গাম্বিয়া কেন মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলা করেছে?

খুররম জামান, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
অং সান সু চি, ছবি: সংগৃহীত

অং সান সু চি, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গাম্বিয়া কেন মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলা করেছে? কেন এ মামলা গুরুত্বপূর্ণ? গাম্বিয়ার আইসিজে মামলায় মিয়ানমার কী প্রতিক্রিয়া জানাবে?
এমন সব প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করেছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ। বার্তা২৪. কমের পক্ষ থেকে উত্তরগুলো তুলে ধরা হলো।

১. গাম্বিয়া কেন মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে (আইসিজে) মামলা করেছে?

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী হত্যা, ধর্ষণ এবং অগ্নিসংযোগসহ জাতিগত রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে ব্যাপক অত্যাচার করেছে। নৃশংস এ জাতিগত নির্মূল অভিযান চলাকালে ২০১৭ সালের আগস্টে এটি এত নির্মম ও চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছিল যে ৭ লাখ ৪০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে পালাতে বাধ্য করেছিল। এসব অপরাধ জাতিসংঘ, মিডিয়া এবং হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো পুরোপুরি নথিবদ্ধ করেছে।

ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) ৫৭ সদস্যের সমর্থন নিয়ে আইসিজেতে একটি মামলা দায়ের করেছে গাম্বিয়া। রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের প্রতি নৃশংসতা প্রতিরোধ ও শাস্তি সংক্রান্ত কনভেনশনের বিভিন্ন বিধান লঙ্ঘন করেছে মিয়ানমার। গণহত্যার অপরাধ বা গণহত্যা কনভেনশনে গাম্বিয়া ১৯৭৮ সালে অনুমোদন দিয়েছে, এ মামলাটি কনভেনশনের ৯ নম্বর অনুচ্ছেদে আনা হয়েছে, যা গণহত্যার জন্য একটি রাষ্ট্রের দায়িত্ব সম্পর্কিত এবং এ সম্পর্কিত আইনগুলো যে কোনও পক্ষের মাধ্যমে আইসিজেতে জমা দেওয়ার জন্য পক্ষগুলোর মধ্যে বিরোধের অনুমতি দেয়। আইসিজে আগে নিশ্চিত করেছে যে কনভেনশনের সব সদস্য দেশগুলোর গণহত্যা প্রতিরোধ ও শাস্তি প্রতিষ্ঠার দায়িত্ব রয়েছে। মিয়ানমার ১৯৫৬ সালে গণহত্যা কনভেনশনে স্বাক্ষর করেছে।

আইসিজের সামনে মামলাটি পৃথকভাবে অভিযুক্ত অপরাধীদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা নয় এবং এটি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি) সংশ্লিষ্ট নয়।

বরং এটি জাতিসংঘের সনদ, আইসিজে সংবিধি এবং গণহত্যা কনভেনশনের আইনি বিধানের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে রাষ্ট্র বনাম রাষ্ট্র মামলা।

গাম্বিয়ার করা ফাইলে প্রথমবারের মতো সামনে এসেছে যে অভিযুক্ত অপরাধের সঙ্গে সরাসরি সংযোগ ছাড়াই কোনও দেশ গণহত্যার কনভেনশনে আইসিজের সামনে মামলা আনতে তার সদস্যপদ ব্যবহার করেছে। গাম্বিয়া সম্প্রতি সাবেক প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া জামেহের ২২ বছরের স্বৈরশাসন, দমন ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের নিজস্ব কঠিন ইতিহাস থেকে বেরিয়ে এসেছে। মামলা দায়েরের পরে গাম্বিয়ার বিচারমন্ত্রী আবুব্যাকার তাম্বাদু বলেছেন, এ মামলার উদ্দেশ্য হলো মিয়ানমারকে তার নিজের লোকদের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালানোর ব্যাপারে জবাবদিহি করা।

২. মামলাটি কেন গুরুত্বপূর্ণ?

