স্ট্যাটাস দিয়ে প্রমাণ দিতে হলো বেঁচে আছি: হানিফ সংকেত



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
হানিফ সংকেত

হানিফ সংকেত

  • Font increase
  • Font Decrease

সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে নির্মাতা ও উপস্থাপক হানিফ সংকেতের। মঙ্গলবার (২৪ মে) রাতে হঠাৎ করেই তাঁর মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এমন মিথ্যা গুজব নিয়ে তিনি আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন।

বুধবার (২৫ মে) নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে একটি পোস্ট দিয়ে হানিফ সংকেত লিখেছেন, “আমার ভাবতে কষ্ট হচ্ছে আমাকে স্ট্যাটাস দিয়ে প্রমাণ দিতে হলো, আমি বেঁচে আছি। আমার মৃত্যু নিয়ে এ ধরণের স্ট্যাটাস কখনও দিতে হবে ভাবিনি।”

“সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারী এক শ্রেণির বিকৃত মানসিকতার মানুষ তাদের ভিউ ব্যবসা ও ফলোয়ার বাড়াবার প্রত্যাশায় মানুষের মৃত্যু নিয়ে মিথ্যে ও বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়ে অসামাজিক কাজ করছে। ছড়িয়েছে আমার মৃত্যু সংবাদ। একজন সুস্থ মানুষকে মেরে ফেলার পেছনে এদের কি ধরণের মানসিকতা কাজ করে আমার বোধগম্য নয়। তারা কী একবারও চিন্তা করে না আমাদেরও পরিবার আছে, আত্মীয়-স্বজন আছে, শুভাকাঙ্ক্ষী আছে? এ ধরণের সংবাদে তাদের মানসিক অবস্থা কি হতে পারে? আমি আপনাদের সবার দোয়া ও ভালোবাসায় সুস্থ আছি। ভালো আছি। আমার কোনরকম কোন দুর্ঘটনাও ঘটেনি। গত দু’দিন ধরে আমি ও আমার পরিবার এই মৃত্যু গুজবের কারণে নিদারুণ মানসিক কষ্টে আছি। শত শত মানুষ যোগাযোগ করেছেন, এখনও করছেন। সুস্থতা কামনা করছেন। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে শুধুমাত্র ভিউ, লাইক, শেয়ার পাবার জন্য একজন মানুষকে এরা মেরে ফেলবে? এ কি ধরণের মানসিকতা? নাকি এদের অন্য কোন উদ্দেশ্য আছে? এর আগেও বেশ কয়েকজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বের মৃত্যুর আগেই মৃত্যুর গুজব ছড়িয়েছে একটি মহল। সময় এসেছে এদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হবার। যেসব মাধ্যম এবং পেজ থেকে এ ধরণের সংবাদ আপলোড হচ্ছে, শেয়ার হচ্ছে তাদের আপনারা বুঝিয়ে দিন, না জেনে না শুনে নিশ্চিত না হয়ে কোন কিছু শেয়ার করা শুধু অন্যায় নয়, অপরাধও। দেশ বিদেশ থেকে আমার অনেক শুভাকাঙ্ক্ষী, আত্মীয়-স্বজন ও ভালোবাসার মানুষরা আমাকে সমবেদনা জানিয়েছেন। ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।”

“আমার আকস্মিক মৃত্যু গুজবে যারা কষ্ট পেয়েছেন, সমবেদনা জানিয়েছেন সবার প্রতি আমার আন্তরিক কৃতজ্ঞতা। আর যারা এ ধরণের গুজব ছড়িয়েছে তাদের প্রতি অন্তর থেকে ঘৃণা প্রকাশ করছি। ইতোমধ্যে আমি সাইবার ক্রাইম কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা শীঘ্রই ব্যবস্থা নেবেন বলে আমাকে আশ্বস্ত করেছেন। আর একটি অনুরোধ, ‘গুজবে কখনও কান দিবেন না’।”

সবশেষ সকলের কাছে দোআ চেয়ে তিনি লিখেছেন, “আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন। আপনাদের দোয়া ও ভালোবাসাই আমার পাথেয়।”

ইয়ুথ ইমারজিং লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড পেলেন নির্মাতা হেমন্ত সাদীক



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
প্রযোজক হেমন্ত সাদীকের হাতে ‘দ্য ইয়ুথ ইমারজিং লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ তুলে দিচ্ছেন আয়োজকরা

প্রযোজক হেমন্ত সাদীকের হাতে ‘দ্য ইয়ুথ ইমারজিং লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ তুলে দিচ্ছেন আয়োজকরা

