তাইওয়ান ঘিরে চীনের সামরিক মহড়ায় সংঘাতের শঙ্কা!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসিকে চীন বারবার সতর্ক করার পরও তাইওয়ান সফর করায় অঞ্চলটিতে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। প্রতিক্রিয়া জানাতে তাইওয়ান ঘিরে আজ থেকে আকাশ ও সমুদ্রে ছয় দিনের নজিরবিহীন সামরিক মহড়া চালাতে শুরু করেছে চীন। মহড়া থেকে যে কোনও সময় সংঘাতে রূপ নেওয়ার শঙ্কা রয়েছে বলে সতর্ক করছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা। খবর বিবিসির।

বুধবার (০৩ আগস্ট) ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফর শেষ করার কিছুক্ষণ পরই দেশটির স্বঘোষিত আকাশ-প্রতিরক্ষা সীমার ভেতরে ঢুকে পড়ে ২৭টি চীনা যুদ্ধবিমান।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, চীনের বিমান, ড্রোন, দূরবর্তী কিনমেন দ্বীপের ওপর দিয়ে উড়েছিল। পরে তাদের দেশের সামরিক বাহিনী বিমানটিকে তাড়িয়ে দিতে অগ্নিশিখা ছুড়েছে। যে কোনও হামলা মোকাবিলায় তারা সতর্ক অবস্থানে রয়েছে বলে জানায়।

নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, চীন পেলোসির সফরের বিরুদ্ধে তাদের এই প্রতিবাদী মহড়া থেকে পুরোদস্তুর সংঘাতে জড়িয়ে পড়া এড়াতে চাইলেও পরিস্থিতি গুরুতর হয়ে ওঠার ঝুঁকি রয়েছে।

চীন বলেছে, সামরিক মহড়াটি বিশ্বের ব্যস্ততম জলপথের কয়েকটি স্থানে অনুষ্ঠিত হবে এবং মহড়াতে দূর-পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

বিবিসি জানায়, সংঘর্ষ এড়াতে তাইওয়ান বিমান চলাচলের বিকল্প রুট খুঁজছে। প্রতিবেশী জাপান ও ফিলিপাইনের সঙ্গে বিকল্প রুটে বিমান চলাচলের জন্য আলোচনাও করেছে।

তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং-ওয়েন বলেছেন, তার দেশ বড় ধরনের সামরিক হুমকির মুখে রয়েছে। তবে তাইওয়ান পিছু হটবে না।

তিনি বলেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণ তাইওয়ান প্রণালীর নিরাপত্তাকে বিশ্বব্যাপী মনোযোগের আরেকটি কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করেছে। এই দ্বীপের ওপর যেকোনও আগ্রাসন সমগ্র ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের নিরাপত্তার ওপর ব্যাপক প্রভাব ফেলবে।

চীন সরকারের কাছে তাইওয়ান ইস্যু অত্যন্ত সংবেদনশীল। তাইওয়ানের বেলায় তারা ‘এক চীন নীতি’ অনুসরণ করে। চীনের বৈদেশিক সম্পর্কের বিষয়টিও তাদের ‘এক চীন নীতির’ ওপর অনেকাংশে নির্ভরশীল।

যুক্তরাষ্ট্রের সরকার ব্যবস্থায় তিন নম্বরে থাকা পেলোসির তাইওয়ান সফরকে চীন তাদের অভ্যন্তরীন বিষয়ে বিদেশি হস্তক্ষেপ এবং সর্বভৌমত্বের প্রতি হুমকি বলে বিবেচনা করেছে।

এদিকে পরিস্থিতি শান্ত করার প্রয়াসে জি৭ দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা (কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র) একটি যৌথ বিবৃতি দিয়েছে। বিবৃতিতে তারা বলেছে, চীনের এমন কর্মকাণ্ডের অঞ্চলটিতে অস্থিতিশীলতার ঝুঁকি তৈরি করেছে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, তাইওয়ান প্রণালীতে আক্রমণাত্মক সামরিক তৎপরতার অজুহাত হিসেবে সফরকে ব্যবহার করার কোনো যৌক্তিকতা নেই। আমাদের দেশের আইনপ্রণেতাদের আন্তর্জাতিক ভ্রমণ করার স্বাভাবিক রুটিন ছিল এটি।

চীনের ইস্টার্ন থিয়েটার কমান্ডের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, বুধবার চীনের নৌবাহিনী, বিমান বাহিনী, রকেট ফোর্স, স্ট্রাটেজিক সাপোর্ট বাহিনী এবং জয়েন্ট লজিস্টিক সাপোর্ট ফোর্স তাইওয়ানের উত্তর, দক্ষিণপশ্চিম এবং দক্ষিণপূর্বে আকাশ ও সমুদ্রে মহড়ায় অংশ নিয়েছে।

মহড়ায় চীনের সেনাবাহিনী অবরোধ এবং নিয়ন্ত্রণের অনুশীলন ছাড়াও সমুদ্র ও ভূমি থেকে আক্রমণ চালানোর অনুশীলন করবে।