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা এবং অন্যান্য জাতিগত সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর ওপর সেনাবাহিনী কয়েক দশক ধরে অপরাধ করে আসছে। যার সুস্পষ্ট প্রামাণ রয়েছে। গাম্বিয়া আইসিজেতে মামলা করার আগ পর্যন্ত মিয়ানমার সরকারের নৃশংসতা মূলত বিচারের নাগালের বাইরে ছিল।

এ মামলায় চূড়ান্ত রায় পৌঁছাতে বেশ কয়েক বছর সময় লাগতে পারে, তবে গাম্বিয়া আদালতকে গণহত্যা কনভেনশনের অধীনে রোহিঙ্গা গোষ্ঠী ও গাম্বিয়াদের অধিকার রক্ষার জন্য এবং সম্প্রসারণ রোধে অস্থায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার আদেশ চেয়েছে। আদালতের চূড়ান্ত রায় মুলতবি থাকা বিরোধ সম্পর্কে অস্থায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে শুনানিটি ২০১৯ সালের ১০-১২ ডিসেম্বর নেদারল্যান্ডসের হেগে অনুষ্ঠিত হবে।

গাম্বিয়া আদালতকে চূড়ান্ত জরুরি বিষয় হিসেবে আদেশ দেওয়ার জন্য যে অস্থায়ী ব্যবস্থা নিতে আবেদন করেছে, তার মধ্যে বলা হয়েছে, মিয়ানমারে তাৎক্ষণিকভাবে গণহত্যা রোধের ব্যবস্থা করতে হবে, সামরিক বাহিনী কোনও গণহত্যামূলক কাজ যাতে না করে, সেটা মিয়ানমারের নিশ্চিত করতে হবে এবং মিয়ানমারে গণহত্যা সম্পর্কিত কোনও প্রমাণ ধ্বংস বা অরক্ষিত করা যাবে না।

অস্থায়ী ব্যবস্থা সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময়সীমা তুলনামূলক দ্রুত হতে পারে। ১৯৯৩ সালের ২০ মার্চ ফেডারেল প্রজাতন্ত্রের যুগোস্লাভিয়ার বিরুদ্ধে গণহত্যা কনভেনশন মামলা দায়ের করার সময় বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা অস্থায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে। সেই ক্ষেত্রে আইসিজে বেশ কয়েক সপ্তাহ পরে ১৯৯৩ সালের ৮ এপ্রিল একটি আদেশ জারি করে।

৩. আইসিজেতে গাম্বিয়ার করা মামলায় মিয়ানমার কি সাড়া দেবে?

মিয়ানমার ঘোষণা করেছে, দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদে থাকা স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি তার প্রতিনিধিদলকে মিয়ানমারের জাতীয় স্বার্থ রক্ষার জন্য আইসিজেতে নেতৃত্ব দেবেন। এটি করতে গিয়ে তিনি তার রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি এবং মিয়ানমারের সংসদের সমর্থন পেয়েছেন। সেনাবাহিনী বলেছে, তারা সরকারের সঙ্গে পুরোপুরি সহযোগিতা করবে এবং এর নির্দেশনা অনুসরণ করবে। সরকার স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছে যে মিয়ানমারসহ জাতিসংঘের সমস্ত সদস্য আইসিজে সংবিধি দ্বারা আবদ্ধ।

আইসিজে যাওয়ার আগে অং সান সু চির হেগে দেশের প্রতিনিধিত্ব করার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে জনসমর্থন আদায় করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ নিয়ে যারা তার বা সরকারের সমালোচনা করতে চাইতে পারেন, তারা যথেষ্ট ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন। মিয়ানমার সরকার, সেনাবাহিনী এবং কর্মকর্তাদের নিয়ে সমালোচনা করার কারণে প্রায়ই দেশটিতে গ্রেফতার, বিচার ও শাস্তি দেওয়া হয়।

তবুও, দেশের অভ্যন্তর এবং বাইরের জাতিগত গোষ্ঠীর প্রতিনিধিরা রোহিঙ্গা এবং অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর সেনাবাহিনীর চালানো নৃশংসতার বিরুদ্ধে ঐক্যমত হয়ে আইসিজে কার্যক্রমকে সমর্থন জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে।

৪. আইসিজে কীভাবে নির্দেশ দিতে পারে?

