‘পর্তুগিজ ইন বেঙ্গল’ প্রদর্শনীতে শেষ হলো এস্কুতা ফেস্টিভ্যাল



নাঈম হাসান, লিসবন, পর্তুগাল থেকে
লিসবনে ল্টিকালচারাল ফেস্টিভাল

লিসবনে ল্টিকালচারাল ফেস্টিভাল

  • Font increase
  • Font Decrease

লিসবনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো অভিবাসীদের নিয়ে মাল্টিকালচারাল ফেস্টিভ্যাল । উৎসবের শেষদিনে বাংলাদেশ-পর্তুগাল সম্পর্ক ও পর্তুগিজদের বাংলাদেশ গমনের ঐতিহাসিক তথ্যভিত্তিক একটি প্রামাণ্যচিত্র ‘পর্তুগিজ ইন বেঙ্গল’ প্রদর্শিত হয়।

লিসবনের ঐতিহ্যবাহী ক্যাম্পো মার্টিরেস দ্য পাট্রিয়া পার্কে গত ২১ সেপ্টেম্বর শুরু হয়ে ফেস্টিভ্যাল টি শেষ হয় ২৭ সেপ্টেম্বর। সাতদিনের টানা আয়োজন ব্যাপক সাড়া ফেলে স্থানীয় নাগরিকদের পাশাপাশি প্রবাসী বাংলাদেশি ও বিভিন্ন অভিবাসী কমিউনিটির মাঝে।

ফেস্টিভ্যালে বাংলাদেশি খাবারের প্রদর্শনী স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলে। এছাড়াও ফেস্টিভ্যাল রেডিও এস্কুতায় উঠে আসে প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিভিন্ন গল্প।

ফেস্টিভ্যালের শেষদিনে বাংলাদেশি নির্মাতা নোমান রবিনের বাংলাদেশ-পর্তুগাল সম্পর্ক ও পর্তুগিজদের বাংলাদেশ গমনের ঐতিহাসিক একটি তথ্যভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্র ‘পর্তুগিজ ইন বেঙ্গল’ প্রদর্শিত হয়।



২৭ সেপ্টেম্বর সমাপনী দিনে প্রদর্শিত এ প্রামাণ্যচিত্র দেখতে যোগ দেন বিপুলসংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি। পর্তুগাল-বাংলাদেশ সম্পর্কের ঐতিহাসিক এ প্রামাণ্যচিত্র দেখে নিজেদের ভালো লাগার কথা জানান বেশ কয়েকজন পর্তুগিজ নাগরিক।

স্থানীয় এক পর্তুগিজ নাগরিক জানান, আমি বাংলাদেশে পর্তুগিজদের ইতিহাস সম্পর্কে অনেক কিছুই জানতাম না। এই প্রমাণ্যচিত্রের মাধ্যমে অনেক অজানা তথ্য আর ইতিহাস জানতে পারলাম।

প্রবাসী এক বাংলাদেশি জানান, তিনিও পর্তুগিজদের বাংলাদেশে ভ্রমণ সম্পর্কে অনেক কিছুই জানতেন না। আজ সেই ইতিহাস জানা হলো।

চিত্র প্রদর্শনী, ম্যাগাজিন ছাড়াও পুরো ফেস্টিভ্যালে ছিল বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের খাবার প্রদর্শন ও বিতরণ, সিনেমা, ওয়ার্কশপ, গানের কনসার্ট। এছাড়াও স্থানীয় পর্তুগিজ এবং অভিবাসী শিল্পী ও উদ্যোক্তারা ফেস্টিভ্যালে তাদের চিত্রকর্ম ও বিভিন্ন পণ্য প্রদর্শন করেন।

ফেস্টিভ্যালের আয়োজক ও লারগো রেসিডেন্সিয়াসের পরিচালক মার্তা সিলভা ফেস্টিভ্যালে বাংলাদেশ কমিউনিটি সহ লিসবনে বসবাসরত সব অভিবাসী কমিউনিটিকে ফেস্টিভ্যালে অংশ নেওয়ায় ধন্যবাদ জানিয়েছেন।