মাতৃভাষা দিবস ও বাংলা ভাষার বিশ্বায়ন



সাঈদ চৌধুরী
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আজ ২১ ফেব্রুয়ারি। মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। জাতিসংঘের উদ্যোগে বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বে ভাষা শহীদদের স্মরণে দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে। লন্ডনেও রয়েছে ব্যাপক আয়োজন।

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ ভারত ভাগ হবার পর ৪৮ সালে পাকিস্তান সরকার ঘোষণা করেছিল, উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা। এ ঘোষণার প্রেক্ষাপটে পূর্ব পাকিস্তানে বাংলাভাষী সাধারণ জনগণের মধ্যে গভীর ক্ষোভের জন্ম হয়। বাংলা ভাষার সম-মর্যাদার জন্য আন্দোলন দানা বেঁধে ওঠে। ১৯৫২ সালের এদিনে ‘বাংলাকে’ রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে ঢাকায় ছাত্র ও যুব সমাজ প্রশাসনের ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করে স্বতঃস্ফূর্তভাবে রাজপথে নেমে আসে। সেদিন ছাত্র-জনতার মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে সালাম, জব্বার, শফিক, বরকত, রফিক প্রমুখ গুলিবিদ্ধ হয়ে শহীদ হন।

ভাষা আন্দোলন ও স্বাধিকার আন্দোলনের পথ বেয়ে একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয় স্বাধীন বাংলাদেশ। তখন শহীদদের আত্মত্যাগের স্মরণে চালু হয় ভাষা শহীদ দিবস। তারপর অধিকতর মূল্যায়ন হয়েছে জাতিসংঘের ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে স্বীকৃতি লাভের ভেতর দিয়ে।

জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সাংস্কৃতিক ফোরাম ইউনেসকো বিশ্বের প্রতিটি ভাষার জনগণকে সচেতন করে তোলার জন্য একটি নির্দিষ্ট দিনকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। যুগান্তকারী এ সিদ্ধান্তটি জানার পর কানাডীয় ১০ জনের একটি গ্রুপ একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের প্রচেষ্টা শুরু করেন। রফিকুল ইসলাম নামের প্রবাসী বাংলাদেশি ভাষাপ্রেমিক জাতিসংঘের তদানীন্তন মহাসচিব কফি আনানের কাছে প্রস্তাব প্রেরণ করেন। এ প্রস্তাব তখন বাংলাদেশের পক্ষে ইউনেসকোতে পাঠানো হয়।


ইউনেসকো‘র সোশ্যাল এনথ্রোপোলজিস্ট আর ভাষাবিদেরা ব্যাপক গবেষণা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌছেন। ১৯৯৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কোর প্যারিস অধিবেশনে এই প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। ১৮৮টি দেশ সমর্থন জানালে ইউনেসকোর ৩১তম এই সম্মেলনে একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এভাবেই আমাদের মাতৃভাষার জন্য আত্মবিসর্জনের দৃষ্টান্ত স্থাপনের ইতিহাস আন্তর্জাতিক মর্যাদায় অভিষিক্ত হয়।

২০০০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে দিবসটি জাতিসংঘের সদস্যদেশ সমূহ তথা বিশ্বময় উদযাপিত হচ্ছে। লন্ডনেও যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়ে আসছে ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এখানে বাংলা ভাষার চর্চা নতুন মাত্রায় পৌঁছেছে। বাংলাদেশ ও পশ্চিম বঙ্গের পর লন্ডনে সবচেয়ে বেশি বাংলা চর্চা হয়। ব্রিকলেন ‘বাংলা টাউন’ এখন ‘তৃতীয় বাংলা’ হিসেবে খ্যাত। গ্রেট বৃটেনে প্রায় ৫ লাখ বাংলাদেশির বসবাস। শুধু টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলে বাস করেন ৫০ হাজারের অধিক।

উনিশ শতকের প্রথম দিকে সিলেট অঞ্চলে বাণিজ্যিকভাবে চায়ের চাষ শুরু হলে চা রফতানির কাজে সিলেটের মানুষ লন্ডন যাত্রা শুরু করেন। এরপর জাহাজ শ্রমিক হিসেবে ব্যাপক হারে মানুষ এখানে পাড়ি জমিয়েছেন। উচ্চতর পড়ালেখার জন্যও এসেছেন অনেকে। ভ্রমণ, কর্মসংস্থান এবং স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ নিয়েও হাজার হাজার মানুষ প্রবাসী হয়েছেন। উচ্চ শিক্ষিতরা বিভিন্ন পেশায় জড়িত হলেও অসীম সাহসী সাধারণ মানুষে এখানে গড়ে তুলেছেন একের পর এক রেষ্টুরেন্ট। গত শতকে বাংলাদেশিদের প্রতিষ্ঠিত প্রায় দশ হাজার রেস্টুরেন্ট এখন বৃটেনের কারি ইন্ডাস্ট্রি হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। আমার সম্পাদিত বাংলাদেশি ব্যবসা-বাণিজ্যের নাম ঠিকানা ও ফোন নাম্বার সম্বলিত ‘ইউকে বাংলা ডাইরেক্টরি’তে এ বিষয়ে ব্যাপক তথ্য সন্নিবেশিত হয়েছে।

