জয় বাংলা কনসার্ট: গানের মাঝে বঙ্গবন্ধুর সেই বজ্রকণ্ঠ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
জয় বাংলা কনসার্ট ২০২০, ছবি: বার্তা২৪

জয় বাংলা কনসার্ট ২০২০, ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

সকাল থেকে প্রস্তুত রাজধানীর বাংলাদেশ আর্মি স্টেডিয়াম। পূর্বনির্ধারিত সময় সকাল ১১টায় খুলে দেওয়া হলো ৯টি গেইট। একে একে আর্মি স্টেডিয়ামে প্রবেশ করছেন সংগীত প্রেমীরা। দুপুর ১টার কিছু সময় পর ব্যান্ডদল ইনট্রোয়িট মঞ্চে উঠার আগে জাতীয় সংগীত ও  ‘জয় বাংলা বলে আগে বাড়ো’ গান দিয়ে শুরু হয় এবাবের জয় বাংলা কনসার্ট। তখনও আর্মি স্টেডিয়াম যেন মানব শূন্য।

দুপুর গড়িয়ে বিকেল হতেই দৃশ্যপটের পরিবর্তন। আর্মি স্টেডিয়াম ভরে যেতে শুরু করেছে সংগীত প্রেমীদের পদচারণায়। এমন পদচারণায় মুখর হওয়ার মাঝেও শোনা গেলো বেশ কিছু অভিযোগ, দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও বিশৃঙ্খলা আর অব্যবস্থাপনায় প্রবেশ করতে পারেনি কেউ কেউ, পুলিশের লাঠি পেটা খাওয়ার অভিযোগ এনেছেন অনেকে।

প্রবেশ পথের বাইরে এমন অভিযোগ যখন, তখন একে একে আর্মি স্টেডিয়াম মাতিয়ে চলেছেন এফ মাইনর ব্যান্ড, মিনার রহমান, এভোয়েড রাফা, ভাইকিং এর মত জনপ্রিয় ব্যান্ডদলগুলো।

জয় বাংলা কনসার্টে তরুণরা

বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা, মঞ্চে তখন ব্যান্ডদল শূন্য। ৭টা ২০ মিনিটে জয় বাংলা কনসার্টে হাজির প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছোট বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী আসন গ্রহণ করেন স্টেডিয়ামের পশ্চিম প্রান্তে স্থাপিত ভিআইপি গ্যালারিতে। আর বিকেল থেকে স্টেডিয়ামে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধুর দুই দৌহিত্র সায়মা ওয়াজেদ হোসেন ও রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক।

শূন্য ব্যান্ডের পর মঞ্চে লালন ব্যান্ডের পরিবেশনাও তখন শেষ। এরপর যেন সমগ্র আর্মি স্টেডিয়াম পরিণত হল রেসকোর্স ময়দানে। শোনা গেলো বঙ্গবন্ধুর সেই বজ্রকণ্ঠ। চমক হিসেবে প্রদর্শিত হলো ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের থ্রিডি হলোগ্রাম। তবে এই চমকের শুরুটা ছিলো কবি নির্মলেন্দু গুণের কবিতা ‘স্বাধীনতা, এই শব্দটি কীভাবে আমাদের হলো’ আবৃত্তি দিয়ে, এরপর হলোগ্রাফিকরূপে বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা স্মৃতিচারণ করলেন সেদিনের (৭ মার্চ,১৯৭১) বাড়ির ভেতরের ঘটনা। যার শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কণ্ঠে আবৃত্তিও শোনা গেলো। আর এই বিশেষ আয়োজন উপভোগ করলেন প্রধানমন্ত্রী নিজেও। সে সময় আর্মি স্টেডিয়ামের সবাই যেন ফিরে গেলেন ১৯৭১ সালের ৭মার্চের সেই রেসকোর্স ময়দানে, আরও একবার শুনলেন বঙ্গবন্ধুর সেই বজ্রকণ্ঠ।

হলোগ্রামে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা

এরপর আবার শুরু হলো গান। জনপ্রিয় ব্যান্ডদলগুলো নিজেদের গানের পাশাপাশি এবারের আয়োজনে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের গানগুলো পরিবেশন করেন। রাত ১১টায় কিছুক্ষণ পরে মঞ্চে উঠেন ব্যান্ডদল ফুয়াদ অ্যান্ড ফ্রেন্ড। তাদের পরিবেশার পর মঞ্চ মাতিয়েছেন আয়োজনের সবশেষ আকর্ষণ ব্যান্ডদল চিরকুট।

সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) জানায়, গত বছর (৭ মার্চ, ২০১৯) এই কনসার্ট টেলিভিশন ও অনলাইনে উপভোগ করেছেন ১০ লাখের বেশি দর্শক। আর সরাসরি আর্মি স্টেডিয়ামে উপস্থিত থেকে কনসার্ট উপভোগ করেছেন ৬০ হাজার মানুষ।