আইসিজের অস্থায়ী ব্যবস্থা সংক্রান্ত আদেশগুলো সদস্যদেশগুলোর জন্য আইনত বাধ্যতামূলক। মিয়ানমারের আইসিজে কর্তৃপক্ষের সুস্পষ্ট স্বীকৃতিটি যে কোনও আইনি প্রশ্ন দিয়ে সরকারকে আদালতের আদেশ ও সিদ্ধান্ত মেনে চলতে হবে। এ মামলায় মিয়ানমার ও গাম্বিয়াকে আদেশ দেওয়ার চার মাস পার হওয়ার আগেই এটি বাস্তবায়নের জন্য গৃহীত পদক্ষেপের প্রতিবেদন দিতে আদালতকে গাম্বিয়া অনুরোধ করেছে।

জাতিসংঘের অন্যান্য সংস্থা আইসিজের আদেশ মানতে চাপ বাড়ানোর পদক্ষেপ নিতে পারে এবং মিয়ানমার মেনে চলতে ব্যর্থ হলে রাজনৈতিক পদক্ষেপ নিতে পারে।

আইসিজে সংবিধির ৪১ (২) অনুচ্ছেদে আদালতের অস্থায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার আদেশগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে জাতিসংঘের সুরক্ষা কাউন্সিলে পাঠানো হবে। এ জাতীয় আদেশ মিয়ানমারে জাতিসংঘের মাধ্যমে স্বাধীন আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের করা ২০১৮ প্রতিবেদনে বর্ণিত গণহত্যা অভিপ্রায়ের কিছু সূচককে সম্বোধন করার জন্য একটি বাধ্যতামূলক রেজোলেশনের মাধ্যমে মিয়ানমারের ওপর কঠোর পদক্ষেপ নিতে কাউন্সিলের ওপর চাপ বাড়িয়ে তুলবে।

উদাহরণস্বরূপ, নিরাপত্তা কাউন্সিল মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের চলাফেরার স্বাধীনতার ওপর বিধিনিষেধ প্রত্যাহার, রাখাইন রাজ্যে মানবিক প্রবেশাধিকারের অপ্রয়োজনীয় নিষেধাজ্ঞাগুলো প্রত্যাহার, বৈষম্যমূলক আইন বাতিল করা এবং রোহিঙ্গাদের পড়াশোনা, স্বাস্থ্যসেবা এবং জীবিকা নির্বাহের ক্ষেত্র সীমাবদ্ধ করার পদ্ধতি নিষিদ্ধ করার জন্য একটি প্রস্তাব পাস করতে পারে। এখনও মিয়ানমারের নেতৃত্ব এবং এর ভেটো শক্তির পক্ষে চীনের সমর্থনের কারণে নিরাপত্তা কাউন্সিল মিয়ানমারের ওপর পদক্ষেপ নিতে পারেনি।

জাতিসংঘ সাধারণ সম্মেলনে একটি প্রস্তাব পাসের মাধ্যমে মিয়ানমারের ওপর আইসিজের আদেশ মানতে এবং এটি আরও শক্তিশালী করতে পারে, যাতে মিয়ানমার সরকারকে তার শর্তাবলী মেনে চলার আহ্বান জানানো হবে।

মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে এভাবেই বাংলাদেশে আশ্রয় নেন রোহিঙ্গারা, ছবি: সংগৃহীত

৫. মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কী অভিযোগ করেছে গাম্বিয়া?

