জুবায়ের সিদ্দিকী ছিলেন সিলেটে শিক্ষাবিপ্লবের সমর নায়ক



সাঈদ চৌধুরী
জুবায়ের সিদ্দিকী

জুবায়ের সিদ্দিকী

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী (অব.) ছিলেন সিলেটে এক নীরব শিক্ষা বিপ্লবের মহানায়ক। শিক্ষা আনে চেতনা, চেতনা আনে বিপ্লব। অন্তঃকরণে এই একটাই ভাবনা ছিল। স্কলার্স হোম ছিল তার স্বপ্নপূরণের গন্তব্য। তার অন্তঃকরণ কল্পনাতীত ভাবেই উদার ও সুপ্রশস্ত ছিল।

জুবায়ের সিদ্দিকী মূলত একজন অকুতোভয় সৈনিক, সফল শিক্ষাবিদ ও খ্যাতিমান লেখক। নিয়মানুবর্তী এই মানুষটার সাথে পরিচয়ের পর থেকেই হৃদয়ের কোণে জমে আছে অফুরান ভালোবাসা ও গভীর শ্রদ্ধা। তার নতুন দুটি মাইলফলক অর্জন, একজন সমর নায়ক থেকে শিক্ষক ও লেখক হিসেবে সফল উত্তরণ আমাদের চোখের সামনেই। প্রায় ত্রিশ বছর ধরে তাকে কাছে থেকে দেখেছি। তাই দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে বলতে পারি, এই বহুমুখী শিল্প সাধকের অনেকগুলো উত্তম গুণ আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় বিরল। তিনি ছিলেন নিভৃতচারী, নির্লোভ ও নিরহংকার জীবনের অধিকারী।

হঠাৎ এই আলোর প্রদীপ নিভে যাবে তা ভাবতে পারিনি। ইন্তেকালের কিছুদিন আগে তার শিক্ষা বিপ্লব নিয়ে কথা হয়েছিল। এক্ষেত্রে তিনি আমাকে প্রেরণা সঞ্চারকারী ভাবতেন। সিলেটে ইংরেজি মাধ্যমে খাজাঞ্চীবাড়ি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের যাত্রা আগে শুরু হলেও আমাদের বৃটিশ বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলকে (বিবিআইএস) তিনি নতুন মাত্রা হিসেবে বিবেচনা করতেন। ফলে তার শিক্ষা কার্যক্রম ও ক্যাম্পাস বৃদ্ধির সর্বশেষ অগ্রগতি শেয়ার করতেন। এ নিয়ে কিছু লেখার আগ্রহ প্রকাশ করলে তিনি খুব খুশি হয়েছিলেন। কিন্তু লেখার আগেই তিনি চলে গেলেন তার শেষ ঠিকানায়, মহান মাবুদের কাছে।

২০২০ সালের ৯ মার্চ বাহাত্তর বছরে পা রাখেন প্রবীণ এই কৃতি ব্যক্তিত্ব। বয়সের কারণে তাকে প্রবীণ বললেও এক উজ্জল তারুণ্য তার মাঝে ছিল বিদ্যমান। সৈনিক জীবন থেকে অবসরে এলেও কর্মজীবনে কোন বিরতি গ্রহণ করেননি। তার সর্বশেষ সাধনার ক্ষেত্র ছিল হাফিজ মজুমদার ট্রাস্টের শিক্ষা প্রকল্প ‘স্কলার্স হোম’।

১৯৯৭ সালে আমরা বৃটিশ বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল (বিবিআইএস) প্রতিষ্ঠার পর সিলেট অঞ্চলে আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার যে প্রয়াস পরিলক্ষিত হয়, এরই ধারাবাহিকতায় ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় স্কলার্স হোম স্কুল অ্যান্ড কলেজ। বর্তমানে এর ছয়টি শাখা রয়েছে শহরের বিভিন্ন প্রান্তে। সেখানে হাজার হাজার কোমলমতি শিশু-কিশোরদের জীবন গড়ার প্রধান কারিগর এই জুবায়ের সিদ্দিকী। সিলেটে এক নিরব শিক্ষা বিপ্লবের তিনি ছিলেন সমর নায়ক।

কথায় আছে, রতনে রতন চেনে। মানব কল্যাণে জীবন উৎসর্গকারী হাফিজ মজুমদার ঠিকই চিনতে পেরেছেন সিলেটের দুই রত্নকে। একজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী (অব.) আর অন্যজন হলেন বৃটেনে সাড়া জাগানো মেইনস্ট্রিম পলিটিশিয়ান ও শিক্ষাবিদ ড. কবীর চৌধুরী। এই কৃতি ব্যক্তিত্বরা সিলেট অঞ্চলে শিক্ষা বিস্তারের মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে রেখেছেন অপরিমেয় অবদান। এ এক বিরাট জাগরণ।