সামরিক মহড়া চলাকালে ওই এলাকায় বিদেশি জাহাজ ও বিমান প্রবেশ না করাতে বলেছে বেইজিং। বিশ্ববাণিজ্যে তাইওয়ান ও এর আশপাশের জলসীমা গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য রুট। চীনের এমন পদক্ষেপকে ‘আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন’ বলেছে তাইওয়ান।

মিশরে গির্জায় অগ্নিকাণ্ডে ৪১ জনের প্রাণহানি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মিশরে গির্জায় অগ্নিকাণ্ডে ৪১ জনের প্রাণহানি

মিশরে গির্জায় অগ্নিকাণ্ডে ৪১ জনের প্রাণহানি

  • Font increase
  • Font Decrease

মিশরের রাজধানী কায়রোতে একটি গির্জায় রোববার ভোরে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কমপক্ষে ৪১ জন নিহত এবং ৫৫ জন আহত হয়েছে । প্রাণহানির সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা। এই ঘটনায় নিহতদের বেশিরভাগই শিশু বলে জানিয়েছেন ।

রোববার এই তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি ও রয়টার্স।

দেশটির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ইমবাবা জেলার আবু সিফিনি গির্জায় অগ্নিকাণ্ডের কারণ তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি তার ফেসবুক পেজে লিখেছেন, ‘আমি সব ব্যবস্থা গ্রহণ নিশ্চিত করতে সমস্ত রাষ্ট্রীয় পরিষেবা সংস্থাগুলোকে সেখানে পাঠিয়েছি।’

মিসরের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা মেনা জানিয়েছে, কায়রোর ইমবাবার গ্রেটার জেলার আবু সেফেইন চার্চে আগুন লেগেছে। স্থানীয় ফায়ার সার্ভিসের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। আগুন লাগার কারণ এখনও স্পষ্ট নয়।

রয়টার্স বলেছে, ইমবাবার কপটিক আবু সিফিন গির্জায় রোববার সকালের দিকে গণপ্রার্থনা প্রায় ৫ হাজার মানুষ উপাসনার জন্য সমবেত হয়েছিলেন। সেই সময় গির্জার ভেতরে আগুন ছড়িয়ে পড়লে সবাই ছোটাছুটি শুরু করে। অগ্নিকাণ্ডে গির্জার একটি প্রবেশপথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সেখানে পদদলনের ঘটনা ঘটে।

মিশরের কপ্টিক খ্রিস্টানরা মধ্যপ্রাচ্যের বৃহত্তম খ্রিস্টান সম্প্রদায়, তবে সংখ্যালঘু হওয়ায় তারা প্রায় হামলার শিকার হয় । মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ মিশরের ১০ কোটি ৩০ লাখ জনসংখ্যার মধ্যে অন্তত ১ কোটি কপ্টিক খ্রিস্টান রয়েছে ।

;

ভেন্টিলেটর সরানো হয়েছে, কথা বলছেন সালমান রুশদি



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সালমান রুশদি

সালমান রুশদি

  • Font increase
  • Font Decrease

ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত বুকারজয়ী লেখক সালমান রুশদির ভেন্টিলেটর সরানো হয়েছে। এখন তিনি কিছুটা কথা বলতে পারছেন। রোববার (১৪ আগস্ট) প্রতিবেদনে এ খবর দিয়েছে বার্তাসংস্থা এপি।

সহকর্মী লেখক আতিশ তাসির সন্ধ্যায় টুইট করেছেন, সালমান রুশদি ভেন্টিলেটর বন্ধ করে কথা বলছেন এবং মজা করছেন।

এর আগে শুক্রবার সকালে পশ্চিম নিউইয়র্কের শাটোকোয়া ইনস্টিটিউশনের আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেওয়ার সময় সালমান রুশদির ওপর হামলা চালানো হয়। সালমান রুশদির ওপর হামলায় লেবানিজ বংশোদ্ভূত এক মার্কিন নাগরিককে গ্রেফতার করে পুলিশ। হামলাকারীর নাম হাদি মাতার।

রুশদির ওপর চালানো এই হামলায় বিশ্বের অনেকে শোক জানিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এ হামলার নিন্দা জানিয়েছেন।

ঔপন্যাসিক সালমান রুশদী ভারতে জন্মগ্রহণ করেন। পড়াশুনার জন্য যুক্তরাজ্যে যান। ১৯৮১ সালে তার মিডনাইট'স চিলড্রেন বই দিয়ে খ্যাতি পান। শুধু যুক্তরাজ্যেই বইটি দশ লাখ কপির বেশি বিক্রি হয়েছিলো। তার চতুর্থ বইয়ের জন্য তাকে প্রায় দশ বছর আত্মগোপনে থাকতে হয়েছে। এটি হলো ১৯৮৮ সালে প্রকাশিত হওয়া স্যাটানিক ভার্সেস। বইটি বিশ্বজুড়ে মুসলিমদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের জন্ম দেয়। তারা মনে করেন এ বইয়ে ধর্ম অবমাননা করা হয়েছে। অনেক দেশে বইটি পরে নিষিদ্ধ করা হয়। বইটি প্রকাশের এক বছর পর ইরানের ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনি মিস্টার রুশদীর মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করেন।

;

রুশদিকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় হত্যাচেষ্টা মামলা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ ঔপন্যাসিক সালমান রুশদিকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় হাদি মাতারের বিরুদ্ধে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে।

নিউইয়র্ক রাজ্যের চৌতাউকা কাউন্টির প্রসিকিউটর জানিয়েছেন, অভিযুক্ত ব্যক্তি নিজেকে নির্দোষ দাবি করলেও তার জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

রোববার (১৪ আগস্ট) ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

স্থানীয় একটি শিক্ষা কেন্দ্রে আয়োজিত অনুষ্ঠান মঞ্চে রুশদির ওপর হামলা এবং একজন সাক্ষাৎকারকারীকে আক্রমণ করার অভিযোগ আনা হয়েছে মাতারের বিরুদ্ধে।

৭৫ বছর বয়সী ব্রিটিশ ঔপন্যাসিক সালমান রুশদির অবস্থা সংকটাপন্ন।

বুকার পুরস্কারজয়ী লেখক রুশদি ১৯৮১ সালে তার লেখা বই ‘মিডনাইটস চিলড্রেন’ দিয়ে খ্যাতি অর্জন করেন। কিন্তু ১৯৮৮ সালে তার চতুর্থ বই ‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’-এর জন্য তাকে ৯ বছর লুকিয়ে থাকতে হয়েছিল।

‘স্যাটানিক ভার্সেস’ উপন্যাসে ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করা হয়েছে বলে মনে করেন মুসলিমরা। এই বইটি লেখার পর থেকেই বুকার পুরস্কারজয়ী সালমান রুশদিকে অসংখ্যবার হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। বইটি ১৯৮৮ সালে ইরানে নিষিদ্ধ হয়। এর এক বছর পর ইরানের প্রয়াত নেতা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনি রুশদিকে হত্যার ফতোয়া দেন। তার মাথার মূল্য ৩০ লাখ ডলার নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।

ভারতীয় বংশোদ্ভূত লেখক সালমান রুশদির যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য উভয় দেশের নাগরিকত্ব রয়েছে। মত প্রকাশের স্বাধীনতার পক্ষে সোচ্চার এই লেখক বেশ কয়েকবারই নিজের কাজের পক্ষে অবস্থান ব্যক্ত করেছেন।

;

ছুরিকাহত সালমান রুশদি হারাতে পারেন চোখ!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ছুরিকাঘাতে আহত ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ ঔপন্যাসিক সালমান রুশদিকে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়েছে, তিনি কথাও বলতে পারছেন না। এমনকি তিনি একটি চোখ হারাতে পারেন বলে জানিয়েছে তার এজেন্ট অ্যান্ড্রু ওয়াইলি।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) নিউইয়র্কের শিটোকোয়া ইনস্টিটিউটে এক অনুষ্ঠানমঞ্চে কথা বলার সময় রুশদির ঘাড়ে এক হামলাকারী ছুরিকাঘাত করেন। পরে হেলিকপ্টারে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। খবর বিবিসির।

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, মঞ্চে কারো সঙ্গে পরিচয় করানো হচ্ছিল লেখককে। সেই সময় আচমকা তার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন ওই ব্যক্তি।

সালমান রুশদির এজেন্ট অ্যান্ড্রু ওয়াইলি বলেন, খবর ভালো না। সালমান সম্ভবত একটি চোখ হারাবেন। তার বাহুর স্নায়ু বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে এবং তার লিভার ছুরিকাঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

সালমান রুশদির ওপর হামলার পর বিশ্বজুড়ে লেখক এবং রাজনীতিবিদরা মত প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর আক্রমণ বলে তীব্র নিন্দা করেন।

নিউইয়র্ক পুলিশ বলেছে, সন্দেহভাজন হামলাকারী একজন পুরুষ। তিনি মঞ্চে উঠে রুশদি ও তার সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীর ওপর হামলা চালান। রুশদির ঘাড়ে ছুরি দিয়ে বেশ কয়েকটি আঘাত করা হয়েছে। পরে হামলাকারীকে ধরে নিজেদের হেফাজতে নেয় পুলিশ।

ভারতীয় বংশোদ্ভূত বুকার পুরস্কারজয়ী ৭৫ বছর বয়সী লেখক রুশদি ১৯৮১ সালে তার লেখা বই ‘মিডনাইটস চিলড্রেন’ দিয়ে খ্যাতি অর্জন করেন। কিন্তু ১৯৮৮ সালে তার চতুর্থ বই ‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’-এর জন্য তাকে ৯ বছর লুকিয়ে থাকতে হয়েছিল।

‘স্যাটানিক ভার্সেস’ উপন্যাসে ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করা হয়েছে বলে মনে করেন মুসলিমরা। এই বইটি লেখার পর থেকেই বুকার পুরস্কারজয়ী সালমান রুশদিকে অসংখ্যবার হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। বইটি ১৯৮৮ সালে ইরানে নিষিদ্ধ হয়। এর এক বছর পর ইরানের প্রয়াত নেতা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনি রুশদিকে হত্যার ফতোয়া দেন। তার মাথার মূল্য ৩০ লাখ ডলার নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।

;