গণহত্যা কনভেনশনের অধীনে গণহত্যা যে হয়েছে, তা প্রতিষ্ঠার জন্য গণহত্যার উদ্দেশ্য দেখানো দরকার, যার অর্থ রাষ্ট্রের গোটা বা আংশিকভাবে একটি জাতীয়, জাতিগত, বর্ণ বা ধর্মীয় গোষ্ঠীকে ধ্বংস করার ইচ্ছা ছিল।

২০১৮ সালে ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং মিশন একটি সুরক্ষিত গোষ্ঠী, গণহত্যা এবং গণহত্যার উদ্দেশ্যগুলোর সূচক হিসেবে রোহিঙ্গাদের অবস্থান সম্পর্কে একটি বিস্তৃত বিশ্লেষণ উপস্থাপন করেছে এবং এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে যারা রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা চালিয়েছিল, তাদের পদক্ষেপগুলো সম্পূর্ণ বা আংশিকভাবে কীভাবে টার্গেট গোষ্ঠীটি ধ্বংস করতে হয়, তার তালিকা তৈরি করে।

ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং মিশন ২০১৯ সালে এই বলে উপসংহার টেনেছে যে মিয়ানমার গণহত্যা কনভেনশনের অধীনে গণহত্যা না করার দায়বদ্ধতা লঙ্ঘন করেছে।

গাম্বিয়ার আবেদন, মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়নের দু’টি উপাদানকে বিশেষ করে গণহত্যার অভিপ্রায়ের পরিচায়ক হিসেবে চিহ্নিত করেছে। রোহিঙ্গাদের আইনি অধিকারের নিয়মতান্ত্রিক অস্বীকৃতি, উল্লেখযোগ্যভাবে বিয়ে ও তাদের জন্মদানের ওপর নিষেধাজ্ঞা, আটক শিবিরে নিয়ে নির্যাতনের মাধ্যমে আন্দোলনের স্বাধীনতায় কঠোর বিধিনিষেধ এবং গোষ্ঠীটিকে নিঃশেষ করতে রোহিঙ্গা পুরুষ, নারী এবং শিশুদের গণহত্যা করতে ২০১৬ সালের অক্টোবর থেকে ২০১৭ সালের আগস্ট পর্যন্ত দেশটির সেনাবাহিনী অপারেশন ক্লিয়ারেন্স নামের অভিযান চালায়।

এ অভিযানের নামে গোটা বা আংশিকভাবে গোষ্ঠীটি ধ্বংস করার ইচ্ছা থেকে রোহিঙ্গা গ্রামগুলো জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। শিশুদের টার্গেট করা বানানো হয়েছে এবং ব্যাপক হারে ধর্ষণ ও যৌন সহিংসতা চালানো হয়েছে।

মামলায় রোহিঙ্গাদের ওপর ক্রমাগত আক্রমণগুলো হাইলাইট করা হয়েছে, উল্লেখযোগ্যভাবে ২০১৮ সালের নভেম্বর থেকে ২০১৯ মের মধ্যে ৩০টিরও বেশি গ্রাম ধ্বংস এবং রোহিঙ্গাদের কোনও খাদ্য না দেওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে। এটি ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং মিশনের সাম্প্রতিক সতর্কতার বিষয়টিও নোট করে যে মিয়ানমারে এখনও ৬ লাখ রোহিঙ্গা আরও গণহত্যার হুমকির মধ্যে বাস করছেন।

৬. আইসিজে গাম্বিয়ার পক্ষে রায় দিলে ক্ষতিগ্রস্তরা কি পেতে পারেন?