স্কলার্স হোম যেন খুলে দিয়েছে রূপকথার দরজা৷ জুবায়ের সিদ্দিকী বুঝতে পেরেছিলেন, আমাদের মত উন্নয়নশীল দেশে কত পিস মিগ বিমান এল তার চেয়ে কতটা ছেলে-মেয়ে প্রকৃত অর্থে শিক্ষিত হল তা অনেক বেশি গুরুত্বপর্ণ। উন্নত বিশ্বের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা নিয়ে প্রচুর পড়াশোনা করতেন তিনি। আমি যে বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নিচ্ছি, সেখানে আধুনিক শিক্ষার উপরে যে থিসিস হয়েছে তা জানতে গিয়ে তার আগ্রহ আমাকে মুগ্ধ করেছে। তিনি মনে করতেন, সিলেটে বড় বড় বিশ্ববিদ্যালয় দিয়ে কী হবে, যদি সেখানে স্থানীয় শিক্ষার্থী ভর্তি হতে না পারে! স্কলার্স হোমকে তিনি সে ঘাটতি পূরণের প্রাণকেন্দ্রে পরিণত করতে পেরেছেন। আরও বিশাল মহীরূহে পরিণত করার প্রয়াস অব্যাহত রেখেছিলেন।

জুবায়ের সিদ্দিকী সৈনিক জীবন থেকে সিভিলিয়ান জীবনে ফিরে এলেও সময় নষ্ট করার মত সাধারণ্যে তিনি ফিরে আসেননি। এজন্য পরিচিত মহলেও তার কিছুটা দূরত্ব ছিল। এটা তিনি সহজভাবে স্বীকার করতেন। সংকীর্ণতা, হীনমন্যতা ও দলাদলির এই দেশে অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার সাথে জুবায়ের সিদ্দিকী সামাজিক ও রাজনৈতিক বেড়াজাল থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখতে পেরেছিলেন। তিনি কখনও কোনো দল বা মতের পক্ষে কথা বলেননি।

সৈনিক জীবনে অনেক দক্ষ ও সাহসী ভূমিকার ফলে পর্যায়ক্রমে জুবায়ের সিদ্দিকী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল পদে উন্নীত হন। আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও কুয়েতের স্বাধীনতা রক্ষায় তার ভূমিকা প্রশংসনীয়। ১৯৯০ সালে ইরাক অতর্কিতে কুয়েত দখল করলে আমেরিকা সেখানে যৌথবাহিনী পাঠায়। বাংলাদেশ থেকেও আড়াই হাজার সৈন্য অংশ নেয়। বাংলাদেশ কন্টিনজেন্টের ডেপুটি কমান্ডার ছিলেন জুবায়ের সিদ্দিকী।

কর্মজীবনে বাংলাদেশ চা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবেও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। জুবায়ের সিদ্দিকী ১৯৬৭ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। ১৯৯৯ সালে ৩২ বছরের সেনাবাহিনী জীবনের ইতি টানেন।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী (অব.)’র আত্মজীবনিমুলক বই ‘আমার জীবন আমার যুদ্ধ’ পড়লে মুগ্ধ হতে হয়। এই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রখ্যাত কবি, সাবেক সচিব ও রাষ্ট্রদূত মোফাজ্জল করিম বলেছিলেন, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকীরা সংগ্রাম করে দেশ স্বাধীন করেছেন। জীবন যুদ্ধে জয়লাভ করেই মহাপুরুষে পরিণত হয়েছেন। দেশকে সুন্দর করতে সমৃদ্ধ করতে সোনালী ভবিষ্যতের জন্যে প্রয়োজন তারমত দেশপ্রেমিক নিষ্কলুষ মানুষের।

সিলেটে এক সময় আমার সহযোদ্ধা দাপুটে সাংবাদিক ও বাম রাজনীতিক শামীম সিদ্দিকীর বড় ভাই আমাদের প্রিয় জুবায়ের সিদ্দিকী ২০২০ সালের ২৫ মার্চ বুধবার ভোরে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। ২৪ মার্চ তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হলে প্রথমে তাকে সিলেটের হার্ট ফাউন্ডেশনে নেওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় ওই দিন বিকেলে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসারত অবস্থায় তিনি মারা যান।

জুবায়ের সিদ্দিকী স্মরণে দেশে ও প্রবাসে অনেক অনুষ্ঠান হয়। গত বুধবার (২২ মার্চ) সকালে স্কলার্সহোম শাহী ঈদগাহ ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণে অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মুনীর আহমেদ কাদেরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জুবায়ের সিদ্দিকী বৃত্তি প্রদান ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ইয়াসমিন সিদ্দিকী, সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, ট্রাস্টের সেক্রেটারি অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ছয়ফুল করিম চৌধুরী হায়াত।

ফারজানা মুর্শেদের সঞ্চালনায় এসময় আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন হাফিজ মজুমদার ট্রাস্টের যুগ্ম সচিব খায়রল আলম, মদনীবাগ ক্যাম্পাসের অধ্যক্ষ আক্তারী বেগম,পাঠানটুলা (প্রাথমিক) ক্যাম্পাসের ইনচার্জ জেবুন্নেছা জীবন, মেজরটিলা ক্যাম্পাসের নাহিদা খান, মোস্তাফিজুর রহমান ও শরিফ উদ্দিন। কবিতা আবৃত্তি করেন গণিত বিভাগের প্রভাষক বাপ্পি কুমার মজুমদার, দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী মাওদুরা রহমান আরিশা। জুবায়ের সিদ্দিকীর মহৎকর্ম নিয়ে ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করেন আইসিটি বিভাগের প্রভাষক জাহিদুল ইসলাম।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী (অব.) ট্রাস্টের পক্ষ থেকে এবছর বিভিন্ন শ্রেণির ১৫ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে বৃত্তি প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে বক্তারা এই মহতি মানুষের অবদান স্মরণ করে নতুন প্রজন্মকে সেভাবে গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। আল্লাহ যেন তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন। আমীন।