  • Font increase
  • Font Decrease

থাইল্যান্ডের ব্যাংকক শহরে অনুষ্ঠিত হলো গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ সামিট-২০২২। এই সামিটে ‘দ্য ইয়ুথ ইমারজিং লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন তরুণ চলচ্চিত্র নির্মাতা ও প্রযোজক হেমন্ত সাদীক। তিনি তরুণদের চলচ্চিত্র সংসদ সিনেমা বাংলাদেশের সভাপতি ও গ্লোবাল ইয়ুথ ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল বাংলাদেশের উৎসবের প্রযোজক।

গত ২৪ জুন (শনিবার) ব্যাংককের রয়েল থাই আর্মি ক্লাবের বলরুমে গ্লোবাল ইয়ুথ পার্লামেন্ট আয়োজিত দু’দিনব্যাপী এই সামিটের উদ্বোধনী দিনে হেমন্ত’র হাতে এই পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন থাইল্যান্ডের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি মিনিস্টার এইচ ই ড. কালায়া সফনপানিচ, বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনাইটেড নেশন পিস কিপারস ফেডারেল কাউন্সিল (ইউএনপিকেএফসি) এর প্রেসিডেন্ট এইচ ই ড. আফিনিতা চৈচনা, থাই রাজপরিবারের সদস্য এইচ ই ওয়ানচাই নাওয়ারাত, গ্লোবাল ইউথ পার্লামেন্টের সভাপতি দিওয়াকার আরয়াল প্রমুখ।

চলচ্চিত্র চর্চাকে বিকেন্দ্রীকরণের লক্ষ্য নিয়ে ২০১৫ সালে হেমন্ত সাদীক প্রতিষ্ঠা করেন চলচ্চিত্র সংসদ সিনেমা বাংলাদেশ। তার নেতৃত্বে এই চলচ্চিত্র সংসদ ২০১৭ সাল থেকে প্রতি বছর তরুণদের নির্মিত চলচ্চিত্র নিয়ে বিভাগীয় ও জেলা শহর দেশের নানা প্রান্তে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের আয়োজন করে আসছে। ‘গ্লোবাল ইয়ুথ ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল বাংলাদেশ’ নামে পরিচিত এই উৎসব এরই মধ্যে লক্ষ্মীপুর, রংপুর, ময়মনসিংহ, বান্দরবান ও নাটোরে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

চলতি বছরের ডিসেম্বরে তারুণ্যের এ চলচ্চিত্র উৎসব অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কক্সবাজারে। উৎসব আয়োজন ছাড়াও দেশজুড়ে এ পর্যন্ত ১৫টি শহরে তরুণদের জন্য চলচ্চিত্র নির্মাণ কর্মশালা আয়োজন করেছে সংগঠনটি।

এর আগে ২০২০ সালে সম্মানজনক ‘জয়বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ পায় সিনেমা বাংলাদেশ।

;

হলিউড-বলিউড অভিনেতাদের সঙ্গে এবার এলিনা শাম্মী



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা ২৪.কম
এলিনা শাম্মী

এলিনা শাম্মী

  • Font increase
  • Font Decrease

বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করে আলোচনায় উঠে আসেন এ সময়ের অভিনেত্রী এলিনা শাম্মী। এবার ‘এমআর-নাইন’ সিনেমায় নাম লেখালেন এই অভিনেত্রী। ‘মাসুদ রানা: ধ্বংসপাহাড়’ উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হচ্ছে সিনেমাটি।

‘এমআর-নাইন’ সিনেমার চিত্রনাট্য রচনা করেছেন আসিফ আকবর, আব্দুল আজিজ এবং নাজিম উদ দৌলা। বাংলাদেশের প্রযোজনা সংস্থা জাজ মাল্টিমিডিয়া, লস অ্যাঞ্জেলেসভিত্তিক আল ব্রাভো ফিল্মস এবং এমআর-নাইন ফিল্মস সিনেমাটি প্রযোজনা করছে।

দুই দিন আগে সিনেমাটিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন এলিনা। তা জানিয়ে এ অভিনেত্রী বলেন, চরিত্রটি গুরুত্বপূর্ণ। রাজধানীর মিরপুর সুইমিং কমপ্লেক্সে গত বৃহস্পতিবার থেকে শুটিং শুরু হয়েছে, চলবে ২৯ জুন পর্যন্ত। সিনেমার পরিচালক আসিফ আকবর। তার পরিচালনায় আমেরিকার লাস ভেগাসে হয়েছে সিনেমাটির দৃশ্যধারণের কাজ। তাঁর অভিনীত অন্য সিনেমাগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘টুঙ্গিপাড়ার দু:সাহসী খোকা’ , জলরঙ, ছায়াবৃক্ষ, ওয়েবফিল্ম সিন্ডিকেট, মধ্যবিত্ত ।

