ট্রাম্প অবশেষে যাচ্ছেন, তবে...



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অনেক জল ঘোলা করে এবং প্রাণপণ লড়ে ব্যর্থ হয়ে অবশেষে ক্ষমতা ছেড়ে চলে যেতে সম্মত হয়েছেন আলোচিত-সমালোচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে তিনি রেখে যাচ্ছেন বেশ কিছু কালো দাগ।

ট্রাম্পের বুজরুকি আর হঠকারিতা সারাবিশ্বকে অবাক করেছে। অগ্রসর সমাজে বর্ণবাদ আর বিভেদের কারণ ছিলেন তিনি। ডিকশনারিতে তার আজগুবি কাজ-কারবার স্থান পেয়েছে নতুন শব্দ 'ট্রাম্পিজম' নামে।

এখানেই শেষ নয়। মার্কিন বহুত্ববাদী ও উদার সমাজে হিংসা ও বিদ্বেষের বীজ বপনকারী রূপেও নিন্দিত তিনি। তদুপরি, ক্ষমতা ছেড়ে যাওয়ার আগে ব্যক্তিস্বাধীনতা ও ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্যের দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক ব্যবস্থায় তিনি রোপণ করলেন পরিবারতন্ত্রের বিষবৃক্ষ।

ট্রাম্প ঘোষণা করেছেন যে, তিনি তৃতীয় দফায় ২০২৪ সালে আবার প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচন করতে পারেন। যদি তা না হয় তাহলে তিনি বড় ছেলে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়রকে (৩৭) অথবা মেয়ে ইভানকা ট্রাম্পকে সামনে ঠেলে দিতে পারেন।

৩ নভেম্বর ভোটারের দেয়া রায়ে পরাজিত হন ট্রাম্প। কিন্তু তিনি এই পরাজয় স্বীকারে অব্যাহতভাবে অস্বীকৃতি জানিয়ে যেতে থাকেন। এর জন্য দায়ী করেন মিডিয়াকেও। তবে এ কথা সত্য যে, যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে একজন ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট হিসেবে অন্য সব ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্টের চেয়ে তিনি সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন। তার এত বিপুল পপুলার ভোট পাওয়া এটাই বলে দেয় যে, তার ক্ষমতার মেয়াদ শেষ হলেও সারাদেশে তার প্রভাব প্রতিপত্তি বিরাজমান থাকবে।

ফলে তিনি ২০২৪ সালের নির্বাচনে আবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন। কিংবা তার বড় ছেড়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র অথবা মেয়ে ইভানকা ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থিতা দিতে পারেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ট্রাম্পিজম বা ট্রাম্পবাদের লণ্ঠনকে জ্বালিয়ে রাখার চেষ্টা চলতে পারে। এক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে পারেন ট্রাম্প নিজে। কিংবা সন্তান বা পরিবারের অন্য কাউকে নিয়ে আসতে পারেন সামনে। যদিও ফেসভ্যালু বা মুখের পরিচিতির দিক দিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র এবং তার বোন ইভানকা ট্রাম্পও কম যান না।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের যেসব ঘাঁটি আছে, সেসব স্থানে বেশ জনপ্রিয় ট্রাম্প জুনিয়র। ওইসব ঘাঁটিতে তিনি তার পিতার পক্ষে নিয়মিত প্রচারণা চালিয়েছেন। তিনি যে ২০২৪ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করতে চান, তাও কিন্তু জানান দিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এসব মাধ্যমে এ বছর তিনি একটি ছবি পোস্ট করেছেন। তাতে ‘ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র ২০২৪’ ব্যানারের অধীনে নিজের ছবি পোস্ট করেছেন।

এছাড়াও ডোনাল্ড ট্রাম্পের সবচেয়ে আস্থা-ভাজন ও ঘনিষ্ঠ বলে যে কয়েকজন আছেন তার মধ্যে অন্যতম ইভানকা ট্রাম্প। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পুরো সময়ে হোয়াইট হাউজে তিনি তার স্বামী জারেড কুশনারকে সঙ্গে নিয়ে ট্রাম্পের একজন উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করেছেন। এর ফলে উপদেষ্টা হিসেবে ট্রাম্পের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক শক্তিশালী হয়েছে। তবে বংশ ও তাদের নামের শেষ অংশের সঙ্গে ট্রাম্পের সম্পর্ক থাকা সত্ত্বেও তারাই শুধু যে রিপাবলিকানের প্রার্থী হবেন ২০২৪ সালে ব্যাপারটা কিন্তু তা নয়।

তবে রিপাবলিকান ভোটাররা ট্রাম্পের সঙ্গে সঙ্গে তার পারিবারিক-বংশানুক্রমিক আনুগত্য বজায় রাখবেন নাকি নতুন চিন্তা করবেন, সেটাই বড় প্রশ্ন। আর ট্রাম্প ও তার পুত্র-কন্যা যে ক্ষমতা ছাড়লেও রাজনীতির মাঠ ছেড়ে চলে যাচ্ছেন না, সেটাও স্পষ্ট। ফলে ট্রাম্প যাচ্ছেন বটে। তবে তিনি একেবারেই বিলীন হয়ে হারিয়ে যাচ্ছেন না।

ট্রাম্প অবশেষে যাচ্ছেন, তবে-। ছবি: সংগৃহীত