লেখক: লন্ডন প্রবাসী। সাংবাদিক, কবি ও কথাসাহিত্যিক।

   

দিল্লি: মৃত্যুহীন এক মহানগরী



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
দিল্লি: মৃত্যুহীন এক মহানগরী

দিল্লি: মৃত্যুহীন এক মহানগরী

  • Font increase
  • Font Decrease

দিল্লির অস্তিত্ব ও আত্মা বেঁচে আছে পুরনো শহরে। নতুন দিল্লি, গুরগাঁও, নয়ডা মিলিয়ে ভারতের জাতীয় রাজধানী দিল্লির বিশাল চৌহদ্দীর মধ্যে নতুনত্ব থাকলেও ঐতিহ্য সামান্যই। ইতিহাস ও ঐতিহ্য মিশে আছে পুরনো দিল্লির ইমারতে, হর্ম্যে, অট্টালিকায়. দুর্গে, পথেঘাটে, ধ্বংসস্তূপে, বাতাসে।

পুরনো দিল্লির ইতিহাস লিখতে গিয়ে আশির দশকের গোড়ার দিকে নারায়ণী গুপ্ত মন্তব্য করেছিলেন, ‘দিল্লির যে কত বার মৃত্যু হয়েছে!’ বিশিষ্ট ইতিহাসবিদের এই উক্তি স্মরণ করে কল্যাণী দেবকী মেনন মেকিং প্লেস ফর মুসলিমস ইন কন্টেম্পোরারি ইন্ডিয়া গ্রন্থে লিখেছেন, ‘প্রতিটি মৃত্যু এক একটি রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক রূপান্তর সাধন করেছে। মুঘল শাহজাহানাবাদ হয়েছে ব্রিটিশ-শাসিত দিল্লি। ব্রিটিশরা তাদের রাজধানী নয়াদিল্লিতে সরিয়ে নিয়ে গেলে আদি শহর হয়ে গেছে পুরানা দিল্লি। ঔপনিবেশিক জমানার সংঘাতময় অবসানের পরেও দিল্লি বার বার ভেতর থেকে আক্রান্ত হয়েছে। মরেছে। এবং পুনর্জন্ম লাভ করেছে।’

১৯৪৭ সালের দেশভাগের সময় ভয়াবহ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, পরবর্তীতে নানা কারণে তৈরি হওয়া রাজনৈতিক হিংসা, বিশেষত আশির দশকে ইন্দিরা গান্ধী নিহত হলে শিখ নিধন আর করোনার আগে আগে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলনকালে মুসলিমদের বিরুদ্ধে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ দিল্লির অস্তিত্বে রক্ত ও কলঙ্কের ছাপ রেখেছে। কর্পোরেট আগ্রাসনের প্রতিবাদে দীর্ঘমেয়াদী কৃষক আন্দোলন অনতি-অতীতে দিল্লির প্রতিবাদী চেহারা সামনে নিয়ে আসে। দিল্লি হালআমলে আলোচিত বায়ু দুষণের কারণে শীর্ষস্থান লাভকারী শহর হিসাবে। এমনকি, দিল্লির ইতিহাসে সর্বোচ্চ উষ্ণতার রেকর্ডও হয়েছে ২০২৪ সালে। চরম উত্থান ও পতনে, সঙ্কটে ও সন্ধিক্ষণে দিল্লি যেন মৃত্যুহীন এক মহানগরী: স্ফিনিক্স পাখির মতো ছাইভষ্মের ভেতর থেকে বার বার পুনর্জন্ম পেয়েছে দিলওয়ালাদের এই শহর দিল্লি। সংখ্যাতীত রাজা-বাদশাহের পাশাপাশি যে শহরের দ্যুতিময় চরিত্র হয়ে আছেন আমীর খসরু, তানসেন, মীর্জা গালিব থেকে শুরু করে দিল্লিওয়ালা শাহরুখ খান। দিল্লির বাসিন্দাদের বলা হয় দেহলভি, যে টাইটেল গ্রহণ করে বহু খ্যাতনামা দিল্লিবাসী স্থান পেয়েছেন ইতিহাসের অলিন্দে।       

অক্টাভিও পাজ (লোজানো) নোবেল বিজয়ী (১৯৯০) লাতিন কবি ও কূটনীতিবিদ দিল্লিতে বাস করেন মেক্সিকান রাষ্ট্রদূত হিসাবে। তার কাছে দিল্লির স্থাপত্য ছিল শব্দ ও কবিতার একটি সংমিশ্রণ। পুরনো দিল্লিতে তিনি দেখেছিলেন ‘প্রাচীন স্থাপনার চিত্ররূপ‘সমাবেশ an assemblage of images more than buildings. তিনি নতুন দিল্লিকে চিহ্নিত করেন অবাস্তব (unreal)। আর পুরনো দিল্লিতে খুঁজে পান উনিশ শতকের গথিক স্থাপত্যের লন্ডন ও প্রাচীন ব্যাবিলন শহরের ছাপ। যে শহরের নন্দনতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য সুরম্য দালানের ছায়া পেরিয়ে শত শত গল্প, উপন্যাস, ইতিহাস বইয়ের পাতায় মিশে আছে অক্টোভিও পাস ছাড়াও ভিক্টর হুগো, ওয়াল্টার স্কট, আলেকজান্ডার দ্যুমা প্রমুখের লেখনির মাধ্যমে। ভারতের অভিজ্ঞতায় ওক্টাভিও পাজ আস্ত একটি গ্রন্থ রচনা করেন In Light of India শিরোনামে।