২০০৮ সালে আমি বিলেতে বাংলা চর্চা ও বাংলা ভাষার বিশ্বায়ন শীর্ষক একটি গবেষণা গ্রন্থের কাজে বৃটিশ লাইব্রেরিতে অনেক ঘাটাঘাটি করেছি। তখন বাংলা ভাষা ও বাংলা সাংবাদিকতা নিয়ে অনুসন্ধান কর্ম কতটা দ্রুহ ব্যাপার তা হাতে কলমে টের পেয়েছি। আমি তখন এশিয়ান ১৮ হাজার রেষ্টুরেন্টের ঠিকানা সহ ‘ইউকে এশিয়ান রেষ্টুরেন্ট ডাইরেক্টরি’ প্রকাশ করি। এর মধ্যে সাড়ে নয় হাজার অর্থাৎ অর্ধেকের বেশি বাংলাদেশি মালিকানা প্রমাণ করেছি। বৃটিশ লাইব্রেরী এবং অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি সহ বৃটেনের মূল ধারায় ডকুমেন্ট হিসেবে এখন তা প্রযোজ্য। এছাড়া আমার সম্পাদিত ইসলামিক সম্মেলন সংস্থার (ওআইসি) ৫৭টি দেশের তত্ব ও তথ্য সমৃদ্ধ ডাইরেক্টরি ‘মুসলিম ইন্ডেক্স’ ব্যাপক খ্যাতি অর্জন করেছে। সেখানেও বাংলাদেশ এবং বাংলা ভাষা স্থান পেয়েছে খুবই গুরুত্বের সাথে।

অনুসন্ধানে অবশ্য আরও অনেক মজার তত্ব ও তথ্য বেরিয়ে এসেছে। শুধু বাংলাদেশি নয়, বিদেশিরাও বাংলা নিয়ে গবেষণা করছেন। বাংলাদেশ প্রেমিক ড. উইলিয়াম রাদিচে বাংলা ভাষা নিয়ে অনেক কাজ করছেন। তিনি ইউনিভার্সিটি অব লন্ডনের সোয়াস (স্কুল অব ওরিয়েন্টাল এন্ড আফ্রিকান স্টাডিজ) এর শিক্ষক। সেখানে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য গুরুত্বের সঙ্গে চর্চা হয়। অভিবাসিদের মাতৃভাষাকে গুরুত্ব দেয়ায় বৃটেনে বাংলা ভাষাও গুরুত্ব পাচ্ছে।


বিদেশিদের মধ্যে ইংল্যান্ডের জেমস কিথ, ড. সু লয়েড উইলিয়াম ও জেমস লয়েড উইলিয়াম এবং চেকাস্লাভিয়ার পন্ডিত কে সানি বাংলা ভাষাচর্চার অন্যতম পথিকৃৎ। এছাড়া বাংলা চর্চায় রাশিয়ার দানিয়েল চুক এবং মাদাম দিকোভা, জাপানের কাজিমো আজুমা এবং ৎসুইয়োসি নারা, চীনের দং ইউ চেন এবং ম্যা লি উন প্রমুখের নাম উল্লেখ করা যায়। এদের বাইরেও আরও বহু বিদেশি বাংলা ভাষা চর্চা ও গবেষণা অব্যাহত রেখেছেন।

বাংলা ভাষা ও সাহিত্য পঠন-পাঠনে বিদেশে অনেক বিশ্ববিদ্যলয় অবদান রাখছে। ইউনিভার্সিট অব লন্ডন, শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়, ইন্ডিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয়, প্যারিস বিশ্ববিদ্যালয়, মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়, হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়, টরেন্টো বিশ্ববিদ্যালয়, সরবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়, অটোয়া বিশ্ববিদ্যালয়, মস্কো বিশ্ববিদ্যালয়, এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়, প্যাট্রিস লুলুম্বা বিশ্ববিদ্যালয়, করাচি বিশ্ববিদ্যালয় সহ অনেক নামি দামি প্রতিষ্ঠানে বাংলা ভাষার গবেষণা হয়।

সম্প্রতি প্রাগ বিশ্ববিদ্যালয়, পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়, ওয়ারশ বিশ্ববিদ্যালয় এবং টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা পঠন-পাঠন ও গবেষণা চালু হয়েছে। বিশ্বখ্যাত কেম্ব্রিজ এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়েও বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা বাংলা ভাষার চর্চা করে চলেছেন বেশ গুরুত্বের সাথে। বাংলা ভাষার বিশ্বায়নে এসবই নতুন মাত্রার সৃষ্টি করেছে।