গাম্বিয়া আবেদনে আদালতকে এ ঘোষণা করতে বলেছে যে গণহত্যার কনভেনশনের দায়বদ্ধতা মিয়ানমার লঙ্ঘন করে চলেছে। চলমান গণহত্যার কাজ বন্ধ করতে হবে এবং এর দায়বদ্ধতাগুলো মানতে হবে। এতে বলা হয়েছে, গণহত্যায় অপরাধীদের একটি উপযুক্ত ট্রাইব্যুনালের সামনে আনার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে এবং অবশ্যই গণহত্যার শিকার হওয়া রোহিঙ্গাদের ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করতে হবে, বাস্তুচ্যুত
রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তন, তাদের পুরো নাগরিকত্ব এবং মানবাধিকারের প্রতি সম্মান, বৈষম্য, নিপীড়ন থেকে সুরক্ষা দিতে হবে এবং আর যেন গণহত্যা কনভেনশন লঙ্ঘন না করা হয়, সে নিশ্চয়তা দেওয়ারও অনুরোধ জানিয়েছে গাম্বিয়া।

জাতিসংঘের সনদের ৯৪ অনুচ্ছেদের অধীনে সমস্ত সদস্য দেশকে আইসিজের সিদ্ধান্তগুলো মেনে চলতে হবে। জাতিসংঘের সুরক্ষা কাউন্সিলকে কার্যকর করার ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারে এ রায়।

৭. আইসিজের বিচারক কারা?


আইসিজের ১৫ সদস্যের বেঞ্চ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রধান আইনি সিস্টেমগুলোর প্রতিনিধিত্বকারী বিভিন্ন দেশের বিচারকদের সমন্বয়ে গঠিত। আইসিজের বিচারকরা যে কোনও সরকার থেকে স্বতন্ত্রভাবে কাজ করেন। দায়িত্ব পালনের আগে অবশ্যই তাদের খোলা আদালতে ঘোষণা করতে হবে যে তারা নিরপেক্ষ ও আন্তরিকতার সঙ্গে তাদের ক্ষমতা প্রয়োগ করবেন। একেকজন বিচারক ৯ বছরের মেয়াদে নির্বাচিত হন।

আইসিজে সংবিধির ৩১ অনুচ্ছেদের অনুযায়ী আইসিজের বেঞ্চে যদি মামলার কোনো পক্ষের জাতীয়তার বিচারক না থাকে, তাহলে মামলাটিতে কাজ করার জন্য একটি অ্যাডহক বিচারক নিয়োগ করা যায়।

গাম্বিয়া আদালতকে দক্ষিণ আফ্রিকার আইনবিদ ড. নবনাথেম (নাভি) পিল্লিকে অ্যাডহক বিচারক হিসেবে নিয়োগ দিতে বলেছে। পিল ২০০৮ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের হাই কমিশনার হওয়ার আগে রুয়ান্ডার পক্ষে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন।

মিয়ানমার আদালতকে জার্মান একাডেমিক অধ্যাপক ক্লজ ক্রেসকে তার অ্যাডহক বিচারক নিয়োগ করতে বলেছে। ক্রেস জার্মানির কোলোন বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক শান্তি ও সুরক্ষা আইন ইনস্টিটিউটের পরিচালক।

৮. আইসিজে কি অন্যান্য গণহত্যা মামলার রায় দিয়েছে?


২০০৭ সালে আইসিজে রায় দিয়েছে যে বসনিয়া ও হার্জেগোভিনায় গণহত্যা হয়েছিল এবং সার্বিয়া গণহত্যা রোধে তার দায়িত্ব লঙ্ঘন করেছে। আদালত আরও রায় দিয়েছিল যে এ গণহত্যার অন্যতম স্থপতি বসনিয়ার সার্ব জেনারেল রাতকো ম্লাদিককে সাবেক যুগস্লাভিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করার জন্য আন্তর্জাতিক ফৌজদারি ট্রাইব্যুনালে সমর্পণ করতে ব্যর্থ হয়ে সার্বিয়া গণহত্যার শাস্তি দেওয়ার দায়িত্ব লঙ্ঘন করেছে। ২০১১ সালে সার্বিয়া অবশেষে ম্লাদিককে যুগস্লাভিয়ার ট্রাইব্যুনালে সমর্পণ করেছিল।

আপনার মতামত লিখুন :