দিল্লি জনপদের প্রথম উল্লেখ করে প্রাচীন মহাকাব্য মহাভারত, যেখানে যুদ্ধরত চাচাত ভাইদের দুটি দল, পা-ব এবং কৌরবদের সম্পর্কে রোমাঞ্চকর-মহাকাব্যিক বর্ণনা রয়েছে। পা-ব এবং কৌরব, উভয়েই ভরতের বংশধর ছিলেন। আখ্যান অনুসারে, পা-বদের রাজধানী ছিল দেবতা ইন্দ্রের শহর ইন্দ্রপ্রস্থ। যদিও ইন্দ্রপ্রস্থ নামে কিছুই অবশিষ্ট নেই তথাপি কিংবদন্তি অনুসারে এটি ছিল একটি সমৃদ্ধ শহর, যা দিল্লির পূর্বনাম। তবে দিল্লি নামক স্থানের প্রথম উল্লেখ পাওয়া যায় খ্রিস্টপূর্ব ১ম শতকে, যখন রাজা ধিলু দক্ষিণ-পশ্চিম দিল্লিতে বর্তমান কুতুব মিনার টাওয়ারের স্থানে একটি শহর তৈরি করেছিলেন এবং নিজের নাম ধিলু থেকে দিল্লি নামকরণ করেছিলেন।

পরবর্তীতে বর্তমান দিল্লি টায়াঙ্গেল নামে পরিচিত এলাকার অনঙ্গপুর বা আনন্দপুরে নামক স্থানে তোমারা রাজবংশের কথা জানা যায়, যারা আরো পশ্চিম দিকে ‘লালকোট’ নামের প্রাচীর ঘেরা দুর্গে চলে আসেন। ১১৬৪ সালে পৃথ্বীরাজ সেখানে আরো বিশাল প্রাচীর নির্মাণ করে জায়গাটির ‘কিলা রাই পিথোরা‘ নাম দেন। ১২ শতকের শেষের দিকে মুসলিম বিজয়ী মুহাম্মদ ঘোরী রাজা পৃথ্বীরাজকে পরাজিত করে দিল্লিসহ সমগ্র উত্তর ভারত অধিকার করেন। তিনিই প্রথম দিল্লির পরিকল্পিত বিকাশের সূচনা করেন। দিল্লিকে রাজধানী করে তিনি তার সেনাপতি কুতুবুদ্দীন আইবেককে শাসনকার্যের দায়িত্ব দিয়ে নিজ স্বদেশ আফগানিস্তান-ইরান সংলগ্ন ঘোর প্রদেশে ফিরে যান। ইতিহাসকারগণ মুহাম্মদ ঘোরীকে রাজধানী দিল্লির প্রতিষ্ঠাতা মনে করেন।

১৩ শতকের শেষের দিকে খিলজি বংশ দিল্লির ক্ষমতায় আসে। খিলজিদের রাজত্বকালে মোঙ্গল লুণ্ঠনকারীরা দিল্লি শহরকে ধ্বংস করে দিয়েছিল। মোঙ্গলদের পরবর্তী আক্রমণের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা হিসাবে দিল্লির শাসক আলাউদ্দিন খিলজি কুতুব মিনার থেকে অল্প দূরে উত্তর-পূর্ব দিকে ‘সিরি’ নামক স্থানে একটি নতুন বৃত্তাকার সুরক্ষিত শহর তৈরি করেছিলেন, যাকে খিলজি রাজধানী রূপে মনোনীত করা হয়। দিল্লির ভেতরে ‘সিরি‘ছিল প্রথম নতুন ও পরিকল্পিত শহর। আর আলাউদ্দির খিলজি ছিলেন বাইরের শত্রুর আক্রমণ থেকে দিল্লিকে রক্ষাকারী প্রথম সফল শাসক।

খিলজিদের পর দিল্লি ১৩২১ সালে তুঘলক রাজবংশের অধীনস্থ হয়। গিয়াসউদ্দিন তুঘলক ‘তুঘলকাবাদ‘ নামে একটি নতুন রাজধানী নির্মাণ করেন। কিন্তু কুতুব মিনারের কাছাকাছি স্থানটিকে পানির অভাবের কারণে পরিত্যাক্ত ঘোষণা করতে হয়। আরেক শাসক মুহাম্মদ ইবনে তুঘলক শহরটিকে আরো উত্তর-পূর্ব দিকে প্রসারিত করেন। তিনি চারপাশে শক্ত প্রাচীর বেষ্টিত একটি দুর্গও নির্মাণ করেন। তিনিই আবার রাজধানীকে দক্ষিণ দিকে প্রসারিত করে দেওগিরি মালভূমির প্রান্তে দৌলতাবাদ নামের আবাস গড়েন। পরবর্তী শাসক ফিরোজ শাহ তুঘলক দৌলতাবাদ পরিত্যাগ করে ১৩৫৪ সালে উত্তর দিকের ইন্দ্রপ্রস্থের প্রাচীন স্থানের পাশে ফিরোজাবাদ নামে রাজধানী স্থানান্তরিত করেন, বর্তমানে যা ‘ফিরোজ শাহ কোটলা‘ নামে প্রসিদ্ধ।  

