ের কাজটি সেরে ফেলেছেন ৩৯ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী। আবার কারও প্রশ্ন বিয়ের আগে কেনো অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ঘোষণা দিলেন না তিনি? যেখানে নারী পুরোহিতকে দিয়ে তিনি তার বিয়ের সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পূর্ণ করে একটি নিয়ম ভঙ্গে করতে পারেন, তাহলে কেনো তিনি আগে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ঘোষণা দিয়ে বিয়ের পরই অন্তঃসত্ত্বা হওয়া যাবে এই নিয়ম ভঙ্গ করলেন না?

নিজের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি নিয়ে এতো বেশি বিতর্ক হওয়ায় আর চুপ থাকতে পারলেন না দিয়া মির্জা। অবশেষে মুখ খুললেন তিনি।

দিয়া মির্জা বলেন, “সকলেই খুব ভালো প্রশ্ন করেছেন। প্রথম কথা হচ্ছে, আমরা বাবা-মা হতে যাচ্ছি এ কারণে বিয়ে করিনি। আমরা তখনই বিয়ের সিদ্ধান্তটি নিয়েছি যখন আমাদের মনে হয়েছে আমরা একসঙ্গে সারা জীবন কাটাতে চাই। আমরা যখন বিয়ের পরিকল্পনা শুরু করি তখনই জানতে পারি আমি অন্তঃসত্ত্বা। কিছু মেডিকেল ইস্যু ছিলো যার কারণে আমরা আগে এর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিতে পারিনি। এটি আমার জীবনে সবচেয়ে আনন্দের খবর। এই দিনটির জন্য অনেক বছর অপেক্ষা করেছি আমি। তাই এটি লুকিয়ে রাখার কোনো প্রশ্নই আসে না। কিন্তু বিষয়টি লুকিয়ে রেখেছি কিছু মেডিকেল ইস্যুর কারণে।”

আমি এসব প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে এড়িয়ে যেতে পারতাম কিন্তু উত্তর দিচ্ছি কারণ একজন সন্তান জীবনের সেরা উপহার। এই জার্নিটি নিয়ে কখনও কোনো লজ্জা থাকে না। একজন নারী হিসেবে আমাদের সর্বদা আমাদের পছন্দ অনুশীলন করা উচিত। আমরা সিঙ্গেল থাকতে চাই নাকি অভিভাবক হতে চাই না বিয়ে করতে চাই এটি সম্পূর্ণ আমাদের পছন্দ।