বর্তমান পৃথিবীতে ২৯ কোটি লোকের ভাষা বাংলা। জনসংখ্যার দিক থেকে পৃথিবীর ৭ হাজারের অধিক ভাষার মধ্যে এর অবস্থান সপ্তম, মাতৃভাষার দিক থেকে পঞ্চম। বাংলাদেশে প্রায় ১৭ কোটি মানুষ, আরও ১২ কোটি বাস করেন ভারত, মধ্যপ্রাচ্য, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর, জাপানসহ পৃথিবীর বিভিন্ন রাষ্ট্রে। বিভিন্ন দেশে বাংলা ভাষাভাষী মানুষের সংখ্যা যতই বাড়ছে, ততই বাড়ছে এ-ভাষার গুরুত্ব ও মর্যাদা। ফলে ক্রমাগতভাবে বাড়ছে এর চর্চা ও পঠন-পাঠন।
বিলেতের মত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও কাজের ভাষা হিসাবে বাংলা শেখার দরকার পড়ছে সেদেশের নাগরিকদের। ক্রমবর্ধমান বাংলাভাষী মানুষের কারণেই এমনটি সম্ভব হচ্ছে। শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, মধ্যপ্রাচ্যের কোন কোন দেশের নির্দিষ্ট অঞ্চল এমনকি কানাডার কিছু এলাকার প্রধান ভাষা বাংলা। বাংলাভাষী মানুষ বিশ্বায়নের এ যুগে যেখানেই সমাজবদ্ধ হয়েছেন, সেখানেই মুখরিত হয়েছেন নিজেদের সংস্কৃতি ও ভাষা চর্চায়। এভাবেই অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলেছে বিশ্বময় বাংলা ভাষা।

এসব ইতিহাস যথাযথ ভাবে সংগ্রহ করা উচিত। এজন্য রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা আবশ্যক। আরো প্রয়োজন সুনির্দিষ্ট মন্ত্রনালয় ও বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে থাকা বাংলাদেশের এম্বাসি ও হাইকমিশনে বিশেষ সেল। এ যাবত কালে যে কিছু কাজ হয়েছে, তা ইতিহাসের প্রাথমিক স্তম্ভ হিসেবে দাড়িয়ে গেছে। লন্ডনে আমরা যখন কোন মৌলিক বিষয়ে কাজ করি বা গবেষণা করি, তখন রিসার্চ কাজে অসংখ্য রেফারেন্স বুক ও জার্নাল পাওয়া যায়। তথ্যসূত্র (সাইটেশন) উল্লেখ পূর্বক আমরা তা কাজে লাগাতে পারি। কিন্তু আমাদের ভাষা, সাহিত্য কিংবা সাংবাদিকতা নিয়ে তেমন কোন মৌলিক কাজ না থাকায় রেফারেন্স যোগাড় সবচেয়ে কঠিন ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।

এটা অবশ্য সত্য যে, মৌলিক কাজের জন্য প্রয়োজন সময়, মনোযোগ এবং পরিশ্রম। সেই সাথে কৌতূহল বা জানার আগ্রহ। কিন্তু অনুকূল পরিবেশ ও পৃষ্ঠপোষকতা না থাকলে তা নিয়ে বেশি দূর এগুনো যায় না। তবে সমাজের সুশীল অংশ যদি এর গুরুত্ব উপলব্ধি করে তাহলে মঞ্জিলে পৌঁছানো অসম্ভব নয়। বাংলাদেশে ভাষা আন্দোলন তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ। এ আন্দোলনই আমাদের স্বাধীনতার স্বর্ণতোরণে পৌঁছে দিয়েছে।

গত বছরের আগস্ট থেকে ইস্ট লন্ডনের হোয়াইট চ্যাপেল ও বৃকলেন নিয়ে ৬ মাসব্যাপী একটি গ্রুপ ওয়ার্ক করেছি। সবচেয়ে বেশি কাজ হয়েছে গত ফেব্রুয়ারি মাসে। শত বছরের ইতিহাস নিয়ে বিভিন্ন বয়সের নানা বর্ণের লোকজনের সাথে প্রতিদিন কথা বলেছি। নোট নিয়েছি বা রেকর্ড করেছি। ২০ বছর ধরে এখানে সাংবাদিকতা করছি। তারপরও অনেক বিষয় অধরাই ছিল। ঘটনা প্রবাহের প্রেক্ষাপট ও বিবর্তন সম্পর্কে নতুন করে বহু কিছু জানা হল। শতাব্দীর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক বিশ্লেষনে বিলেতের কারী ক্যাপিটেল খ্যাত বৃকলেন ও ফাইনান্সিয়াল সিটি ক্যানারিওয়াফ এবং হোয়াইটচ্যাপেল কেন্দ্রিক বাণিজ্যিক কার্যক্রম, আইরিশ, জুইস সহ বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর আগমন ও প্রত্যাগমন এবং বাঙ্গালির বৃকলেন বিজয় ও বাংলা টাউন ঘোষণা মূল আলোচনায় স্থান পেয়েছে। বিলেতে বাংলা চর্চা ও বাংলা ভাষার বিশ্বায়ন সম্পর্কেও আলোকপাত হয়েছে।

সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে পার্লামেন্ট নির্বাচনে বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসন তথা হোয়াইটচ্যাপেল ও বৃকলেন কেন্দ্রিক রাজনীতিতে উনাকিং পরাজিত ও জর্জ গ্যালাওয়ের বিজয়ী হওয়া এবং পরবর্তীতে রুশনারা আলী এমপি নির্বাচিত আর টাওয়ার হ্যামলেট্স কাউন্সিলে নির্বাহী মেয়র লুৎফুর রহমানের মহা তরঙ্গ। আলতাব আলি হত্যাকাণ্ড, ক্রসরেল ও খুদিলার আন্দোলন অনেকটা ব্যতিক্রমী ঘটনা হিসেবে আলোচনায় এসেছে।

শেষ দিনে পনের জন স্থানীয় স্টেকহোল্ডার, দুইজন বৃটিশ, একজন ইউরোপীয় এ একজন জাপানি সমাজ বিকাশ বিষয়ে অভিজ্ঞ ব্যক্তির মন্তব্য রেকর্ড করলাম। পূর্ব লন্ডনের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং সংহতি নিয়ে মূলধারার এ কাজ অনেক দায়িত্বশীলতা, নিষ্ঠা ও নিয়মানুবর্তিতার সাথে করতে হচ্ছে। ইমিগ্রেশন থেকে বর্ণ-বৈষম্য, খোলা বাজার থেক আধুনিক অট্রালিকা, এলএমসি, রয়্যাল লন্ডন হসপিটাল, ক্রসরেল -এই সবই গবেষণা কর্মের অংশ। তবে প্রতিদিন আসল কাজের বাইরে আরও কিছু সময় দিতে হয়েছে। কমিউনিটির অনেকের সাথে দেখা হয়, তাদের যাপিত জীবন নিয়ে কথা হয়। মাঝে মাঝে বেশ মজার এবং স্মৃতিময় ঘটনাও ঘটেছে।

বিলেতে আমাদের ইতিহাস চর্চার মূল্য অনেক বেশি। বিশ্বময় ছড়িয়ে দেয়া সহজ। তবে বেশ কষ্টসাধ্য ও ব্যয় সাপেক্ষ। আমার অনুসন্ধানে উনিশ শতকের প্রথম দিকে সিলেট অঞ্চলে বাণিজ্যিকভাবে চায়ের চাষ শুরু হলে চা রফতানির কাজে সিলেটের মানুষ বিলেত যাত্রা শুরু করেন। এরপর জাহাজ শ্রমিক হিসেবে ব্যাপক হারে মানুষ বিলেত পাড়ি জমিয়েছেন। উচ্চতর পড়ালেখার জন্যও এসেছেন অনেকে। ভ্রমণ, কর্মসংস্থান এবং স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ নিয়েও হাজার হাজার মানুষ প্রবাসী হয়েছেন। উচ্চ শিক্ষিতরা বিভিন্ন পেশায় জড়িত হলেও অসীম সাহসী সাধারণ মানুষ বিলেতে গড়ে তুলেছেন একের পর এক রেষ্টুরেন্ট। গত শতকে বাংলাদেশিদের প্রতিষ্ঠিত সাড়ে নয় হাজার রেস্টুরেন্ট এখন বৃটেনের কারি ইন্ডাস্ট্রি হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

বৃটিশ দ্বীপপুঞ্জে বসবাসের শতক অনেক আগেই পেরিয়েছে অভিবাসী বাংলাদেশি জনগোষ্ঠি। বৃটেনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪জন এমপি রয়েছেন। বৃটিশ পার্লামেন্টে রুশনারা আলী, টিউলিপ সিদ্দিক, রুপা হক ও আফসানা বেগম শক্তিশালী অবস্থান প্রতিষ্ঠা করেছেন। হাউজ অব লর্ডসে আছেন পলা মন্জিলা উদ্দিন। বিভিন্ন কাউন্সিলে মেয়র ও কাউন্সিলর হয়েছেন বহু বাংলাদেশি। বৃটিশ বাংলাদেশি কূটনীতিবিদ আনোয়ার চৌধুরী বৃটিশ হাই কমিশনার হিসেবে বেশ খ্যাতি কুড়িয়েছেন।
নিজেদের ইতিহাস-ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে ধরে রাখার জন্য প্রবাসী বাংলাদেশিরা গড়ে তুলেছেন মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল, কলেজ এবং সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান। যেখানে ধর্ম ও ভাষা চর্চা চলছে সমান্তরাল ভাবে। বহুজাতিক সমাজের আবাসস্থল মাল্টিকালচারাল লন্ডন সিটিতে ১৩১টি স্পোকেন ল্যাঙ্গুয়েজ আছে। ভাষার দিক থেকে বাংলার অবস্থান এখন চতুর্থ।