দিল্লির শান-শওকত বাড়াতে মুহাম্মদ ঘোরির পদাঙ্ক অনুসরণ করে খিলজি, তুঘলক, তৈমুর, সাইয়িদ, লোদি রাজবংশ পুরনো রাজধানী ফিরোজাবাদের আশেপাশে নানা নির্মাণ ও স্থাপনায় ভরিয়ে দেন, যা আরো সমৃদ্ধি লাভ করে মুঘল শাসনামলে। মুঘল শাসনের প্রতিষ্ঠাতা জহিরউদ্দিন মুহাম্মদ বাবর ১৫২৬ সালে দিল্লির সন্নিকটের পানিপথ প্রান্তরের যুদ্ধে বিজয়ী হয়ে আগ্রায় তার ঘাঁটি স্থাপন করেন। বাবরের পুত্র নাসিরউদ্দিন মুহাম্মদ হুমায়ুন দিল্লির যমুনা তীরে একটি নতুন আবাসস্থল গড়েন। শেরশাহের কাছে হুমায়ুন পরাজিত হলে তার আবাসও গুরুত্ব হারায়। শেরশাহ দিল্লির দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে শেরশাহী কিল্লাহ স্থাপন করেন, যা বর্তমানে পুরনো কিল্লাহ দুর্গ নামে পরিচিত।

শেরশাহের মৃত্যুর পর দিল্লি তথা ভারতের শাসন পুনরায় মুঘলদের হস্তগত হয়। হুমায়ুন-পুত্র আকবর এবং পরবর্তী শাসকগণ দিল্লির উন্নতিতে কাজ করেন। যদিও তাদের রাজধানী ছিল আগ্রা, ফতেহপুর সিক্রি, লাহোর তথাপি সামরিক ও রাজনৈতিক দিক থেকে দিল্লির গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান অক্ষুন্ন থাকে। মুঘল স¤্রাট শাহজাহানের নাম দিল্লির ইতিহাসে একজন অন্যতম প্রধান নির্মাতা রূপে উজ্জ্বল হয়ে আছে। তিনি তার প্রকৌশলী, স্থপতি ও জ্যোতিষীদের রাজধানী আগ্রা ও লাহোরের মধ্যবর্তী কোথাও হালকা জলবাযু ও কৌশলগত অবস্থানের একটি জায়গায় নতুন রাজধানী স্থাপনের নির্দেশ দেন। সর্বসম্মতভাবে শেরশাহ নির্মিত দিল্লির পুরনো কিল্লাহর ঠিক উত্তরে যমুনা নদীর পশ্চিম তীরে স্থান নির্বাচিত হয়। স¤্রাট শাহজাহান তার দুর্গ ‘উর্দু-ই-মুয়াল্লা‘কে কেন্দ্র করে নতুন রাজধানী ‘শাহজহাানাবাদ‘ নির্মাণ শুরু করেন, যা বর্তমানে লাল কিল্লাহ নামে পরিচিত। লাল কিল্লাহ নির্মাণে সময় লাগে আট বছর। সঙ্গে জামা মসজিদসহ আরো অনেক নান্দনিক স্থাপনা তৈরি করেন শাহজাহান। যেগুলোর অধিকাংশই ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃত ওয়াল্ড হেরিটেজ বা বিশ^ঐতিহ্যের অংশ। শাহজাহান তার নতুন রাজধানীকে অনেকগুলো প্রাচীর ও গেট দিয়ে সুশোভিত করেন। যার মধ্যে কাশ্মীরি গেট, দিল্লি গেট, আজমেরি গেট, তুর্কমান গেট বর্তমানেও দাঁড়িয়ে আছে। বস্তুতপক্ষে, পুরনো দিল্লির বৃহত্তর অংশ শাহজাহান কর্তৃক নিমিত। এ কারণে, পুরনো দিল্লির আরেক নাম শাহজাহানাবাদ।

১৮ শতকের মাঝামাঝি সময়ে মুঘল সাম্রাজ্যের পতনকালে দিল্লি নানা শক্তির দ্বারা লুণ্ঠিত ও আক্রান্ত হয়। যেহেতু শেষ দিকের দিল্লির শাসকগণ যথেষ্ট শক্তিশালী ছিলেন না, ছিলেন দুর্বল ও ক্ষয়িষ্ণু, সেহেতু শিখ, মারাঠা, পারসিক সেনাদল দিল্লি আক্রমণ ও লুটপাট করে। সবচেয়ে জঘন্য হামলা চালিয়ে দিল্লি দখল করে ইংরেজরা। সিপাহী বিদ্রোহের সময় দিল্লির শেষ সম্রাট বাহাদুর শাহ জাফর স্বাধীনতার নেতৃত্ব দিয়ে ইংরেজদের হাতে পরাজিত হওয়ায় চরম লাঞ্ছনা, প্রতিহিংসা ও বর্বরতার সম্মুখীন হন। মুঘল রাজপুরুষ ও নারীদের ধরে ধরে হত্যা করা হয়। নগরে চালানো হয় গণহত্যা। মুঘল ঐতিহ্যের নানা নিদর্শন তথা বই, পুস্তক, অলঙ্কার, চিত্রশিল্প লুট করা হয়। অনেক কিছুই জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। হাজার বছরের দিল্লি ইংরেজের আগমনে মÍব্ধ কবরগাহের চেহারা লাভ করে।