এমআর-নাইন সিনেমাটিতে আরো অভিনয় করছেন বলিউড অভিনেত্রী সাক্ষী প্রধান (পয়জন), হলিউড অভিনেতা নিকো ফস্টার (আর্মি অব ওয়ান), বলিউড অভিনেতা ওমি বৈদ্য (থ্রি ইডিয়টস), হলিউড অভিনেতা ওলেগ প্রুডিয়াস (উলফ ওয়ারিয়র টু), আমেরিকান মডেল-অভিনেত্রী জ্যাকি সিগেল (দ্য কুইন অব ভার্সাই)।

এ ছাড়াও আনিসুর রহমান মিলন এবং শহিদুল আলম সাচ্চু যুক্ত হয়েছেন ‘এমআর-নাইন’ সিনেমায়। সিনেমাটিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছেন-বাংলাদেশি অভিনেতা এ বি এম সুমন।

;

বাবা-মা হচ্ছেন হিল্লোল-নওশীন



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা ২৪ কম
বাবা-মা হচ্ছেন হিল্লোল-নওশীন

বাবা-মা হচ্ছেন হিল্লোল-নওশীন

  • Font increase
  • Font Decrease

জনপ্রিয় তারকা জুটি অভিনেত্রী-উপস্থাপিকা নওশীন নাহরিন মৌ ও অভিনেতা আদনান ফারুক হিল্লোল বাবা-মা হতে চলেছেন। এ দম্পতির ঘরে আসছে তাদের প্রথম সন্তান।

বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র থেকে নিশ্চিত করেছেন নওশীন নিজেই। এ সময় তিনি নিজের ও অনাগত সন্তানের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।  

বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী নওশীন-হিল্লোল। জানা যায়, শনিবার (২৫ জুন) নিউ ইয়র্কে আয়োজন করা হয় নওশীনের বেবি সাওয়ার। যেখানে অংশ নেন রিচি সোলায়মান, কাজী মারুফ, মোনালিসা, তমালিকা কর্মকার, কল্যাণ কোরাইয়া ও রোমানাসহ বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি তারকা।  

চলতি বছর হিল্লোল বাংলাদেশে এলেও তখন নওশীন আসেননি। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন তারা।

;

‘শান্তি চাই’ লিখে উঠতি মডেলের আত্মহত্যার চেষ্টা



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা ২৪.কম
দেবলীনা দে

দেবলীনা দে

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি কলকাতায় পল্লবী দে, বিদিশা মজুমদার ও মঞ্জুষা নিয়োগীসহ বেশ কয়েকজন মডেল-অভিনেত্রী আত্মহত্যা করেছেন। তাদের আত্মহত্যার রেশ কাটতে না কাটতেই খবর এল কলকাতার এক উঠতি মডেলের আত্মহননের চেষ্টার।

এই মডেলের নাম দেবলীনা দে। ২৭ বছর বয়সী এই তরুণী বিভিন্ন সিরিয়াল ও মিউজিক ভিডিওতে কাজ করেন। শুক্রবার রাতে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে বেশ কয়েকটি ঘুমের ওষুধ খেয়ে নেন তিনি। তবে পূর্ব যাদবপুর থানার পুলিশের তৎপরতায় প্রাণে বাঁচলেন ওই তরুণী। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি।

শুক্রবার রাতে একটি ফেসবুক পোস্টে দেবলীনা লেখেন, ‘আমি বেঁচে থাকার জন্য অনেক লড়াই করেছি। আমার পরিবার সব কিছুর জন্য দায়ী… এখন আমি শান্তি চাই। বিদায়।’

মুহূর্তেই সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্টটি নজরে আসে তার বন্ধু-বান্ধবদের। নজরে আসে পুলিশেরও। তড়িঘড়ি করে পূর্ব যাদবপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পুলিশ গিয়ে দেখে, ঘরে অচেতন অবস্থায় পড়ে রয়েছেন তিনি। তাকে উদ্ধার করে তড়িঘড়ি পাশের একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। চিকিৎসকরা জানান, অতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খেয়ে নিয়েছেন তিনি।

জানা গেছে, দেবলীনা দে আদতে কালনার বাসিন্দা। তবে কর্মসূত্রে যাদবপুরের আবাসনে থাকতেন। শুক্রবার কালনার বাড়িতে গিয়েছিলেন উঠতি মডেল। সেই সময় পরিবারের লোকজনের সঙ্গে একপ্রকার তর্কাতর্কিও হয় তার। ফিরে আসেন যাদবপুরের আবাসনে। ফিরে রাতেই চূড়ান্ত অবসাদে ভরা ফেসবুক পোস্ট করেন ওই উঠতি মডেল। তবে কী কারণে পরিবারের লোকজনের সঙ্গে তর্কাতর্কি হলো তার, সে বিষয়ে এখনো কিছু জানা যায়নি।

;