বৃকলেন বাংলা টাউন বিলেতের মানচিত্রে একটা আইকনের মর্যাদা পেয়েছে। কিছু কিছু স্কুল-কলেজে জিসিএসই ও এলেভেলে ‘বাংলা ভাষা ও সাহিত্য’ একটা বিষয় হিসেবে পড়ানো হচ্ছে। বিলেতের মাধ্যমিক স্কুলে ছেলে-মেয়েদের বাধ্যতামূলক বিষয় হিসেবে দ্বিতীয় কোন ভাষা পড়তে হয়। টাওয়ার হ্যামলেটসের স্মিদি স্ট্রিট স্কুলে পাইলট প্রজেক্টের অধীনে মডার্ন ফরেন ল্যাঙ্গুয়েজ হিসেবে বাংলা পড়ানো শুরু হয়েছে ২০০৭ সাল থেকে।
বাংলা টাউন থেকে শুরু করে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড বাংলায় হয়েছে। মসজিদ, দোকানপাট, হাসপাতাল, পার্ক সবখানে বাংলার ব্যবহার বেড়েছে। নিউহাম, ওয়েস্টহাম, ক্যামডেন, বার্মিংহাম, মানচেষ্টার, কার্ডিফ ও নিউক্যাসলের মতো এলাকাগুলোতে অনেক প্রতিষ্ঠান ও রাস্তার নাম বাংলায় লেখা আছে ।

বাংলাদেশি কমিউনিটিতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ধর্মীয় আলোচনা ও জাতীয় দিবসগুলো বাংলা চর্চার প্রধান অবলম্বন। বাংলা সংবাদপত্র ও রেডিও-টেলিভিশন এক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে। বাংলা ভাষা ও ধর্মীয় সংস্কৃতি চর্চার লক্ষে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে অনেক প্রবাসী স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য বিলেতে চলে এসেছেন।
লন্ডনে বঙ্গবন্ধু স্কুল, ওসমানী স্কুল, কবি নজরুল প্রাইমারি স্কুল, আলতাব আলী পার্ক, বাংলাদেশ সেন্টার, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার বাঙ্গালি জাতি ও বাংলা ভাষার পরিচয় ধারণ করে আছে। ড্রাইভিং টেস্টের থিওরি পরীক্ষায় এবং এনএইচএস হাসপাতালগুলো ভয়েস ডিরেকশনে অন্যান্য ভাষার পাশাপাশি বাংলা ও সিলেটি আঞ্চলিক ভাষায় নির্দেশনা চালু হয়েছে। স্থানীয় স্কুলগুলোতে স্বকীয় ভাষা হিসেবে বাংলা ও সিলেটি ভাষা তালিকাভুক্ত হয়েছে। অসংখ্য লাইব্রেরিতে এখন বাংলা বই গুরুত্বের সাথে রাখা হয়।
ভাষা আন্দোলনের গৌরবময় দিন একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি লাভ বিশেষ ভাবে বিদেশিদের বাংলা চর্চায় উৎসাহ যুগিয়েছে। বাংলাদেশি হিসেবে নোবেল বিজয়ী ডক্টর মুহাম্মদ ইউনুসের জন্য বাংলার প্রতি আন্তর্জাতিক বিশ্বের আগ্রহ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০০৬ সালের ১৫ ডিসেম্বর লন্ডনের আলেক্সজান্ডার প্যালেসে ডক্টর ইউনুসকে দেয়া সম্বর্ধনা সভায় বৃটিশ ও ইউরোপীয় এমপিসহ প্রায় ২ হাজার মানুষের উপস্থিতি ও ইউরোপীয় মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচার এরই প্রমান বহন করে। বিবিসি, ভয়েস অফ আমেরিকা, ডয়েচে ভেলে, রেডিও জাপান, চীন আন্তর্জাতিক বেতার, মস্কো রেডিও, রেডিও ভেরিটাস, কানাডার বাংলা রেডিও চ্যানেল সহ বিভিন্ন টিভি চ্যানেল বাংলা ভাষার প্রচার-প্রসারে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে।

বিলেতে অধ্যয়ন শেষে অনেক বাংলাদেশি ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছেন। দেশ থেকেও অনেকে গিয়েছেন এশিয়া, ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া এবং আফ্রিকার দেশে দেশে। জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী বাহিনীতে কাজ করছেন বাংলাদেশের সেনা ও নিরাপত্তা বাহিনীর বহু সদস্য। ফলে সেসব স্থানেও বাংলা ভাষা চর্চা হচ্ছে নানাভাবে। রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, টেকনোলজিক্যাল গ্লোবালাইজেশন মানবজাতির ভাষাকেও বিশ্বায়িত করে তুলছে দ্রুতগতিতে। সম্প্রতি সিয়েরা লিয়ন বাংলা ভাষাকে তাদের দেশে দ্বিতীয় ভাষার মর্যাদা দিয়েছে। এভাবেই বাংলা ভাষা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে পৃথিবীব্যাপী।