১৯১১ সালে কলকাতা থেকে ব্রিটিশ শাসনের রাজধানী দিল্লি স্থানান্তরিত হলে ঐতিহ্যবাহী নগরের মর্যাদা ও সমৃদ্ধি আবার ফিরে আসে। নতুন ব্রিটিশ প্রশাসনিক কেন্দ্র রূপে দিল্লিকে গড়ে তুলতে স্যার এডউইন লুটিয়েন্স-এর নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠিত হয়। তিনি যে শহরের রূপ দেন তা বর্তমানের নতুন দিল্লি। ১৯৩১ সালে পরিকল্পিত নতুন দিল্লির নির্মাণ সমাপ্ত হয়, যাকে বলা হয় ‘লুটিয়েন্সের দিল্লি‘।

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ শাসনের অবসানে ভারতের স্বাধীনতা অর্জিত হলে দিল্লিকে রাজধানী করা হয়। ক্রমেই শাহজাহানাবাদ ও লুটিয়েন্সের দিল্লি একটি আধুনিক মেট্রোপলিটনের অবয়ব লাভ করে যমুনা নদী বরাবর উত্তর ও দক্ষিণ দিক ছাড়িয়ে পূর্ব ও পশ্চিমেও প্রসারিত হয়। জাতীয় রাজধানীর মর্যাদা পেয়ে বৃহত্তর দিল্লির পাশের উত্তর প্রদেশ ও হরিয়ানা রাজ্যের কিছু অংশকেও নিজের অন্তর্ভূক্ত করে। প্রাথমিকভাবে দেশভাগের পর পশ্চিম পাকিস্তান থেকে আগত শিখ শরণার্থীদের চাপ বৃদ্ধি পায় দিল্লিতে। পরে সিন্ধিসহ আরো অনেক জনগোষ্ঠী নতুন দিল্লির নানা স্থানে বসতি স্থাপন করে। দিল্লিতে উর্দুভাষী মুসলিমরা প্রাচীনকাল থেকেই বসবাস করছেন। তদুপরি ভারতের নানা প্রান্তের মানুষের আগমনে দিল্লি একটি বৈচিত্র্যময় ম্যাগাসিটিতে পরিণত হয়েছে, যা এখন বাযু দূষণ ও তাপবৃদ্ধির কারণে দক্ষিণ এশিয়ার শীর্ষতম বিপদজনক শহর। রাজনৈতিক কারণেও দিল্লি সর্বদা উতপ্ত থাকে। নানামুখী আন্দোলন, দাঙ্গা-হাঙ্গামা দিল্লির ইতিহাসের পাতায় লিপিবদ্ধ রয়েছে। যাবতীয় সমস্যা ও অসঙ্গতি নিয়েও দিল্লি এক মৃত্যুহীন এক মহানগরী হয়ে বেঁচে  থেকে ইতিহাসের স্পন্দন জাগাচ্ছে।

ড. মাহফুজ পারভেজ: অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম; চেয়ারম্যান ও প্রফেসর, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও নির্বাহী পরিচালক, চট্টগ্রাম সেন্টার ফর রিজিওনাল স্টাডিজ, বাংলাদেশ (সিসিআরএসবিডি)।

;

আবেদনে লেখা ছিল, ‘চাকরিটি না হলে শৈশবের প্রেমিকাকে বিয়ে করতে পারবো না’



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সাধারণত যেকোনো চাকরির আবেদনের ক্ষেত্রেই প্রার্থী তার পরিচয়, শিক্ষাগত যোগ্যতা, ব্যক্তিত্ব, অন্যান্য দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে থাকেন। কিন্তু এবার ভিন্নধর্মী এক আবেদনপত্রের ঘটনা শুনলে অবাক না হয়ে পারবেন না! সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একজন চাকরি প্রার্থীর একটি আবেদনপত্র ভাইরাল হয়েছে। যা দেখে রীতিমতো অবাক নেট দুনিয়ার মানুষ।

ওই আবেদনপত্রে লেখা ছিল, ‘আমি যদি এই চাকরি না পাই তাহলে আমি আমার শৈশবের প্রেমিকাকে হারাবো’। এখানে বলে রাখা ভালো- এমন অদ্ভুত ঘটনার সাক্ষী বাংলাদেশ নয়, প্রতিবেশি দেশ ভারত। 

ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে এমন বিস্ময়কর তথ্যের খোঁজ দিয়েছে।

ভাইরাল হওয়া ওই আবেদনপত্রটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এক্স-এ শেয়ার করেছেন দেশটির আরভা হেলথের প্রতিষ্ঠাতা এবং চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার দিপালী বাজাজ।

দিপালী বাজাজ জানান, ইঞ্জিনিয়ার পোস্টের জন্য একটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছিল। ওই বিজ্ঞপ্তির আলোকে একটি আবেদন পড়েছিল যেটিতে লেখা ছিল 'আমি যদি এই চাকরি না পাই তাহলে আমি আমার শৈশবের প্রেমিকাকে হারাবো। কারণ তার বাবা জানিয়ে দিয়েছেন চাকরি না পেলে তার মেয়েকে আমার সাথে বিয়ে দিবেন না।'

