দেশবাসীকে বিনা মূল্যে ভ্যাকসিন দেবে অস্ট্রেলিয়া



সাব্বিন হাসান, আইসিটি এডিটর, বার্তা২৪.কম
ফাইল ছবি।

ফাইল ছবি।

  • Font increase
  • Font Decrease

বিনা মূল্যে দেশের সব নাগরিককে করোনা ভ্যাকসিন দেয়ার কথা ভাবছে অস্ট্রেলিয়া সরকার। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি আত্রাজেনেকার যৌথ প্রচেষ্টার করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন শেষ পর্যন্ত কার্যকরী প্রমাণ হলে উদ্যোগটি নিয়ে কাজ করবে অস্ট্রেলিয়া।

রাশিয়া ছাড়া করোনা ভ্যাকসিন উদ্ভাবনে এখন বেশ এগিয়ে আছে আত্রাজেনেকা ও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। অস্ট্রেলিয়া এই ভ্যাকসিনের উপরই তাদের আস্থা রাখতে চাইছে।

করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কারে সবার আগে সাফল্যের কথা জানিয়েছে রাশিয়া। তবে দেশটির উদ্ভাবিত ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। বিশ্বের বহু দেশ ও চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা ভ্যাকসিনটি নিয়ে এখনই চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্তে যেতে চায় না।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন জানিয়েছেন, ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ধাপগুলো সফল হলে দ্রুততম সময়ে তা অস্ট্রেলিয়ার সবার জন্য বরাদ্দ করা হবে। সবাই যাতে ভ্যাকসিন পায় তার জন্য আত্রাজেনেকার সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে। চুক্তির আওতায় দেশটির আড়াই কোটি মানুষকে বিনা মূল্যে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া হবে।

করোনা নিয়ন্ত্রণে সাফল্যের পরিচয় দেয়া দেশগুলোর মধ্যে অস্ট্রেলিয়া অন্যতম। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ২৪ হাজারের কাছাকাছি। মারা গেছেন ৪৫০ জন। চিকিৎসাধীন করোনা রোগীর সংখ্যা ৭ হাজার ছাড়িয়েছে। তবে গেল সপ্তাহে সংক্রমণের হার অনেকটাই নিচে নেমে এসেছে।

তবে দেশটিতে এখন দ্বিতীয় ধাপের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। নতুন আক্রান্তদের বেশিরভাগই ভিক্টোরিয়া রাজ্যের। আগস্টের শুরুতে মেলবোর্ন ছাড়াও গোটা ভিক্টোরিয়া শহরে লকডাউন কঠোর করা হয়। রাজ্যটিকে ‘দুর্যোগের রাজ্য’ ঘোষণা করা হয়।

বিনা মূল্যে ভ্যাকসিন দেয়া প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেন, অক্সফোর্ড উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন যদি চূড়ান্তভাবে সফল প্রমাণিত হয়, তাহলে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় তা উৎপাদন করব। দেশের প্রতিটি মানুষ যেন ভ্যাকসিন সেবা পায় তা নিশ্চিত করতে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। অস্ট্রেলিয়ায় সবার জন্য ভ্যাকসিন বাধ্যতামূলক করা হতে পারে।

করোনা ভ্যাকসিনের আলোচিত পাঁচটি প্রচেষ্টা বহুদূর এগিয়েছে। যার মধ্যে আত্রাজেনেকা-অক্সফোর্ড ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সর্বোচ্চ আস্থায় আছে। এ ভ্যাকসিন পেতে উদ্ভাবনী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে এরই মধ্যে চুক্তি করে রেখেছে বিশ্বের বহু দেশ। যুক্তরাষ্ট্র তাদের মধ্যে অন্যতম।