দীর্ঘদিন বিদেশে বসবাসের ফলে অনেক বাংলাদেশি বিভিন্ন রাষ্ট্রের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়েছেন। রাজনীতিতে আপন কর্মদক্ষতা গুণে অনেকে লাভ করেছেন গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় পদ-পদবি। এতে বাংলা ভাষা ও বাংলাদেশি জাতির মর্যাদা বেড়েছে। প্রায় প্রতিটি দেশেই প্রবাসী বাংলাদেশিরা গড়ে তুলেছেন বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলের শাখা সংগঠন। বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন, বিশ্বে জনমত গঠন, সেমিনার-সিম্পোজিয়াম আয়োজন করে প্রবাসিরা বাংলা ভাষাকে সর্বত্র ছড়িয়ে দিচ্ছেন। এভাবে বিলেতে বাংলাদেশিরা বাংলা ভাষার বিশ্বায়নের নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছেন।
* লেখক: লন্ডন প্রবাসী সাংবাদিক, কবি ও কথাসাহিত্যিক।

 

 

ইতালিতে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপন



ইসমাইল হোসেন স্বপন ইতালি থেকে
ইতালিতে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপন

ইতালিতে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনের মধ্য দিয়ে ইতালির মিলান লোম্বার্দিয়া আওয়ামী লীগ স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপন করেছে।

স্থানীয় সময় শনিবার (২৫ জুন) মিলানস্থ একটি অভিজাত রেস্তোরাঁয় এক আনন্দ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপনে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনসহ সাধারণ প্রবাসীরা এতে অংশ নেয় ।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুল মান্নান মালিথা।এছাড়া আরও বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক নাজমুল কবির জামান, সদস্য আকরাম হোসেন, সহ সভাপতি আবু আলম, খোরশেদ আলম, অপু হোসাইন, যুগ্ম সম্পাদক চঞ্চল রহমান, মঞ্জুরুল হোসেন সাগর, সাংগঠনিক সম্পাদক আরফান সিকদার, প্রচার সম্পাদক মামুন হাওলাদার, মমিনুর রহমান, মিজান হাওলাদার, মিলান বাংলা প্রেসক্লাব ইতালির সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম কাওছার, ইব্রাহিম মিয়া, শামিম হাওলাদারসহ অনেকে।

পদ্মা সেতুর আনন্দে কেক কেটে আনন্দ ভাগাভাগি করেন নেতাকর্মীরা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইমরান হোসাইন, আব্দুল বাছিত, জাসিম আহমেদ, ফয়সাল খান, মাসুদ হাওলাদার, তাজুল খানসহ অনেকে। পদ্মা সেতুর বাস্তবায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বক্তারা।

;

‘পদ্মা সেতু ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের নতুন সম্ভাবনা’



কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে
স্পেনে উৎসাহ ও উদ্দীপনায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদযাপন

স্পেনে উৎসাহ ও উদ্দীপনায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদযাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

দীর্ঘ অপেক্ষার পর শনিবার (২৫ জুন) স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের ইতিহাসে অবকাঠামো হিসেবে সবচেয়ে বড় এ প্রকল্পটি উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থায় নতুন দিগন্তের উন্মোচন হয়েছে। দেশের জন্য ঐতিহাসিক এ দিনটিতে বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনায় স্পেনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উদযাপন করা হয়েছে।

শনিবার (২৫ জুন) স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় দূতাবাস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত বিশেষ এ আনন্দ উৎসবে দূতালয় হল বর্ণাঢ্য ব্যানার ও পোস্টারে সুসজ্জিত করা হয়। আমন্ত্রিত অতিথিসহ দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে বিশেষ এই অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর প্রেরিত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।

আনন্দমুখর বিশেষ এ উৎসবে প্রবাসীদের স্বাগত জানান স্পেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ। দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) মো. মোতাসিমুল ইসলামের প্রাণবন্ত উপস্থাপনায় এসময় বাংলাদেশ দূতাবাসের মিশন উপ-প্রধান এটিএম আব্দুর রউফ মন্ডল, বাণিজ্যিক সচিব রেদোয়ান আহমেদ, কউন্সিলর দীন মোহাম্মদ ইমাদুল হক উপস্থিত ছিলেন।

বিশেষ এই উৎসবে রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ তার বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের জন্য আজ অত্যন্ত আনন্দের দিন। বাংলাদেশ সময় আজ সকালে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ বহুল আকাঙ্ক্ষিত স্বপ্নের পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন করেছেন। এটি বাংলাদেশের ইতিহাসের বিস্ময়। আমাদের জাতীয় জীবনে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে আজ এক বিশাল মাইলফলক অর্জিত হয়েছে।