বাজাজ তার কাছে জানতে চেয়েছিল "কেন আপনি এই চাকরির জন্য উপযুক্ত?" এর প্রত্যুত্তরে তিনি লিখেন, ‘আমি যদি এই চাকরি না পাই তবে আমি আমার প্রেমিকাকে কখনোই বিয়ে করতে পারব না। কারণ তাঁর বাবা বলেছেন, চাকরি পেলেই তুমি তাঁকে বিয়ে করতে পারবে।’

এর একটি স্ক্রিনশট মিসেস বাজাজ এক্স-এ শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেছেন, "নিয়োগ করাও মজার হতে পারে।" পোস্টটি ইতোমধ্যেই ২ দশমিক ২ লাখের বেশি মানুষ দেখেছেন এবং ৪ হাজার লাইক দিয়েছেন।

অনেকেই পোস্টটির নিচে কমেন্টে নিজেদের অভিব্যক্তি তুলে ধরেছেন।

একজন লিখেছেন, "সততার জন্য তাকে নিয়োগ করুন"

আরেকজন লিখেছেন, "লোকটি সৎ। আসল কথা হবে যদি এইচআর তাকে পরবর্তী ধাপের জন্য বিবেচনা করেন।"

তবে এমন কাণ্ডের পর আবেদনকারী চাকরিটা পেয়েছেন কি না সেটা নিশ্চিত না হওয়া গেলেও তিনি যে তার ভালোবাসাকে পূর্ণতা দিতে অটুট তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। 

;

গ্রামীণ শিল্প মৃৎশিল্প

নওগাঁয় হারিয়ে যাচ্ছে মৃৎশিল্প: দইয়ের ভাঁড়ই একমাত্র ভরসা!



শহিদুল ইসলাম, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নওগাঁ
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

নওগাঁ জেলার বিভিন্ন গ্রামে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে মৃৎশিল্পীদের আবাস। এসব গ্রামে প্রায় ৮ থেকে ১০ হাজার মৃৎশিল্পী মাটির জিনিসপত্র তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করেন।

এসব এলাকা থেকে তৈরি মৃৎশিল্পের মনকাড়া পণ্যগুলো দেশের বিভিন্ন স্থানে জায়গা করে নিয়েছিল একসময়। কিন্তু প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা ও বাজারের অভাবে এ শিল্প আজ বিলুপ্তির পথে। এক সময় হয়ত এর স্থান হবে জাদুঘরে। সে সময় আর বেশি দূরে নয়!

পূর্বপুরুষদের এ পেশাটিকে টিকিয়ে রাখতে প্রতিনিয়ত চলছে মৃৎশিল্পীদের জীবনসংগ্রাম। দইয়ের ভাঁড় তৈরি করে সংসারের হাল ধরে রেখেছেন গ্রামীণ নারীরা কিন্তু মৃৎশিল্পকে ধরে রাখতে প্রতিনিয়ত হিমশিম খেতে হচ্ছে কারিগরদের। এ শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে স্বল্প কিংবা বিনা সুদে ঋণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন এ পেশার সঙ্গে জড়িত মৃৎশিল্পীরা।

এক সময় বেশ কদর ছিল মাটির তৈরি জিনিসপত্রের কিন্তু বর্তমানে দস্তা, অ্যালুমিনিয়াম এবং প্লাস্টিক থেকে তৈরি জিনিসপত্রের সঙ্গে টিকে থাকতে পারছে না মৃৎশিল্প। সে কারণে এ পেশার সঙ্গে জড়িতদের জীবন-যাপন হয়ে পড়েছে কষ্টসাধ্য।

নওগাঁর বিভিন্ন উপজেলার গ্রামগুলোতে মাটির হাড়ি তেমন একটা চোখে পড়ে না। এছাড়া মৃৎশিল্প তৈরির উপকরণ মাটির সংকট, জ্বালানির দাম বেশি হওয়ায় এর দামও বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে, মাটির তৈরি জিনিসপত্রের চাহিদাও কমে গেছে।

সরেজমিন নওগাঁ জেলার বদলগাছি উপজেলার পালপাড়া গ্রামে দেখা যায়, প্রায় শতাধিক নারী ও পুরুষ মাটির দইয়ের হাড়ি তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। কেউ মাটিকে নরম করছেন, কেউ ভাঁড়ের আকার দিচ্ছেন আবার কেউ আগুনে পোড়াচ্ছেন। এভাবেই বিশাল এক কর্মযজ্ঞ চলছে সেখানে।

পালপাড়া গ্রামের চন্দনা রানী বার্তা২৪.কমকে বলেন, মাটির তৈরি জিনিসপত্রের চাহিদা কমেছে বলে গ্রামের নারীরা এখন দইয়ের হাড়ি তৈরি করে রোজগার করছেন। দইয়ের হাড়ি ছাড়া আমাদের আর কোনো কাজ নেই তেমন একটা।

তিনি বলেন, বিভিন্ন স্থান থেকে আঁঠালো মাটি কিনে আমরা এ কাজগুলো করি তবে আমাদের যদি সরকারিভাবে সুদমুক্ত ঋণ দেওয়া হয়, তাহলে এ ব্যবসাটাকে আরো বড় করা যেতো।

গৃহবধূ দীপালী মহন্ত বলেন, এ কাজের মাধ্যমে আমাদের সংসার চলে। দইয়ের হাড়ি বানানোর মাধ্যমে যা রোজগার হয়, সেটা দিয়ে স্বামীকে সহযোগিতা করি। ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনার খরচ চালাই। ব্যবসাকে বড় করতে চাই। এজন্য যদি সহযোগিতা পাওয়া যেতো, তাহলে আরো বড় পরিসরে কাজগুলো করা যেতো।

