ভারতীয় পাসপোর্টের জন্য অক্ষয়ের আবেদন



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
অক্ষয় কুমার

অক্ষয় কুমার

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশপ্রেম ও সমাজের সঙ্গে প্রাসঙ্গিক ছবিতে অভিনয়ের জন্য বলিউড সুপারস্টার অক্ষয় কুমারের আলাদা ভাবমূর্তি আছে। তবুও কানাডিয়ান নাগরিকত্ব থাকায় সবসময় প্রশ্নবিদ্ধ হন তিনি। দেশের জন্য ভালোবাসার প্রমাণ দিতে বললে খুব কষ্ট হয় তার। ৫২ বছর বয়সী এই তারকা অনেকবার এমন অভিব্যক্তি জানিয়েছেন। দেশের তরে বিভিন্নভাবে এগিয়ে এসেছেন তিনি। তবুও সমালোচনার তীর বারবার ছুটে আসে তার দিকে। কানাডার নাগরিক হয়ে ভারতে পকেট ভারী করায় ট্রলের হাত থেকেও রেহাই পান না তিনি।

নিন্দুকদের মুখ বন্ধ করতে অবশেষে ভারতীয় পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেছেন অক্ষয়। অল্প কয়েকদিন পরেই এটি হাতে পেয়ে যাবেন তিনি। ১৭তম হিন্দুস্তান টাইমস লিডারশিপ সামিটে খবরটি জানান ‘খিলাড়ি’ তারকা।

অক্ষয় কুমার

পাসপোর্টের জন্য আবেদনের কথা জানানোর পর ভক্তদের ভালোবাসায় সিক্ত হচ্ছেন অক্ষয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কয়েকজনের মন্তব্য করেছে- ভারতীয় নাগরিকত্ব থাকুক আর না থাকুক, প্রিয় তারকাকে তারা ভালোবেসে যাবেন।

নাগরিকত্ব নিয়ে জল্পনা ও বিতর্ক ছড়িয়ে পড়ায় গত মে মাসে মুখ খোলেন অক্ষয়। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘আমি সত্যিই বুঝতে পারছি না, আমার নাগরিকত্ব নিয়ে মানুষ অযথা কেনো আগ্রহ দেখাচ্ছে। আমার কানাডিয়ান পাসপোর্ট আছে, এটা কখনও লুকাইনি বা অস্বীকার করিনি। একইভাবে এটাও সত্যি, গত সাত বছর কানাডায় যাইনি। ভারতের প্রতি যে আমার দেশপ্রেম আছে সেটা দেখানোর প্রয়োজন মনে করিনি কখনও। ব্যক্তিগত ও অরাজনৈতিক একটি বিষয় নিয়ে বিতর্ক হওয়ায় আমি হতাশ।’

অক্ষয় কুমার

দিল্লিতে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে অক্ষয় বলেন, ‘কখনও ভাবিনি কানাডিয়ান পাসপোর্ট ছেড়ে অন্য দেশের নাগরিকত্ব নেবো। তবে পরিস্থিতির কারণে ভারতীয় পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেছি। আমার দেশপ্রেম ও নাগরিকত্ব নিয়ে মানুষ নেতিবাচক মন্তব্য করে, এ কারণে খুব কষ্ট হয়। আমি যে হিন্দুস্তানি সেটা বোঝানোর জন্য পাসপোর্ট দেখাতেই হবে। তাই ভারতীয় নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করেছি। হয়তো শিগগিরই পাসপোর্ট হাতে পেয়ে যাবো।’

এদিকে অক্ষয়ের নতুন ছবি ‘গুড নিউজ’ মুক্তি পাবে আগামী ২৭ ডিসেম্বর। এতে তার বিপরীতে আছেন কারিনা কাপুর খান। এর গল্প দুই দম্পতিকে ঘিরে। সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান জন্মদানের চেষ্টা করে তারা। রাজ মেহতার পরিচালনায় ছবিটিতে আরও অভিনয় করেছেন দিলজিৎ দোশাঞ্জ ও কিয়ারা আদভানি।