রাষ্ট্রদূত সারওয়ার মাহমুদ বলেন, পদ্মা সেতু ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের নতুন বাণিজ্য, সম্ভাবনা তৈরি করার পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগ ও বাংলাদেশের ইমেজ বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের রাজনৈতিক মর্যাদা, স্বনির্ভরতা, সাহস, সক্ষমতা ও আত্মবিশ্বাসের প্রতীক। বিশ্বে আমাজনের পরে দ্বিতীয় খরস্রোতা পদ্মা নদীর উপরে সেতু নির্মাণ করে বাংলাদেশ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তিনি তার বক্তব্যে পদ্মা সেতু নির্মাণে প্রবাসীদের অবদানকেও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। তিনি প্রবাসের সকল বাংলাদেশি নাগরিককে স্ব স্ব অবস্থান থেকে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ স্পেন শাখার সভাপতি এসআরআইএস রবিন, সাধারণ সম্পাদক রিজভী আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক বদরুল কামালী, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট তারেক হোসেন।

অনুষ্ঠানে পদ্মা সেতুর উপর নির্মিত ভিডিও ডকুমেন্টারিসহ প্রধানমন্ত্রীর পদ্মাসেতু উদ্বোধনের ভিডিও ক্লিপস প্রদর্শন করা হয়। রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ আমন্ত্রিত অতিথিদের নিয়ে কেক কেটে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদযাপন করেন।

পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ জাতীয় চার নেতা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদের রুহের মাগফিরাত, পদ্মা সেতুর স্থায়ীত্ব এবং দেশ ও জাতির উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত বাংলাদেশিরা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান এবং সেতুর সাথে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

;

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাহরাইনে দূতাবাসের আনন্দ উৎসব



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাহরাইনে দূতাবাসের আনন্দ উৎসব

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাহরাইনে দূতাবাসের আনন্দ উৎসব

  • Font increase
  • Font Decrease

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাহরাইনের বিখ্যাত ডিলমানিয়া মলে বাংলাদেশ দূতাবাসে এক উৎসব অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

শনিবার (২৫ জুন) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে বিদেশি কূটনীতিক, বাহরাইনের সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, লেখক, শিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গসহ, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, বাংলাদেশ স্কুলের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রী এবং বাহরাইনে বসবাসরত বাংলাদেশি প্রবাসীরাসহ দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানটি তিন পর্বে বিভক্ত করা হয়। প্রথম পর্বে পদ্মা বহুমুখী সেতুর উপর নির্মিত প্রামান্যচিত্র প্রদর্শন ও আলোচনা, দ্বিতীয় পর্বে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং সর্বশেষে চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে রাষ্ট্রদূত ড. মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম তার বক্তব্যে বলেন, পদ্মা সেতু হলো বাংলাদেশের জন্য একটি গর্বের সেতু। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় প্রত্যয় ও আত্মবিশ্বাসের কারণে এই পদ্মা সেতু নির্মিত হয়েছে। তিনি এই আনন্দক্ষণে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বের ভূয়সী প্রসংশা করেন এবং বাহরাইন প্রবাসীদের পক্ষ থেকে আন্তরিক অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানান।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতুর মাধ্যমে বাংলাদেশে যোগাযোগের নতুন মাত্রা উন্মোচিত হলো, যা বাংলাদেশের ২১টি জেলার মানুষের জীবনমান বদলে দিবে।

রাষ্ট্রদূত ড. ইসলাম বলেন, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতুটি কোন বিদেশি সাহায্য ব্যতিরেখে সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ করা হয়। সমস্ত দেশি-বিদেষি ষড়যন্ত্রকে উপেক্ষা করে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উচ্চ আয়ের দেশে বাংলাদেশকে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে চলছেন। দেশের উন্নয়নে দলমত নির্বিশেষে সকলকে একযোগে কাজ করার জন্য রাষ্ট্রদূত প্রবাসীদের আহবান জানান।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে রাষ্ট্রদূত অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের সাথে নিয়ে দূতাবাস কর্তৃক আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন যেখানে বাংলাদেশ স্কুল, বাহরাইনের শিক্ষার্থীরা তিনটি দেশীয় গানের সাথে মনোমুগ্ধকর নৃত্য পরিবেশন করেন। এরপর, রাষ্ট্রদূত আগত অতিথিদের সাথে ফটোগ্রাফি প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন। প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও ঐতিহাসিক স্থানসমূহের এমন সৌন্দর্য্যপূর্ণ ছবি দেখে দেশি-বিদেশি দর্শনার্থীরা বাংলাদেশ সম্পর্কে জানতে পেরে আনন্দিত হন।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে রাষ্ট্রদূত অনুষ্ঠানে আগত সকল অতিথি, দর্শনার্থী, বাংলাদেশ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

পরিশেষে, দীর্ঘ প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতুর মাধ্যমে যাতে বাংলাদেশের মানুষ উপকৃত হতে পারে তার জন্য দোয়া কামনা করা হয় এবং উপস্থিত সকলের মাঝে দেশীয় খাবার পরিবেশন করার মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