নওগাঁয় হারিয়ে যাচ্ছে মৃৎশিল্প: দইয়ের ভাঁড়ই কেবল ভরসা, ছবি- বার্তা২৪.কম

ব্যবসায়ী তপন কুমার পাল বলেন, কাঁচা অবস্থায় আমরা প্রতিটি দইয়ের হাড়ি ৫ থেকে ৬ টাকা করে কিনি। পরে সেটা পুড়িয়ে ৯ থেকে ১০ টাকা দরে বিক্রি করে থাকি। এক সময় সব ধরনের মাটির জিনিসপত্র তৈরি হতো কিন্তু এখন দইয়ের হাড়িই একমাত্র ভরসা!

তপন কুমার বলেন, মৃৎশিল্পের জন্য নদীর আঁঠালো মাটির দরকার হয়। সারাবছরই এ কাজ করা হয় তবে বর্ষা মৌসুমে এ মাটি সংগ্রহ করা ব্যয়বহুল এবং কষ্টসাধ্য। সারাবছর কাজ করার জন্য চৈত্র ও বৈশাখ মাসে মাটি কিনে সংগ্রহ করতে হয়। সুনিপুণভাবে হাড়ি, ঢাকনা, কাঁসা, পেয়ালা, মাইসা, সাতখোলা, ব্যাংক, কলস, ডাবর, পানি রাখার পাত্রসহ বিভিন্ন জিনিস তৈরি করা হয় এখানে। এগুলোর তেমন একটা চাহিদা না থাকলেও দইয়ের হাড়ির বেশ চাহিদা রয়েছে।

এ বিষয়ে বিসিক (বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন) জেলা কার্যালয়ের উপব্যবস্থাপক শামীম আক্তার মামুন বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমরা সব সময় উদ্যোক্তাদের পাশে আছি। নারী উদ্যোক্তাদের জন্য শতকরা ৫ শতাংশ এবং পুরুষ উদ্যোক্তাদের জন্য শতকরা ৬ শতাংশ বিনা সুদে খুব সহজ পদ্ধতিতে ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা আছে। তারা চাইলে আমাদের কাছ থেকে ঋণ নিতে পারেন।

;

আইসক্রিমের মধ্যে কাটা আঙুল



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আইসক্রিমের মধ্যে কাটা আঙুল

আইসক্রিমের মধ্যে কাটা আঙুল

  • Font increase
  • Font Decrease

অনলাইনে কোনো অ্যাপ থেকে খাবার অর্ডার করলেন। সময়মতো অর্ডার এলো, অনেক আগ্রহে খাবারের প্যাকেট খুললেন। যেই না খাবার খেতে যাবেন ঠিক সেই মুহূর্তেই এমন এক ঘটনা ঘটলো, যার জন্য একেবারেই প্রস্তুত ছিলেন না। খেতে যাওয়ার মুহূর্তে খাবারের মধ্যে যদি কোনো মানুষের শরীরের অংশ পান কেমন বোধ করবেন?

নিশ্চয়ই মনে হচ্ছে কোনো সিনেমা বা নাটকের দৃশ্য। এখন তো দেশি-বিদেশী নানারকম কনটেন্টেই এরকম দৃশ্য দেখা যায়! তবে না, এই ঘটনা একেবারেই বাস্তব। ভারতের এক নারী তার আইসক্রিমের মধ্যে পেলেন মানুষের কেটে যাওয়া একটি আস্ত আঙুল।

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনা ঘটেছে ভারতের বাণিজ্য এবং বিনোদনের শহর মুম্বাইতে। মালাডের শহরতলীতে বসবাসকারী একজন নারী ‘ইউম্মো আইসক্রিম’ থেকে খাবার আনান। অনলাইনে একটি কোণ আইসক্রিম অর্ডার করেছিলেন তিনি। আইসক্রিমটির মোড়ক খুলতেই হতবাক হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। আইসক্রিমের উপরের অংশে মানুষের একটি কাটা আঙুল দেখা যাচ্ছে।

স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনায় তিনি আতঙ্কিত এবং বিরক্ত হয়েছেন। শুধু তাই নয়, এমন একটি ঘটনা যথেষ্ট সন্দেহজনকও। সেই নারী অতিসত্তর অভিযোগ করতে মালাড থানায় যান। আইসক্রিমটিকে নিয়ে যান প্রমাণ হিসেবে। তার ভিত্তিতে খাদ্যে ভেজাল এবং মানুষের জীবন বিপন্ন করার অভিযোগ লেখা হয়। এখন ইউম্মোর বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সেই আইসক্রিমটির ছবি ছড়িয়ে যেতে শুরু করেছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে একটি মানুষের আঙুল আইসক্রিমের ওপরে আটকে আছে। পুলিশ তদন্তের জন্য আইসক্রিমটি পরীক্ষা করছে। তাছাড়া আঙুলটিও ফরেনসিকে পাঠানো হয়েছে। এর পেছনের রহস্য উদঘাটনে পুলিশ এই ব্যাপারটি নিয়ে পুরোদমে তদন্ত চালাচ্ছে।

তথ্যসূত্র: এনডিটিভি 

;