;

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন: স্বপ্ন পুরনের আনন্দের ঢেউ স্পেনে



কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে
পদ্মা সেতু

পদ্মা সেতু

  • Font increase
  • Font Decrease

অবশেষে দীর্ঘ অপেক্ষার অবসান হচ্ছে। বাংলাদেশের কোটি মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হতে চলেছে আজ ২৫ জুন। এক সময়ের স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে চোখ জুড়াচ্ছে কোটি বাঙালির। বহুল প্রতীক্ষিত লাল-সবুজের গর্বের এই পদ্মা সেতুর গৌরবগাঁথা এবার পৌঁছে গেলো ইউরোপের পর্যটন ও ফুটবলের দেশ খ্যাত স্পেনে।

দেশে-বিদেশে আলোচিত পদ্মা সেতুর স্বপ্ন পুরনের আনন্দের ঢেউ আছড়ে পড়ছে সাত সমুদ্র তের নদীর ওপারে সুদুর স্পেনে বসবাসরত বাংলাদেশিদের মাঝেও।

পদ্মা সেতু নির্মাণ হওয়ায় দেশের মানুষের ন্যায় উচ্ছ্বাসিত স্পেনে বসবাসরত প্রায় ৫০ হাজার বাংলাদেশিও।

বিশ্ব দরবারে পদ্মা সেতুর পটভূমি ও আগমনী বার্তা তুলে ধরতে এবং সেতুর উদ্বোধনকে আরও স্মরণীয় করে রাখতেই স্পেনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে প্রবাসীদের নিয়ে ভিন্নধর্মী বিশেষ আনন্দ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।

বহুল প্রতীক্ষিত স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের দিনকে বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন অভিহিত করে দূতাবাসের মিশন উপ-প্রধান এটিএম আব্দুর রউফ মন্ডল জানান, পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে স্মরণীয় করে রাখতে আজ ২৫ স্থানীয় সময় দুপুর ১২টায় দূতাবাস হলে এক আনন্দ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। এ জন্য কমিউনিটি নেতৃবৃন্দসহ সাংবাদিকদের উপস্থিত থাকার আহবান জানান তিনি।

আজ ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন স্বপ্নের পদ্মা সেতু। ২৬ জুন সকালে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে সেতুটি। সাত সমুদ্দুর তেরো নদীর এপারেও তাই সেই আনন্দের ছটা। চায়ের আড্ডা থেকে শুরু করে রেস্তোরাঁ কিংবা ঘরোয়া আড্ডায় প্রবাসীদের এখন একটাই আলোচনার বিষয়। কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ায় বর্তমান সরকারের ভূঁয়সী প্রশংসার পাশাপাশি সেদিনের বিরোধিতাকারীদেরও সমালোচনায় মুখর প্রবাসীরা।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনকে স্বাগত জানিয়ে, দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সরওয়ার মাহমুদ বলেন, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের মানুষের মর্যাদা ও সক্ষমতার প্রতীক।‘দেশ স্বাধীন করার সময় যেভাবে গোটা জাতি এক হয়েছিল, সেভাবে পদ্মা সেতুর জন্যও দেশে -বিদেশে সবাই এক হয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সময় যেভাবে দেশের মানুষ তার জন্য অপেক্ষা করেছিলেন, ঠিক সেভাবেই এখন দেশের মানুষ পদ্মা সেতুর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন।স্বাধীনতার পর একমাত্র পদ্মা সেতুর জন্যই আবারও গোটা জাতি এক হয়েছে।

বাংলাদেশ দূতাবাস স্পেনের বাণিজ্যিক সচিব রেদোয়ান আহমেদ বলেন, পদ্মার বুকে মাথা উচূ করে দাঁড়ানো সেতুটি আজ থেকে হয়ে উঠেছে বাংলাদেশের আশা আকঙ্ক্ষার প্রতীক। পদ্মা সেতু নির্মাণের মাধ্যমে বিশ্বে বাংলাদেশে বড় বিনিয়োগের জন্য আস্থা তৈরি করেছে। পদ্মা সেতু ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের নতুন বাণিজ্যের সম্ভাবনা তৈরি করার পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগ ও বাংলাদেশের ইমেজ বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

স্পেন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা জাকির হোসেন বলেন, সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে শেখ হাসিনা নিজেই পদ্মা সেতু করলেন। আজ সেই নদীর বুক চিরে পদ্মা সেতু দাঁড়িয়ে যেন বঙ্গবন্ধুকেই কুর্নিশ করছে। এই সেতুর ফলে এখানকার জনপদে উন্নয়নের আলো ছড়িয়ে পড়েছে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আনন্দ উৎসব করা হবে জানিয়ে স্পেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বদরুল কামালী বলেন, যারা পদ্মা সেতুর বিরোধিতা করেছিল, তাদের বাংলাদেশের মানুষের কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত।

;